ঘরে বসেই পাওয়া যাবে ভূমি অধিগ্রহণে ক্ষতিপূরণের টাকা

Send
বাগেরহাট প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ০৯:০৮, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০৯:০৮, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২০

এখন থেকে ভূমি অধিগ্রহণের ক্ষতিপূরণের টাকা পেতে আর দিনের পর দিন ছুটতে হবে না জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে। পড়তে হবে না দালালদের খপ্পরে। ঘরে বসেই স্মার্ট ফোনের মাধ্যমে আবেদন করে অনলাইনে জমির মালিকের ব্যাংক হিসাবে চলে যাবে ক্ষতিপূরণের টাকা। বাগেরহাট জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে প্রথমবারের মতো এই সেবার উদ্বোধন করা হয়েছে।
মঙ্গলবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) বিকালে বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলার অর্গানিক বেতাগায় মহিষ প্রজনন কেন্দ্র সম্প্রসারণ প্রকল্পের ভূমি অধিগ্রহণের ক্ষতিপূরণ প্রদান সম্পর্কিত অনলাইনে সেবা কার্যক্রমের উদ্ভোধন করেন ভূমি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মাকছুদুর রহমান পাটওয়ারী।
জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. কামরুজ্জামান, ফকিরহাট উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান স্বপন দাশ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. শাহানাজ পারভীন, সহকারী কমিশনার মো. আলীমুজ্জামান মিলনসহ অনেকে।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, উপ-সচিব মো. দৌলতুজ্জামান খান, মহিষ প্রজনন খামারের ব্যাবস্থাপক ডা. মুহম্মদ নজরুল ইসলাম, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রহিমা সুলতানা বুশরা, উপজেলা কৃষি অফিসার মো. নাছরুল মিল্লাত, প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. পুষ্পেন শিকদারসহ অনেকে।
প্রধান অতিথি বলেন, আগামীতে দেশের প্রতিটি ইউনিয়নে ১টি করে ভূমি অফিস তৈরি করে জনগণের সেবা দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়া হবে। আগে জনগণ সেবা নেওয়ার জন্য সরকারের কাছে যেত এখন সরকার জনগণকে সেবা দেওয়ার জন্য জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে যাচ্ছে।
বাগেরহাট জেলা প্রশাসকের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিক নিজে ঘরে বসে স্মার্ট ফোনের মাধ্যমে অথবা ইউনিয়ন পরিষদের সেবা কেন্দ্রে গিয়ে আবেদন করবে। আবেদনের সঙ্গে তার সব কাগজপত্রের স্ক্যান কপি আপলোড করে দিতে হবে। সংশ্লিষ্ট বিভাগ এটি যাচাই-বাছাই করে শুনানির দিন ধার্য করে এসএমএস’র মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে।
নির্ধারিত দিনে জমির মালিকের কাছে পৌঁছে যাবে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা। শুনানি শেষে তাকে চেক প্রদান করা হবে। ওই চেকের অ্যাডভাইস ও সফট কপি ইমেইলের মাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিকের হিসাব থাকা ব্যাংকে পাঠিয়ে দেওয়া হবে।
সহজ এই পদ্ধতিকে স্বাগত জানিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিক ভবানী দাস বলেন, এমন একটি সহজ পদ্ধতি সবারই উপকারে আসবে।

/এআর/

লাইভ

টপ