X
বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২
১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

বাজারে দেশি ফ্রিজের একক আধিপত্য: গবেষণা

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
০১ মার্চ ২০২১, ১৮:০৮আপডেট : ০১ মার্চ ২০২১, ১৮:০৮

দেশে বর্তমানে ফ্রিজের বাজারে  প্রায় ৮০ শতাংশ মার্কেট শেয়ার দেশীয় ব্র্যন্ডের দখলে। এর মধ্যে এককভাবে দেশি ব্র্যান্ড ওয়ালটনের দখলে ৬৬ শতাংশ। বাকিগুলো মার্সেল, সিঙ্গার ভিশন, মিনিস্টারসহ অন্যদের দখলে। আর ১১ শতাংশ  বিদেশি ব্র্যান্ডগুলোর মধ্যে সিঙ্গার, স্যামসাং, শার্প, এলজি উল্লেখযোগ্য। মার্কেটিং ওয়াচ বাংলাদেশ (এমডব্লিউবি) এর এক গবেষণায় এই চিত্র উঠে এসেছে।

সোমবার (১ মার্চ) দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগে ‘বাংলদেশে তৈরি ফ্রিজ শিল্পের ওপরে গবেষণা প্রতিবেদন’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে গবেষণার এই ফলাফল প্রকাশ করা হয়। গবেষণার ফলাফল তুলে ধরেন মার্কেটিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও এমডব্লিউবির সহ-প্রতিষ্ঠাতা ড. মো. নাজমুল হোসাইন।  গবেষণাটি করেন মার্কেটিং বিভাগের বর্তমান চেয়ারম্যান ও (এমডব্লিউবি) সহপ্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান, বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. নাজমুল হোসাইন,  ড. রাফিউদ্দীন আহমদ ও গবেষক সাখাওয়াত হোসেন।

গবেষকরা জানান, ২ হাজার ৪৪০ জন ফ্রিজ ব্যবহারীর ওপরে মাঠ পর্যায় এবং অনলাইজন জরিপ (মাঠপর্যায় ১৭৭৮, অনলাইন ৬৬২ জন),  ১০টি ফোকাস দল আলোচনা, ১০টি রিটেইল স্টোর অডিট, ১০ জন বিশেষজ্ঞের সমীক্ষা, ৩ হাজার ৮৬০টি অনলাইন ক্রেতার প্রতিক্রিয়া, ইলেকট্রনিক প্রডাক্ট রিভিউয়ের মাধ্যমে ১৯৬টি পাবলিক পোস্ট বিশ্লেষণ এবং ৮টি প্রতিষ্ঠানের ৯টি টিভিসি বিশ্লেষণের মাধ্যমে গবেষণাটি করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়,বাংলাদেশে প্রায় দুই দশক ধরে ফ্রিজের বাজার দ্রুত গতিতে বাড়ছে। এর ব্যবহারের হার শহরের চেয়ে গ্রাম ও উপ-শহরগুলোতে অতি বেশি হারে বাড়ছে। ফ্রিজ মার্কেট প্রবৃদ্ধির জন্য  মধ্য ও উচ্চবিত্তের দ্রুত বিকাশ, ছোট পরিবার ও মহিলা কর্মজীবীর সংখ্যা বৃদ্ধি,  গ্রামাঞ্চলে বিদ্যুতায়নের মাধ্যমে উপ-শহরীকরণ প্রক্রিয়া, কম খরচে দেশীয় ফ্রিজ কেনার সক্ষমতা এবং  ফিজ ক্রয়ের ক্ষেত্রে ক্রেতাবান্ধব শর্তাবলীর (যেমন- কিস্তিতে ক্রয়, ওয়ারেন্টি, ইত্যাদি) কথা উল্লেখ করা হয়।

গবেষণার ফল সম্পর্কে বলা হয়, ২০১০ সাল পর্যন্ত ফ্রিজের বাজার বিদেশি ব্র্যান্ডগুলোর একক নিয়ন্ত্রণে ছিল এবং দেশীয় ব্র্যান্ডগুলোর মার্কেট শেয়ার ছিল খুবই নগণ্য। ২০১০ সাল থেকে ক্রমবর্ধমানহারে বিদেশি ব্র্যান্ডগুলো তাদের মার্কেট শেয়ার দেশীয় ব্র্যান্ডগুলোর কাছে হারাতে থাকে। এর ফলে বাংলাদেশকে আর  বৈদেশিক মুদ্রা ব্যয় করে বিদেশি ব্র্যান্ড কিনতে হয়নি। একইসঙ্গে শিল্পের বিকাশে বাংলাদেশের মানুষের জীবন যাত্রার মান বেড়ে চলেছে বলে প্রতীয়মান হয়েছে।

গবেষণায় ফ্রিজ ব্যবহারকারীদের বিভিন্ন বিষয় যেমন- ক্রেতা সন্তুষ্টি ও অসন্তুষ্টির মাত্রা যাচাই করা হয়। এতে দেখা যায়, অধিকাংশ ক্রেতা দেশীয় ব্র্যান্ডগুলোর ওপরে সন্তুষ্ট। বেশিরভাগ ক্রেতা মনে করেন, অপেক্ষাকৃত কমমূল্যে তুলনামূলক ভালো মানের ফ্রিজ দেশীয় কোম্পানিগুলো বাজারে আনতে সক্ষম হয়েছে। ক্রেতারা ফ্রিজ ক্রয়ের ক্ষেত্রে ফ্রিজের সাশ্রয়ী মূল্য, স্থায়িত্ব, বিদ্যুত সাশ্রয়, ডিজাইন, কম্প্রেসার, ওয়ারেন্টি, বিক্রয়োত্তর সেবা এবং অভিনব প্রযুক্তির ব্যবহারকে অধিকতর গুরুত্ব দিয়ে থাকেন। তবে ব্যবহারকারীদের কিছু বিষয়ে অভিযোগও রয়েছে। সেগুলো হলো— স্বল্প শীতলীকরণ ক্ষমতা, ওয়াটার লিকেজ, কম্প্রেসারের উচ্চ শব্দ, অতিরিক্ত বিদ্যুৎ খরচ, বেশি বরফ জমা, নির্দিষ্ট সময় পর পর কম্প্রেসারের কার্যক্ষমতা হ্রাস পাওয়া ইত্যাদি।

গবেষণার আলোকে দেশীয় কোম্পানিগুলোর জন্য কিছু সুপারিশ করা হয়। সেগুলো হলো— অনলাইনভিত্তিক মার্কেটিং কার্যক্রম বৃদ্ধি করা, ক্রেতা সম্পর্ক  ও ব্যবস্থাপনা  উন্নয়ন করা, বিক্রয়োত্তর সেবার মান বৃদ্ধি করা, নির্দিষ্ট সময় পর কোম্পানির উদ্যোগে ফ্রিজ চেক করা। অভিযোগগুলো আমলে নিয়ে ফ্রিজ কোম্পানিগুলো তা সমাধানের চেষ্টা করলে ব্যবহারকারীদের মধ্যে সন্তুষ্টির মাত্রা আরও বাড়বে বলে উল্লেখ করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে গবেষণার ফলাফলের ওপর ভিত্তি করে বলা হয়, দেশীয় কোম্পানিগুলো যে ধরনের বড় বিনিয়োগ করেছে এবং আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার করছে, তাতে অদূর ভবিষ্যতে ফ্রিজের চাহিদা আরও বৃদ্ধি পাবে এবং একপর্যায়ে দেশীয় চাহিদা পূরণ করে আন্তর্জাতিক বাজারে রফতানি করে বৈদেশিক মুদ্রা আয়ে সক্ষম হবে। দেশীয় ব্র্যান্ডগুলো যেন আরও ভালো করতে পারে, তার জন্য সকল ধরনের লজিস্টিক সাপোর্ট প্রদান করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিবলা হয়,প্রয়োজনে সরকার বিশেষ পলিসি গ্রহণ করে এই শিল্পের বিকাশে ইতিবাচক ভূমিকা পালন করতে পারে। এতে যেমন অনেক বৈদেশিক মুদ্রার ব্যয় সাশ্রয় হবে, তেমনই দেশীয় কোম্পানিগুলো উপকৃত হবে।/এসও/এপিএইচ/

/এসও/এপিএইচ/
মাসটি বিজয়ের
মাসটি বিজয়ের
ফ্রান্সকে হারিয়েও তিউনেশিয়ার বিদায়
ফ্রান্সকে হারিয়েও তিউনেশিয়ার বিদায়
১৮ কোটি টাকা বিদ্যুৎ বিল বকেয়া দিনাজপুর পৌরসভার
১৮ কোটি টাকা বিদ্যুৎ বিল বকেয়া দিনাজপুর পৌরসভার
ডেনিশদের হারিয়ে অস্ট্রেলিয়া নকআউট পর্বে
ডেনিশদের হারিয়ে অস্ট্রেলিয়া নকআউট পর্বে
সর্বাধিক পঠিত
লুট হওয়া ১১ অস্ত্র মিয়ানমার থেকে ফেরত পাওয়ার আশা বিজিবির
লুট হওয়া ১১ অস্ত্র মিয়ানমার থেকে ফেরত পাওয়ার আশা বিজিবির
রিট করার পরামর্শ দিয়েছেন হাইকোর্ট
ইসলামী ব্যাংকের ৩০ হাজার কোটি টাকা ঋণরিট করার পরামর্শ দিয়েছেন হাইকোর্ট
৪ ডিসেম্বর থেকে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ ট্রেন চলাচল বন্ধ
৪ ডিসেম্বর থেকে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ ট্রেন চলাচল বন্ধ
তিনি সাধারণ শিক্ষার্থীদের নেতা
তিনি সাধারণ শিক্ষার্থীদের নেতা
তুরস্কের প্রতি সংহতি ন্যাটোর
তুরস্কের প্রতি সংহতি ন্যাটোর