X
বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪
৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
কান উৎসব ২০২৪

১৬ বছর ধরে পুনরুদ্ধার করা ‘নেপোলিয়ন’ দেখাবে কান

জনি হক
জনি হক
১৯ এপ্রিল ২০২৪, ২১:২২আপডেট : ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ২১:৫৯

কিংবদন্তি ফরাসি সম্রাট নেপোলিয়নের পুনর্জন্ম হতে যাচ্ছে ভূমধ্যসাগরের তীরে! ৭৭তম কান চলচ্চিত্র উৎসবের ধ্রুপদি বিভাগে দেখানো হবে তাঁর উত্থানকে কেন্দ্র করে নির্মিত ‘নেপোলিয়ন’ (১৯২৭)। আগামী ১৪ মে দক্ষিণ ফ্রান্সে কান শহরের পালে দে ফেস্টিভ্যাল ভবনের গ্র্যান্ড থিয়েটার লুমিয়েরে কান ক্ল্যাসিকসে এর ওয়ার্ল্ড প্রিমিয়ার হবে।

‘নেপোলিয়ন’কে ভাবা হয় নির্বাক যুগের গুরুত্বপূর্ণ স্মৃতিস্মারক। ফ্রান্সের আবেল গঁস পরিচালিত ছবিটিকে পুনরুদ্ধার করতে ১৬ বছরের বেশি সময় লেগেছে। বিশ্ব চলচ্চিত্রের ইতিহাসে সবচেয়ে স্মরণীয় পুনরুদ্ধারের মধ্যে এটি অন্যতম।

দুটি ভিন্ন যুগে বিভক্ত ৭ ঘণ্টা দৈর্ঘ্যের ‘নেপোলিয়ন’। এর অসামান্য পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়া সম্পন্নের অংশ হিসেবে মূল কাহিনি পুনরায় আবিষ্কারের জন্য বিভিন্ন উৎস ব্যবহার করা হয়েছে। এর প্রথম অংশের দৈর্ঘ্য ৩ ঘণ্টা ৪০ মিনিট। কান উৎসবে দেখানো হবে এই সংস্করণ।

কান উৎসবের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, ফ্রান্সের সরকারি সংস্থা ফ্রেঞ্চ ন্যাশনাল সেন্টার অব সিনেমার (সিএনসি) সহায়তায় প্যারিসের প্রেক্ষাগৃহ সিনেমাতেক ফ্রঁসেজের অসামান্য ও আবেগময় প্রচেষ্টার ফলে ‘নেপোলিয়ন’ পুনর্গঠন ও পুনরুদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে।

ফরাসি পরিচালক জর্জ মুরিয়ের ও তার দল ফ্রেম-বাই-ফ্রেম কাজ করেছেন এবং প্রায় ১০০ কিলোমিটার দীর্ঘ ফিল্ম পর্যালোচনা করেছেন। ফ্রান্সের জাতীয় গ্রন্থাগারে পাওয়া পরিচালক আবেল গঁসের চিত্রসম্পাদনার নোট ও চিত্রসম্পাদকের সঙ্গে তার আদান-প্রদান করা চিঠিপত্রের সুবাদে ছবিটির মূল সংস্করণে পুনরায় সম্পাদনা সম্ভব হয়েছে।

‘নেপোলিয়ন’ ছিল উচ্চাভিলাষী একটি প্রকল্প। এতে প্রযুক্তিগত ও নান্দনিক উদ্ভাবন রয়েছে। পরিচালক আবেল গঁস দৃশ্যধারণে ঘোড়ায় লাগানো ক্যামেরা ব্যবহার করেছেন। এছাড়া ছিল একইসঙ্গে তিনটি ফ্রেমে টানা সমাপ্তি।

১৯২৭ সালের ৭ এপ্রিল প্যারিস অপেরায় ‘নেপোলিয়ন’-এর প্রিমিয়ারে উপস্থিত ছিলেন ফ্রান্সের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট গ্যাস্তঁন দুমের্গ। এতে একঝাঁক তারকা ও হাজার হাজার অতিরিক্ত শিল্পীকে দেখা গেছে। ছবিটি দর্শক ও সমালোচকদের মুগ্ধ করে।

আশির দশকে আবেল গঁসের ছবিটি নিয়ে ফরাসি নির্মাতা ক্লদ ল্যুলুশ, আমেরিকান পরিচালক ফ্রান্সিস ফোর্ড কপোলা, নির্বাক সময়ের ইতিহাসবিদ কেভিন ব্রাউনলো ও সিনেমাতেক ফ্রঁসেজের সভাপতি কস্টা-গাভরাসের মধ্যে কৌতূহল জন্মায়। ১৯২৭ সালের পর থেকে ছবিটির মূল সংস্করণের প্রদর্শনী হয়নি। এটি ‘গ্র্যান্ডে ভার্সন’ নামে পরিচিত ছিল।

প্যারিসের প্রেক্ষাগৃহ সিনেমাতেক ফ্রঁসেজ এবং সিনেমাতেক দ্যু তুলুজ, সরকারি সংস্থা ফ্রেঞ্চ ন্যাশনাল সেন্টার অব সিনেমা (সিএনসি), বেসরকারি সংস্থা সিনেমাতেক দ্যু কর্সের পাশাপাশি ডেনমার্ক, সার্বিয়া, ইতালি, লাক্সেমবার্গ ও নিউইয়র্কে ছবিটির রিল পাওয়া গেছে। সবাক ছবির আবির্ভাবের সঙ্গে রিলগুলো বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে পড়ে কিছু হারিয়ে গেছে কিংবা ধ্বংস হয়েছে। এরপর ছবিটি অনেকবার কেটে সম্পাদন করা হয়েছিল। এখন পর্যন্ত এর ২২টি ভিন্ন সংস্করণ পাওয়া গেছে।

সম্মানসূচক স্বর্ণপাম

২০১৫ সাল থেকে কান উৎসবে দেওয়া হচ্ছে সম্মানসূচক স্বর্ণপাম। এবারের আসরে এটি পাবেন কিংবদন্তি আমেরিকান পরিচালক, চিত্রনাট্যকার ও প্রযোজক জর্জ লুকাস। আগামী ২৫ মে পালে দে ফেস্টিভ্যাল ভবনের গ্র্যান্ড থিয়েটার লুমিয়েরে সমাপনী আয়োজনে তার হাতে তুলে দেওয়া হবে এই সম্মান। ফরাসি টিভি চ্যানেল ফ্রান্স টু অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচার করবে।

‘স্টার ওয়ারস’ ও ‘ইন্ডিয়ানা জোন্স’ ফ্রাঞ্চাইজ জর্জ লুকাসের মস্তিষ্কপ্রসূত। ১৯৭১ সালে কান উৎসবের সমান্তরাল বিভাগ ডিরেক্টর’স ফোর্টনাইটে প্রদর্শিত হয় তার পরিচালিত প্রথম চলচ্চিত্র ‘টিএইচএক্স ১১৩৮’।

জর্জ লুকাসের পাশাপাশি জাপানের স্টুডিও গিবলিকে দেওয়া হবে সম্মানসূচক স্বর্ণপাম। এবারই প্রথম কোনও প্রতিষ্ঠান এই সম্মান পেতে যাচ্ছে। স্টুডিও গিবলির তিন প্রতিষ্ঠাতা হায়াও মিয়াজাকি, ইসাও তাকাহাতা ও তোশিও সুজুকি। চার দশকের বেশি সময় ধরে সব বয়সী দর্শকদের মুগ্ধ করা অসাধারণ কিছু অ্যানিমেটেড চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন তারা। তাদের মধ্যে ইসাও তাকাহাতা মারা গেছেন।

ভার্চুয়ালি হাজির, সশরীরে অদৃশ্য!

এবারের কান উৎসবে চালু হতে যাচ্ছে ‘ইমারসিভ কম্পিটিশন’। এর প্রথম আসরে নতুন সম্ভাবনাময় ৮টি কাজ সেরা ইমারসিভ ওয়ার্ক অ্যাওয়ার্ডের জন্য লড়বে। এগুলোর বিশেষ প্রদর্শনীর আয়োজন করবে কান উৎসব কর্তৃপক্ষ ও উৎসবটির বাণিজ্যিক শাখা মার্শে দ্যু ফিল্ম। এছাড়া থাকবে অ-প্রতিযোগিতামূলক কাজ। সবই দেখা যাবে কান শহরের সিনেয়াম এবং ক্যাম্পাস জর্জ মেলিয়েসে। আগামী ১৫ মে শুরু হয়ে ২৪ মে পর্যন্ত থাকছে এই আয়োজন। ২০১৭ সালের কান উৎসবে আলেহান্দ্রো গঞ্জালেজ ইনারিতুর ভার্চুয়াল রিয়েলিটি প্রকল্প ‘ফ্লেশ অ্যান্ড স্যান্ড’ প্রশংসিত হয়।

ক্যামেরা দ’র বিচারক

কান উৎসবের অফিসিয়াল সিলেকশন ও সমান্তরাল বিভাগগুলোতে নির্বাচিত ছবির নবাগত পরিচালকদের মধ্যে সেরা একজনকে দেওয়া হবে ক্যামেরা দ’র পুরস্কার। এবারের আসরে যৌথভাবে এই গুরুদায়িত্ব পেয়েছেন ফরাসি অভিনেত্রী ইমানুয়েল বেয়ার ও কঙ্গোর পরিচালক-সংগীতশিল্পী বালোজি। তারা ক্যামেরা দ’র পুরস্কারের প্রধান বিচারক। ক্যামেরা দ’র-এর জন্য ১৯৯৬, ২০০২ ও ২০০৬ সালে যৌথভাবে প্রধান বিচারক ছিল।

/এমএম/
সম্পর্কিত
কানের লালগালিচায় অলিম্পিকের মশাল
কান উৎসব ২০২৪কানের লালগালিচায় অলিম্পিকের মশাল
স্বর্ণপাম পেয়ে কানে ইতিহাস গড়লো জাপানের স্টুডিও জিবলি
কান উৎসব ২০২৪স্বর্ণপাম পেয়ে কানে ইতিহাস গড়লো জাপানের স্টুডিও জিবলি
বিনোদন বিভাগের সর্বশেষ
শাহরুখ খানের অসুস্থতা নিয়ে যা জানা গেলো
শাহরুখ খানের অসুস্থতা নিয়ে যা জানা গেলো
‘বরযাত্রী’ নিয়ে আসছেন তৌসিফ-তিশা
‘বরযাত্রী’ নিয়ে আসছেন তৌসিফ-তিশা
নিপুণের ‘শাস্তি চেয়ে’ এফডিসিতে মিছিল
নিপুণের ‘শাস্তি চেয়ে’ এফডিসিতে মিছিল
কান সৈকতে জয়ার প্রশংসায় টলিউডের মুমতাজ
কান সৈকতে জয়ার প্রশংসায় টলিউডের মুমতাজ
‘ভুল বোঝাবুঝি’তে শেষ কাশ্যপ-মনোজের সম্পর্ক!
‘ভুল বোঝাবুঝি’তে শেষ কাশ্যপ-মনোজের সম্পর্ক!