বিশ বিশেষযে গল্পটা আর বলতে চাই না

Send
তানিম রহমান অংশু, নির্মাতা
প্রকাশিত : ১৬:২৮, জানুয়ারি ০২, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:২১, জানুয়ারি ০২, ২০২০

নানা চড়াই-উতরাইয়ের মধ্য দিয়ে দশ-এর দশক শেষ হলো (২০১০-২০১৯)। সাংস্কৃতিক অঙ্গনের জন্য এটি মূলত শূন্যতার দশক। দশে ধস—এভাবেও বলছেন কেউ কেউ। তবে শুরু হওয়া নতুন বছর কিংবা বিশ দশক (২০২০-২০২৯) নিয়ে প্রত্যাশার গল্পও শোনাচ্ছেন অনেকে। বিশে বিষক্ষয়—এভাবেও মূল্যায়ন করছেন কেউ কেউ।
আবার এমনও অনেকে আছেন, যাদের কণ্ঠে হতাশার সুর। বলছেন—দশক কিংবা নতুন বছর বলে কথা নয়। ক্যালেন্ডার বদলালেও কাজের পার্থক্য ১৯/২০! মানে সামান্যই।
‘দশে ধস’ আর ‘বিশে বিষক্ষয়’ অথবা ‘১৯/২০’ বিষয়ে সংস্কৃতির বিভিন্ন বিভাগের উল্লেখযোগ্য শিল্পীরা নিজেদের পর্যালোচনা তুলে ধরলেন বাংলা ট্রিবিউন-এর বিশেষ এই আয়োজনে।

তানিম রহমান অংশু২০১৯ সালকে পুরোপুরি হতাশার বছর মনে হয় না আমার কাছে। কিছুটা ম্লান ছিল, এটা বলা যেতে পারে। তবে এর মাঝে ভালো নাটক-সিনেমার কাজও হয়েছে অনেক। সংখ্যায় কম হলেও সেই কাজগুলোর প্রপার আউটপুট আসেনি।
আমার কাছে মনে হয়, গেল বছরটা আমরা অনলাইন প্ল্যাটফর্মে সমসাময়িক নানা ইস্যু নিয়ে ব্যস্ত ছিলাম। প্রচুর গুজবে কান দিয়েছি। সমসাময়িক নানা ঘটনা, বিশৃঙ্খলা, আগুন, হত্যা আর রাজনৈতিক ইস্যু নিয়ে ব্যস্ত ছিলাম। ফলে অনেক ভালো সৃষ্টি আড়ালে পড়ে গেছে।
এটা সত্যি কথা, গেল বছর অনলাইন প্ল্যাটফর্মে (ফেসবুক-ইউটিউব) এক্সপেরিমেন্টাল তেমন কোনও কাজ হয়নি। দুই তিন বছর ধরে অনলাইনের ব্যবসাও কমেছে। ২০২০ সালে সেটা আশা করছি কাটিয়ে উঠবো আমরা।
গেল বছর নাটকে বেশ ভালো ভালো কাজ হয়েছে।
মিউজিক ভিডিওতে ভালো কিছু হয়নি। আশা করছি সেটা এ বছর কাটিয়ে উঠবো। ১৫ থেকে ১৮ সাল পর্যন্ত মিউজিক ভিডিওর গোল্ডেন টাইম ছিল। সেটা গত বছর একেবারেই তলানিতে গেছে। তবে আবারও সেই সুদিন ফেরানো সম্ভব, যদি ২০২০ সালে এসে কনটেন্ট প্রডিউসার, ক্রিয়েটররা নতুন ভাবনা নিয়ে কাজে নামেন। বুঝতে হবে, অনলাইন মিডিয়ায় প্রতিনিয়ত চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ করতে হয়। এখানে আইডিয়া ও প্রেজেন্টেশন অনেক বড় ফ্যাক্টর। সেই ঘাটতির কারণেই কিন্তু গেল বছর এই মিডিয়ায় ধস নেমেছে।
আমাদের ‘ন ডরাই’ ছাড়াও ১৯-এ অনেক ভিন্ন ধারার ফিল্ম হয়েছে। নতুন বছরে এসে দর্শকদের কাছে আমার প্রত্যাশা থাকবে, পুরনো ধারণা মুছে ফেলে নতুন ধরনের ফিল্ম, প্লট, স্টোরিলাইনকে সাধুবাদ জানাতে হবে। নতুন কনসেপ্টকে মূল্যায়ন করতে হবে। তবেই এক্সপেরিমেন্টাল ফিল্ম আরও হবে। বদলাবে মুখ থুবড়ে পড়া একঘেয়ে ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি।
‘ন ডরাই’ টিমের সঙ্গে অংশু (আঙুলের ডগায় চাঁদ)২০২০-এ আমি যতদূর জানি, অনেক ভালো ভালো ফিল্ম আসছে। সেগুলোকে আমাদের সাধুবাদ জানাতে হবে। না হলে, পার্থক্য ১৯/২০-ই থেকে যাবে। বছর শেষে আরেকটি হতাশার গল্প বলতে হবে আমাদের।
যে গল্পটা আর বলতে চাই না। প্লিজ আমাদের সাহায্য করুন।
শ্রুতিলিখন: মাহমুদ মানজুর

/এমএম/এমওএফ/

লাইভ

টপ