সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে রেস্তোঁরায় কাচের ঘর

সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে রেস্তোঁরায় কাচের ঘর

Send
জার্নি ডেস্ক
প্রকাশিত : ২০:০৯, মে ১৩, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:৩০, মে ১৩, ২০২০

কোভিড-১৯ সংকটের কারণে বদলে গেছে সারাবিশ্ব। ভবিষ্যতে অনেকটা সময় এই পরিবর্তন অব্যাহত থাকবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার মধ্যে রেস্তোরাঁয় বসে খাবারের স্বাদ নেওয়া মিস করছেন অনেকে।

অবশ্য জীবনযাত্রাকে কিছুটা সহজ করার উপায় দেখা গেলো নেদারল্যান্ডসে। দেশটির রাজধানী আমস্টারডামের একটি রেস্তোরাঁ সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে বাইরে খাওয়ার সমাধান খুঁজে বের করেছে। সেটি হলো আউটডোর কাচের ঘর।

আমস্টারডামে রেস্তোরাঁয় কাচের ঘরআমস্টারডামের ‘মিডিয়াম্যাটিক ইতেন’ নিরামিষ রেস্তোরাঁ হিসেবে সুপরিচিত। মানসম্পন্ন ও সুস্বাদু খাবারের জন্য এর জুড়ি নেই।

দোকানটির আউটডোরে কাচের ঘরে ফোর-কোর্স ডিনার পরিবেশন করা হচ্ছে ভোজনরসিকদের। প্রতিটি বুথে দুই-তিনজন করে বসতে পারেন। ফলে ঘরের বাইরে খেতে আগ্রহীদের আর কোনও চিন্তা নেই!

আপাতত রেস্তোরাঁটির কর্মীদের পরিবার ও বন্ধুদের এনে পরীক্ষামূলকভাবে নতুন ভাবনা প্রয়োগ করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে আগামী কিছুদিনের রিজার্ভেশন বিক্রি হয়ে গেছে।

আমস্টারডামে রেস্তোরাঁয় কাচের ঘরকাচের ঘরটি দেখতে বেশ আরামদায়ক। বাইরে প্রিয়জন কিংবা বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দেওয়ার জন্য বেশ পরিপাটি জায়গা এটি। এর মাধ্যমে নৈশভোজ নিরাপদ হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে ওয়েটাররা গ্লাভস পরে খাবার পরিবেশন করেন, তাদের মুখ ঢাকা থাকে ফেস শিল্ডে। কাচের ঘরে খাবার পরিবেশনের জন্য তারা ব্যবহার করছেন লম্বা বোর্ড। ফলে খাবার শেষে বাইরে তিন ফুট দূর থেকে বাসন-গ্লাসসহ বর্জ্য তুলে নেওয়া যাচ্ছে। একইসঙ্গে দূরত্ব বজায় রেখে ওয়াইন পরিবেশ করতে পারছেন তারা।

মিডিয়াম্যাটিক ইতেন কর্তৃপক্ষ তাদের উদ্যোগটিকে বলছে, ‘সেরেস সেপারে’। ডাচ কথাটির বাংলা অর্থ ‘পৃথক কাচের ঘর’ (সেপারেট গ্রিনহাউসেস)। নতুন ধরনের এই অভিজ্ঞতার প্রতিটি মুহূর্তের বিবরণ নিরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে। যেমন, থালা-বাসন পরিষ্কারে পদ্ধতি, সেবা প্রদানের ধরন ইত্যাদি।

আমস্টারডামে রেস্তোরাঁয় কাচের ঘরসামাজিক দূরত্বের বিধি না মানলে কাচের ঘরে খাবার পরিবেশনের উদ্যোগ বন্ধ করা হতে পারে। আগামী ১৯ মে পর্যন্ত নেদারল্যান্ডসে রেস্তোরাঁ বন্ধ। তবে খাবার কিনে ঘরে নেওয়া যাবে। দেশটিতে ৪২ হাজারেরও বেশি মানুষ করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছে। এর মধ্যে ৫ হাজার ৩৫৯ জনের মৃত্যু ঘটেছে।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের অর্ধেক রাজ্যে জীবনযাত্রা পুনরায় শুরু হচ্ছে ধীরে ধীরে। আমেরিকার রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র থেকে রেস্তোরাঁ আবারও খোলার ব্যাপারে কিছু দিকনির্দেশনা রয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম হলো ডিসপোজেবল মেন্যু ব্যবহার।

তথ্যসূত্র: রয়টার্স

/জেএইচ/
টপ