শামসুর-নাসুমের ব্যাটিংয়ে জয়ের সমান এক ড্র

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২১:৪৩, ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:৪৫, ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০২০

দারুণ ব্যাট করে দক্ষিণাঞ্চলকে ড্র এনে দিয়েছেন শামসুর (বাঁয়ে) ও নাসুমমধ্যাঞ্চলকে জয়বঞ্চিত করে জয়ের সমান ড্র করেছে আজ দক্ষিণাঞ্চল। আর তাতেই বিসিএলের ফাইনালে চলে গেছে আব্দুর রাজ্জাকের নেতৃত্বে খেলা দলটি। ফাইনালে তাদের প্রতিপক্ষ পূর্বাঞ্চল। শামসুর রহমানের সেঞ্চুরি (২৩০ বলে ১৩৩) ও নাসুম আহমেদের ৮৫ রানের ইনিংসের সৌজন্যে শেষদিনে ম্যাচটি ড্র করে দক্ষিণাঞ্চল।

রাউন্ড রবিন লিগের ম্যাচ চারদিনের করে হলেও শিরোপার নিষ্পত্তি হবে পাঁচদিনের লড়াইয়ে। ঘরোয়া প্রথম শ্রেণির ম্যাচটি ২২ ফেব্রুয়ারি মাঠে গড়াবে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে। সোমবার উত্তরাঞ্চলের বিপক্ষে ৮ উইকেটের জয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থেকে শিরোপার মঞ্চে জায়গা করে নিয়েছে পূর্বাঞ্চল। ফাইনালে যাওয়ার আগে পূর্বাঞ্চলের পয়েন্ট ২৩.৪৭ এবং তাদের প্রতিপক্ষ দক্ষিণাঞ্চলের পয়েন্ট ১৯.৮৯।  

মধ্যাঞ্চলের দেওয়া কঠিন লক্ষ্য তাড়া করতে গিয়ে হারের মুখোমুখি হয়েছিল দক্ষিণাঞ্চল। সেই হারকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে শামসুর রহমান ও নাসুম আহমেদ দলকে ভেড়ালেন জয়ের সমান ড্রয়ের বন্দরে। দারুণ উচ্ছ্বসিত শামসুর রহমান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেছেন, ‘আমার প্রথম শ্রেণির ক্যারিয়ারে এমন পরিস্থিতিতে পড়েছি বলে মনে পড়ছে না। আসলে বলা কঠিন, কতটা কষ্ট করেছি আমরা। সবাই মিলে আমাদের চেষ্টা ছিল কীভাবে আমরা ম্যাচটি বাঁচাতে পারি। আমি মনে করি আমার চেয়ে নাসুমের কৃতিত্ব বেশি।’

মূলত স্পিনিং অলরাউন্ডার হিসেবে খেলে থাকেন নাসুম আহমেদ। সর্বশেষ বিপিএলে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের হয়ে দারুণ বোলিং করেছিলেন নাসুম। সোমবার বোলিংয়ের পাশাপাশি ব্যাটিংয়েও কারিশমা দেখালেন ২৫ বছর বয়সী ক্রিকেটার। খেলেছেন ২৪৬ বল, আর তাতেই মধ্যাঞ্চলের হাতের মুঠো থেকে কেড়ে নেন ম্যাচ। টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান শামসুর রহমানের চোখে নাসুমের এমন ব্যাটিং অবিশ্বাস্য, ‘নাসুমের ব্যাটিংটা ছিল অসাধারণ। কেউ যদি না দেখে ওর ব্যাটিং, কেউই বিশ্বাস করতে পারবে না ও (নাসুম) কত সুন্দর ব্যাটিং করেছে। কল্পনার বাইরে, যতক্ষণ ও থাকবে, এত সুন্দর ডিফেন্স করবে এটা ভাবনার বাইরে ছিল।  আমরা জানি ও (নাসুম) ভালো ব্যাটিং করতে পারে, এতটা ভালো পারে সেটা জানতাম না।  বোলিংয়েও দারুণ করেছে।’

তবে এই ড্রয়ের আগে দক্ষিণাঞ্চল সমালোচিত হচ্ছিল। মধ্যাঞ্চলকে প্রথম ইনিংসে ২৩৫ রানে অলআউট করে দেওয়ার পর রাজ্জাক নিজেদের প্রথম ইনিংস ঘোষণা করে দেন মাত্র ১১৪ রানে, সেটিও ৬ উইকেট হাতে রেখে। প্রতিপক্ষের বোনাস পয়েন্ট ঠেকাতেই এই  কৌশল! শামসুর রহমান বললেন, ‘এটা আসলে টিম ম্যানেজমেন্টের ব্যাপার। সিদ্ধান্তটা অবশ্যই দলের জন্য ছিল। আমার মনে হয় ইতিবাচক চিন্তা করাই উচিত। ওরা এমন একটা লক্ষ্য দিয়েছে যে ম্যাচটি জেতা সম্ভব হয়নি। আমরা ম্যাচ বাঁচানোর জন্য খেলেছি। শেষ পর্যন্ত কাজটি করতে পেরে দারুণ লাগছে।’

এই ম্যাচটি ছাপিয়ে বিসিএলের এই রাউন্ডে আরও কিছু সাফল্য এসেছে। জাতীয় দলে সুযোগ পেয়েই ইয়াসির আলী পেলেন জোড়া সেঞ্চুরি (১৬৫ ও ১১০*)। নাঈম হাসানের ১৩ উইকেট, নাজমুল শান্তর অপরাজিত ২৫৩, মুশফিকুর রহিমের ১৪০ রানের পাশাপাশি তার তিন ওভার বোলিং করাও ছিল আলোচিত ঘটনা।

টেস্টের আগে এই ক’জনের পারফরম্যান্স, তাদের উজ্জীবিত করবে। সেই সঙ্গে আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি দ্বিতীয়বারের মতো পাঁচদিনের ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়ে আনন্দিত ক্রিকেটাররা। শামসুর যেন বলে দিলেন সবার হয়ে, ‘এর আগেও আমরা একবার গোলাপি বলে পাঁচদিনের ম্যাচ খেলেছিলাম। আবার খেলতে যাচ্ছি। অবশ্যই এটা আমাদের জন্য খুবই ভালো খবর। তরুণরা ৫ দিন খেলে টেস্টের জন্য প্রস্তুতি নিতে পারবে। বিসিবি ভালো সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এর ফলে টেস্টের প্রতি আগ্রহ তৈরি হবে তরুণ ক্রিকেটারদের।’

/আরআই/পিকে/

লাইভ

টপ