সংসদের মূল নকশা এসেছে

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২০:০৬, ডিসেম্বর ০১, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:০৮, ডিসেম্বর ০১, ২০১৬

 

জাতীয় সংসদলুই আই কানের আঁকা জাতীয় সংসদের  মূল নকশা এসেছে। যুক্তরাষ্ট্রের পেনসালভেনিয়া ইউনির্ভাসিটির আর্কাইভ থেকে পাঠা‌নো এ সংক্রান্ত নকশাগুলো বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ৪১টি বাক্সে হজরত শাহজালাল আন্তর্জা‌তিক বিমানবন্দরে পৌঁছায়। সেখান থেকে  নকশাগুলো জাতীয় সংসদ সচিবালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। সংসদ সচিবালয়ের অতিরিক্ত সচিব এওয়াইএম গোলাম কিবরিয়া বৃহস্পতিবার  সন্ধ্যায় বাংলা ট্রিবিউনকে এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, ‘নকশাটি সংসদ সচিবালয়ে পৌঁছেছে। এটি স্পিকারের কাছে বুঝিয়ে দেওয়া হবে।’

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বৃহস্পতিবার রাতে বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমরা নকশা হাতে পেয়েছি। এই বিষয়ে যাচাই-বাছাই করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’

এর আগে অতিরিক্ত সচিব গোলাম কিবরিয়ার নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল যুক্তরাষ্ট্রে গিয়ে নকশা চিহ্নিত করে আসে।

সংসদ সচিবালয় সূত্রে জানা গেছে, যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভেনিয়া ইউনিভার্সিটির আর্কাইভে ৮ হাজার নকশা রয়েছে বলে বাংলাদেশের স্থাপত্য অধিদফতরকে জানানো হয়েছিল। এর মধ্যে ৮৫৩টি নকশার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।  ওই নকশাগুলোই সংগ্রহ করার নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়। এছাড়া আরও ৫৬টি  ডকুমেন্ট রয়েছে। সেগুলোও আনার সিদ্ধান্ত ছিলে। লুই আই কানের প্রতিটি নকশার জন্য খরচ পড়েছে ১৯ ডলার করে।

২০১৪ সালে সংসদ ভবনের স্থপতি লুই আই কানের প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে সংসদ ভবনের মূল নকশা আনার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর লুই কানের প্রতিষ্ঠান ডেভিড অ্যান্ড উইজডম-এর সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করে সরকারের স্থাপত্য অধিদফতর। লুই কানের নকশাগুলো পেনসালভেনিয়া ইউনিভার্সিটির আর্কিটেকচারাল আর্কাইভে থাকায় সরকারের পক্ষ থেকে সেখানেও যোগাযোগ করা হয়। পরে সরকার ওই আর্কাইভ থেকে সংসদ ভবনের মূল নকশা সংগ্রহে নির্দিষ্ট পরিমাণ খরচ দিয়ে তল্লাশির মাধ্যমে এ নকশা সংগ্রহ করে।

উল্লেখ্য, বর্তমান সরকারের বিগত মেয়াদে প্রধানমন্ত্রী সংসদে দেওয়া এক বক্তব্যে লুই আই কানের নকশার বাইরে অনেক স্থাপত্য সংসদ এলাকায় নির্মাণ করা হয়েছে জানিয়েছেন। এ সময় তিনি সংসদ এলাকায় চিত্র আবারও মূল নকশায় ফেরত আনার কথা জানিয়েছেন। এ জন্য পরে নকশা খোঁজার উদ্যোগ নেওয়া হয়।

নকশার বাইরে একাধিক ভবনসহ কয়েকটি কবর সংসদ ভবন এলাকায় রয়েছে। এর মধ্যে জিয়াউর রহমানের কবরও আছে। এই কবরটি এই এলাকা থেকে সরানোর বিষয়ে সরকারি দলের এমপিদের পক্ষ থেকে একাধিকবার দাবি উঠেছে।

/ইএইচএস/এমএনএইচ/

লাইভ

টপ