অব্যবহৃত ফোনবুথ এখন মিনি ক্যাফে

Send
জার্নি ডেস্ক
প্রকাশিত : ২৩:৩০, জুন ১৭, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:৫৮, জুন ১৭, ২০২০

লন্ডনে অ্যামার ক্যাফেলন্ডনবাসী আনন্দিত! শহরটির অব্যবহৃত তিনটি ফোনবুথকে রূপান্তর করা হয়েছে মিনি ক্যাফেতে। এক দম্পতি এই উদ্যোগ নিয়েছেন। লন্ডনের দুটি স্থানে তারা চালু করেছেন ‘অ্যামার ক্যাফে’।

পশ্চিম লন্ডনের চিসউইকে আছে একটি ক্যাফে। অন্যটি গ্রিনউইচ মার্কেট ভিলেজে। তবে এগুলোতে বসে খাওয়ার সুযোগ নেই। খাবার কিনে ক্রেতাদের চলে যেতে হয়।

একসময়ের টেলিফোনের বাক্সঘর দুটিতে এখন বিক্রি হচ্ছে কফি, আইসক্রিম ও পেস্ট্রি। ক্রেতারা মনে করেন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার এই সময়ের সঙ্গে এমন ক্যাফে বেশ মানানসই। বিভিন্ন মানুষের ব্যবহার করা খাবার টেবিলে শরিক না হয়ে কিংবা সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি এড়িয়ে আকর্ষণীয় ছোট্ট ক্যাফে থেকে পছন্দমতো খাবার নিয়ে চলে যেতে পারেন তারা।

‘অ্যামার ক্যাফে’ চালাচ্ছেন লয়েনিস হার্নান্দেজ ও শন রাফার্টি দম্পতি। এগুলো চালু হয়েছে অবরুদ্ধ অবস্থার (লকডাউন) আগে গত মার্চে। কিন্তু করোনাভাইরাস মহামারির কারণে দোকান দুটি বন্ধ রাখতে হয়েছিল। এখন আবারও ক্রেতাদের সেবা দিতে খুলেছে ক্যাফে দুটি।

লন্ডনে অ্যামার ক্যাফেঅ্যামার ক্যাফের বিশেষত্ব হলো কলাম্বিয়ান কফি। লয়েনিস হার্নান্দেজের বাড়ি কলম্বিয়ায়। তিনি নিজের দেশ থেকে এই কফি আমদানি করেন।

উদ্যোক্তা দম্পতি এখন লন্ডনবাসীর কাছ থেকে দারুণ সাড়া পাচ্ছেন। ফলে দিন দিন তাদের ক্যাফে দুটিতে ক্রেতার সংখ্যা বাড়ছে। মূলত কলাম্বিয়ান কফির স্বাদ নিতেই ক্রেতারা ঘুরেফিরে আসেন।

যুক্তরাজ্যে ইতোমধ্যে লকডাউন তুলে নেওয়া হয়েছে। দুই মিটার (৬ ফুট) দূরত্ব বজায় রেখে চলাচল করার আদেশ রয়েছে দেশটিতে।

তথ্যসূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

/জেএইচ/
টপ