রিয়ালের মাঠে শাখতারের জয়োল্লাস

Send
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত : ০২:২৬, অক্টোবর ২২, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০২:৩৪, অক্টোবর ২২, ২০২০

শাখতারের জয়োচ্ছ্বাসের মধ্যমণি ব্রাজিল ফরোয়ার্ড তেতে                 - ছবি : চ্যাম্পিয়নস লিগ ৯১ মিনিটে শাখতার দোনেৎস্কের জালে বল পাঠিয়েছিলেন ফেদে ভালভার্দে। গোলের উল্লাসে ভেসে গিয়েছিল গোটা দল। কিন্তু বেরসিক ‘ভার’-এর বিচারে অফসাইড অবস্থায় বল ঢুকেছে জালৈ। অফসাইড ছিলেন ভিনিসিয়ুস জুনিয়র। এ গোল হলে রিয়াল মাদ্রিদ ড্র করতে পারতো বড়জোর! কিন্তু সেও তো  হতো অঘটন। আর গোলটি না হওয়ায় নিজেদের মাঠ আলফ্রেডো ডি স্টেফানোতে হারের লজ্জাতেই ডুবেছে চ্যাম্পিয়নস লিগের সম্রাটরা। ৩-২ গোলে হার দিয়ে শুরু হলো ১৩ বারের বিজয়ীদের আরেকটি চ্যাম্পিয়নস লিগ অভিযাত্রা।

ইসরায়েলি খেলোয়াড় ম্যানোর সোলোমন, ব্রাজিলয়ান তেতে ও ইউক্রেনিয়ান ফুলব্যাক ভিক্তর কোরিয়েঙ্কোর গোলে বিরতির আগেই শাখতার এগিয়ে যায় ৩-০ গোলে। এই অগ্রগামিতা ধরে রেখেই বিখ্যাত এক জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে ইউক্রেনের দলটি। দ্বিতীয়ার্ধে লুকা মদরিচ ও ভিনিসিয়ুস জুনিয়রের গোলে ভাগ্য বদলানোর চেষ্টা করেও পারেনি রিয়াল মাদ্রিদ।

গত মৌসুমে যেখানে শেষ করেছিলে রিয়াল, সেখান থেকেই যেন এবারও শুরু। সার্জিও রামোসকে ছাড়া তারা ঠিকমতো বুঝেই উঠতে পারছিল না প্রতিপক্ষকে কীভাবে আটকাবে। ২৯ মিনিটেই তারা পিছিয়ে পড়ে যখন লেফট-ব্যাক করিয়েঙ্কো রিয়ালের ডিফেন্স চিরে ঢুকে পড়েন। প্রথমে মিলিতাওয়ের আলতো প্রতিরোধ টপকান, তারপর রাফায়েল ভারানের আগে বলের কাছে পৌঁছে যান, মার্সেলো এসে হামলে পড়ার আগে বল দিয়ে দেন তেতেকে। তেতের ছোঁয়ায় বল জালে। চার মিনিট পর শাখতারকে দ্বিতীয় গোল উপহার দেন ভারান। মার্সেলো খাবি খেয়েছেন বাঁ প্রান্তে। ওদিক দিয়ে বল নিয়ে কাট করে ভেতরে ঢুকে বাঁ পায়ে জোরালো শট নেন সলোমান। গোলকিপার থিবো কোর্তুয়া বেরিয়ে এসে বল রুখতে গিয়েছিলেন, কিন্তু তার আগেই ভারানের খোঁচায় ঢুকে গেছে পোস্টে। ৪২ মিনিটে তৃতীয় গোলটি করেছেন ওই সলোমান। নিজেদের অর্ধ থেকে দৌড়ে রদ্রিগো ও কাসেমিরোকে ছিটকে ফেলে এগিয়ে যান বল নিয়ে। ডানে বল বাড়ান তেতেকে। তার ব্যাক-হিলে বল পেয়েই ডান পায়ের শটে গোল করেন গতিসম্পন্ন ইসরায়েলি।

আগের ম্যাচটিতেই নবাগত কাদিজের কাছে ১-০ গোলে হেরেছে রিয়াল লা লিগায়। প্রথমার্ধেই পিছিয়ে পড়লে সেদিন চারজন খেলোয়াড় বদলেছিলেন জিদান একসঙ্গে। কিন্তু এ ম্যাচে ৩-০ তে পিছিয়ে পড়েও খেলোয়াড় বদলেছেন মাত্র একজন। বিস্ময়করভাবে যে করিম বেনজেমাকে একাদশে রাখেননি, তাকে নামান রদ্রিগোর জায়গায়। দর্শকের চোখে দলের দুরবস্থা দেখে সহ্য হচ্ছিল না চোটে পড়া রামোসের। সেই প্রতিক্রিয়াই যেন ব্যক্ত হলো রিয়াল অধিনায়রে হুঙ্কারে যখন ৫৩ মিনিটে গোল করেন মদরিচ। ক্রোয়েশিয়ান মিডফিল্ডারের ২৫ গজি শট তীব্র গতির শট ঠেকানোর কোনও উপায় ছিল না শাখতার গোলকিপার আনাতোলি ত্রুবিনের।

নিষ্প্রভ লুকা ইয়োভিচের বদলি হিসেবে নেমেই গোল করেছেন ভিনিসিয়ুস। এরপরও কিন্তু রিয়ালের রক্ষণ সংগঠন ছিল বাজে। কোর্তুয়া না বাঁচালে তেতে শাখতারকে ৪-২ এ এগিয়ে দিতে পারতেন।

যোগ করা সময়ে ভেদে ভালভার্দে বল জালে পাঠিয়ে ভেবেছিলেন সমতা এনে ফেলেছেন! কিন্তু ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি (ভার) সব উৎসাহে জল ঢেলে দেয় যখন দেখা যায় ভিনিসিয়ুস পরিষ্কার অফসাইডে ছিলেন।

‘দ্বিতীয়ার্ধে আমরা অনেক উন্নতি করেছি আমাদের খেলায়, কিন্তু তা যথেষ্ট ছিল না। আজ আমরা ভুগেছি আত্মবিশ্বাসের অভাবে’- ম্যাচ শেষে বলেছেন রিয়াল মাদ্রিদের `মিডফিল্ড মায়েস্ত্রো' মদরিচ। ১৩ বারের চ্যাম্পিয়ন দলটির মাঝমাঠের সেনানির মুখে এমন কথা শুনতে অদ্ভুত লাগে! তবে শাখতার দোনেৎস্ক বুধবার রিয়ালের মাঠ থেকে জয় নিয়ে ফিরলো যোগ্য দল হিসেবেই। 

/পিকে/

লাইভ

টপ