দেশজুড়ে এখনও চলছে নাটক-সিনেমার শুটিং!

Send
ওয়ালিউল বিশ্বাস
প্রকাশিত : ১৮:১৫, মার্চ ১৯, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:৩৬, মার্চ ২০, ২০২০

একটি চলমান সিনেমা শুটিংয়ের দৃশ্যচারদিকে জনসমাগম রোধে প্রায় সব ধরনের কার্যক্রম বন্ধ হচ্ছে। আনুষ্ঠানিকভাবে বন্ধ হলো প্রেক্ষাগৃহ আর মাল্টিপ্লেক্স। অনেক শিল্পী স্বেচ্ছায় হোম কোয়ারেন্টিনে গেছেন। তবু বিনোদন অঙ্গনের সবচেয়ে বড় কর্মক্ষেত্র শুটিং বন্ধ হয়নি। ব্যক্তিগত ইচ্ছায় অনেকেই শুটিং থেকে সরে এলেও টিভি সংগঠনগুলো কোনও সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি, এখনও। চলচ্চিত্র সংগঠনগুলোও এক্ষেত্রে নীরব!
চলচ্চিত্র প্রযোজক, পরিচালক ও শিল্পী সংগঠনগুলো এ বিষয়ে যৌথ মিটিং করতে চায়। একই অবস্থা টিভি অঙ্গনেও। অভিনয় শিল্পীসংঘ জানায়, আজকেই (১৯ মার্চ) তাদের একটি যৌথ সভা হবে। এরপর তারা সিদ্ধান্ত নেবেন, কবে থেকে শুটিং বন্ধ হবে!

তাই এমন সিদ্ধান্তহীনতার মধ্যেই দেশজুড়ে চলছে শুটিং। যেখানে প্রতিটি ইউনিটে সরাসরি অংশগ্রহণ রয়েছে ৫০ থেকে শ’দুয়েক মানুষের। শুটিং দেখতে আসা উৎসুক জনতার কথা বলাই বাহুল্য।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শুটিং চলতি ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ এবং অভিনেত্রী-নির্মাতা কবরী সারোয়ারের ‘এই তুমি সেই তুমি’ সিনেমার কাজ বন্ধে এখনও কোনও ঘোষণা আসেনি। এছাড়াও ঢাকা ও ঢাকার বাইরে বেশ কিছু নাটকের শুটিং চলছে।

করোনা আতঙ্কের মধ্যেই গত ১৭ মার্চ থেকে শুরু হয় ‘এই তুমি সেই তুমি’র কাজ। পরদিন ১৮ মার্চ এটি চলেছে। তবে আজ ১৯ মার্চ এর কাজ এখনও সেটে গড়ায়নি। শুটিং বন্ধ, না চলবে তার কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি।
করোনার মধ্যে শুটিং শুরুর বিষয়ে কবরীর খোঁড়া যুক্তি ছিল এমন, ‘কাজ তো করতে হবে। করোনায় আতঙ্কিত হয়ে হাত গুটিয়ে ঘরে বসে থাকলে তো চলবে না। যতটা নিরাপদে থেকে কাজ করা যায়, সেভাবেই কাজ করে যাচ্ছি।’
অন্যদিকে ১৪ তারিখে পুরো একটি লঞ্চ ভাড়া করে সদরঘাট থেকে সুন্দরবন গেছে ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ ছবির ১২০ জনের টিম। যার মধ্যে শিশুশিল্পীর সংখ্যা অনেক। রয়েছেন সিয়াম আহমেদ ও পরীমনির মতো তারকা শিল্পীও। তারা এখন (১৯ মার্চ) অবস্থান করছেন সুন্দরবনের কটকা এলাকায়। টার্গেট নদীপথে টানা ২৫ দিনের শুটিং। মুঠোফোনে এর পরিচালক আবু রায়হান জুয়েল বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘করোনা বাংলাদেশে ছড়ানোর আগেই আমরা সুন্দরবনের উদ্দেশে রওনা দিয়েছি। পুরো লঞ্চটিই বলা যায় কোয়ারেন্টিন অবস্থায় আছে। তারপরও আমরা সাবধান থাকছি। সব রকমের স্যানিটাইজেশনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। সবার কাছে পর্যাপ্ত মাস্ক রয়েছে। চেষ্টা করছি দ্রুত শুটিং শেষ করার।’

১৪ এপ্রিল সদরঘাটে ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ এর মহরতএই পরিচালক জানান, দেশের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে ১৮ মার্চ রাতে শুটিংয়ে অংশ নেওয়া সবার সঙ্গে জরুরি বৈঠকে বসেছেন তারা। যেখানে শিশুশিল্পীদের বাবা-মায়েরাও ছিলেন। এতে সবার শতভাগ সম্মতি মিলেছে, শুটিং অব্যাহত রাখার বিষয়ে।
এদিকে শুটিং পরিস্থিতি নিয়ে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান বলেন, ‘শুটিং বন্ধের বিষয়ে শিল্পী সমিতি একক সিদ্ধান্ত নিতে পারে না। আমি যদি এ সিদ্ধান্ত নিই, সব দায়ভার আমার ওপর আসবে। তাই প্রযোজক, পরিচালক ও শিল্পী সমিতি বসে যৌথভাবে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। আগামীকাল (২০ মার্চ) আমাদের একটি মিটিং হওয়ার কথা আছে। আশা করছি সেখানেই এর সুরাহা হবে।’
এদিকে গতকাল (১৮ মার্চ) টিভি সংগঠনগুলোর মিটিংয়ে টেলিভিশন শিল্পীদের নাটকের বিষয়ে ঘোষণা আসার কথা থাকলেও তা হয়নি। বিষয়টি নিয়ে অভিনয় শিল্পী সংঘের সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিব নাসিম বলেন, ‘ঢাকার বাইরে এখনও অনেক শুটিং টিম অবস্থান করছে। হুট করে শুটিং বন্ধের নির্দেশ দিলে তারা বিপদে পড়বে। ক্ষতির বিষয়ও আছে। আবার টেকনিশিয়ানসহ বেশ কিছু সংগঠনের সঙ্গেও কথা বলতে হবে। আজ (১৯ মার্চ) সন্ধ্যায় একটি বৈঠক হবে আমাদের। আমরা চাচ্ছি দু-একদিন সময় রেখে আপাতত সব বন্ধ করে দিতে।’
এদিকে শুটিংয়ের পাশাপাশি বেশিরভাগ সংগীতশিল্পীর দেশ-বিদেশের পূর্বনির্ধারিত কনসার্ট স্থগিত হয়েছে। তবে এর মাঝেও কিছু কিছু কনসার্ট অব্যাহত রয়েছে। ১৮ মার্চ রাতে রাজধানীর মিরপুর পুলিশ কনভেনশন সেন্টারে নেচে-গেয়ে মঞ্চ মাতান এই প্রজন্মের জনপ্রিয় শিল্পী সানিয়া সুলতানা লিজা।
উল্টোদিকে করোনাভাইরাস সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সবার আগে সোচ্চার হতে দেখা গেছে আরেক জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী আঁখি আলমগীরকে। তিনি শো বন্ধ করার পাশাপাশি নিজ সন্তানদের স্কুলে না পাঠানোর সিদ্ধান্তটাও সাফ জানিয়ে দেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। এর দুদিন পর সরকারিভাবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধের ঘোষণা আসে।
করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে থমকে গেছে বিশ্ব। প্রতিদিনই সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলছে। বিশ্ব বিনোদনেও এর প্রভাব পড়েছে ব্যাপকভাবে। একে একে বহু দেশে বন্ধ হয়েছে প্রেক্ষাগৃহ, স্থগিত হয়েছে ছবি মুক্তির তারিখ থেকে শুরু করে সব ধরনের শুটিং।
১৮ মার্চ মিরপুর পুলিশ কনভেনশন সেন্টারে গাইছিলেন লিজা ও তার দলসেই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশে প্রথম সিনেমা মুক্তি না দেওয়ার ঘোষণা দেন মাসুদ হাসান উজ্জ্বল। তার ‌‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’ ছবিটি মুক্তির কথা ছিল ১৩ মার্চ। এরপর মুক্তির বিষয় স্থগিত করা হয় কামার আহমাদ সাইমনের ‘নীল মুকুট’ ও চয়নিকা চৌধুরীর ‘বিশ্বসুন্দরী’র। শুটিং স্থগিত হয়েছে শ্যাম বেনেগালের ‘বঙ্গবন্ধু’ আর শিহাব শাহীন পরিচালিত ‘যদি...কিন্তু...তবুও’ সিনেমার। যার সবক’টি সিদ্ধান্তই এসেছে ব্যক্তিগত পর্যায় থেকে।
এর বিপরীতে এখনও সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো আছেন দ্বিধায়। আশঙ্কার কথা স্বীকার করলেও শুটিং বন্ধের বিষয়ে কষছেন লাভ-ক্ষতির হিসাব!

/এমএম/এমওএফ/

লাইভ

টপ