রিয়ালের অঘটনের পর জেতেনি বার্সেলোনাও

Send
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত : ১১:০০, অক্টোবর ১৮, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১১:১৫, অক্টোবর ১৮, ২০২০

ছন্দহীন থাকার মাশুল দিয়েছে বার্সা। লা লিগায় গতকালটা হতাশার ছিল দুই জায়ান্ট বার্সেলোনা ও রিয়াল মাদ্রিদের। পরাজয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে দু’দলই।
রিয়াল মাদ্রিদের জন্য এই পরাজয়টা আরও অস্বস্তিকর। ঘরের মাঠে তাদেরকে ১-০ গোলে হারিয়েছে নবাগত কাদিজ। অপর ম্যাচে নতুন কোচ রোনাল্ড কোম্যানের অধীনে প্রথম পরাজয়ের স্বাদ পাওয়া বার্সা গেতাফের মাঠে হেরেছে ১-০ গোলে।

স্প্যানিশ চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদের জন্য এই হারটা অপ্রত্যাশিতই। সাত মাস ধরে একটি ম্যাচেও হার নেই তাদের। অথচ সেই দলটিকে হারের তিক্ত স্বাদ দিয়েছে পুঁচকে কাদিজ।  প্রথমার্ধে আলো ছড়িয়েছে সবচেয়ে বেশি। যার ফল হিসেবে ১৬ মিনিটে পাওয়া অ্যান্থনি লোজানোর একমাত্র গোলটিই হয়ে দাঁড়ায় জয় নির্ধারক। লস ব্লাঙ্কোসরা তুলনামূলকভাবে সেভাবে সুযোগ তৈরি করতে পারেনি। 

দ্বিতীয়ার্ধে খেলায় ফিরতে চারটি পরিবর্তন এনেছিলেন রিয়াল কোচ জিদান। এমনকি শেষ দিকে লুকা ইয়োভিচকেও নামিয়েছিলেন। সার্বিয়ান এই স্ট্রাইকার জাল কাঁপালেও অফ সাইডের ফাঁদে বাতিলই হয়ে যায় তা।

এর পর রিয়াল আর ম্যাচে ফিরতে পারেনি অবশ্য। যার ফলে ১৯৯১ সালের পর রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে জয়ের স্বাদ পেয়েছে কাদিজ। এই জয়ের পর ৬ ম্যাচে রিয়ালের সমান ১০ পয়েন্ট তাদের। অবস্থান তিনে। এক ম্যাচ কম খেলা রিয়াল অবশ্য তার পরেও শীর্ষে রয়েছে।

অপর ম্যাচে শুরুর একাদশে বেশ কিছু চমক জাগানো পরিবর্তন এনেও পুরো ৯০ মিনিট ছন্দহীন ছিল বার্সেলোনা। শুরুর একাদশে ছিলেন উসমান দেম্বেলে, সঙ্গে ছিলেন পেদ্রি। তার ওপর সের্জিনো ডেস্টেরও অভিষেক হয়েছে শুরুর একাদশে। ওপরের দিকে মেসির সঙ্গে ছিলেন আন্তোয়ান গ্রিজমান।

কিন্তু শুরুর দিকে গোলের সুযোগ তৈরি করেছে গেতাফেই। নেমানজা মাকসিমোভিচ শট নিলে তা চলে যায় বার্সা গোলকিপারের কাছে। অবশ্য এর পর সুযোগ ছিল বার্সেলোনার। ডেস্টের পাস থেকে পাওয়া বলে শট নিয়েছিলেন মেসি, কিন্তু সেটি গিয়ে লেগেছে পোস্টে।   

গ্রিজমানের বার্সা দুঃখ চলমান ছিল এই ম্যাচেও। পেদ্রির কাছ থেকে বল পেয়ে গোলের দারুণ সুযোগ পেয়েছিলেন ফরাসি তারকা। কিন্তু ভুতুড়ে ফিনিশিংয়ে বল ওপর দিয়ে মেরে বসেন তিনি!

প্রথমার্ধে ছন্দহীন থাকা বার্সেলোনা আরও ভুল করে বসে দ্বিতীয়ার্ধে। শুরুর দিকে ডিজেনেকে নিজেদের এলাকায় ফাউল করে বসেন ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ং। রেফারি পেনাল্টির বাঁশি বাজালে স্পট কিক থেকে গেতাফের জয় সূচক গোলটি করেন মাতা।

আক্রমণে ধার বাড়াতে কোম্যান শেষ চেষ্টা হিসেবে মাঠে নামিয়েছিলেন আনসু ফাতি ও কুতিনহোকে। তার পরেও গোলাপি জার্সির বার্সা ছন্দ ফিরে পায়নি।

বার্সেলোনাকে হারিয়ে ৫ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে রিয়ালের পরেই স্থান গেতাফের। ৪ ম্যাচে ৭ পয়েন্ট নিয়ে নবম স্থানে রয়েছে বার্সা।

/এফআইআর/

লাইভ

টপ