X
শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
২০ মাঘ ১৪২৯

হারিছ চৌধুরীর মেয়েকে ‘গলা টিপে হত্যার’ হুমকি

সিলেট প্রতিনিধি
২৪ জানুয়ারি ২০২৩, ২০:৪১আপডেট : ২৪ জানুয়ারি ২০২৩, ২০:৪১

গ্রেনেড হামলা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরীর মেয়ে ব্যারিস্টার সামিরা তানজিন চৌধুরীকে গলা টিপে হত্যার হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় সোমবার রাতে কানাইঘাট থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন সামিরা তানজিনের চাচাতো ভাই রাহাত চৌধুরী।

গত ১৭ জানুয়ারি সিলেটের কানাইঘাট উপজেলায় একটি অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেওয়ার সময় সামিরাকে এ হুমকি দেন জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি আশিক উদ্দিন চৌধুরী। এছাড়া অনুষ্ঠানে হারিছ চৌধুরীর স্বজনদের নিয়ে নানা মন্তব্য করেন তিনি। এ সংক্রান্ত একটি ভিডিও ইতোমধ্যে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে। আশিক উদ্দিন প্রয়াত হারিছ চৌধুরীর চাচাতো ভাই এবং কানাইঘাট উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান।

পুলিশ জানায়, থানায় দেওয়া লিখিত অভিযোগের বাদী রাহাত চৌধুরী ফৌজদারি, জননিরাপত্তা ও ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনে আশিক চৌধুরীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পুলিশকে অনুরোধ করেছেন।

কানাইঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তাজুল ইসলাম বলেন, ‘এ ঘটনায় সামিরার চাচাতো ভাই রাহাত থানায় হত্যার অভিযোগ এনে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেবে।’

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, হারিছ চৌধুরীর বাবার নামে এলাকায় ‘শফিকুল হক চৌধুরী মেমোরিয়াল এতিমখানা’ আছে। ২০০৩ সালে এই এতিমখানা প্রতিষ্ঠিত হয়। তৎকালীন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে এতিমখানাটি নিবন্ধিত হয়। হারিছ চৌধুরী মারা যাওয়ার পর তার মেয়ে সামিরা চৌধুরী এতিমখানার বিষয়ে খোঁজখবর রাখতে শুরু করেন। চাচা কামাল উদ্দিন চৌধুরী ও চাচাতো ভাইদের সঙ্গে এতিমখানার বিষয়ে কথাবার্তা বলেন সামিরা। এতে ক্ষুব্ধ হন আশিক চৌধুরী। তাকে পাশ কাটিয়ে অন্যদের সঙ্গে এতিমখানার বিষয়ে কথাবার্তা বলায় রেগে যান তিনি। 

এরই ধারাবাহিকতায় আশিক চৌধুরীর ক্ষোভের বিস্ফোরণ ঘটে গত ১৭ জানুয়ারি। সেদিন হারিছ চৌধুরীর স্বজনদের গালাগাল ও হুমকি দেন তিনি। একপর্যায়ে সামিনা চৌধুরীকে গলা টিপে মেরে ফেলার কথা বলেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আশিক চৌধুরী বলেন, ‘অনুষ্ঠানে রাগের মাথায় গলা টিপে মাইরা ফালাইমু বলেছি। তবে হারিছ ভাইয়ের পরিবারের সঙ্গে আমার ভালো সম্পর্ক। সামিরা যখন এতিমখানায় আসা-যাওয়া কিংবা খোঁজখবর নিতে শুরু করে তখন স্থানীয় একটি চক্র আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু করে। বড় ভাই যেহেতু নেই কাজেই তার সন্তানদের অভিভাবক আমরা।’

হারিছ চৌধুরীর গ্রামের বাড়ি কানাইঘাটের দিঘিরপাড় পূর্ব ইউনিয়নের দর্পনগর গ্রামে। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি ওয়ান-ইলেভেন সরকারের সময় থেকে পলাতক ছিলেন। তিনি যুক্তরাজ্য, ইরান, ভারতসহ বিভিন্ন দেশে আছেন বলে গুজব ছিল। তবে গত বছরের শুরুর দিকে জানা যায়, ২০২১ সালের ৩ সেপ্টেম্বর ঢাকায় মারা যান হারিছ চৌধুরী। তিনি করোনায় আক্রান্ত ছিলেন। তখন আরও জানা যায়, হারিছ চৌধুরী দেশ ছেড়ে যাননি। ঢাকায় আত্মগোপন করেছিলেন।

/এএম/
সর্বশেষ খবর
   টিভিতে আজকের খেলা (৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩)
  টিভিতে আজকের খেলা (৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩)
হাত-পা বেঁধে সন্তানদের সামনে নারীকে পিটিয়ে মারলো স্বামী
হাত-পা বেঁধে সন্তানদের সামনে নারীকে পিটিয়ে মারলো স্বামী
‘আগামী ৬ মাস খুবই গুরুত্বপূর্ণ’
‘আগামী ৬ মাস খুবই গুরুত্বপূর্ণ’
আগুনঝরার বুকে জেগে ওঠা দ্বীপটি টানছে পর্যটকদের
আগুনঝরার বুকে জেগে ওঠা দ্বীপটি টানছে পর্যটকদের
সর্বাধিক পঠিত
টিকিট কাটতে বলায় সন্তানকে বিমানবন্দরে রেখেই চলে যান দম্পতি!
টিকিট কাটতে বলায় সন্তানকে বিমানবন্দরে রেখেই চলে যান দম্পতি!
পিন নম্বর ছাড়াই সব কার্ডে লেনদেনের সুযোগ
পিন নম্বর ছাড়াই সব কার্ডে লেনদেনের সুযোগ
নির্বাচন অফিসে গিয়ে আপ্যায়ন চাইলেন হিরো আলম, পেলেন মিষ্টি
নির্বাচন অফিসে গিয়ে আপ্যায়ন চাইলেন হিরো আলম, পেলেন মিষ্টি
হিরো আলমের এত ভোট পাওয়া নিয়ে যা বলছেন আ.লীগ-বিএনপির নেতারা
হিরো আলমের এত ভোট পাওয়া নিয়ে যা বলছেন আ.লীগ-বিএনপির নেতারা
সাত পদে ১১৭ জনের সরকারি চাকরির সুযোগ
সাত পদে ১১৭ জনের সরকারি চাকরির সুযোগ