যুক্তরাজ্যে বন্ধ হচ্ছে, ক্যাফে-বার-রেস্টুরেন্ট

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ০১:৩০, মার্চ ২১, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০৫:০৮, মার্চ ২১, ২০২০

করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় জনসমাগম সীমিত করতে ক্যাফে, বার ও রেস্টুরেন্ট বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে যুক্তরাজ্য। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, শুক্রবার রাত থেকে এসব বন্ধ থাকবে। তবে মানুষ খাবার কিনে বাড়ি নিয়ে যেতে পারবে। এছাড়া যত তাড়াতাড়ি সম্ভব বন্ধ করে দিতে বলা হয়েছে, দেশটির সব নাইটক্লাব, থিয়েটার, সিনেমাহল, ব্যায়ামাগার ও অবকাশ কেন্দ্র। প্রতি মাসে পরিস্থিতি পর্যালোচনা করা হবে বলে জানিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। দেশটির সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, এই পরিস্থিতিতে কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন

যুক্তরাজ্যে এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে তিন হাজার ২৬৯ জন। আর মারা গেছে ১৮৪ জন। ভাইরাসটির প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে গত রবিবার থেকে আয়ারল্যান্ডে বন্ধ রয়েছে ক্যাফে, বার ও রেস্টুরেন্ট। এবারে একই ধরনের পদক্ষেপ নিলো ব্রিটেন।

ডাউনিং স্টিটের নিয়মিত সংবাদ সম্মেলনে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বলেন, এসব পদক্ষেপ কঠোরভাবে প্রয়োগ করা হবে। শুক্রবার রাত থেকে মানুষদের বাইরে বের হতে নিরুৎসাহিত করে তিনি বলেন, এখন থেকে অন্তত শারিরীকভাবে আমাদের দূরত্ব বজায় রাখা উচিত।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যত কঠোরভাবে আমরা এসব পরামর্শ মেনে চলবো, তত তাড়াতাড়ি আমাদের দেশ চিকিৎসায় এবং অর্থনীতিতে ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে পারবো’।

একই ব্রিফিংয়ে অর্থমন্ত্রী রিশি সুনাক বলেন, নতুন পদক্ষেপের কারণে বহু মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়বে। নিয়োগদাতাদের কর্মীদের পাশে থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, কর্মহীন মানুষদের ৮০ শতাংশ বেতন পরিশোধ করবে সরকার। এক্ষেত্রে প্রত্যেককে মাসে সর্বোচ্চ আড়াই হাজার ইউরো দেওয়া হবে।

 

 

/জেজে/

লাইভ

টপ