আ.লীগ ক্ষমতায় এলে বিএনপি-জামায়াতের জ্বালাও-পোড়াও শুরু হয়: নানক

Send
নীলফামারী প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১১:১৯, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১১:৩২, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৯

নীলফামারীতে আওয়ামী লীগের সম্মেলনে জাহাঙ্গীর কবির নানকআওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে বিএনপি-জামায়াতের জ্বালাও-পোড়াও শুরু হয়। বিভ্রান্তিকর তথ্য দিয়ে সাঈদীকে চাঁদে দেখায়। এটি ওদের অপপ্রচার, ওরা শয়তান, ওরা ইবলিশ। তাদের সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করতে হবে।’

নীলফামারী জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে অংশ নিয়ে বৃহস্পতিবার বিকালে তিনি এই কথা বলেন। প্রায় ১৩ বছর পর এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে কোনও প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় দেওয়ান কামাল আহম্মেদকে সভাপতি এবং মমতাজুল হক সাধারণ সম্পাদক পদে পুনর্নির্বাচিত হয়েছেন। তাদের নিয়ে ৭১ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে নানক বলেন, ‘জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শুধু দেশের সীমানার স্বাধীনতাই চাননি, তিনি গণমানুষের মুক্তি চেয়েছিলেন। আজ তার অবর্তমানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মানুষের সব অধিকারকে অগ্রাধিকার দিয়ে মুক্তির জন্য কাজ করে যাচ্ছেন।’

তিনি বলেন, ‘শিক্ষা মানুষের জম্মগত অধিকার। সে কারণে প্রধানমন্ত্রী সব বিদ্যালয়ে বছরের শুরুতেই শিক্ষার্থীদের হাতে পাঠ্যবই তুলে দিয়েছেন। যা পৃথিবীর অনেক বড় বড় দেশও পারেনি।’

জেলা শহরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে বেলুন এবং পায়রা উড়িয়ে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য রমেশ চন্দ্র সেন এমপি। সম্মেলনের প্রধান অতিথি ছিলেন দলের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক এবং প্রধান বক্তা ছিলেন সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক। এরপর নানকের সভাপতিত্বে দ্বিতীয় অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় সর্বসম্মতিক্রমে ফের দেওয়ান কামাল আহমেদকে সভাপতি এবং মমতাজুল হককে সাধারণ সম্পাদক করে ৭১ সদস্যের ওই কমিটির ২৪ জনের নাম ঘোষণা করা হয়। বাকি সদস্য আগামী এক মাসের মধ্যে নির্বাচন করে কেন্দ্রীয় কমিটির অনুমোদন নেওয়ার নির্দেশ দেন জাহাঙ্গীর কবির নানক।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দেওয়ান কামাল আহমেদের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন নীলফামারী-২ আসনের সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নূর, সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য রাবেয়া আলিম, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সহ-সম্পাদক নাইমুজ্জামান মুক্তা প্রমুখ। সভা পরিচালনা করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মমতাজুল হক।

উল্লেখ্য, ২০০৬ সালের ১৫ জুলাই জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ওই সম্মেলণে দেওয়ান কামাল আহমেদ সভাপতি এবং মমতাজুল হক সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০১২ সালের ১ জানুয়ারি সেই কমিটি কেন্দ্রের অনুমোদন পায়।

 

/এফএস/

লাইভ

টপ