X
শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২
১৪ আশ্বিন ১৪২৯

স্বর্ণমণ্ডিত সেন্ট সাভায় সৌন্দর্যের ঝলকানি

ইমদাদ হক
২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ১৭:৫২আপডেট : ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ১৮:১২

সার্বিয়ার রয়েল প্যালেস থেকে যখন বের হই, সময় তখন ভর সন্ধ্যা। প্যালেসের মূল ভবন থেকে তাও ৩০০ ফুট দূরে ফটক। আমাদের গাড়িবহর সেখানেই। দু’পাশে ফুলের বাগান। মাঝে সরু রাস্তা। এ পথটুকু হেঁটে গাড়িতে উঠতে হবে। চারপাশে নিয়ন আলো। তাতে সবুজ গাছপালার রূপান্তর যেন ফিকে টিয়ে রঙে। মুষলধারে বৃষ্টি শীতের তীব্রতা বাড়িয়ে দিয়েছে কয়েক গুণ। বাইরে তখন ঝিঁ ঝিঁ পোকার ডাক। আসলে কি ঝিঁ ঝিঁ পোকা? পৃথিবীর সব দেশেই কি এটা পরিচিত দৃশ্য? কী এক মাদকতায় মন উদাস হয়ে ওঠে।

জোট নিরপেক্ষ আন্দোলন-ন্যামের ৬০ বছর পূর্তি উপলক্ষে বিশেষ সম্মেলন। এতে অংশ নেওয়া বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের একজন সদস্য আমি। সম্মেলনের ফাঁকে ফাঁকে ঘুরে দেখার আয়োজন। সংস্কৃতি, ঐতিহ্য, শিক্ষা ব্যবস্থাসহ নানান ক্ষেত্রে সার্বিয়ার অবস্থান তুলে ধরতেই ঘোরাঘুরির এই কর্মসূচি। ট্যুর গাইড, গাড়ি, নিরাপত্তা– স্বাগতিক সার্বিয়ার ব্যবস্থাপনাতেই সব। আমাদের টিমের সমন্বয়ক দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র অ্যাসিসট্যান্ট সেক্রেটারি মিলিচা ক্রিভোকাপিচ।

দিনভর ঘোরাঘুরি। বৃষ্টিমুখর সন্ধ্যায় এবার গন্তব্য সেন্ট সাভা অর্থোডক্স ক্যাথেড্রাল চার্চ। ভূ-পৃষ্ঠ থেকে ৩০০ মিটারেরও বেশি উঁচুতে এই গির্জা। ভূগোলের পরিভাষায় যাকে বলা হয় ‘মালভূমি’। দিনের বেলায় রোদ থাকলে গির্জাটিকে ঝকঝকে লাগে। স্বর্ণ দিয়ে মোড়ানো নান্দনিক সৌন্দর্যের এই নিদর্শন থেকে চোখ সরানোই দায়। এটি অবস্থিত ভ্রাকার পাহাড়ের চূড়ায়। এর বড় সুবিধা হলো বেলগ্রেডের যেকোনও অ্যাপ্রোচ রোড থেকেই দেখা যায় মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে স্বর্ণমন্দির। এর ভেতরে ১০ হাজারেরও বেশি লোক একসঙ্গে প্রার্থনা করতে পারে। 

আয়তনের দিক থেকে বিশ্বে এর অবস্থান দ্বিতীয়। আয়তন তিন হাজার ৬৫০ বর্গমিটার। সাত হাজার ৯৬০ বর্গমিটার ভেতরের আয়তন নিয়ে তালিকার প্রথমে রয়েছে আয়া সোফিয়া। তুরস্কের ইস্তানবুুলে অবস্থিত এই গির্জা অবশ্য এখন মসজিদে রূপ নিয়েছে। 

সেন্ট সাভা অর্থোডক্স ক্যাথেড্রাল চার্চ

ঘন জঙ্গলের বুক চিরে যাওয়া সড়কে আমাদের গাড়ির গতি অনেকটাই ধীর। সড়কে যানচলাচল কম। শোঁ শোঁ করে ভেঁপু বাজিয়ে পাশ কাটিয়ে যাচ্ছে দু’একটা গাড়ি। সড়কের পাশে কোথাও কোথাও রাজপ্রাসাদের মতো বাড়ি। সাদা, মেটে বা লালচে রঙের একেকটা ঢাউস আকৃতির বাড়ি। 

সার্বিয়ার রাজধানী শহর বেলগ্রেডকে বলা হয় ‘জাদুঘরের শহর’। এটি ‘গির্জার শহর’ নামেও পরিচিত। বিশ্বব্যাপী ঢাকার নামডাক যেমন মসজিদের শহর। 

সার্বিয়ার অধিবাসীদের বেশিরভাগই খ্রিস্টান। তাদের প্রায় ৮৫ শতাংশ অর্থোডক্স এবং ৫ শতাংশ রোমান ক্যাথলিক। মুসলিমদের সংখ্যা মোট জনগোষ্ঠীর মাত্র ৩ শতাংশ। ১ শতাংশের মতো লোক ধর্মকর্মের ধার ধারে না। সার্বিয়ার সংবিধানও ধর্মীয় বিধিনিষেধকে সমাজের প্রচলিত আইনকানুনের মধ্যে আনেনি। যার যা খুশি করা যায়, শুধু সমাজে শান্তি থাকলেই হলো। তবে সার্বিয়ানরা গির্জাকে কেন্দ্র করেই দৈনন্দিন জীবনের কাজ চালিয়ে নেয়। গোটা সার্বিয়া জুড়েই অসংখ্য গির্জা, মঠ, খ্রিস্ট-ধর্মীয় উপাসনালয়ের ছড়াছড়ি। এছাড়া আছে অসংখ্য দুর্গ। বেলগ্রেডকে তাই বলা হয় সাদা শহরের দেশ। 

বেলগ্রেডের গির্জা ও মঠগুলোর নির্মাণকাল পঞ্চদশ শতকের পরে। ইহুদি ধর্মের অনুসারীদের জন্য ১৯২৬ সালে একটি উপসানালয় নির্মাণ করা হয়। এর নাম ‘বেলগ্রেড সিনাগগ’। এটি বেলগ্রেডের কেন্দ্রস্থলে মার্শালা বিরজুজোভা স্ট্রিটে অবস্থিত। অটোমান সাম্রাজ্যের সময় বেলগ্রেড শহরে মসজিদ ছিল ২৭৩টি। এরমধ্যে এখন টিকে আছে একটি মসজিদ– ‘বৈরাকলি’ বা ‘বজরকলি জামিজা’। এর অবস্থান শহরের জেভরেমোভা গোসপোদা সড়কে। তুর্কি আমলে ১৫৭৫ সালের দিকে গড়ে তোলা হয় এটি। বেলগ্রেডের প্রাচীনতম স্থায়ী ভবনের একটি এই মসজিদ। 

সেন্ট সাভা অর্থোডক্স ক্যাথেড্রাল চার্চ

রয়েল প্যালেস থেকে আধাঘণ্টার পথ। গাড়ি এসে থামে অর্থোডক্সের সামনে। বৃষ্টির তখনও বিরামহীন গতি। ছাতা নিয়ে হাজির সিস্টার। কেবল আমার বেলাতেই ছাতা নেই! হাতে ছিল সবার কোভিড টেস্টের রেজাল্টের ফাইল। অগত্যা সেটাই মাথায় ধরে দেই ভৌঁ দৌড়। ভয়ও করে, পা পিছলে যদি পড়ি কোট-স্যুট ভিজে একাকার হয়ে যাবে! 

ফুলের তোড়া দিয়ে আমাদের বরণ করে নেন চার্চের পাদ্রীরা। সামনে মেলে ধরা হয় কয়েক রকমের মিষ্টির ডালা। কালোজামের মতো বিশাল একটা মিষ্টি তুলে মুখে পুরে নিলাম। মিষ্টি আকার এতই বড়, না পারি মুখ নাড়াতে, না পারি গিলে ফেলতে। অর্ধেক চিবানো অবস্থাতেই গিলে ফেলি। গলার ভেতর ঢুকতে চায় না, জোর করে গেলা। ফলও ছিল হাতেনাতে, পরের তিন-চার দিন গলা ব্যথা।

ন্যাম সম্মেলনে যোগ দিয়েছিলেন ৭১টি দেশের প্রতিনিধি। বিভিন্ন দলে ভাগ হয়ে পুরো সার্বিয়া চষে বেড়ান তারা। এর অংশ হিসেবে সকাল থেকে প্রতি ঘণ্টায় এই গির্জায় একেক করে প্রতিনিধি দলের আনাগোনা। মূল দেবীর সামনে আমাদের আসন। একজন পাদ্রী আমাদের ব্রিফ করেন, ‘গির্জাটির নামকরণ সেন্ট সাভার নামে; যিনি সার্বিয়ার একজন রাজপুত্র ছিলেন। সংসার-টংসারের জাগতিক বিষয়ে তার কোনও আগ্রহ ছিল না। ধ্যানচর্চাই ছিল তার ব্রত, বেছে নেন সন্ন্যাসীর জীবন। তবে পড়াশোনা ছাড়েননি। আইন ও কূটনীতি বিষয়ে তাঁর ছিল অগাধ জ্ঞান। বেশিদিন অবশ্য বাঁচেননি তিনি, ১১৭৪ সালে জন্মের পর মারা যান ১২৩৬ সালে। ধর্মগুরু হিসেবে অনুসারীদের শ্রদ্ধাভক্তির আসনে ছিলেন সেন্ট সাভা। তবে ১৫৯৪ সালে ক্ষমতার পালাবদলের পর অটোমান সৈন্যরা সেন্ট সাভার সমাধিসৌধ পুড়িয়ে দেয়।’

সেন্ট সাভা অর্থোডক্স ক্যাথেড্রাল চার্চ

পাদ্রী ইংরেজিতে কথা বলেন। যদিও ক্যাথলিক চার্চ ধর্মচর্চার ক্ষেত্রে লাতিন ভাষাকে গুরুত্ব দেয়। আর অর্থোডক্স চার্চ নিজেদের ভাষাই ব্যবহার করে। ধর্মীয় দিক থেকেও দুটোর সমান মর্যাদা। সার্বিয়ান অর্থোডক্স চার্চে বিশ্বাসীরা সেন্ট সাভা অর্থোডক্স ক্যাথেড্রালকে তীর্থভূমি মনে করেন, যেমনটা ক্যাথলিক খ্রিস্টানদের কাছে ভ্যাটিকান পবিত্র তীর্থভূমি।

আহা ধর্ম, প্রতিটি ধর্মের মূলকথা– স্রষ্টার সন্তুষ্টি মেনে শান্তিময় সমাজ। অথচ এক ধর্মের লোকজন আরেক ধর্মের অনুসারীদের পাত্তাই দিতে চান না। ঝামেলাটা বাঁধে তখনই। পাদ্রীর ব্রিফ চলতে থাকে, আমি ঘুরে দেখি গির্জার ভেতরটা। দেয়ালে বৈচিত্র্যময় নকশার কারুকাজ। গির্জার নান্দনিক অঙ্গসজ্জার শুরু চতুর্দশ ও পঞ্চদশ শতকে। সেই সময় সার্বিয়ায় মোরাভা শৈলী নামে স্বয়ংক্রিয় স্থাপত্যশৈলীর সূচনা হয়, যার ছাপ গির্জার দেয়ালে আজও রয়ে গেছে। সেন্ট সাভার পাশাপাশি মানসিজা, রাভানিকা এবং ক্যালেনিক মঠেও মোরাভা শৈলীর ছাপ এখনও স্পষ্ট। এই স্থাপত্যশৈলীর একটি অনুষঙ্গ ফ্রেসকোস। বেলগ্রেডের হোয়াইট অ্যাঞ্জেল (মিলেসেভা মঠ), ক্রুসিফিক্সন (স্টুডেনিকা মঠ) এবং ডর্মেশন অব দ্য ভার্জিনের (সোপোকানি) কারুকাজ ফ্রেসকোস দিয়ে করা হয়েছে। 

পাদ্রীর পেছনে অর্গান, পিয়ানো, ইলেকট্রনিক কিবোর্ড ও অর্কেস্ট্রা হাতে প্রস্তুত তরুণ দল। ধর্মযাজকের কথার ফাঁকে ফাঁকে বিরতি। সেই সময় বেজে উঠছে সুরসংগীত। স্রষ্টার প্রশংসা, উপাসনা, অনুশোচনা, বিলাপসহ নানান বিষয়ের থিমে মোহনীয় সুর। মুগ্ধ হয়ে শুনি। মনটা শান্ত ও স্থির হয়ে যায়। দুনিয়ার সব ধর্মই সুন্দর। সুশৃঙ্খল তাদের ধর্মের রীতিনীতি। তবে ধর্ম নিয়ে কেন আমাদের এত বাড়াবাড়ি? কেন এত অসহিঞ্চু আমরা? অন্য ধর্মের লোকদের কষ্ট দিয়ে কি স্রষ্টাকে খুশি করা যায়?

আমাদের হাতে একটি ছোট পুস্তিকা তুলে দেওয়া হয়, যাতে রয়েছে গির্জাটির শুরু থেকে বর্তমানের ইতিহাস। ত্রয়োদশ শতকে সাদা মার্বেল পাথর দিয়ে গির্জা নির্মাণ করতে কয়েক বছর লেগে যায়। এতে নিও-বাইজেন্টাইন শৈলীর প্রভাব স্পষ্ট। গির্জার কেন্দ্রে উঁচু গম্বুজের উচ্চতা ৭০ মিটার। কেন্দ্রীয় এই গম্বুজে কপোলার ওপর সোনালি ক্রসের দৈর্ঘ্য ১৩ মিটার লম্বা। অটোমান সাম্রাজ্যে ১৫৯৫ সালে গির্জাটি পুড়িয়ে দেওয়া হয়। পরে অবশ্য দফায় দফায় ঘষামাজার পর রূপ পেয়েছে আজকের আধুনিক পর্যায়। গির্জার গম্বুজের সঙ্গে রয়েছে চারটি লম্বা গম্বুজ আকৃতির ছোট কাঠামো, এতে সূর্যের আলো পড়ে প্রতিফলিত হয়। সংবেদনশীল এই প্রতিফলন যেন সৌন্দর্যের মোহনীয় আরেক রূপ। গির্জার ভেতরের বড় একটি অংশ সোনার মোজাইক দিয়ে নির্মিত।

সেন্ট সাভা অর্থোডক্স ক্যাথেড্রাল চার্চে লেখক

‘... গান গেয়ে তরী বেয়ে কে আসে পারে!
দেখে যেন মনে হয় চিনি উহারে।
ভরা-পালে চলে যায়,
কোনও দিকে নাহি চায়, 
ঢেউগুলি নিরুপায়
ভাঙে দু’ধারে
দেখে যেন মনে হয় চিনি উহারে।’

সেন্ট সাভায় বসে রবিঠাকুরের ‘সোনার তরী’ কবিতা আওড়াই। কোথায় যেন দেখেছি– এমন খুঁতখুঁতে ভাবনা থেকেই মনে পড়ে। এর কিছু পেইন্টিং হুবহু ইস্তানবুুলের আয়া সোফিয়ার মতো। যীশুখ্রিস্ট থেকে শুরু মা মেরি, অর্থোডক্স চার্চ তৈলচিত্রের মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। এছাড়া আছে বিভিন্ন ধর্মযাজকের ছবি। অন্য যেকোনও গির্জার তুলনায় এটি বেশি আকর্ষণীয়। পুরোটা সাজানো-গোছানো এবং তাতে আভিজাত্যের ছাপ।

আমাদের নিয়ে যাওয়া হয় দোতলায়। মেঝের মাঝখানে কয়েকটা মূর্তি। যীশুখ্রিস্ট ও মা মেরির এসব মূর্তির প্রতিটি স্বর্ণ দিয়ে তৈরি। দোতলার মতো হুবহু আরেকটি ফ্লোর আছে আন্ডারগ্রাউন্ডে। 

প্রতিবছর পাঁচ লাখেরও বেশি দর্শনার্থী কেবল ঘুরতেই সেন্ট সাভায় আসে। তীর্থভূমি হিসেবে উপাসনার জন্য আসেন আরও কয়েক লাখ।

বেলগ্রেডে এমনিতেই তাপমাত্রার গতি নিম্নমুখী, একইসঙ্গে যোগ হয়েছে বৃষ্টির শীতলতা। জেঁকে বসা ঠান্ডা আর ক্ষুধায় ক্লান্ত হয়ে পড়ি। সময় গুনি, কখন বের হবো। ঘণ্টাখানেকের ব্রিফের পর শেষ হয় সেন্ট সাভা দর্শন। শেষ হয় সারাদিনের ভ্রমণ-দর্শন পর্ব। গির্জা থেকে প্রত্যেকের জন্য ফলের ঝুড়ি গিফট দেওয়া হয়। গাড়িতে উঠে বসি হোটেলের উদ্দেশে। বৃষ্টির ফোটা যেন আরও বড় হয়ে ওঠে।

/জেএইচ/
সম্পর্কিত
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
ইউক্রেনীয় ভূখণ্ডকে রাশিয়ার অংশ হিসেবে ঘোষণা দিচ্ছেন পুতিন
ইউক্রেনীয় ভূখণ্ডকে রাশিয়ার অংশ হিসেবে ঘোষণা দিচ্ছেন পুতিন
সার্কাসের বাঘের ডেরায় ‘ঈশা খাঁ’র হানা!
এ সপ্তাহের সিনেমাসার্কাসের বাঘের ডেরায় ‘ঈশা খাঁ’র হানা!
কুমিল্লায় সড়কে ঝরলো ৩ প্রাণ
কুমিল্লায় সড়কে ঝরলো ৩ প্রাণ
সত্য ঘটনার ছায়া অবলম্বনে গানচিত্র
সত্য ঘটনার ছায়া অবলম্বনে গানচিত্র
এ বিভাগের সর্বশেষ
যে কারণে আরও উঁচু হলো আইফেল টাওয়ার
যে কারণে আরও উঁচু হলো আইফেল টাওয়ার
একা বিমান চালিয়ে বিশ্বভ্রমণের ইতিহাস গড়েছে এই তরুণী
একা বিমান চালিয়ে বিশ্বভ্রমণের ইতিহাস গড়েছে এই তরুণী
২০২২ সালে ভ্রমণে যে ২০টি এয়ারলাইন সবচেয়ে নিরাপদ
২০২২ সালে ভ্রমণে যে ২০টি এয়ারলাইন সবচেয়ে নিরাপদ
পানির নিচে প্রায় সাড়ে ১৩ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে হাইওয়ে টানেল
পানির নিচে প্রায় সাড়ে ১৩ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে হাইওয়ে টানেল
নেপালের থার্পু চুলি অভিযানে বাংলাদেশি দুই তরুণ
নেপালের থার্পু চুলি অভিযানে বাংলাদেশি দুই তরুণ