X
শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
২০ মাঘ ১৪২৯

খুলছে রাণীগঞ্জ সেতু, সুনামগঞ্জ থেকে ৫ ঘণ্টায় ঢাকায়

হিমাদ্রি শেখর ভদ্র, সুনামগঞ্জ
০৬ নভেম্বর ২০২২, ২২:০০আপডেট : ০৬ নভেম্বর ২০২২, ২২:৩২

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার কুশিয়ারা নদীর ওপরে নির্মিত রাণীগঞ্জ সেতুর দুয়ার খুলে যাচ্ছে সোমবার (৭ নভেম্বর)। ১৫৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ৭০২ মিটার দীর্ঘ ও সাড়ে দশ মিটার প্রস্থের এই সেতু চালু হলে রাজধানী ঢাকার সঙ্গে দূরত্ব কমে আসবে ৫৫ কিলোমিটার। এ কারণে আগে যেখানে সাড়ে ছয় ঘণ্টায় ঢাকা পৌঁছাতে হতো, সেখানে পাঁচ থেকে সাড়ে পাঁচ ঘণ্টায় পৌঁছানো সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন পরিবহন সংশ্লিষ্টরা। এছাড়া সেতুটি চালু হওয়ায় সুনামগঞ্জ থেকে দুই ঘণ্টায় পৌঁছা যাবে হবিগঞ্জে। সংশ্লিষ্টরা আরও বলছেন, সিলেট বিভাগের সবচেয়ে বড় এই সেতু চালু হলে হাওরবাসীর যোগাযোগ ব্যবস্থায় যুগান্তকারী পরিবর্তন হবে। একইসঙ্গে ফেরিমুক্ত হবে সুনামগঞ্জ। 

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, দীর্ঘ ৭ বছরে শেষ হয়েছে সেতুটির নির্মাণকাজ। এর আগে দুইশ’ মিটার প্রস্থের কুশিয়ারা নদী দুই ভাগ করে রেখেছিল সুনামগঞ্জ ও হবিগঞ্জ জেলাকে। দুটি জেলার মানুষ ও যানবাহন চলাচল করতো ফেরি ও নৌকায়। এতে সময় ও অর্থের অপচয় হতো। তাই সিলেট বিভাগের বৃহত্তম এই সেতুর কাজ শেষ হওয়ায় খুশি এলাকাবাসী।

সুনামগঞ্জ জেলা বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জুয়েল মিয়া বলেন, রাণীগঞ্জ সেতু চালু হলে এই রুটে চলাচলে ঢাকার সঙ্গে দূরত্ব কমে আসবে। বর্তমানে আমরা যে রুটে ঢাকা যাই সেক্ষেত্রে ৩৪২ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে হয়। নতুন রুটে দূরত্ব কমে দাঁড়াবে ২৮৭ কিলোমিটারে। পথ কমবে ৫৫ কিলোমিটার। দূরত্ব কমায় ভাড়াও সমন্বয় হবে বলে জানান তিনি। 

তিনি আরও বলেন, নতুন রুটে সড়কের সংস্কার প্রয়োজন। সব ঠিক থাকলে এবং সড়কে যানজট না থাকলে পাঁচ থেকে সাড়ে পাঁচ ঘণ্টার মধ্যেই ঢাকা পৌঁছাতে পারবো।  

সড়ক ও জনপথ কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, পাগলা-জগন্নাথপুর-রাণীগঞ্জ-আউশকান্দি মহাসড়কের রাণীগঞ্জে কুশিয়ারা নদীর ওপর রাণীগঞ্জ পিসি গার্ডার ও বক্স গার্ডার সেতু নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় ১৫৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ৭০২ মিটার দীর্ঘ ও সাড়ে দশ মিটার প্রস্থের সেতু নির্মাণ করা হয়। রাণীগঞ্জ ও রসুলপুর এলাকার মধ্যে এই সেতুর অবস্থান। সেতুতে রয়েছে ১৫টি স্প্যান ও ১৬টি পিলার। ফ্ল্যাড লেভেল থেকে ১২ মিটার উঁচু দুই লেনের সেতুর দুই পাশে রয়েছে আড়াই কিলোমিটার সংযোগ সড়ক, দুটি কালভার্ট, টোলপ্লাজা, এক্সেল লোড ও কন্ট্রোল স্টেশন। 

সূত্র আরও জানায়, সেতুর কাজ শুরু হয় ২০১৬ সালের ১১ আগস্ট। ১৫৫ কোটি টাকা ব্যয়ে এই সেতু ও আড়াই কিলোমিটার সংযোগ সড়ক এবং টোল প্লাজা নির্মাণকাজ শুরু করে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না রেলওয়ে ২৪ ব্যুরো কোম্পানি লিমিটেড ২৪ বি এবং এমএম বিল্ডার্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড-এমবিইএল। চুক্তি অনুযায়ী ৭০২ দশমিক ৩২ মিটার দীর্ঘ এবং ১০ দশমিক ২৫ মিটার প্রস্থ সেতুটির নির্মাণকাজ ২০১৯ সালের ১০ আগস্ট শেষ হওয়ার কথা ছিল। তবে ছয় বছরে এসে শেষ হয় কাজ। 

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জানায়, সেতুর প্রকল্প নকশা সংশোধন ও করোনা পরিস্থিতির জন্য এই কাজ শেষ করতে অতিরিক্ত সময় লেগেছে। 

এমএম বিল্ডার্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেডের সেতুর প্রকল্প পরিচালক মো. হারুনউর রশিদ। বলেন, ইতোমধ্যে সেতুটির শতভাগ কাজ শেষ হয়েছে। সোমবার সেতুটি উদ্বোধনের পর ছয় মাস পর্যন্ত আমরাই টোল আদায় করবো। 

রাণীগঞ্জ সেতু সুনামগঞ্জ সড়ক জনপথের নির্বাহী প্রকৌশলী আশরাফুল আলম প্রামাণিক বলেন, কয়েকটি ধাপে সেতুর কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। সেতুর ডিজাইন ও বন্যার কারণে সেতুর নির্মাণ কাজ বিঘ্নিত হয়। এখন পুরো সেতু ও সংযোগ সড়কের কাজ শেষ। 

সড়ক ও জনপথের সিলেট বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী উৎপল সামন্ত বলেন, সেতুর পাশাপাশি সড়কের উন্নয়ন কাজ করা হবে। কারণ, সেতু চালু হওয়ার পর এই রুটে যানবাহনের চাপ বাড়বে। সে অনুযায়ী আরও বেশ কিছু প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। আগামী কয়েক মাসের মধ্যে প্রকল্পগুলোর কাজ শুরু হবে। 

জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, প্রশাসনের পক্ষ থেকে রাণীগঞ্জ এলাকায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। সেতুর সাজসজ্জার কাজও শেষ। সেতু এখন উদ্বোধনের জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত। 

জেলা প্রশাসন সূত্রে আরও জানা যায়, সোমবার ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের ১০০টি সেতু উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরমধ্যে রাণীগঞ্জ সেতুসহ সুনামগঞ্জ জেলার ১৭টি সেতু রয়েছে। এ উপলক্ষে রাণীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।  

প্রসঙ্গত, ১৯৯৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকারের সময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুস সামাদ আজাদ পাগলা-জগন্নাথপুর-আউশকান্দি আঞ্চলিক মহাসড়কের কাজ শুরু করেন। ২০০১ সালে বিএনপিসহ চারদলীয় জোট সরকার ক্ষমতায় এলে তৎকালীন অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমান ওই সড়ক অপ্রয়োজনীয় উল্লেখ করে সড়কের বরাদ্দ বন্ধ করে দিলে সেতু নির্মাণ স্থায়ীভাবে বন্ধ হয়ে যায়। ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ পুনরায় ক্ষমতায় এলে সুনামগঞ্জ-৩ (দক্ষিণ সুনামগঞ্জ-জগন্নাথপুর) আসনের সংসদ সদস্য বর্তমান পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান ওই আঞ্চলিক মহাসড়কের কাজ পুনরায় চালুর প্রচেষ্টা চালান। একপর্যায়ে তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অগ্রাধিকার তালিকায় এটি নিয়ে আসেন এবং একনেকে ৫২ কোটি টাকার অনুমোদন হয়।

সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের তথ্যমতে, ২০১৪ সালের ২৫ জুন একনেক সভায় প্রধানমন্ত্রী এই সেতুর ১২৫ কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন করেন। পরে ওই বছরের জুন মাসে সেতুর দরপত্র আহ্বান করা হয়। দরপত্রে অংশ নেয় দেশি-বিদেশি তিনটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। অবশেষে ২০১৬ সালের আগস্ট মাসে যৌথভাবে কার্যাদেশ পায় চায়না রেলওয়ে ২৪ ব্যুরো গ্রুপ কোম্পানি লিমিটেড ২৪বি এবং এমএম বিল্ডার্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড-এমবিইএল। পরে ২০১৭ সালের ১৪ জানুয়ারি বর্তমান সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের স্থানীয় সংসদ সদস্য ও পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানকে সঙ্গে নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। নির্মাণকাজের সময়সীমা তিন বছর ও ১২৫ কোটি টাকা ব্যয়ের এই প্রকল্পে পরবর্তী সময়ে ধাপে ধাপে ব্যয় এবং সময় বাড়ানো হয়।

/টিটি/এমওএফ/
সর্বশেষ খবর
রাজশাহীতে ৩ জনকে হত্যা
রাজশাহীতে ৩ জনকে হত্যা
নার্সদের যৌন হয়রানি: দুই চিকিৎসককে বদলি
নার্সদের যৌন হয়রানি: দুই চিকিৎসককে বদলি
ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে আহত পার্বত্য মন্ত্রীর এপিএস
ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে আহত পার্বত্য মন্ত্রীর এপিএস
মধ্যরাতে জাবি উপাচার্যের বাসভবনের সামনে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ
মধ্যরাতে জাবি উপাচার্যের বাসভবনের সামনে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ
সর্বাধিক পঠিত
টিকিট কাটতে বলায় সন্তানকে বিমানবন্দরে রেখেই চলে যান দম্পতি!
টিকিট কাটতে বলায় সন্তানকে বিমানবন্দরে রেখেই চলে যান দম্পতি!
পিন নম্বর ছাড়াই সব কার্ডে লেনদেনের সুযোগ
পিন নম্বর ছাড়াই সব কার্ডে লেনদেনের সুযোগ
নির্বাচন অফিসে গিয়ে আপ্যায়ন চাইলেন হিরো আলম, পেলেন মিষ্টি
নির্বাচন অফিসে গিয়ে আপ্যায়ন চাইলেন হিরো আলম, পেলেন মিষ্টি
ইয়েমেনে যাচ্ছিল ইরানের বিপুল অস্ত্র-গোলাবারুদ, আটকালো ফ্রান্স-যুক্তরাষ্ট্র
ইয়েমেনে যাচ্ছিল ইরানের বিপুল অস্ত্র-গোলাবারুদ, আটকালো ফ্রান্স-যুক্তরাষ্ট্র
সাত পদে ১১৭ জনের সরকারি চাকরির সুযোগ
সাত পদে ১১৭ জনের সরকারি চাকরির সুযোগ