X
রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪
৩০ আষাঢ় ১৪৩১

রমজানে যেসব আমলে গুরুত্ব দিতেন চার ইমাম

মুহাম্মাদ মিযানুর রহমান
২৪ মার্চ ২০২৪, ১৪:৫৭আপডেট : ২৪ মার্চ ২০২৪, ১৪:৫৭

রমজান মাস হলো কোরআন নাজিলের মাস। রমজান কোরআন তেলাওয়াতের মাস। রমজান হলো রহমত-বরকত হাসিলের মাস। নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কোরআন পড়ে রবের কাছে রহমত-বরকত কামনা করতেন। আবার কখনও আজব থেকে পানাহ চাইতেন।

আল্লাহ রাব্বুল আলামীন নবীজিকে কোরআন তেলাওয়াতের নির্দেশ দিয়ে বলেন―‘হে বস্ত্রাবৃত! রাত জাগরণ করুন, কিছু অংশ ছাড়া। অর্ধরাত কিংবা তার চেয়ে অল্প অথবা তার চেয়ে বেশি। আর কোরআন তেলাওয়াত করুন ধীরে ধীরে, সুস্পষ্ট এবং সুন্দরভাবে।’ (সুরা মুজাম্মিল : ১-৪)

নবীজি এমনিতেই খুব বেশি কোরআন তেলাওয়াত করতেন। আর মাহে রমজানে কোরআন তেলাওয়াতের পরিমাণটা আরও বেড়ে যেতো। তিনি রমজানে দৈনিক হজরত জিবরীল আমিনের সঙ্গে কোরআন দাউর করতেন। হজরত ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, ‘জিব্রাইল (আ.) রমজানের প্রতি রাতে রাসুলের (সা.) সঙ্গে সাক্ষাৎ করতেন এবং ফজর অবধি তাঁর সঙ্গে অবস্থান করতেন।’ (বুখারি : হাদিস ১৯০২)।

রাসুল (সা.) তাকে কোরআন শোনাতেন এবং তিনি রাতভর তারাবি ও কিয়ামুল লাইলে দীর্ঘক্ষণ কোরআন তেলাওয়াত করতেন।

তাই মাযহাবের চার ইমামও মাহে রমজানে এলে সমস্ত কাজ থেকে অবসর নিয়ে কোরআন তেলাওয়াত নিমগ্ন হয়ে যেতেন। অন্যান্য কিতাবের মুতাআল রেখে কোরআন নিয়েই পড়ে থাকতেন।

ইয়াহইয়া ইবনে নাসর বলেন―ইমাম আবু হানিফা (রহ.) অনেক সময় রমজান মাসে কোরআনে কারিম ৬০ বার খতম করতেন। (তারিখে বাগদাদ, খতিব বাগদাদি : ১৩/৩৫৭)

আর এ কথা তো প্রসিদ্ধ যে, ইমাম মালেক (রহ.) রমজান মাসে হাদিস, ফিকাহ ও অন্যান্য বই বন্ধ করে দিতেন এবং শুধু কোরআন নিয়ে মগ্ন হতেন। একইভাবে ইমাম শাফেয়ী (রহ.) রমজানে ৬০ বার কোরআন খতম করতেন। (লাতায়িফুল মাআরিফ: ১৭১)

আবু বকর ইবনুল হাদ্দাদ (রহ.) বলেন―আমি এ কথা শুনে আশ্চর্য বোধ করলাম আবার মুগ্ধও হলাম যে ইমাম শাফিয়ি (রহ.) রমজানে নামাজের ভেতরের তেলাওয়াত ছাড়াও ৬০ বার কোরআন খতম করতেন। আমিও চেষ্টা করেছিলাম। তবে সর্বোচ্চ ৫৯ বার খতম করতে সক্ষম হয়েছি। আর রমজান ছাড়া অন্য মাসে ৩০ খতম করেছি। (তারিখে বাগদাদ, খতিব বাগদাদি : ১৩/৩৫৭)।

ইমাম বুখারি (রহ.) রমজান মাসে প্রতি রাতে একবার কোরআন খতম করতেন। (আল-বিদায়া ওয়ান নিহায়া : ১১/১৩৪)

ইমাম ইবনে রজব হাম্বলী (রহ.) বলেন, তিন দিনের কমে কোরআন খতমের ব্যাপারে যে নিষেধাজ্ঞা এসেছে তা সাধারণ সময়ের জন্য। মর্যাদাপূর্ণ সময়, যেমন রমজান মাস অথবা মর্যাদাপূর্ণ স্থান যেমন মক্কা মুকাররমা, সময় ও স্থানের বিশেষ বরকত লাভের উদ্দেশ্যে এ সময়ে বা স্থানে অধিকহারে কোরআন তেলাওয়াত করতে সমস্যা নেই। এটাই ইমাম আহমদসহ অধিকাংশ ইমামের অভিমত। (লাতায়িফুল মাআরিফ: ১৭১)

মাহে রমজানে আমাদের বেশি-বেশি কোরআন তেলাওয়াত করা চাই। কোরআনের মাস। কোরআন নাজিলের মাসে কোরআন নিয়ে ব্যস্ততম সময় পার চাই। আল্লাহ রাব্বুল আলামিন আমাদের কবুল করেন। আমিন।

লেখক: মুহাদ্দিস জামিয়া ইসলামিয়া নুরুল উলুম পান্থশালা, নরসিংদী।

/এফএস/
সম্পর্কিত
আজ ঈদ
ঈদুল ফিতরে করণীয়
চাঁদ দেখা যায়নি, ঈদ বৃহস্পতিবার
সর্বশেষ খবর
ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিকে স্প্রিং-২০২৪ শিক্ষার্থীদের নবীনবরণ অনুষ্ঠিত
ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিকে স্প্রিং-২০২৪ শিক্ষার্থীদের নবীনবরণ অনুষ্ঠিত
মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে ব্যবসা করা ঠিক নয়: জিএম কাদের
মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে ব্যবসা করা ঠিক নয়: জিএম কাদের
সরকার সম্পূর্ণ নির্বিকার: এবি পার্টি
সরকার সম্পূর্ণ নির্বিকার: এবি পার্টি
জামালপুরে বন্যার পানিতে ডুবে একসঙ্গে ৪ জনের মৃত্যু
জামালপুরে বন্যার পানিতে ডুবে একসঙ্গে ৪ জনের মৃত্যু
সর্বাধিক পঠিত
‘মুক্তিযোদ্ধাদের নাতি-পুতিরা পাবে না, তাহলে কি রাজাকারের নাতি-পুতিরা পাবে?’
কোটা আন্দোলনের প্রশ্নে প্রধানমন্ত্রী‘মুক্তিযোদ্ধাদের নাতি-পুতিরা পাবে না, তাহলে কি রাজাকারের নাতি-পুতিরা পাবে?’
আমার বাসায় কাজ করেছে, এখন ৪০০ কোটি টাকার মালিক: প্রধানমন্ত্রী
আমার বাসায় কাজ করেছে, এখন ৪০০ কোটি টাকার মালিক: প্রধানমন্ত্রী
বঙ্গভবন থেকে বের হয়ে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম কোটা আন্দোলনকারীদের
বঙ্গভবন থেকে বের হয়ে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম কোটা আন্দোলনকারীদের
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স শেষ বর্ষের ফল প্রকাশ
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স শেষ বর্ষের ফল প্রকাশ
‘অন্যের সন্তানকে নিজের দেখিয়ে’ কোটায় চাকরি, মুক্তিযোদ্ধার বিরুদ্ধে মামলা
‘অন্যের সন্তানকে নিজের দেখিয়ে’ কোটায় চাকরি, মুক্তিযোদ্ধার বিরুদ্ধে মামলা