গোলাপী জমিন: এবারও ভাবনার উপন্যাসের ‘নায়ক’ নারী

Send
সুধাময় সরকার
প্রকাশিত : ১৮:১৭, জানুয়ারি ৩০, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৩:৪৪, জানুয়ারি ৩১, ২০২০

আশনা হাবিব ভাবনাগেল দুই বছরের ধারাবাহিকতায় এবারও প্রকাশ হচ্ছে আশনা হাবিব ভাবনার উপন্যাস। নাম রেখেছেন ‘গোলাপী জমিন’।
নামটি চূড়ান্ত করেছেন আজই (৩০ জানুয়ারি), জানালেন এই অভিনেত্রী।

বাংলা ট্রিবিউনকে বললেন, ‘লেখাটা আজ রাতেই শেষ করবো। একেবারের শেষের দিকে আছি। তবে নামটা চূড়ান্ত করে প্রচ্ছদ অলংকরণের জন্য দিয়েছি সব্যদার (সব্যসাচী হাজরা) কাছে। আশা করছি এক সপ্তাহের মধ্যে সব চূড়ান্ত করে ফেলবো।’

উপন্যাসটি প্রকাশ হচ্ছে তাম্রলিপি প্রকাশনী থেকে।

ভাবনার আগের দুই উপন্যাসের মতো এবারও তার গল্পের মূল নায়ক একজন নারী। যে চরিত্রটি পুরাতন ঢাকার একটি মেয়েকে ঘিরে আবর্তিত হয়। যার বিয়ে হয়ে যায় এক প্রবাসীর সঙ্গে। শুরু হয় সন্তান-সংসার নিয়ে সেই নারীর জীবন-সংগ্রাম।

‘গোলাপী জমিন’ প্রসঙ্গে ভাবনা বলেন, ‘আমি চেষ্টা করি প্রত্যেকটা লেখার মধ্যে পাঠকদের কিছু না কিছু বার্তা দেওয়ার। আমার লেখার মাধ্যমে কাউকে যদি ইন্সপায়ার করা যায়, সেটাই সার্থকতা। আমি যখন অভিনয় করি, সেটা মূলত নাট্যকার ও নির্দেশকের চরিত্র ধরে এগুতে হয়। যেখানে আমার নিজের কিছু বলার সুযোগ থাকে না। যখন লেখালেখি করি, সেখানে আমার যা কিছু বলার, সেটা ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করি। মানে উপন্যাস হলো আমার নিজের ভাবনাগুলোকে পাঠকদের সঙ্গে শেয়ার করা।’

পর পর তিন উপন্যাসেই প্রধান চরিত্র হিসেবে তুলে এনেছেন নারী। এর পেছনের কী কারণ? জবাবে ভাবনা বলেন, ‘‘ওই যে বললাম, আমার নিজস্ব ভাবনার বহিঃপ্রকাশ ঘটে লেখার মাধ্যমে। নারীদের নিয়ে আমি সারাক্ষণ ভাবি। ফলে লিখতে গেলে একজন নারী হয়ে ওঠে আমার লেখার প্রধান নায়ক। কারণ, মেয়েদের নিয়ে ভাবতে ও লিখতে পছন্দ করি। এবার যেমন লিখলাম পুরাতন ঢাকার একজন সংগ্রামী নারীকে ঘিরে। যার মধ্য দিয়ে আমি বার্তা দিতে চাই, বিদেশি পাত্র পেলেই আমরা যেভাবে অন্ধের মতো ‘ভালো পাত্র’ বিবেচনা করে একটা মেয়েকে বিয়ে দিয়ে দিই, সেটা ঠিক নয়। বিদেশ মানেই সুখ, এটা আমাদের ভ্রান্ত ধারণা।’’

গেল দুই বছরের একুশে গ্রন্থমেলায় প্রকাশ পেয়েছিল অভিনেত্রী আশনা হাবিব ভাবনার উপন্যাস যথাক্রমে ‘গুলনেহার’ ও ‘তারা’।

/এমএম/এমওএফ/

লাইভ

টপ