ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যমে পাকশী ব্রিজ ও রিকশাচালকের ছবি

Send
জার্নি ডেস্ক
প্রকাশিত : ২১:৪৬, মার্চ ১২, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:৫৬, মার্চ ১২, ২০২০

মিলন খানের তোলা পাকশী ব্রিজের ছবিযুক্তরাজ্য ভিত্তিক ট্যাবলয়েড ডেইলি মেইলের অনলাইন সংস্করণে প্রকাশিত হলো বাংলাদেশের ভ্রমণ বিষয়ক দুটি আলোকচিত্র। এগুলোর শিরোনাম ‘ফগি মর্নিং স্টোরি’ ও ‘ট্রাভেল অ্যাওয়ে’। আলোকচিত্র নির্ভর অ্যাপ অ্যাগোরার আয়োজনে ‘ব্ল্যাক অ্যান্ড হোয়াইট ২০২০’ হ্যাশট্যাগ শীর্ষক আন্তর্জাতিক আলোকচিত্র প্রতিযোগিতার সংক্ষিপ্ত তালিকায় স্থান পেয়েছে ছবি দুটি।

রাজশাহীর আলোকচিত্রী মিলন খানের তোলা ‘কুয়াশাচ্ছন্ন সকালের গল্প’তে দেখা যাচ্ছে, পাকশী হার্ডিঞ্জ ব্রিজের নিচে শান্ত নদী। এর ওপর নৌকা নিয়ে বৈঠা বাইতে বাইতে যাচ্ছেন একজন মাঝি।
পাবনা জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার পাকশী রেলওয়ে স্টেশন সংলগ্ন বাংলাদেশের সবচেয়ে দীর্ঘ রেলসেতু এটি। হার্ডিঞ্জ ব্রিজের দৈর্ঘ্য ৫ হাজার ৮৯৪ ফুট (১ দশমিক ৮ কিলোমিটার)। এর ওপর দুটি ব্রডগেজ রেললাইন রয়েছে। পাকশি রেলস্টেশনের দক্ষিণে পদ্মা নদীর ওপর শত বছরেরও পুরনো এই সেতু অবস্থিত। তৎকালীন ব্রিটিশ লর্ড হার্ডিঞ্জের নামানুসারে এর নামকরণ করা হয়। 
ডেইলি মেইলে প্রকাশিত ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়ার রসুলপুরে তোলা মোহাম্মদ হেদায়েত সরকারের ছবিতে একজন রিকশাচালককে যাত্রী নিয়ে যেতে দেখা যাচ্ছে। তরুণ এই ছবিয়ালের কথায়, ‘বাংলাদেশে রিকশাচালকরা অনেক সংগ্রামের মধ্য দিয়ে টিকে থাকে। তারা সাধারণত চরম দরিদ্র পরিবার থেকে উঠে আসে এবং জীবিকা নির্বাহের জন্য অনেক ধকল, দূষণ ও দাবদাহের মুখোমুখি হয়ে অবিরাম পরিশ্রম করে যায়।’

মোহাম্মদ হেদায়েত সরকারের তোলা ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়ার রিকশাচালকের ছবিগত ২৪ জানুয়ারি আলোকচিত্রীদের কাছে সেরা সাদাকালো ছবি আহ্বান করে অ্যাগোরা। এরপর এতে জমা পড়ে ১০ হাজার ২১৯টি ছবি। এর মধ্য থেকে সংক্ষিপ্ত তালিকায় স্থান পেয়েছে ৫০টি। এর মধ্যে বাংলাদেশের আছে চারটি।

শাহাদাত হোসেনের তোলা ‘সারভাইভ’তালিকায় বাংলাদেশের অন্য দুটি ছবির মধ্যে শাহাদাত হোসেনের তোলা ‘সারভাইভ’-এ দেখা যাচ্ছে, রেলওয়ে স্টেশনে দাঁড়ানো একটি ট্রেনে একজন যাত্রী জানালা খোলার চেষ্টা করছেন।

এহসানুল সিদ্দিক অরণ্যের তোলা ছবি‘রিফ্লেকশন অব দ্য সৌল’ শিরোনামে এহসানুল সিদ্দিক অরণ্যের ছবিতে ফুটে উঠেছে, ব্যালকনির মেঝেতে নিজের ঘরে একাকী এক বালকের বন্দিত্ব। সে জানালার শিকল ধরে বাইরের আকাশ দেখছে।

অ্যাগোরার সদস্য ১৯৩ দেশের ৩৫ লাখ আলোকচিত্রী। রঙ সবাইকে মুগ্ধ করে। তবে সাদাকালো ছবিও দারুণ, মনোমুগ্ধকর ও মনোরম হতে পারে। বৈশ্বিক একটি প্রতিযোগিতার সংক্ষিপ্ত তালিকায় স্থান পেয়েছে এমন কিছু ছবি।

/জেএইচ/
টপ