ওয়ানএমডিবি কেলেঙ্কারি: ৩০০ কোটি ডলার দেবে গোল্ডম্যান স্যাকস

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ০৮:৫৪, অক্টোবর ২৩, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১০:৩০, অক্টোবর ২৩, ২০২০

মালয়েশিয়ার ওয়ানএমডিবি দুর্নীতি কেলেঙ্কারিতে নিজেদের ভূমিকার জন্য প্রায় ৩০০ কোটি ডলার দিতে রাজি হয়েছে গোল্ডম্যান স্যাকস। বৃহস্পতিবার কোম্পানিটির মালয়েশীয় প্রতিষ্ঠান যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে স্বীকার করেছে, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বিনিয়োগ তহবিলের জন্য অর্থ সংগ্রহের কাজ পেতে ১০০ কোটি ডলারের বেশি ঘুষ দেওয়ার কথা। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এখবর জানিয়েছে।  

মার্কিন কর্মকর্তারা বলছেন, রেকর্ড পরিমাণ অর্থের এই সমঝোতা প্রমাণ করে বড় ধরনের দুর্নীতিতে গোল্ডম্যানের কেন্দ্রীয় ভূমিকা।

গোল্ডম্যান স্বীকার করেছে, তারা ব্যর্থ হয়েছে এবং ঘটনাটি প্রাতিষ্ঠানিক ব্যর্থতা বলে স্বীকার করেছে।

সব মিলিয়ে বিনিয়োগ ব্যাংকটিতে শাস্তি হিসেবে ৫০০ কোটি ডলার পরিশোধ করতে হবে। যা ২০১৯ সালের আয়ের দুই-তৃতীয়াংশ। এসব জরিমানা যুক্তরাজ্যসহ বিভিন্ন দেশে দিতে হবে।

২০০৯ সালে মালয়েশিয়ায় নতুন অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নের জন্য ওয়ান মালয়েশিয়া ডেভেলপমেন্ট বেরহাদ (ওয়ানএমডিবি) তহবিলটি গঠন করা হয়। তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাক ছিলেন এর প্রতিষ্ঠাতা। ২০১৫ সালে ব্যাংক ও শেয়ারহোল্ডারদের পাওনা পরিশোধে ব্যর্থতার কারণে এই তহবিলের কর্মকাণ্ড নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। মালয়েশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃপক্ষ অভিযোগ করে, এই তহবিল থেকে প্রায় চারে চারশ’ কোটি মার্কিন ডলার অবৈধভাবে আত্মসাৎ করা হয়েছে আর ব্যক্তিগত হিসাবে তা হস্তান্তর করা হয়েছে। এসব অর্থ বিলাসবহুল বাড়ি, বিমান, দামি চিত্রকর্ম কেনাসহ নানা বিলাসী কর্মকাণ্ডে ব্যয় করা হয়েছে।

মার্কিন বিচার বিভাগ বলছে, ওয়ানএমবিডি তহবিল থেকে ৪৫০ কোটি মার্কিন ডলার তছরুপ করা হয়েছে। এর বেশ কিছু অর্থ ব্যক্তিগত বিমান, প্রমোদতরী, পিকাসোর ছবি, গয়না ও সম্পত্তি কেনায় ব্যয় হয়েছে।

অর্থ কেলেঙ্কারির প্রথম মামলায় দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাককে দুর্নীতির দায়ে দোষী সাব্যস্ত করেছেন আদালত। 

/এএ/

লাইভ

টপ