X
বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
৯ ফাল্গুন ১৪৩০

জামালপুরে প্রতিবেশীকে হত্যায় একজনের আমৃত্যু কারাদণ্ড

জামালপুর প্রতিনিধি
১৮ অক্টোবর ২০২৩, ১৭:৪৭আপডেট : ১৮ অক্টোবর ২০২৩, ১৭:৪৭

জমি নিয়ে বিরোধের জেরে জামালপুরে প্রতিবেশী আনতাজ আলীকে হত্যার ঘটনায় আবু বক্কর নামে এক ব্যক্তিকে আমৃত্যু কারাদণ্ড ও সাত জনকে খালাস দিয়েছেন আদালত। বুধবার (১৮ অক্টোবর) দুপুরে জামালপুরের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. সুলতান মাহমুদ এ রায় দেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আবুল কাশেম তারা রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। দণ্ডপ্রাপ্ত আবু বক্কর মেলান্দহ উপজেলার শাহাজাদপুর মধ্যপাড়া গ্রামের বাসিন্দা।

মামলার নথি থেকে জানা গেছে, মেলান্দহ উপজেলার শাহাজাদপুর মধ্যপাড়া গ্রামে জমির সীমানা নিয়ে বিরোধের জেরে ২০১৩ সালের ২৯ জুন আনতাজ আলীকে তার বাড়িতে এসে মারধর ও কাঠ দিয়ে মাথায় আঘাত করে গুরুতর আহত করেন প্রতিবেশী আবু বক্কর ও তার লোকজন। পরদিন ৩০ জুন ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়। এর পরদিন আনতাজ আলীর স্ত্রী পিয়ালা বেগম বাদী হয়ে মেলান্দহ থানায় আট জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন। মামলায় আবু বক্করকে প্রধান আসামি করা হয়। অপর আসামিরা হলেন—আবু বক্করের বড় ভাই আবু তাহের, ছোট ভাই মোজাম্মেল, স্ত্রী খুশি বেগম, মা তারা বানু, আবু তাহেরের স্ত্রী রিক্তা বেগম, মোক্তার হোসেন ও ফজলু। ২০১৩ সালের ৭ অক্টোবর আট জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। দীর্ঘ ১০ বছর পর ১১ জনের সাক্ষ্যের ভিত্তিতে আসামিদের উপস্থিতিতে বুধবার মামলার রায় ঘোষণা করেন আদালত। রায়ে আবু বক্করকে আমৃত্যু কারাদণ্ড ও অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় বাকি সাত আসামিকে বেকসুর খালাস দেন বিচারক।

রায়ের প্রতিক্রিয়ায় আনতাজ আলীর মেয়ে আঞ্জু বেগম বলেন, ‘মামলার সব আসামি আমার বাবাকে মারধর করে হত্যা করেছে। ঘটনার দিন আমাকেও মারধর করেছিল তারা। শুধুমাত্র একজনকে সাজা ও বাকিদের খালাস দেওয়ায় এই রায়ে সন্তুষ্ট হতে পারিনি। আমরা উচ্চ আদালতে আপিল করবো।’

/এএম/
সম্পর্কিত
জেলে থেকে পরিকল্পনা, বের হয়ে ডাকাতি
টিপু-প্রীতি হত্যা: ৩৩ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন শুনানি ২৭ ফেব্রুয়ারি
মা-বাবার ঝগড়া, প্রতিবাদ করায় প্রাণ দিতে হলো মেয়েকে
সর্বশেষ খবর
গাইবান্ধা পুরাতন জজ কোর্টের জায়গা লিজের বৈধতা নিয়ে রাজনীতিকদের বিবৃতি
গাইবান্ধা পুরাতন জজ কোর্টের জায়গা লিজের বৈধতা নিয়ে রাজনীতিকদের বিবৃতি
রাতে সড়কে ওঁৎ পেতে থাকে তারা, অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে করতো ছিনতাই
রাতে সড়কে ওঁৎ পেতে থাকে তারা, অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে করতো ছিনতাই
জীবনমান উন্নয়নে বাজেটে বরাদ্দের দাবি উর্দুভাষী অধিকার আন্দোলনের
জীবনমান উন্নয়নে বাজেটে বরাদ্দের দাবি উর্দুভাষী অধিকার আন্দোলনের
কারিগরিসহ উচ্চশিক্ষা চুক্তিতে রাজি বাংলাদেশ-রাশিয়া
কারিগরিসহ উচ্চশিক্ষা চুক্তিতে রাজি বাংলাদেশ-রাশিয়া
সর্বাধিক পঠিত
দুঃখ ঘুচছে উত্তরের, দূরত্ব কমবে ১১২ কিমি
দুঃখ ঘুচছে উত্তরের, দূরত্ব কমবে ১১২ কিমি
লিবিয়ার ‘গেমঘর’ থেকে ফিরে নির্যাতনের লোমহর্ষক বর্ণনা তরুণের
মানবপাচারলিবিয়ার ‘গেমঘর’ থেকে ফিরে নির্যাতনের লোমহর্ষক বর্ণনা তরুণের
আত্মীয় হলেই চাকরি মেলে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে!
আত্মীয় হলেই চাকরি মেলে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে!
৫ লাখ শিক্ষক-কর্মচারীকে অবসর সুবিধা দিতে হাইকোর্টের রায়
এমপিওভুক্ত বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান৫ লাখ শিক্ষক-কর্মচারীকে অবসর সুবিধা দিতে হাইকোর্টের রায়
বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্কে ‘নতুন অধ্যায়’: কী চায় দুই দেশ?
বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্কে ‘নতুন অধ্যায়’: কী চায় দুই দেশ?