সম্প্রচার বন্ধ দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় সিরিজের!

Send
সুধাময় সরকার
প্রকাশিত : ১৯:৩৭, এপ্রিল ১০, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১২:০২, এপ্রিল ১১, ২০২০

সিরিজের অন্যতম পাঁচ চরিত্রের সঙ্গে নির্মাতা অমি (ডানে)করোনাভাইরাসের প্রভাবে এবার সম্প্রচার বন্ধ হলো দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় সিরিজ নাটক ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট সিজন-২’-এর। খবরটি বাংলা ট্রিবিউনকে নিশ্চিত করেন এর পরিচালক কাজল আরেফিন অমি এবং প্রযোজক ধ্রুব গুহ।

গেল বছরের নভেম্বর থেকে নাটকটি সম্প্রচার হয়ে আসছিল বাংলা ভিশনে। একই সময়ে এটি উন্মুক্ত হচ্ছিল ধ্রুব টিভির ইউটিউব চ্যানেলে। বলা হয়ে থাকে, গেল কয়েক বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ জনপ্রিয় ধারাবাহিকের তকমা পায় এই সিরিজটি। প্রথম সিজন পেরিয়ে দ্বিতীয় সিজন আরও জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। চলমান হোমকোয়ারেন্টিন সময়ে নাটকটির দর্শক আরও বেড়েছে বলে খবর মিলেছে। নির্মাতা ও প্রযোজকের প্রস্তুতি ছিল মে মাস পর্যন্ত ধারাবাহিকটি নিরবচ্ছিন্নভাবে চালিয়ে যাওয়ার। শুটিং বন্ধের আগেই সেই প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছিলেন সংশ্লিষ্টরা।

কিন্তু সেসব প্রস্তুতি ভেস্তে গেলো। প্রযোজক, পরিচালক ও চ্যানেল কর্তৃপক্ষ যৌথভাবে ৫৭ পর্বে এসে এটির সম্প্রচার বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেন। শেষ পর্বটি প্রচার হলো ৪ এপ্রিল। আর সম্প্রচার বন্ধের সিদ্ধান্ত হয় ৮ এপ্রিল, ৫৮তম পর্ব প্রচারের আগেই।

হাতে ফুটেজ রেখেও সম্প্রচার বন্ধের কারণ প্রসঙ্গে নাটকটির প্রযোজক ধ্রুব গুহ বলেন, ‘দেশটা তো আসলে ভালো নেই। প্রতিটি মানুষ আছে জীবনের শঙ্কা নিয়ে। তবু আমাদের এই নাটকটি মানুষকে দম নেওয়ার একটা সুযোগ করে দিচ্ছিলো। কিন্তু আমরা নাটকটি সম্প্রচার রক্ষা করতে পারিনি নানা কারণে। এখানে শুটিং-সম্পাদনার একটা সেনসিটিভ বিষয় আছে। পুরো দেশটাই তো এখন লকডাউন। আমাদের বিশ্বাস অল্প সময়ের মধ্যে সব স্বাভাবিক হবে। আবার নাটকটি সম্প্রচারে যেতে পারবে।’

ধ্রুব গুহবিভিন্ন সূত্রে খবর মিলেছে, করোনার প্রভাবে প্রসাধনী ও বিলাসি সামগ্রীর বেশিরভাগ বিজ্ঞাপনই বন্ধ হয়েছে টিভি পর্দা থেকে। যে বিজ্ঞাপনগুলোর স্পন্সরেই চলতো নাটকগুলো। বিজ্ঞাপনের অভাবে সম্প্রতি সম্প্রচার বন্ধ হলো আরেক জনপ্রিয় ধারাবাহিক ‘ফ্যামিলি ক্রাইসিস’। মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজের এ নাটকটি প্রচার হচ্ছিল এনটিভিতে।

তবে কি তুমুল জনপ্রিয়তা পেয়েও ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট সিজন-২’-এর প্রচার বন্ধের পেছনে রয়েছে বিজ্ঞাপন সংকট?
জবাবে নাটকটির লেখক ও নির্মাতা কাজল আরেফিন অমি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন আরেকটু সবিস্তারে। তার ভাষায়, ‘আমার কাছে শুটিং করা আছে আরও ১২ থেকে ১৪ পর্ব। যেটা দিয়ে অনায়াসে এক মাস চালিয়ে দিতে পারবো। সমস্যা হচ্ছে এগুলো সম্পাদনা করা হয়নি। সম্পাদনা মানে তো অনেক বিষয়। কাটা, জোড়া, মিউজিক দেওয়া, কালার গ্রেডিং, লাগলে ডাবিং করানো—রাজ্যের ঝামেলা। তার মানে এডিট করার জন্য যেতে হবে প্যানেলে। গেলাম, এডিটর পাবো কই? এডিটর পেলাম, এই পর্বগুলো চ্যানেলে পৌঁছানোর উপায় কী? আমরা তো সবাই লকডাউনের মধ্যে। এগুলোই সিরিজটি বন্ধ হওয়ার মূল কারণ। এরসঙ্গে স্পন্সরের সরাসরি কোনও সম্পর্ক নেই।’

সিজন-২ এর প্রথম পর্ব:


অমি জানান, এটি সম্প্রচার বন্ধের বিষয়টি দর্শকরা টের পান ৯ এপ্রিল রাতে ৫৮তম পর্বটি যখন প্রচার হয়নি। ‘অনেকেই আমাদের সিদ্ধান্তে একমত হয়েছেন। কিন্তু অনেকেই জানাচ্ছেন বাজে প্রতিক্রিয়া। তারা বলছেন, এখনই তো সময় নাটকটি উপভোগ করার। তাদের বোঝানো যাচ্ছে না, তারা যেমন ঘরে আটকে আছেন, আমরাও তাই। তাদের ধারণা আমরা চাইলেই শুটিং, এডিটিং, সম্প্রচার সবকিছু করতে পারি! এটা বোঝে না, আমরাও তাদের মতোই দিন এনে দিন খাওয়া মানুষ। সম্প্রচার বন্ধ মানে আমাদের দম বন্ধ হয়ে আসার মতো বিষয়। সবার নিরাপদ জীবন প্রত্যাশা করছি।’ যুক্ত করলেন সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় নির্মাতা কাজল আরেফিন অমি।

রাজধানীতে বসবাসরত একদল স্বপ্নবাজ তরুণের ব্যাচেলর জীবনের নানা ঘটনা-দুর্ঘটনা আর প্রতিদিনের জীবনযাপন নিয়ে নির্মিত হয়েছে ধারাবাহিকটি। এতে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন তৌসিফ মাহবুব, মিশু সাব্বির, মারজুক রাসেল, তানজিন তিশা, নাদিয়া আফরিন মীম, সাবিলা নূর, এফ এস নাঈম, মুকিত জাকারিয়া, তাসনুভা অ্যালভিন, মনিরা মিঠু, ইরফান সাজ্জাদ, আবদুল্লাহ রানা, মাসুম বাশার, শামীম হাসান সরকার, চাষী আলম, জিয়াউল হক পলাশ, তামিম মৃধা প্রমুখ।
সম্প্রচার হওয়া শেষ পর্ব:

/এমএম/এমওএফ/

লাইভ

টপ