করোনার অজুহাতে চাল নিয়ে চালবাজি!

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৮:১৯, মার্চ ২১, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:৪৮, মার্চ ২১, ২০২০

করোনা ভাইরাসের অজুহাতে রাজধানীর বাজারগুলোতে চালের দাম নিয়ে বিশৃঙ্খলা ঠেকাতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মোবাইল টিম অভিযান চালিয়েছে। শনিবার (২১ মার্চ) জাতীয় ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদফতরের উপপরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার ও ঢাকা জেলার সহকারী পরিচালক আব্দুল জব্বার মণ্ডল পৃথক টিম নিয়ে রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে অভিযান চালান। এসময় বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানকে জরিমানাসহ মিরপুরে একটি চালের এজেন্সিকে ও লালবাগের দুইটি চালের দোকান বন্ধ করে দেওয়া হয়।

৫১ টাকা কেজির চাল ৫৫ টাকা বিক্রি করায় দুটি পাইকারি চালের দোকান সিলগালা করে দিয়েছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর। শনিবার রাজধানীর পুরান ঢাকার লালবাগ কেল্লার মোড় এলাকায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে মোক্তার রাইস এজেন্সি ও হোসেন রাইস এজেন্সি নামের চালের দোকানকে জরিমানার পাশাপাশি বন্ধ করে দেন অধিদফতরের উপপরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার।

তিনি বলেন, ওই ব্যবসায়ীসহ ওই এলাকার আরও  কয়েকজন ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ এসেছে আমার কাছে। চাল বিক্রিতে বিভিন্ন ধরনের কারসাজির সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতেই এখানে অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে বিনা কারণে এ ধরনের মূল্যবৃদ্ধি এক ধরনের ডাকাতি। আমরা আপাতত তাদের ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছি। দোকানটি সিলগালা করা হয়েছে। এটি অন্যান্য অসাধু ব্যবসায়ীর প্রতি কড়া বার্তা।

এসময় উপস্থিত ছিলেন অধিদফতরের সহকারী পরিচালক ফাহমিনা আক্তার। তিনি বলেন, করোনা ভাইরাসকে পুঁজি করে অভিনব কায়দায় ভোক্তার সঙ্গে প্রতিষ্ঠান দুটি জালিয়াতি করছে। তারা ২ হাজার ২০০ টাকার কেনা বস্তার চাল বিক্রি করছে ২ হাজার ৭০০ টাকা। তাদের কোনও মূল্য তালিকা নেই। ইচ্ছামতো দাম বেশি নিচ্ছে। এসব অপরাধে মোক্তার রাইস এজেন্সি ও হোসেন রাইস এজেন্সি সিলগালা করা হয়েছে। পাশাপাশি মোক্তার রাইস এজেন্সিকে ৫০ হাজার টাকা এবং হোসেন রাইস এজেন্সিকে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। তাদের অধিদফতরে ডাকা হয়েছে। যথাযথ তথ্য প্রমাণ ও বক্তব্য দিতে না পারলে আইন অনুযায়ী স্থায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অন্যদিকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মোবাইল টিম ঢাকা মহানগরীর মিরপুর এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে। অভিযান পরিচালনা করেন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের সহকারী পরিচালক আবদুল জব্বার মণ্ডল।

অভিযান চালানোর সময় দেখা যায়, মিরপুর এক নম্বরের শাহআলী থানাধীন মাহিম রাইস এজেন্সি  ১ হাজার ২০০ টাকার চাল কিনে বিক্রি করেছে ২ হাজার টাকায়। অন্যদিকে তাইয়্যেবা রাইস এজেন্সিতে বস্তাপ্রতি ২ হাজার ৩০০ টাকায় চাল কিনে বিক্রি করেছে ২ হাজার ৭৫০ টাকায়। এছাড়া জিসান বাণিজ্যালয়ে আগের দিন পেঁয়াজ বিক্রি করা হয়েছে প্রতি কেজি ৩০ টাকা। অথচ একই দরে কেনা পেঁয়াজ পরের দিন বিক্রি হয়েছে ৬০ টাকায়।

আব্দুল জব্বার মণ্ডল জানান, তারা ৬০ টাকা দরে পেঁয়াজ বিক্রি করছিল। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মোবাইল টিমের উপস্থিতি টের পেয়ে পরে ৪০ টাকা কেজিতে বিক্রি শুরু করে। এক্ষেত্রে ক্রয়কৃত মূল্যের ক্যাশ মেমো দেখাতে পারেনি তারা। ফলে জরিমানা করা হয়। এছাড়া নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য তালিকা প্রদর্শন না করার অপরাধে চিশতিয়া রাইস এজেন্সি, সুমন রাইস এজেন্সি এবং একই অপরাধে মিরপুর মডেল থানাধীন কিশোরগঞ্জ ভ্যারাইটি স্টোর, আব্দুল কাদের স্টোরকে জরিমানা আরোপ করা হয়।

/এসও/এমআর/এমএমজে/

লাইভ

টপ