ইরানি বিজ্ঞানীর বিনিময়ে মার্কিন গবেষককে মুক্তি দিলো তেহরান

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২১:২৬, ডিসেম্বর ০৭, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:৫৯, ডিসেম্বর ০৭, ২০১৯

গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে আটক চীনা বংশোদ্ভূত এক মার্কিন নাগরিককে মুক্তি দিয়েছে ইরান। যুক্তরাষ্ট্রে আটক এক ইরানি বিজ্ঞানীর মুক্তির বিনিময়ে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। সুইডেন সরকারের মধ্যস্ততায় এই বন্দি বিনিময় হয়েছে বলে এক টুইট বার্তায় ইঙ্গিত দিয়েছেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ। খুব শিগগিরই ওই দুই ব্যক্তি নিজেদের পরিবারের কাছে ফিরবেন বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। অপর এক বিবৃতিতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও আমেরিকান গবেষকের মুক্তির খবর নিশ্চিত করেছেন। পরমাণু চুক্তি নিয়ে দুই দেশের উত্তেজনার মধ্যেই এই বন্দি বিনিময়ের ঘটনা ঘটলো।
২০১৫ সালের জুনে ভিয়েনায় ইরানের সঙ্গে নিরাপত্তা পরিষদের পাঁচ সদস্য দেশ যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, রাশিয়া, চীন (পি-ফাইভ) ও জার্মানি (ওয়ান) পরমাণু চুক্তিতে স্বাক্ষর করে। চুক্তি অনুযায়ী, ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ কার্যক্রম চালিয়ে গেলেও পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি না করার প্রতিশ্রুতি দেয় তেহরান। ওবামা আমলে স্বাক্ষরিত ওই চুক্তিকে ‘ক্ষয়িষ্ণু ও পচনশীল’ আখ্যা দিয়ে ২০১৮ সালের মে মাসে চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন ট্রাম্প। একই বছরের নভেম্বর থেকে তেহরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল শুরু করে ওয়াশিংটন। 

সর্বোচ্চ চাপ প্রয়োগের মাধ্যমে তেহরানকে নতুন চুক্তিতে বাধ্য করতে চায় ট্রাম্প প্রশাসন। তবে চাপের কাছে নতি স্বীকারে রাজি নয় ইরান। এ নিয়ে দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা চলছে।

২০১৬ সালের আগস্টে বিদেশি সরকারকে সহায়তার অভিযোগে চীনা-আমেরিকান গবেষক জিউয়ে ওয়াংকে আটক করে ইরান। আর গত বছরের অক্টোবরে শিকাগো বিমানবন্দর থেকে স্টেম সেল বিশেষজ্ঞ মাসুদ সোলাইমানিকে আটক করে যুক্তরাষ্ট্র। তার বিরুদ্ধে বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইরানে জীববিজ্ঞান সামগ্রী পাঠানোর চেষ্টার অভিযোগ আনা হয়। তবে উভয়েই তাদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন।

শনিবার এক টুইট বার্তায় ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ লিখেছেন, ‘আনন্দের খবর যে অধ্যাপক মাসুদ সোলাইমানি ও জিউয়ে ওয়াং শিগগিরই তাদের পরিবারের কাছে ফিরে যাচ্ছেন। সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ, বিশেষ করে সুইডেন সরকারকে।’

অপর এক বিবৃতিতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, ওয়াংকে গুপ্তচরবৃত্তির অজুহাতে আটক রাখা হয়েছিল। তিনি বলেন, বন্দি থাকা আমেরিকান নাগরিকদের ফিরিয়ে আনা আমার প্রশাসনের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কাজ। আমাদের যেসব নাগরিককে বিদেশে অন্যায়ভাবে বন্দি রাখা হয়েছে তাদের সবাইকে ফিরিয়ে আনা অব্যাহত রাখা হবে।

মাসুদ সোলাইমানির মুক্তির পর তার সঙ্গে তোলা ছবিও টুইটারে প্রকাশ করেছেন জাভেদ জারিফ। আর ওয়াং-এর স্ত্রী হুয়া কু তার স্বামীর মুক্তির কথা নিশ্চিত করেছেন। এক বিবৃতিতে তিনি বলেছেন, আবারও পূর্ণ হতে যাচ্ছে আমার পরিবার। তিন বছর ধরে এই দিনটির অপেক্ষা করেছি আমি আর আমাদের সন্তান সাওফান। আর এটা ঘটতে যারা আমাদের সাহায্য করেছেন তাদের সবাইকে ধন্যবাদ।

ইরানে আটক হওয়ার সময় প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ে পোস্ট গ্রাজুয়েট সম্পন্ন করছিলেন ওয়াং। তার মুক্তির খবরে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

২০১৬ সালের আগস্টে ইরান ত্যাগের সময় আটক হন জিউয়ে ওয়াং। বিশ্ববিদ্যালয়ের তত্ত্বীয় কাজের অংশ হিসেবে গবেষণা করতে ইরান গিয়েছিলেন তিনি। তার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য ‘অতি গোপনীয় নথি’ সংগ্রহের চেষ্টার অভিযোগ আনা হয়। গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয় তাকে। আর বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জীববিজ্ঞান সামগ্রী ইরানে রফতানি চেষ্টার অভিযোগে ২০১৮ সালের অক্টোবরে আটক হন মাসুদ সোলাইমানি।

 

/জেজে/এমপি/

লাইভ

টপ