বরিশালে নিলামের অতিরিক্ত মালামাল নিয়ে গেলো ঠিকাদার!

Send
বরিশাল প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ০২:৩০, জুলাই ০৬, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০২:৩৭, জুলাই ০৬, ২০২০

বরিশালের বিআরটিসির ডিপো থেকে ট্রাক ভরে মাল নিয়ে যাচ্ছে ঠিকাদারের লোকজন।

বিআরটিসি বরিশাল ডিপোতে চলাচলের অযোগ্য পুরনো বাস ও যন্ত্রাংশ নিলামের মালামাল বুঝিয়ে দেয়ার আড়ালে ঠিকাদারকে অতিরিক্ত মালামাল দেয়া হয়েছে। শনিবার (৪ জুলাই) অনেকটা চুপিসারে ঠিকাদার এছাহাক এন্টারপ্রাইজকে ১০টি পুরনো বাস ও যন্ত্রাংশ বুঝিয়ে দেওয়ার ফাঁকে অন্যান্য পুরনো বাসের যন্ত্রাংশ দেওয়া হয়। বড় অংকের টাকার বিনিময়ে ডিপো ম্যানেজার জমশের আলী ঠিকাদারকে এ সুযোগ করে দেয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এমনকি ঠিকাদারের লোকজনকে অতিরিক্ত মালামাল নেওয়ার সুযোগ করে দিতে ডিপোর ম্যানেজারসহ দায়িত্বপ্রাপ্তরা কৌশলে অফিসের বাইরে অবস্থান নেন এ অভিযোগও করেছেন সংশ্লিষ্টরা। 

তবে সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ডিপো ম্যানেজার।

ডিপো সূত্র জানায়, গত ৮ জুন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশন সারাদেশের ডিপোগুলোতে রক্ষিত অযোগ্য ঘোষিত নিলামকৃত ২৫টি বাস সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কাছে হস্তান্তরের আদেশ জারি করে। এর মধ্যে বরিশাল ডিপোতে ১০টি অযোগ্য বাস রয়েছে। ওই কার্যাদেশ বলে শনিবার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এছাহাক এন্টারপ্রাইজের লোকজন ট্রাক নিয়ে নিলামকৃত বাসের মালামাল নিতে আসে।নিয়মানুযায়ী নিলামকৃত মালামাল বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য কমিটি গঠন এবং তাদের উপস্থিতিতে ঠিকাদারকে মালামাল দেওয়ার কথা।

কিন্তু সকাল থেকে ডিপো ম্যানেজারসহ পদস্থ কর্মকর্তারা কৌশলে কর্মস্থলের বাইরে থেকে তাদের নির্দেশনা অনুযায়ী ঠিকাদারকে অতিরিক্ত মালামাল নিতে সহায়তা করেন। দিনভর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এছাহাক এন্টারপ্রাইজের পক্ষে হায়দার আলী নামের এক ব্যক্তি তার কর্মীদের দিয়ে ডিপোতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা যন্ত্রাংশগুলো ট্রাক বোঝাই করেন।

কিন্তু কী ধরনের যন্ত্রাংশ বা কোন গাড়ির যন্ত্রাংশ কতটুকু নিচ্ছেন তা দেখার কেউ ছিল না সেখানে। উল্টো ডিপো ম্যানেজারের অনুগত কর্মচারীরা দ্রুত মালামাল নিয়ে সটকে পড়তে বলেন ঠিকাদারের লোকজনকে। সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত ডিপোতে এ সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহকালে ম্যানেজার জমশের আলীকে অফিসে কিংবা ডিপোতে উপস্থিত পাওয়া যায়নি।

তবে মোবাইল ফোনে সব অভিযোগ অস্বীকার করে ডিপো ম্যানেজার জমশের আলী জানান, দুপুরের খাবারের সময় ডিপো ত্যাগ করেন। নিলামকৃত মালামাল বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য একটি কমিটি রয়েছে।ওই কমিটির লোকজন ঠিকাদারকে মালামাল বুঝিয়ে দিয়েছেন। 

যদিও ম্যানেজারের এ বক্তব্যের সঙ্গে সরেজমিন ঘটনাস্থলের পরিবেশের কোনও মিল ছিল না।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে এছাহাক এন্টারপ্রাইজের পক্ষে ওই ডিপোতে আসা দায়িত্বশীল কেউ কথা বলতে চাননি।

/আরআইজে/টিএন/

লাইভ

টপ