X
শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২
২২ আশ্বিন ১৪২৯

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির মধ্যে লাখো মুসলিমের ঈদুল আজহা উদযাপন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
০৯ জুলাই ২০২২, ১৮:০৩আপডেট : ০১ আগস্ট ২০২২, ১৯:১০

জেরুজালেমে আল আকসা মসজিদ প্রাঙ্গনে ডোম অব রকের পাশে ঈদের নামাজ পড়েন মুসলিম মুসল্লিারা।

আফগানিস্তান, লিবিয়া, মিসর, কেনিয়া ও ইয়েমেনসহ বিশ্বের লাখো মুসলিম শনিবার ঈদুল আজহা পালন করছেন। ‘উৎসর্গের উৎসব’ হিসেবে পরিচিত ঈদুল আজহা সৌদি আরবে বার্ষিক হজের শেষ রীতির সঙ্গে মিল রেখে পালন করা হয়। এটি মুসলিমদের জন্য আনন্দের উপলক্ষ। তবে বাংলাদেশ, ইন্দোনেশিয়া, ভারত, পাকিস্তানসহ এশিয়ার বেশিরভাগ দেশে রবিবার ঈদ উদযাপন করা হবে। মার্কিন বার্তা সংস্থা এপি'র এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানা গেছে।

ইউক্রেনে রাশিয়ার যুদ্ধের কারণে মধ্যপ্রাচ্যে খাদ্যদ্রব্যের মূল্যবৃদ্ধি এবং ব্যাপক আকারের দুর্ভোগ তৈরি করেছে। অঞ্চলটির অনেকেই বলছেন, কোরবানির জন্য পশু কেনার সামর্থ্য তাদের নেই। জীবনযাত্রার মূল্যবৃদ্ধির কারণে ঈদের সময় ছাগল, গরু ও ভেড়ার বাণিজ্যেও প্রভাব ফেলেছে।

উত্তর আফগানিস্তানের মাজার-ই-শরিফের একটি ছাগলের হাট থেকে মোহাম্মদ নাদির বলেন, আল্লাহর নামে সবাই পশু কোরবানি করতে চায়। কিন্তু গরিব হওয়ার কারণে তারা তা করতে পারছে না।

চেচেন রিপাবলিকের রাজধানী গ্রজনিতে ঈদের নামাজ

অসংখ্য মুসলিম পশু কোরবানি ও পরিবার, বন্ধু-স্বজন ও দরিদ্রদের মধ্যে মাংস বিতরণ করে চার দিনের ঈদের উৎসব পালন করেন। ফিলিস্তিনের গাজা সিটির পশ্চিমে আল-শাতি শরণার্থী শিবিরে শনিবার উচ্ছ্বসিত শিশুরা কোরবানির মাংস নিতে লাইন ধরে দাঁড়িয়েছিল। যারা সাধারণত মাংস কিনতে পারেন না তাদের জন্য কোরবানির মাংস আনন্দের উপলক্ষ নিয়ে আসে।

নগদ সংকটে থাকা আফগানিস্তানে সাধারণ ঈদের আগে পশু কেনা-বেচা সর্বোচ্চ পর্যায়ে থাকে। কিন্তু এবার বৈশ্বিক মুদ্রাস্ফীতি, রক্ষণশীল মুসলিম গোষ্ঠী তালেবানের ক্ষমতা দখলে অর্থনৈতিক বিপর্যয়, সাম্প্রতিক প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের ফলে অনেকে কোরবানির পশু কেনার সামর্থ হারিয়েছেন।

কেনিয়ার নাইরোবিতে ঈদের নামাজে জড়ো হয়েছেন মুসলিমরা

এক আফগান ছাগল বিক্রেতা মোহাম্মদ কাসিম বলেন, গত বছর এই দিনে আমি ৪০-৫০টি ছাগল বিক্রি করেছি। এই বছর আমি মাত্র দুটি বিক্রি করতে পেরেছি।

ইউক্রেনে রাশিয়ার যুদ্ধের কারণে গম ও মাংসের দাম কয়েকগুণ বেড়েছে এবং অভুক্ত মানুষের সংখ্যা বাড়ছে। যুদ্ধের কারণে কৃষি ও জ্বালানি সরবরাহে সংকট সৃষ্টি হওয়ার কারণে এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। পশুখাদ্য ও সারের আকাশ ছোঁয়া দামের কারণে বিক্রেতারা পশুরও দাম বাড়িয়েছেন।

বাগদাদে একজন ইরাকি নারী এক আত্মীয়ের কবরস্থানে হাজির হয়েছেন

যুদ্ধবিধ্বস্ত লিবিয়ার ত্রিপোলিতে মহামারির দুই বছর এবং এক দশকের বেশি সময়ের সহিংস বিশৃঙ্খলার পর এবারের ঈদ উদযাপনের দিকে তাকিয়ে ছিল অনেক মুসলিম পরিবার। কিন্তু একেকটি ছাগলের দাম বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ১০০ মার্কিন ডলার।

সাবরি আল-হাদি বিরক্তির সঙ্গে বলেন, সত্যি কথা বলতে কী এই মূল্য একেবারে পাগলামি।

গাজা উপত্যকায় একটি কোরবানির পশুর হাটে খুব কম ক্রেতা রয়েছেন। বিক্রেতারা বলছেন, গত কয়েক সপ্তাহে ভেড়ার দাম চারগুণ বেড়েছে।

মধ্যাঞ্চলীয় গাজার দেইর আল-বালাহ এলাকার ভেড়া বিক্রেতা আবু মুস্তফা বলেন, ‘আমাদের দুঃখের অন্ত নেই’। এলাকাটিতে দীর্ঘদিন ধরে বড় ধরনের বেকারত্ব ও দরিদ্রতায় ভুগছেন স্থানীয়রা।

কেনিয়ার নাইরোবিতে ঈদের নামাজ পড়ছেন মুসলিমরা

পশ্চিমতীরের রামাল্লায় ফিলিস্তিনি পরিবারগুলো ঈদের ঐতিহ্যবাহী বিভিন্ন পদের খাবার তৈরি করে থাকে। এখানকার ফল বিক্রেতা বালিগ হামদি অভিযোগের সুরে বলেন, এমন দিনে ফল, মিষ্টি ও বাদামের চাহিদা থাকত। কিন্তু এখন এগুলো কেনার মতো কেউ নেই।

জমকালো উৎসব হোক বা না হোক, সমবেতভাবে ঈদের নামাজ আদায় কার হয়েছে। দুই বছর ধরে বিশ্বে করোনাভাইরাস সংশ্লিষ্ট বিধিনিষেধের পর স্বস্তিদায়ক একটি দৃশ্য। শনিবার মধ্যপ্রাচ্য ও উত্তর আফ্রিকার মসজিদগুলোতে মুসল্লিরা ভীড় করেছেন।

কেনিয়া থেকে রাশিয়া, মিসর থেকে ইয়েমেন, মুসল্লিরা কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে, পায়ে পা মিলিয়ে ঈদের নামাজ আদায় করেছেন।  

শনিবার সকালে রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবুগের কুরবান-বায়রাম এলাকায় ঈদের নামাজ

কায়রোর সাহার মোহাম্মদ মুখে বিস্তৃত হাসি নিয়ে বলেন, এত মানুষ নামাজে এসেছেন বলে আমি খুব খুশি। মানুষের মধ্যে ভালোবাসা ও বরণ করার মনোভাব রয়েছে।

সৌদি আরবে লাখো হাজি ভোরে মিনা পাহারে জেগে ওঠেন। যে পাহাড়ে মহানবী (সা.) ১৪০০ বছর আগে থেমে ছিলেন। পবিত্র শহর মক্কায় এবার হজ পালনে জড়ো হয়েছেন দশ লাখ মুসলিম। মহামারিতে সীমিত পরিসরে আয়োজনের পর এটিই বৃহত্তম ধর্মীয় সমাবেশ।

বহুতল ভবন জামারাত কমপ্লেক্সে হাজিরা শয়তানকে প্রতীকী কঙ্কর নিক্ষেপ করেছেন। যা হজরত ইব্রাহিম (আ.)-এর প্রলোভনের বিরুদ্ধে জয়ের কথা স্মরণ করা হয় এই কঙ্কর নিক্ষেপের মধ্য দিয়ে।

হজে শয়তানকে প্রতীকী কঙ্কর নিক্ষেপ করছেন মুসল্লিরা

এটিই হজের সবচেয়ে বিপজ্জনক ধাপ। এখানে চারদিকে হাজারো হাজি জড়ো হন। ২০১৫ সালে পদদলিত হয়ে হাজারে মুসল্লির মৃত্যু হয়েছিল। সৌদি আরবের সরকার কখনও চূড়ান্ত মৃতের সংখ্যা ঘোষণা করেনি। ওই বছর থেকে কর্তৃপক্ষ রাস্তার পরিসর বাড়িয়েছে, ইলেক্ট্রনিক গেট বসিয়েছে এবং দ্রুতগতির রেল যুক্ত করেছে।

শারীরিক ও আর্থিকভাবে সমর্থ মুসলিমদের জীবনে অন্তত একবার হজ পালন করা ফরজ। মহামারির দুই বছর পর এবার বৃহৎ পরিসরে হজ আয়োজন করলেও সৌদি সরকার এবছরও করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে পদক্ষেপ নিয়েছে। করোনার টিকা ছিল বাধ্যতামূলক। প্রাক-মহামারির সময়ের তুলনায় অংশগ্রহণকারীদের সংখ্যা ছিল অর্ধেকের কম।

তুরস্কের ইস্তাম্বুলে উন্মুক্ত হাটে নিয়ে আসা ভেড়া

হজের দৃশ্য স্বাভাবিকতার কাছাকাছি ছিল। পবিত্র স্থানগুলোতে জড়ো মুসল্লিদের অনেকেই মাস্ক পরেননি এবং স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলেননি। হজের শেষ ধাপ হিসেবে পুরুষরা মাথার চুল মুড়িয়ে ইহরাম সমাপ্ত করবেন। পরে তারা মক্কায় ফিরবেন এবং কাবা ঘিরে চক্কর দেবেন।

ভারতীয় হজযাত্রী ইজহার আনজুম বলেন, আমি খুব গর্ববোধ করছি। আমরা খুব উপভোগ করছি কারণ আজ ঈদ।

 

/এএ/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
চালের দাম বেড়েছে
চালের দাম বেড়েছে
সুসং দুর্গাপুরে মিথিলার দিনগুলো...
যে দেশ শিশুর মতো প্রকৃতির কোলে হেসে-খেলে ঘুমিয়ে পড়ে
শান্তিতে নোবেলজয়ীদের পরিচয় ও কাজ সম্পর্কে যা জানা গেলো
শান্তিতে নোবেলজয়ীদের পরিচয় ও কাজ সম্পর্কে যা জানা গেলো
র‌্যাব গঠন মার্কিনিরা কীভাবে ঠিক করে দেয়, প্রশ্ন সাইফুল হকের
র‌্যাব গঠন মার্কিনিরা কীভাবে ঠিক করে দেয়, প্রশ্ন সাইফুল হকের
বাংলাট্রিবিউনের সর্বাধিক পঠিত
প্রস্তুত হন, চেরাগ জ্বালিয়ে চলতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
প্রস্তুত হন, চেরাগ জ্বালিয়ে চলতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
আলিবাবার জ্যাক মা পারলে আমরা পারবো না কেন: শামীমা নাসরিন
আলিবাবার জ্যাক মা পারলে আমরা পারবো না কেন: শামীমা নাসরিন
গোলমাল বাধলে ঘর স্ত্রীর নামে যাবে, স্বামীর নামে না: প্রধানমন্ত্রী
গোলমাল বাধলে ঘর স্ত্রীর নামে যাবে, স্বামীর নামে না: প্রধানমন্ত্রী
মেট্রোরেলে চাকরির সুযোগ, বড় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ
মেট্রোরেলে চাকরির সুযোগ, বড় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ
চোখের সামনে পড়েছিল কয়েকজনের লাশ, মৃত্যুর হাত থেকে ফিরলাম
চোখের সামনে পড়েছিল কয়েকজনের লাশ, মৃত্যুর হাত থেকে ফিরলাম