X
মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি ২০২৩
১৬ মাঘ ১৪২৯

যেসব প্রকল্প বদলে দিচ্ছে যশোরের অর্থনীতি   

হেদায়েৎ হোসেন ও তৌহিদ জামান, যশোর থেকে
২৩ নভেম্বর ২০২২, ১৭:৩৩আপডেট : ২৩ নভেম্বর ২০২২, ১৭:৩৪

যেকোনও সময়ের তুলনায় গত এক দশকে যশোরে অবকাঠামোগত উন্নয়ন হয়েছে বেশি। বিশেষ করে জেলার গ্রামীণ পর্যায়ে উন্নয়ন লক্ষ্যণীয়। গ্রামীণ দরিদ্র জনগোষ্ঠীর আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে নিরবিচ্ছিন্নভাবে কাজ করে বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড (বিআরডিবি)। সে লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠানটি বিভিন্ন ধরনের প্রকল্প গ্রহণ করেছে।

মাঠপর্যায়ে বিআরডিবি যেসব কার্যক্রম পরিচালনা করছে সেগুলো হলো—অনানুষ্ঠানিক মানব সংগঠন সৃষ্টি ও আনুষ্ঠানিক মানব সংগঠন সক্রিয়করণ, উদ্বুদ্ধকরণ, আয়বর্ধনমূলক ও দক্ষতা উন্নয়ন এবং সক্ষমতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ, উপকারভোগীদের মূলধন সৃষ্টি ও এর ব্যবস্থাপনা, কৃষি ঋণ, ক্ষুদ্রঋণ বিতরণ ও এর ব্যবস্থাপনা, বিভিন্ন অংশীজনদের মাঝে পল্লী উন্নয়ন কার্যক্রমের সমন্বয় সাধন, পল্লী উন্নয়ন ও দারিদ্র্য বিমোচন বিষয়ক উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন প্রভৃতি। 

বিআরডিবির চলমান কার্যক্রম মূল্যায়নে ২০১০ সালে প্রকাশিত বিআইডিএস’এর সমীক্ষা অনুযায়ী, জিডিপিতে বিআরডিবির অবদান ১ দশমিক ৯৩ শতাংশ। বর্তমানে বিআরডিবি সরকারের পল্লী উন্নয়ন নীতি ও কৌশলের সাথে সঙ্গতি রেখে পল্লীর ক্ষুদ্র ও সম্পদহীন দরিদ্র্য জনগোষ্ঠীকে সমবায় সমিতি ও অনানুষ্ঠানিক দলের আওতায় সংগঠিত করে সমন্বিত পল্লী উন্নয়নের লক্ষ্যে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

বিআরডিবি যশোরের উপ-পরিচালক মো. কামরুজ্জামান জানান, বিআরডিবির রূপকল্প হলো ‘মানব সংগঠন ভিত্তিক উন্নত পল্লী’ এবং অভিলক্ষ্য হলো ‘স্থানীয় জনগোষ্ঠীকে সংগঠিত করে প্রশিক্ষণ, মূলধন সৃজন, আধুনিক প্রযুক্তি, বিদ্যমান সুযোগ ও সম্পদের সমন্বিত ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে আত্মনির্ভরশীল সমৃদ্ধ পল্লী’ গঠন। বর্তমানে বিআরডিবি সদস্যদের আর্থিক সেবাভুক্তি, মানবসম্পদ উন্নয়ন, পল্লীর দরিদ্র জনগোষ্ঠীর সক্ষমতা উন্নয়ন, দারিদ্র বিমোচন নারী ও পুরুষের বৈষম্য দূরীকরণ ও নারীর ক্ষমতায়ন, সম্প্রসারণমূলক কার্যক্রমসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে কর্মসম্পাদন করছে।

যশোরে বাস্তবায়নাধীন ৯ কর্মসূচি ও এডিপিভুক্ত ৪ প্রকল্প

যশোর জেলায় বর্তমানে বিআরডিবির ৯টি কর্মসূচি ও ৪টি এডিপিভুক্ত প্রকল্প বাস্তাবায়নাধীন রয়েছে। এসব প্রকল্প/কর্মসূচির মাধ্যম জেলায় এ পর্যন্ত সমিতি গঠন ৩৩৮১টি, সদস্য ভর্তি ১ লাখ ৮ হাজার ৯০৪ জন, মূলধন গঠন ১৭.৩৯ কোটি টাকা, কৃষি ও ক্ষুদ্র ঋণ বিতরণ ৮৫৭.৭৯ কোটি টাকা, ঋণ আদায় ৭৮৩.৫৪ কোটি টাকা (ঋণ আদায় হার ৯৯ শতাংশ), ঋণগ্রহিতা ১ লাখ ৩৯ হাজার ৬৭ জন, ৩১৬ জন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পোষ্যদের প্রশিক্ষণ এবং তাদের ঋণ সহায়তার পরিমাণ ২.৭৩ কোটি টাকা। এছাড়া ৩৫ হাজার ৭৩৪ জন সুফলভোগীকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে।

সমবায়ী কৃষকদের মাধ্যমে সেচ সুবিধা বাড়াতে মোট গভীর নলকূপ বিতরণ ২৮৫টি এবং অগভীর নলকূপ বিতরণ ২ হাজার ১৬৭টি। অংশীদারিত্বমূলক পল্লী উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় জেলায় এ পর্যন্ত ৪৫৭টি ক্ষুদ্র অবকাঠামো তৈরি করা হয়েছে। এছাড়া প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় করোনা পরিস্থিতিতে পল্লী এলাকার প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে কুটির, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প খাতকে লক্ষ্য করে গ্রামীণ এলাকায় জীবিকায়ন শিল্প পল্লী পুনর্বাসন ও ঋণ দান কার্যক্রম সম্প্রসারণের নিমিত্ত যশোর জেলায় ৮৪৩ জন পল্লী উদ্যোক্তার মধ্যে ৪ শতাংশ সেবামূল্যে ৯.০৫ কোটি টাকা ঋণ বিতরণ করা হয়েছে।
 
বিআরডিবির চলমান সার্বিক কার্যক্রমের অগ্রগতি

মোট সমিতি গঠন করা হয়েছে ৩ হাজার ৩৮১টি। এর মধ্যে ২০০৯ সাল পর্যন্ত গঠন করা হয়েছে ১ হাজার ৪৩৫টি এবং ২০০৯ থেকে ২০২২ পর্যন্ত ১ হাজার ৯৪৬টি। সদস্য ভর্তি হয়েছেন ২০০৯ সাল পর্যন্ত ৯১ হাজার ৩৩৪ জন ও ২০০৯ থেকে ২০২২ পর্যন্ত ১৭ হাজার ৫৭০ জন। পুঁজি গঠন (কোটি টাকা) ২০০৯ সাল পর্যন্ত ৪.৩৫ এবং ২০০৯ থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত ১৩.০৪।

ঋণ সহায়তা প্রদান (কোটি টাকা) ২০০৯ সাল পর্যন্ত ৪১০.৫২ এবং ২০০৯ থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত ৪৪৭.২৭। ঋণগ্রহিতা সদস্য ২০০৯ সাল পর্যন্ত ৮৭ হাজার ৪৮৫ জন এবং ২০০৯ থেকে ২০২২ পর্যন্ত ৫১ হাজার ৫৮২ জন। ঋণ আদায় (কোটি টাকা) ২০০৯ পর্যন্ত ৩৪৭.৫১ এবং ২০০৯ থেকে ২০২২ পর্যন্ত ৪৩৬.০৩। সুফলভোগী প্রশিক্ষণ প্রদান ২০০৯ পর্যন্ত ১৬ হাজার ৩৪৫ জন এবং ২০০৯ থেকে ২০২২ পর্যন্ত ১৯ হাজার ৩৮৯ জন। নারীদের আয়বৃদ্ধিমূলক কর্মকাণ্ড সৃষ্টি ২০০৯ পর্যন্ত ১৯ হাজার ৬২০ জন, ২০০৯ থেকে ২০২২ পর্যন্ত ৪০ হাজার ৩৮০ জন। ২০০৯ থেকে ২০২২ পর্যন্ত জীবিকায়ন শিল্প পল্লী গঠন করা হয়েছে দুটি। 

প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত কোভিড-১৯ প্রণোদনা ঋণ বিতরণ (কোটি টাকা) ৯.০৫, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পোষ্যদের ঋণ বিতরণ (কোটি টাকা) ২০০৯ সাল পর্যন্ত ০.৮৭ এবং ২০০৯ থেকে ২০২২ পর্যন্ত ১৮৬.০৮। ফুলচাষিদের মাঝে ঋণ বিতরণ (কোটি টাকা) ২০০৯ পর্যন্ত ০ এবং ২০০৯ থেকে ২০২২ পর্যন্ত ১.৭৬। ২০০৯ থেকে ২০২২ পর্যন্ত ২ হাজার ৫০৪ জনকে অপ্রধান শস্যের বীজ ও চারা বিতরণ করা হয়েছে। অপ্রধান শস্যের খামার স্থাপন করা হয়েছে ২০০৯ থেকে ২০২২ পর্যন্ত ১৪৫টি, গ্রামোন্নয়ন কমিটি গঠন (সংখ্যা) ২০০৯ থেকে ২০২২ পর্যন্ত ১১৯টি, ক্ষুদ্র অবকাঠামো উন্নয়ন (ভিডিসি স্কিম) ২০০৯ থেকে ২০২২ পর্যন্ত ৪৫৭ টি, কিশোরী সংঘ প্রতিষ্ঠা (প্রতি উপজেলায় ২টি স্কুল) ২০০৯ থেকে ২০২২ পর্যন্ত ১৬টি, কিশোরী সংঘের ছাত্রী সংখ্যা ২০০৯ থেকে ২০২২ পর্যন্ত ১৬০০ জন। ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে ২০০৯ থেকে ২০২২ পর্যন্ত ৭ হাজার ৮১১ সদস্যকে ঋণ বিতরণ করা হয়েছে। জাতীয় পল্লী উন্নয়ন পদক প্রাপ্তি ২০০৯ থেকে ২০২২ পর্যন্ত ৪টি এবং জাতীয় সমবায় পদক প্রাপ্তি ২০০৯ থেকে ২০২২ পর্যন্ত ১টি।

বিআরডিবি যশোর জেলার উন্নয়ন চিত্র

২০১৬ সালের ৫ নভেম্বর ৪৫তম জাতীয় সমবায় দিবস উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে জাতীয় সমবায় পুরষ্কার ২০১৪ গ্রহণ করেন মণিরামপুর উপজেলার বিআরডিবিভুক্ত ‘কাশিমনগর বিত্তহীন সমবায় সমিতি লিমিটেডে’র সভাপতি ইউনুস আলী। ২০২১ সালের ৩০ অক্টোবর জাতীয় পল্লী উন্নয়ন পদক ২০১৫ গ্রহণ করেন অভয়নগর ইউসিসিএ লিমিটেডের সাবেক সভাপতি রওশন আলী মোড়ল। 

২০২০ সালের ২৬ নভেম্বর অপ্রধান শস্য প্রকল্পের প্রকল্পের আওতায় বীজ, চারা ও বৃক্ষরোপণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ। ২০২১ সালের ১ এপ্রিল মণিরামপুর উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা গ্রামে ‘টায়ার-টিউব জাত পণ্য’ জীবিকায়ন শিল্প পল্লী এবং কেশবপুর উপজেলার আলতাপোল গ্রামে ‘কাঠজাত পণ্য’ জীবিকায়ন শিল্প পল্লী উদ্বোধন করেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য এমপি। ১২ আগস্ট ঝিকরগাছা উপজেলায় গদখালীর ফুল চাষিদের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত কোভিড-১৯ প্রণোদনা ঋণ বিতরণ।

উল্লেখ্য, ষাটের দশকে প্রবর্তিত এবং ব্যাপকভাবে প্রশংসিত ‘কুমিল্লা মডেল’ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে স্বাধীন বাংলাদেশে ১৯৭২ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে সমন্বিত পল্লী উন্নয়ন কর্মসূচি (আইআরডিপি) গ্রহণ করা হয়। আইআরডিপি ‘দ্বি-স্তর’ সমবায় পদ্ধতির মাধ্যমে কৃষকদের কৃষি যন্ত্রপাতি সরবরাহ ও প্রযুক্তি হস্তান্তর, প্রশিক্ষণ, ঋণ সহায়তা, বিপণন সুবিধা প্রসারণ, খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধির মাধ্যমে দেশকে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। পল্লী উন্নয়নে আইআরডিডিপ’র সফলতা, অবদান ও গুরুত্ব মূল্যায়ন করে ১৯৮২ সালে এক অধ্যাদেশের মাধ্যমে সরকারি প্রতিষ্ঠান হিসেবে বিআরডিবি প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমান সরকারের আমলে ২০১৮ সাল জাতীয় সংসদে বিআরডিবি আইন পাস হয়।

/এসএইচ/
সর্বশেষ খবর
সংবাদ প্রকাশের পর কুমিল্লার হাইওয়ে হোটেলে অভিযান
সংবাদ প্রকাশের পর কুমিল্লার হাইওয়ে হোটেলে অভিযান
ভাড়াটে খুনি দিয়ে ভাতিজাকে খুন করান সাইফুল
ভাড়াটে খুনি দিয়ে ভাতিজাকে খুন করান সাইফুল
অভিনেত্রী আঁখির অবস্থা এখনও আশঙ্কাজনক
অভিনেত্রী আঁখির অবস্থা এখনও আশঙ্কাজনক
শীতপ্রবণ তেঁতুলিয়ায় আশ্রয়ণ প্রকল্পে বদলে যাওয়া জীবনের গল্প
শীতপ্রবণ তেঁতুলিয়ায় আশ্রয়ণ প্রকল্পে বদলে যাওয়া জীবনের গল্প
সর্বাধিক পঠিত
মঞ্চে না দেখে আসাদকে ডেকে পাঠালেন প্রধানমন্ত্রী
মঞ্চে না দেখে আসাদকে ডেকে পাঠালেন প্রধানমন্ত্রী
এসআইবিএল থেকে মাহবুব-উল-আলমের পদত্যাগ
এসআইবিএল থেকে মাহবুব-উল-আলমের পদত্যাগ
এনআইডি’র সঙ্গে সমন্বয় করে পাসপোর্ট সমস্যা দ্রুত সমাধানের সুপারিশ
এনআইডি’র সঙ্গে সমন্বয় করে পাসপোর্ট সমস্যা দ্রুত সমাধানের সুপারিশ
রাশিয়ার সঙ্গে সরাসরি সংঘাতে প্রস্তুত ন্যাটো?
রাশিয়ার সঙ্গে সরাসরি সংঘাতে প্রস্তুত ন্যাটো?
আলাদা ইউনিট করে রাজউকই পূর্বাচলে নাগরিক সেবা দেবে
আলাদা ইউনিট করে রাজউকই পূর্বাচলে নাগরিক সেবা দেবে