সেকশনস

শুঁটকি শিল্পের সঙ্গে জড়িতদের মন ভালো নেই

আপডেট : ২৮ নভেম্বর ২০২০, ১২:৩১




শুঁটকি চলতি শুষ্ক মৌসুমে নদী-নালা ও হাওর অঞ্চলে পর্যাপ্ত পরিমাণ মিঠা পানির মাছ ধরা পড়েছে। মেঘনা ও তিতাস নদীর তীরবর্তী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জের লালপুর এবং নাসিরনগর সদরের গাঙ্কুল পাড়ায় শুরু হয়েছে শুঁটকি তৈরির কর্মযজ্ঞ। কর্মব্যস্ত সময় পার করছেন শিল্পের সঙ্গে জড়িত কর্মীরা। তবে করোনার কারণে গত মৌসুমে বিপুল পরিমাণ শুঁটকি অবিক্রিত থাকায় এ বছরের শুঁটকি বিক্রি নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন ব্যবসায়ীরা। অবশ্য আর্থিক প্রতিষ্ঠানসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা করে রফতানির ক্ষেত্রে বাধা দূর করার উদ্যোগ নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা।

খোঁজ নিয়া জানা যায়, এবারও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলার মেঘনার তীরবর্তী লালপুর এবং নাসিরনগরের হাওরপাড়ে বাঁশ-বেত দিয়ে তৈরি করা হয়েছে সারি-সারি মাচা। এসব মাচায় শোল, বোয়াল, পুটিসহ বিভিন্ন প্রজাতির মিঠা পানির মাছ শুকিয়ে তৈরি করা হচ্ছে শুঁটকি। লবনবিহীন হওয়ায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া অঞ্চলের শুঁটকি দেশ ছাড়াও ভারতসহ মধ্যপ্রাচ্যে জনপ্রিয়তা পেয়েছে। তবে করোনার প্রভাবে গত মৌসুমে রফতানির পথ বন্ধ থাকায় অবিক্রিত রয়ে গেছে অন্তত ২০ কোটি টাকা মূল্যের বিপুল পরিমাণ শুকনো মাছ।

এর মধ্যে চলতি মৌসুম শুরু হয়েছে গত সেপ্টেম্বর থেকে। তবে বিগত বছরের ক্ষতির চিন্তা করে বসে নেই মাছ শুকানোর কাজে জড়িতরা। তারা বলছেন, ‘রফতানির পথ খোলা না হলেও এনজিওসহ দাদন ব্যবসায়ীদের থেকে চড়া সুদে আনা বিপুল পরিমাণ অর্থ পরিশোধ করতে গিয়ে তাদের কাজে নামতে হয়েছে।

শুঁটকি লালপুরের ব্যবসায়ী সুজিত চন্দ্র দাস বলেন, আমাদের শুঁটকির ব্যবসা মাত্র শুরু হয়েছে। গতবারের পণ্য অবিক্রিত রয়েছে। মার্কেটে অনেক টাকা বকেয়া রয়েছে। ব্যবসায় অনেক লস হয়েছে। বিদেশে রফতানি বন্ধ থাকার কারণে বেশি ক্ষতি হয়েছে। এছাড়া মার্কেটে করোনার প্রভাব পড়ায় দেশীয় পাইকারেরাও আসছে না আগের মতো। সরকার কোনও সময়েই আমাদের জন্য পদক্ষেপ নেয়নি। এ কারণে এবারও ব্যবসায় লোকসান হতে পারে বলে শঙ্কার কথা জানান ব্যবসায়ী সুজিত দাস।

অপর ব্যবসায়ী সুকমল দাস জানায়, গত বছরের শুঁটকি অনেক আছে। তবু কিছু টাকা লোন নিয়ে এ বছর ব্যবসা করছি। আগে দেশ-বিদেশে এই শুঁটকি রফতানি হতো। তবে করোনার কারণে কোথাও তা পাঠানো যাচ্ছে না। যদি এভাবে চলতে থাকে তাহলে এ বছরেও ব্যবসায়ীরা ক্ষতির মুখে পড়বেন।

তিনি বলেন, ব্যবসা চালিয়ে যাওয়ার জন্য আর্থিক সহায়তার জন্য এনজিওসহ বিভিন্ন বেসরকারি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কাছে যেতে হচ্ছে। ব্যাংকে যদি লোনের জন্য যাই তাহলে আমাদেরকে লোন দেওয়া হয় না। তারা (ব্যাংক কর্তৃপক্ষ) জমির কাগজপত্র চায়, কিন্তু আমাদের জমি নেই। এ কারণে বাধ্য হয়েই এনজিও থেকে লোন নিতে হয়। সহজ শর্তে তফসিলি ব্যাংকগুলো যদি ঋণ দিতো তাহলে আমরা বেঁচে যেতাম।

শুঁটকিপল্লি ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের অর্থনীতি বিভাগের প্রধান এজেডএম আরিফ হোসেন জানান, আমাদের এই ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় অনেক ভালো মানের শুঁটকি উৎপাদন হয়। তবে ব্যবসায়ীরা স্থানীয়ভাবে চড়া সুদে ঋণ নিচ্ছেন। তারা বছরের ছয় মাস ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত থাকেন। এই ব্যবসায়ীদের প্রণোদনার পাশাপাশি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক থেকে সহজ শর্তে ঋণের ব্যবস্থা করা গেলে এই খাত থেকে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন সম্ভব।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক হায়াত উদ-দৌলা-খান জানান, বাংলাদেশ ব্যাংক যে ঋণ দেয়, তাদের কিছু নীতিমালা আছে। ভূমি মালিকানা দেখে তারা ঋণ দেয়। এটি আমাদের দেশে প্রচলিত পদ্ধতি। শুঁটকি মাছ ব্যবসায়ীরা মৌসুমি। সেজন্য তাদের ঋণ পেতে সমস্যায় পড়তে হয়। তবে তারা যেন সহজ শর্তে ঋণ পান, সেই পদক্ষেপ নেওয়া হবে। পাশাপাশি রফতানি বাণিজ্যের বাধাগুলো দূর করার উদ্যোগের কথা জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, তিতাস ও মেঘনা পাড়ের বিভিন্ন শুঁটকি পল্লীতে প্রায় পাঁচ হাজারেরও বেশি শ্রমিকের শ্রম আর ঘামে মৌসুমের আশ্বিন থেকে চৈত্রমাস পর্যন্ত ছয় মাসে অন্তত শত কোটি টাকার শুটকি তৈরি হয়।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

মৃত্যু ৮ হাজার ছাড়ালো

মৃত্যু ৮ হাজার ছাড়ালো

ভাষাসৈনিক আলী তাহের মজুমদার মারা গেছেন

ভাষাসৈনিক আলী তাহের মজুমদার মারা গেছেন

৩৭ দফার ইশতেহার আ.লীগের রেজাউল করিমের

৩৭ দফার ইশতেহার আ.লীগের রেজাউল করিমের

সিসি ক্যামেরার জালে আটকা অপরাধীরা!

সিসি ক্যামেরার জালে আটকা অপরাধীরা!

একজন স্বাস্থ্যকর্মীকে দিয়েই ২৭ জানুয়ারি শুরু হচ্ছে করোনার টিকা প্রয়োগ

একজন স্বাস্থ্যকর্মীকে দিয়েই ২৭ জানুয়ারি শুরু হচ্ছে করোনার টিকা প্রয়োগ

প্রতিপক্ষের হামলায় উপজেলা চেয়ারম্যানের ভাই নিহত

প্রতিপক্ষের হামলায় উপজেলা চেয়ারম্যানের ভাই নিহত

বিদ্যালয় খুললে তিন ফুট দূরত্ব মেনে ক্লাস

বিদ্যালয় খুললে তিন ফুট দূরত্ব মেনে ক্লাস

মশার ওষুধ ঠিক আছে তো?

মশার ওষুধ ঠিক আছে তো?

কোম্পানীগঞ্জে রবিবার অর্ধদিবস হরতাল

ওবায়দুল কাদেরকে নিয়ে কটূক্তিকোম্পানীগঞ্জে রবিবার অর্ধদিবস হরতাল

সংক্রমণ কমছে, করোনা হটানোর এটাই সুযোগ!

সংক্রমণ কমছে, করোনা হটানোর এটাই সুযোগ!

সর্বশেষ

যেভাবে প্রস্তুত হয় ফার্ম ফ্রেশ ইউ এইচটি মিল্ক

যেভাবে প্রস্তুত হয় ফার্ম ফ্রেশ ইউ এইচটি মিল্ক

মৃত্যু ৮ হাজার ছাড়ালো

মৃত্যু ৮ হাজার ছাড়ালো

বনানীতে মরদেহ উদ্ধার, পরিচয় খুঁজছে পুলিশ

বনানীতে মরদেহ উদ্ধার, পরিচয় খুঁজছে পুলিশ

ভারতের ভ্যাকসিন উপহার পেয়ে মানুষ অনেক খুশি: জিএম কাদের

ভারতের ভ্যাকসিন উপহার পেয়ে মানুষ অনেক খুশি: জিএম কাদের

বিনামূল্যে বসতঘর উপহার বিশ্বে নতুন সূচনা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বিনামূল্যে বসতঘর উপহার বিশ্বে নতুন সূচনা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রতিরক্ষামন্ত্রী অস্টিন

যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রতিরক্ষামন্ত্রী অস্টিন

থ্রিডি সিনেমার নায়িকা নায়লা নাঈম!

থ্রিডি সিনেমার নায়িকা নায়লা নাঈম!

চীন না কমালে ভারতও সীমান্তে সেনা কমাবে না: রাজনাথ

চীন না কমালে ভারতও সীমান্তে সেনা কমাবে না: রাজনাথ

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মাধ্যমে মুজিববর্ষের অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মাধ্যমে মুজিববর্ষের অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা

তালেবানের সঙ্গে ট্রাম্পের চুক্তি পুনর্মূল্যায়ন করবেন বাইডেন

তালেবানের সঙ্গে ট্রাম্পের চুক্তি পুনর্মূল্যায়ন করবেন বাইডেন

বার্লিন স্পটলাইটে ভিন্ন ভূমিকায় কামার

বার্লিন স্পটলাইটে ভিন্ন ভূমিকায় কামার

পিএসজিতে নেইমারের ‘সেঞ্চুরি’

পিএসজিতে নেইমারের ‘সেঞ্চুরি’

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ভাষাসৈনিক আলী তাহের মজুমদার মারা গেছেন

ভাষাসৈনিক আলী তাহের মজুমদার মারা গেছেন

৩৭ দফার ইশতেহার আ.লীগের রেজাউল করিমের

৩৭ দফার ইশতেহার আ.লীগের রেজাউল করিমের

প্রতিপক্ষের হামলায় উপজেলা চেয়ারম্যানের ভাই নিহত

প্রতিপক্ষের হামলায় উপজেলা চেয়ারম্যানের ভাই নিহত

কোম্পানীগঞ্জে রবিবার অর্ধদিবস হরতাল

ওবায়দুল কাদেরকে নিয়ে কটূক্তিকোম্পানীগঞ্জে রবিবার অর্ধদিবস হরতাল

‘এত কাজ কেউ করতে পারেনি, জিতলে আরও করবো’

‘এত কাজ কেউ করতে পারেনি, জিতলে আরও করবো’

টেকনাফে ঘর পাচ্ছে ৬০ পরিবার

টেকনাফে ঘর পাচ্ছে ৬০ পরিবার

হেলিকপ্টারে চড়ে গার্মেন্টকর্মীর বিয়ে!

হেলিকপ্টারে চড়ে গার্মেন্টকর্মীর বিয়ে!


[email protected]
© 2021 Bangla Tribune
Bangla Tribune is one of the most revered online newspapers in Bangladesh, due to its reputation of neutral coverage and incisive analysis.