X
মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪
২১ ফাল্গুন ১৪৩০
বুসান ডায়েরি-৬

শেষবেলায় সাগরপাড়ে, সিউলে চাটগাঁইয়া খাবারের পসরা

জনি হক, বুসান (দক্ষিণ কোরিয়া) থেকে
জনি হক, বুসান (দক্ষিণ কোরিয়া) থেকে
১৫ অক্টোবর ২০২৩, ১৮:৩০আপডেট : ১৫ অক্টোবর ২০২৩, ১৮:৩০

বুসানের হিয়ুন্দাই এলাকায় জেবি ডিজাইন হোটেলে সাত রাত কেটে গেলো। রোজ সকালে রুম থেকে জানালায় তাকালে পাহাড়ের কিয়দংশ চোখে পড়েছে। হোটেল থেকে বেরিয়ে মিনিট পাঁচেক হাঁটলেই বেলাভূমি। এটি দক্ষিণ কোরিয়ার সবচেয়ে জনপ্রিয় সমুদ্র সৈকতের মধ্যে অন্যতম। দিনরাত এখানে সমুদ্রবিলাসীরা সময় কাটান। দূরে পাহাড়ের হাতছানি।

২০০৯ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘টাইডাল ওয়েভ’ চলচ্চিত্রের একটি দৃশ্যে দেখা যায়, হিয়ুন্দাই সৈকতে সুনামি আছড়ে পড়ছে। বুসানে বিখ্যাত আরও কয়েকটি ছবির দৃশ্যধারণ হয়েছে। এরমধ্যে উল্লেখযোগ্য– মারভেল স্টুডিওসের ‘ব্ল্যাক প্যান্থার’, কোরিয়ান চলচ্চিত্র ‘ট্রেন টু বুসান’, ‘ওল্ড বয়’ এবং ৭৫তম কানে সেরা পরিচালকের পুরস্কারজয়ী পার্ক চ্যান-উকের ‘ডিসিশন টু লিভ’।

শেষবেলায় সাগরপাড়ে, সিউলে চাটগাঁইয়া খাবারের পসরা অনেকে দক্ষিণ-পূর্ব উপকূলীয় শহর বুসানে বিশাল সমুদ্র সৈকত দেখতে আসেন। এর দক্ষিণ অংশে হলুদ সাগর, পূর্বে জাপান সাগর। এখানেই দক্ষিণ কোরিয়ার বৃহত্তম ও বিশ্বের পঞ্চম ব্যস্ততম সমুদ্র বন্দর। সৈকতে নামার মুখেই বিধিনিষেধের স্ট্যান্ড। এখানে মোটরসাইকেল চালানো, আতশবাজি পোড়ানো, রান্না ও তাঁবু পোঁতা, ময়লা-আবর্জনা ফেলা, ধূমপান এবং অনৈতিক বাণিজ্যিক কার্যক্রম নিষেধ। নিয়ম না মানলে কোন কাজের জন্য কত টাকা জরিমানা সেই অঙ্ক পাশে উল্লেখ আছে। সাঁতারের নির্দিষ্ট স্থানে জিরিয়ে নিতে চেষ্টা করলে গুনতে হয় ৬ লাখ কোরিয়ান ওন (৫০ হাজার টাকা)। অনৈতিক বাণিজ্যিক কার্যক্রম, রান্না ও তাঁবু স্থাপন করলে ১ লাখ কোরিয়ান ওন (৮ হাজার ৫০০ টাকা) করে জরিমানা হয়। অন্যান্য কর্মকাণ্ডের জন্য জরিমানার অঙ্ক ৫০ হাজার কোরিয়ান ওন (৪ হাজার টাকা)।  

শেষবেলায় সাগরপাড়ে, সিউলে চাটগাঁইয়া খাবারের পসরা জনপ্রিয় পর্যটন গন্তব্য হওয়ায় স্বাভাবিকভাবে বুসানে হোটেল ভাড়া ও খাবারের দাম একটু বেশি। হিয়ুন্দাই সৈকতের আশেপাশে অনেক বিলাসবহুল হোটেল ও রিসোর্ট। সমুদ্র কাছে থাকায় তাজা সামুদ্রিক সুস্বাদু খাবার বেশ জনপ্রিয়। কেনাকাটার জন্য হরেক রকম দোকান চোখে পড়ে। তবে ক্যাফে, রেস্তোরাঁ ও স্ট্রিট ফুড স্টলই বেশি। তবুও কাঙ্ক্ষিত খাবারের খোঁজ পেতে হিমশিম খাওয়ার কথা আগেও বলেছি।

শেষবেলায় সাগরপাড়ে, সিউলে চাটগাঁইয়া খাবারের পসরা চলচ্চিত্র পরিচালক মোস্তফা সরয়ার ফারুকীকে বুসান বিশেষজ্ঞ মনে করি আমরা! ২০০৯ সাল থেকে তার প্রায় সব চলচ্চিত্রই বুসান উৎসবের অফিসিয়াল সিলেকশনে জায়গা করে নিয়েছে। ফলে তাকে এই শহরে অনেকবার আসতে হয়েছে। এখানকার আনাচে-কানাচে কোথায় কী আছে সবই তার নখদর্পণে থাকার কথা। আমরা একই ফ্লাইটে এসেছি। কিন্তু উৎসব চলাকালে দুই পক্ষেরই ব্যস্ততার কারণে সাত দিনে দেখা-সাক্ষাৎ হয়েছে কেবল তিন বার। অবশ্য তার পরামর্শেই খাবার নিয়ে মোটামুটি একটা সমাধান মিলেছে। তিনি বুদ্ধি দিলেন, বোম্বে ব্রাউ নামের একটি দোকানে ভাতসহ বাঙালিদের চেনা খাবার পাওয়া যাবে। দোকানটি হিয়ুন্দাইতেই। অথচ আমরা জানতামই না।

শেষবেলায় সাগরপাড়ে, সিউলে চাটগাঁইয়া খাবারের পসরা জেবি ডিজাইন হোটেল থেকে বেরিয়ে বোম্বে ব্রাউ দোকানে যাওয়ার পথে চোখে পড়ে নয়নাভিরাম দৃশ্য। দুই পাশে যানবাহন চলাচলের সরু রাস্তা। মাঝখানে প্রশস্ত জায়গায় নয়নাভিরাম নাগরিক পার্ক। এখানে হরেক রকম ফুলের সমাবেশ। শিশু-কিশোরদের আনন্দ দিতে গানের সঙ্গে কৃত্রিম ঝরনার খেলা দেখানো হয়। একটু এগোতেই দেখলাম একটি ছনের ঘর! চালের ওপর কয়েকটি মিষ্টি কুমড়া। ঘরের চারপাশ ঘিরে রেখেছে ফুল। আরেক পাশে তিনটি কাকতাড়ুয়া। সামনে গরুর গাড়ির শিল্পকর্ম। এছাড়া আছে টিনটিনের আদল, বার্বি ডলের গোলাপি রঙা বিশাল আকৃতির টুপি। পার্কের শুরুর অংশে শত শত ফুল দিয়ে সাজানো তোরণ। দেখে মন ভরে গেলো।

শেষবেলায় সাগরপাড়ে, সিউলে চাটগাঁইয়া খাবারের পসরা বোম্বে ব্রাউতে খাবারের মেন্যু দেখে ফুরফুরে হয়ে গেলাম। কিন্তু দামের দিকে তাকাতেই আবার ভ্রু কুঁচকে গেলো আমাদের। অনেক গবেষণা করে তিনটি নান, দুটি চিকেন সালাদ ও কোমল পানীয় অর্ডার দিলাম। বিল এলো ৩১ হাজার ২০০ কোরিয়ান ওন (৩ হাজার টাকা)। বুসান অন্য সব ব্যাপারে ভালো লাগার মতো স্মৃতি জমেছে। কেবল খাবার ছাড়া। এখানে খাবারের সমাধান করা ছিল প্রতিদিনের অন্যতম চ্যালেঞ্জ। উৎসব শেষে ঢাকায় ফেরার সময় ঘনিয়ে এসেছে বলে একটু আলাদাভাবে ভালো লাগছে!

শেষবেলায় সাগরপাড়ে, সিউলে চাটগাঁইয়া খাবারের পসরা হোটেলে চেক-আউটের পর অনুরোধ করায় রিসিপশনিস্ট উবার ডেকে দিলেন। হিয়ুন্দাই থেকে ট্যাক্সিতে চড়ে বুসান স্টেশন যাচ্ছি। যেতে যেতে চমৎকার একটি সেতু, সাগর, সারি সারি ইয়ট আর দর্শনীয় অনেক ভবন নজর কাড়লো। বুসান থেকে সিউল যেতে হবে। আড়াই ঘণ্টার ট্রেন যাত্রা। বিটিএস ও ব্ল্যাঙ্কপিঙ্কের শহরে অপেক্ষমাণ পার্থদার ছাত্র মীর ইমরান বিল্লাহ। সিউলে হোটেল মিনি ইনে উঠলাম। একটা রাতেরই তো ব্যাপার, তাই এক রুমেই তিন জন। 

রুমে লাগেজ রেখেই বেরিয়ে পড়েছি। মীর ইমরান এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। বিকালে একটি রেস্তোরাঁয় তক-বক্কি কিমবাপ নামের কোরিয়ান খাবার দিয়ে আপ্যায়ন করিয়েছেন তিনি। ইমরান চট্টগ্রামের ছেলে, তার স্ত্রী আইনুন নাহার তিথি ফেনীর মেয়ে। তাদের এক ছেলে চার বছরের আর কন্যাশিশুর বয়স এক মাস। 

শেষবেলায় সাগরপাড়ে, সিউলে চাটগাঁইয়া খাবারের পসরা প্রবাসী দম্পতি ড্রইংরুমে একের পর এক খাবার নিয়ে এলেন। পোলাও, টমেটো ভর্তা, বেগুন ভর্তা, টুনা মাছের কাবাব, চিংড়ির শুটকি ফ্রাই, খাসির মাংস, মুরগির রেজালা, ক্যাপসিকাম দিয়ে চিকেন, ডিমের কোরমা, ভেজিটেবল আর সালাদ। আমরা তিন জনই তৃপ্তি নিয়ে কবজি ডুবিয়ে খেয়েছি। বাঙালিদের ভালোবাসা পৃথিবীর সবখানেই অতুলনীয়। চাটগাঁইয়া মানুষের এমন মন ভরানো আতিথেয়তায় বুসানে খাবারের কষ্ট বেমালুম ভুলে গেলাম! জীবন কতই না মধুর আর বিচিত্র অভিজ্ঞতার।

/এমএম/
সম্পর্কিত
এখনও আইসিইউতে ফারুকী, তবে বিপদমুক্ত
ফারুকী এখন বিপদমুক্ত: তিশা
হাসপাতালে নির্মাতা ফারুকী, অবস্থা স্থিতিশীল
হাসপাতালে নির্মাতা ফারুকী, অবস্থা স্থিতিশীল
ফ্রান্সের উৎসবে বিচারক ফারুকী
ফ্রান্সের উৎসবে বিচারক ফারুকী
দেড় দশকের নীরবতা ভেঙে বাজলো তিশার গান
দেড় দশকের নীরবতা ভেঙে বাজলো তিশার গান
বিনোদন বিভাগের সর্বশেষ
ফের ‘লাকি পার্টনার’র সঙ্গে ফারিণ!
ফের ‘লাকি পার্টনার’র সঙ্গে ফারিণ!
গানে ফারিণ, সঙ্গে তাহসান, পেছনে ইমরান
গানে ফারিণ, সঙ্গে তাহসান, পেছনে ইমরান
দেড় যুগের গান-গল্প শোনাবেন শাওন
দেড় যুগের গান-গল্প শোনাবেন শাওন
বক্স অফিসে নারীর দাপট
বক্স অফিসে নারীর দাপট
ইন্ডিয়ান আইডল ১৪: পেলেন ২৫ লাখ রুপি ও গাড়ি, জানালেন বিশেষ ইচ্ছে
ইন্ডিয়ান আইডল ১৪: পেলেন ২৫ লাখ রুপি ও গাড়ি, জানালেন বিশেষ ইচ্ছে