অভিবাসীদের দুর্দশা তুলে ধরলেন শিনা (ভিডিও)

Send
বিনোদন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২১:০৩, জুলাই ০৩, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৩:৩১, জুলাই ০৪, ২০২০

ভারতে ‘অভিবাসী’ নামের একটি অ্যানিমেটেড শর্ট ফিল্মে বাংলায় কণ্ঠ দিয়েছেন মডেল-অভিনেত্রী শিনা চৌহান। অভিবাসীদের দুর্দশার চিত্র তুলে ধরা হয়েছে এতে। হিন্দি ও ইংরেজি সংস্করণের ডাবিং করেছেন বলিউড অভিনেত্রী তাপসী পান্নু। এছাড়া আরও অন্যান্য ভাষায় এটি সাজানো হয়েছে।
বৃহস্পতিবার (২ জুলাই) “লেট’স টক উইথ বাংলা ট্রিবিউন” অনুষ্ঠানে ১ মিনিট ৪২ সেকেন্ড ব্যাপ্তির ‘অভিবাসী’তে কাজের অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন শিনা চৌহান। পাঞ্জাবে জন্ম হলেও তিনি বেড়ে উঠেছেন কলকাতায়। বাংলা ভালোই জানেন। স্কুলে থাকতে জিতেছেন মিস ক্যালকাটা খেতাব। মূলত এজন্যই বাংলা ভাষায় কণ্ঠ দেওয়ার জন্য বেছে নেওয়া হয় তাকে।
শিনা এখন আছেন ভারতের মুম্বাইয়ে। করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে শহরটিতে চার মাস ধরে লকডাউন চলছে। এরমধ্যেই ঘরে বসে ‘অভিবাসী’র কাজটি করেছেন তিনি। তার কথায়, ‘অভিবাসীদের কষ্ট আমাকে বেশ পীড়া দিয়েছে। সব দেশেই একই অবস্থা। কর্মহীন হয়ে পড়ায় মানবেতর জীবনযাপন করছেন তারা। একজন নারী অভিবাসীকে রেলস্টেশনে মৃত পড়ে থাকতেও দেখা গেছে। সব মিলিয়ে তাদের দুর্দশার খণ্ডচিত্র উঠে এসেছে শর্ট ফিল্মটিতে। নির্মাতা চেয়েছিলেন একজন অভিবাসীর কণ্ঠ যেন ফুটে ওঠে। আমি সেভাবেই কাজটা করে তৃপ্তি পেয়েছি। তাদের বিভিন্ন খবর আগে থেকে পড়া থাকায় আবেগটা ঠিকঠাক দিতে পেরেছি। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস ছবিটি প্রকাশ করে, এখন তো সবখানে ছড়িয়ে গেছে এটা।’


শিনা চৌহান‘অভিবাসী’ বানিয়েছেন ভারতের ছয়বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারজয়ী কিরীত খুরানা। লাইভ-অ্যাকশন ও থ্রিডি অ্যানিমেশনের মিশেলে বানানো ‘টুনপুর কা সুপারহিরো’র (২০১০) পরিচালক তিনি। এতে অভিনয় করেছেন তারকা দম্পতি অজয় দেবগণ ও কাজল। ২০১৮ সালের কান উৎসবে ভারতীয় প্যাভিলিয়নে কিরিত খুরানার ‘টি ফর তাজমহল’ ছবিটির ঘোষণা দেওয়া হয়। এর প্রিমিয়ার হয়েছে লন্ডন ভারতীয় চলচ্চিত্র উৎসবে।
বাংলাদেশের কোনও গণমাধ্যমের সঙ্গে অনলাইনে এবারই প্রথম আড্ডা দিলেন শিনা। শুরুতেই কথাটা জানিয়েছেন তিনি। বিপিএল সূত্রে বাংলাদেশে বেশ পরিচিত মুখ তিনি। ‘বিপিএল কন্যা’ বললে সবাই তাকে চেনে। ক্রিকেট ও সংগীতবিষয়ক অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করে দর্শকদের মুগ্ধ করেছেন। ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ প্রতিযোগিতার টিভি অনুষ্ঠান, বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের ‘টিম ড্র’ ও ‘মিউজিক ফর পিস’ উপস্থাপনা করতে তিনি ঢাকায় এসেছিলেন কয়েকবার।
বাংলাদেশে এলে নিশ্চয়ই অন্যরকম লাগে শিনার। সেটা কেমন? তার উত্তর, ‘বাংলাদেশকে নিজের বাড়ির মতো লাগে। বাংলাদেশে প্রতিবার দারুণ আতিথেয়তা পেয়েছি। সবার ভালোবাসায় সিক্ত হই। অনেকে আমার বন্ধু হয়ে গেছেন। কলকাতায় যেমন আমার আরেকটা বাসা আছে, বাংলাদেশের ক্ষেত্রেও সেটাই মনে হয়। কখনও একা লাগেনি।’
মোস্তফা সরয়ার ফারুকী পরিচালিত ‘পিঁপড়াবিদ্যা’ ছবির জন্য সাংহাই ও দুবাই চলচ্চিত্র উৎসবে সেরা অভিনেত্রীর মনোনয়ন পেয়েছেন শিনা চৌহান। কিছু দিন আগে হৈচৈ প্ল্যাটফর্মে এটি মুক্তি পেয়েছে। বাংলাদেশের ছবি ‘দেবী’র নির্মাতা অনম বিশ্বাসের একটি শর্ট ফিল্মে কাজ করার কথা ছিল তার। এর নাম ‘আনফেয়ার’। এ প্রসঙ্গে শিনা বলেন, ‘লকডাউনের কারণে কাজটা পিছিয়ে গেছে। অনমের সঙ্গে এ নিয়ে নিয়মিতই কথা হয়। আমাদের ইচ্ছে বাংলাদেশে শুটিং করার। যদি তা সম্ভব না হয় তাহলে কলকাতায় কাজটা করবো। ছবিটা অবশ্যই হবে।’
২০১১ সালে মামুতির বিপরীতে মালায়লাম ছবি ‘দ্য ট্রেন’-এর মধ্য দিয়ে বড় পর্দায় শিনার অভিষেক হয়। এখন পর্যন্ত সাতটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। এরমধ্যে অন্যতম হলো হিন্দি ভাষার ‘মুক্তি’ ও ‘পত্রলেখা’। দুটি ছবিই রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কবিতা অবলম্বনে নির্মাণ করেছেন কলকাতার প্রখ্যাত নির্মাতা বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত।

নতুন খবর হলো, ভারতের দু’বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারজয়ী নির্মাতা নাগেশ কুকুনুরের ওয়েব সিরিজ ‘সিটি অব ড্রিমস’-এর দ্বিতীয় সিজনে অভিনয় করবেন শিনা। এতে তাকে দেখা যাবে সাংবাদিক চরিত্রে। গল্পে মানবাধিকারকর্মী হিসেবে কাজ করে মেয়েটি। ডিজনি হটস্টারে এটি মুক্তি পাওয়ার কথা।শিনা চৌহান


ব্যক্তিজীবনেও মানবাধিকার নিয়ে শিনা চৌহান বেশ সক্রিয়। লস অ্যাঞ্জেলেসভিত্তিক অলাভজনক সংগঠন ইয়ুথ ফর হিউম্যান রাইটস ইন্টারন্যাশনালের দক্ষিণ এশিয়ার দূত তিনি। আন্তর্জাতিক মানবাধিকার শিক্ষা বিষয়ে বক্তব্য দিয়েছেন। জাতিসংঘেও গেছেন। এখন ‘বর্ন ফ্রি অ্যান্ড ইক্যুয়াল’ নামের একটি কর্মসূচি চালাচ্ছেন। এর লক্ষ্য মানবাধিকার বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধি করা ও শিক্ষা ছড়িয়ে দেওয়া। এতে যুক্ত হয়েছেন বলিউড অভিনেত্রী সোনাক্ষী সিনহা, নন্দিতা দাস, পরিচালক অশ্বিনী আইয়ার তিওয়ারি, সোনালি বোসহ অনেকে। একেকজন একেকটি মানবাধিকার নির্বাচন করে কথা বলেছেন।
এদিকে শিনার নতুন মঞ্চনাটকেও আছে সামাজিক বক্তব্য। মুম্বাইয়ের জুহুর পৃথ্বি থিয়েটারে নিয়মিত সময় দিচ্ছেন। ‘এক্সট্রিমেটিস’ নামের একটি নাটকে অভিনয় করছেন। সমাজে ধর্ষণের কারণকে কীভাবে দেখা হয় সেটাই এর বিষয়বস্তু। তার শুরুটা কিন্তু মঞ্চনাটক দিয়েই। প্রখ্যাত নাট্যনির্দেশক অরবিন্দ গৌরের কাছেও তালিম নিয়েছেন। মাঝে অনেকটা সময় মঞ্চকে সময় দেওয়া হয়নি।
সাংবাদিক জনি হকের সঞ্চালনায় “লেট’স টক উইথ বাংলা ট্রিবিউন” অনুষ্ঠানের শেষ প্রান্তে এবারের জন্মদিনের পরিকল্পনা জানান শিনা। ৩ জুলাই তার জন্মদিন। তিনি বললেন, ‘প্রকৃতি খুব ভালো লাগে আমার। মুম্বাইয়ে আমার বাসা থেকে দুই ঘণ্টার দূরত্বে একটা জায়গায় ট্রি হাউজের মতো দারুণ জায়গা আছে, ইচ্ছে করছে সেখানে গিয়ে কিছু লিখবো। প্রকৃতির সান্নিধ্যে থাকবো। তবে খুব করে চাই, করোনাভাইরাস মহামারি শেষ হয়ে যাক। ততদিন পর্যন্ত আমরা আশা ধরে রাখি। মানসিকভাবে ইতিবাচক থাকাটা এখন খুব দরকার।’


/জেএইচ/এমএম/এমওএফ/

লাইভ

টপ