X
সকল বিভাগ
সেকশনস
সকল বিভাগ

চার গ্রাম পুরুষশূন্য, মরদেহ দাফনেরও কেউ নেই

আপডেট : ০৯ জানুয়ারি ২০২২, ১৬:১৯

জামালপুরের বকশীগঞ্জে ভোট কেন্দ্রে পুলিশের ওপর হামলা ও গাড়ি পুড়িয়ে দেওয়ার ঘটনায় ৯২ জনের নাম উল্লেখসহ এক হাজার ৬০০ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। বকশীগঞ্জ থানার এসআই আবু শরিফ বাদী হয়ে গত ৬ জানুয়ারি বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলাটি দায়ের করেন। মামলা নম্বর-২।

গ্রেফতারের ভয়ে উপজেলার মেরুরচর, ফকিরপাড়া, বাঘাডুবা ও ভাটি কলকীহারা—এই চারটি গ্রাম শতভাগ পুরুষশূন্য হয়ে পড়েছে। অভিভাবকদের সঙ্গে শিশু ও বৃদ্ধাসহ ১৫ হাজার মানুষ বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। ফলে যারা মারা যাচ্ছেন, তাদের লাশ দফনের জন্য কাউকে পাওয়া যাচ্ছে না।

বাদী মামলায় উল্লেখ করেন, গত ৫ জানুয়ারি বকশীগঞ্জ উপজেলার মেরুরচর হাসেন আলী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে শান্তিপূর্ভভাবে ভোটগ্রহণ চলছিল। হঠাৎ স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মনোয়ার হোসেনের (হক)নেতৃত্বে একদল জনতা কর্তব্যরত পুলিশের ওপর হামলা করে ব্যালট বাক্স ছিনতাই করার চেষ্টা করে। পুলিশ তাতে বাধা দিলে পুলিশের ওয়াকিটকি ছিনতাই করে নেয় হামলাকারীরা। এ সময় পুলিশের একটি পিকআপ ভ্যানেসহ ৩টি গাড়িতে আগুন দেওয়া হয়। পুলিশ ১৬০টি বুলেট ও ৩২টি টিয়ার সেল নিক্ষেপ করে।

ওই হামলায় বকশীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) আব্দুর রহিম, এসআই আবু শরীফ, এসআই রাজু আহমেদ, এএসআই মজনু মিয়া, আশরাফুল মৃধা, কনস্টেবল আতোয়ার রহমান, রঞ্জু শেখ, আব্দুল মজিদ, আব্দুল আলীম, শাহজাহান, শাহিন, সুজন মিয়া, আলাল উদ্দিন, রবিউল, আবু তাহের, রিফাত হোসেন, নায়েক মাজেদুল ইসলাম, আনসার পিসি সুমন মিয়া ও এপিসি আল মাহমুদসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ১৯ সদস্য গুরুত্বর আহত হন। আহত অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) আব্দুর রহিম রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ওই মামলায় ৭ জনকে গ্রেফতার দেখিয়ে ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন করেছেন মামলার বাদী।

এলাকাবাসী জানান, গত শুক্রবার জুম্মার নামাজের সময় মসজিদগুলো ফাঁকা ছিল। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি ছিল নগণ্য। শুক্রবার বার্ধক্যজনিত কারণে মেরুরচর গ্রামে ৩ জনের মৃত্যু হলে তাদের দাফন করতে সাহস পাননি কেউ। ফলে বকশীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ তালুকদার ও পৌর মেয়র নজরুল ইসলাম সওদাগরের নেতৃত্বে বিশেষ ব্যবস্থাপনায় মৃত ব্যক্তিদের লাশ দাফন করা হয়।

এ ব্যাপারে জামালপুরের পুলিশ সুপার নাসির উদ্দিন আহমেদের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ভিডিও ফুটেজ দেখে মূল অপরাধীদের শনাক্ত করা হচ্ছে। ঘটনার সঙ্গে যারা জড়িত নয়, তাদের কোনও প্রকার ভয়ের কারণ নেই। তাদের হয়রানি করা হবে না।

 

/আইএ/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
মাদকবিরোধী অভিযানের খবর শুনে পালাতে গিয়ে সাবেক চেয়ারম্যানের মৃত্যু
মাদকবিরোধী অভিযানের খবর শুনে পালাতে গিয়ে সাবেক চেয়ারম্যানের মৃত্যু
ভাড়া নিয়ে বিতর্কে রিকশাচালকের আঘাতে পুলিশসহ আহত ৪
ভাড়া নিয়ে বিতর্কে রিকশাচালকের আঘাতে পুলিশসহ আহত ৪
১০ মাসে এডিপি বাস্তবায়ন ৫৫ শতাংশ, স্বাস্থ্য সেবায় বাস্তবায়ন ৩৯ শতাংশ
১০ মাসে এডিপি বাস্তবায়ন ৫৫ শতাংশ, স্বাস্থ্য সেবায় বাস্তবায়ন ৩৯ শতাংশ
পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগে অভিন্ন নীতিমালা তৈরির উদ্যোগ
পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগে অভিন্ন নীতিমালা তৈরির উদ্যোগ
এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
বাবা হত্যায় আটক ব্যক্তিকে ছিনিয়ে নিতে পুলিশের ওপর হামলা
বাবা হত্যায় আটক ব্যক্তিকে ছিনিয়ে নিতে পুলিশের ওপর হামলা
একই সেক্টরে যুদ্ধ করা ২ বীর প্রতীকের একই দিনে মৃত্যু
একই সেক্টরে যুদ্ধ করা ২ বীর প্রতীকের একই দিনে মৃত্যু
বীর প্রতীক সদরুজ্জামান হেলাল আর নেই
বীর প্রতীক সদরুজ্জামান হেলাল আর নেই
চলে গেলেন বীর প্রতীক মতিউর রহমান
চলে গেলেন বীর প্রতীক মতিউর রহমান