X
শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৯ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

‘নদীকে মায়ের মতো সম্মান দেখাতে হবে’

আপডেট : ১১ জুন ২০১৯, ২৩:২৩

‘নদী ও ধর্ম’ শীর্ষক বৈঠকিতে আলোচকরা ‘মায়ের প্রতি যে সম্মান দেখানো হয়, নদীর প্রতিও তেমনি সম্মান দেখাতে হবে। আমরা যদি একটু সংগ্রাম করে নদীকে ভালো অবস্থায় আনতে পারি, তাহলে দেশের অবস্থাও অনেক ভালো হবে।’ দেশের শীর্ষস্থানীয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল বাংলা ট্রিবিউনের আয়োজনে ‘নদী ও ধর্ম’ শীর্ষক বৈঠকিতে এসব কথা বলেন ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর এমিরেটাস এবং নদী ও পানি সম্পদ বিষয়ক গবেষক ড. আইনুন নিশাত। মুন্নী সাহার সঞ্চালনায় মঙ্গলবার (১১ জুন) বিকালে পান্থপথে বাংলা ট্রিবিউন স্টুডিওতে আয়োজিত হয় সাপ্তাহিক এই আয়োজন। 

আজকের বৈঠকিতে আলোচনায় আরও অংশ নিয়েছেন– জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক একেএম শাহনেওয়াজ, সাউথ অ্যান্ড সাউথ-ইস্ট এশিয়ান অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য স্টাডি অব কালচার অ্যান্ড রিলিজিয়নের (এসএসইএএসআর) সভাপতি অমরজিভা লোচান, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশের (ইউল্যাব) অধ্যাপক শাহনাজ হুসনে জাহান ও অধ্যাপক সুমন রহমান এবং বাংলা ট্রিবিউনের নির্বাহী সম্পাদক হারুন উর রশীদ।

ড. আইনুন নিশাত এ সময় আলোচনায় ড. আইনুন নিশাত বলেন, ‘আমি আমি যখন স্কুলে পড়ি তখন দেখেছি, সদরঘাটে সকালবেলা সনাতন দম্পতি বুকসমান পানিতে দাঁড়িয়ে সূর্যদর্পণ করতেন। অর্থাৎ বুড়িগঙ্গা একটি তীর্থস্থান ছিল। এ থেকে নদী ও ধর্মের সম্পর্ক বোঝা যায়। কিন্তু আজকে আমি বুড়িগঙ্গার বুকপানিতে কাউকে দাঁড়াতে বলতে পারবো না। কারণ চর্মরোগ হবে। এই যে একটা ধর্মস্থান নষ্ট হয়ে গেল,  এ থেকে বোঝা যায়– আমরা কীভাবে নদীকে ব্যবহার করছি; তার ভৌত পরিবেশ দখল করছি; তার জীববৈচিত্র্য নষ্ট করছি। আগে আমরা নদীকে সম্মানের জায়গায় রাখতাম।’

নদীর গুরুত্ব উপলব্ধি করা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘নদীকে আমাদের বুঝতে হবে। আমি সারাজীবন নদীকে বোঝার চেষ্টা করছি। নদীর ধর্ম, নদী কেমন আচরণ করে ইত্যাদি। নদীর সঙ্গে সরাসরি ধর্ম আছে। হিন্দুরা গঙ্গাকে দেবী মনে করেন। আবার নদীর পাড়ে অনেক তীর্থস্থান আছে। ঢাকা থেকে ৩০-৪০ কিমি দূরে লাঙ্গলবন্দ তীর্থস্থান।’

একেএম শাহনেওয়াজ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক একেএম শাহনেওয়াজ বলেন, ‘ধর্মের সঙ্গে নদী নিবিড়ভাবে জড়িয়ে আছে। এগুলোকে বিচ্ছিন্ন করার কোনও উপায় নেই। মানবসভ্যতা ধ্বংস হওয়ার অনেকগুলো কারণের একটি হলো, নদীর গতি পরিবর্তন বা ভিন্ন আচরণ।’

নদীর সঙ্গে এদেশের মানুষের সম্পর্ক প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের নদীর নামগুলো একটু বেশি মিষ্টি, সরল। এই নামগুলো কিন্তু আমাদের জীবনবোধ থেকেই তৈরি হয়েছে। আমাদেরই পূর্বপুরুষ কেউ নামগুলো দিয়েছেন। মানুষ যেভাবে চিন্তা করে,  কৃতকর্মের সঙ্গে তার মিল থাকে।’ 

অমরজিভা লোচান সাউথ অ্যান্ড সাউথ-ইস্ট এশিয়ান অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য স্টাডি অব কালচার অ্যান্ড রিলিজিয়নের (এসএসইএএসআর) সভাপতি অমরজিভা লোচান বলেন, ‘এসএসইএএসআর একটি বড় আঞ্চলিক সংস্থা। ১৮-১৯টি দেশ থেকে স্কলাররা এই সম্মেলনে আসেন। ৬০টির মতো দেশ এতে অংশগ্রহণ করে। বাংলাদেশকে পশ্চিমা মিডিয়া নেতিবাচকভাবে তুলে ধরায় এবার মাত্র ৩০টি দেশের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে পেরেছি। এবার আমরা নদী বিষয়ে সম্মেলন করতে যাচ্ছি। নদী অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু।’

নদী ও ধর্ম প্রসঙ্গে তিনি বলেন,  ‘বাংলাদেশ হাজার নদীর দেশ। অন্য কোনও দেশকে এভাবে হাজার নদীর দেশ বলা হয় না। আমরা ধর্ম চর্চা করি, কিন্তু ধর্মের ভেতরে যাই না। ভিন্ন দেশের ভিন্ন সংস্কৃতিকে আমরা সম্মেলনের মাধ্যমে তুলে ধরি।’ 

শাহনাজ হুসনে জাহান বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশের (ইউল্যাব) অধ্যাপক শাহনাজ হুসনে জাহান বলেন, ‘যখন জানলাম, সাউথ অ্যান্ড সাউথ-ইস্ট এশিয়ান অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য স্টাডি অব কালচার অ্যান্ড রিলিজিয়ন  (এসএসইএএসআর) দক্ষিণ ও দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার সব গবেষকদের গবেষণা উপস্থাপন করবে। সেখানে একটি প্রতিপাদ্য দরকার। আমি প্রথমে চিন্তা করলাম, বাংলাদেশকে আমি কী দিয়ে তুলে ধরতে পারি? তখনই আমার সামনে নদীগুলো ভেসে উঠলো। কারণ বাংলাদেশ নদীমাতৃক দেশ। হাজার নদীর দেশ। এই হাজার হাজার নদীর তীর ঘেঁষেই সভ্যতার বিকাশ হয়েছে। বাংলাদেশের প্রত্নসম্পদ ও সভ্যতার নিদর্শনগুলো সবই নদীর তীর ঘেঁষে পাওয়া গেছে।’    

এ সম্পর্কে তিনি আরও বলেন, ‘এসএসইএএসআর কনফারেন্স করে দুই বছর পরপর। দক্ষিণ ও দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার বিভিন্ন ইউনিভার্সিটিতে তারা এই আয়োজন করে যাচ্ছে। আমি এই কনফারেন্সের সঙ্গে গত ২০ বছর যাবৎ জড়িত। কনফারেন্সগুলোতে গিয়ে আমার কাছে একটি কথাই মনে হতো, বাংলাদেশে এটা আমি কবে করবো? কারণ এই সংস্থার সঙ্গে যুক্ত পৃথিবীর প্রায়  ৬০০ ইউনিভার্সিটি ও সেগুলোর শিক্ষক, গবেষক। হাভার্ড থেকে শুরু করে সব ইউনিভার্সিটির সঙ্গে যুক্ত আছেন তারা। সেখানে যখন কনফারেন্স হয়, সেটি বড় একটা মিলনমেলায় পরিণত হয়।’

সুমন রহমান ইউল্যাবের অধ্যাপক সুমন রহমান বলেন, ‘ধর্মকে নানা দৃষ্টিকোণ থেকে পাঠ করা যায়। সংস্কৃতির অংশ হয়ে পাঠ করা যায়, বিজ্ঞানের জায়গা থেকে পাঠ করা যায়, রাজনীতির জায়গা থেকে পাঠ করা যায়।’

সাউথ অ্যান্ড সাউথ-ইস্ট এশিয়ান অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য স্টাডি অব কালচার অ্যান্ড রিলিজিয়নের (এসএসইএএসআর) সম্মেলনের আয়োজন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘ইউল্যাবে আমরা লিবারেল আর্টস নির্ভর শিক্ষা প্রদান করি। শিক্ষার্থীকে কিছু বোঝাতে গেলে আমরা বিভিন্ন প্রেক্ষাপট যেমন– বিজ্ঞান, রাজনীতির মাধ্যমে আলো ফেলার চেষ্টা করি। একটা মাল্টি ডিসিপ্লিন পাটাতন তৈরি করার চেষ্টা থাকে। এ অবস্থায় এসএসইএএসআরের এরকম একটা সম্মেলনের প্রস্তাব আমাদের কাছে আসলো। আমরা ভেবে দেখলাম যে, এটা অনেক গভীর একটা জায়গা। এখানে শিক্ষার্থীদের চিন্তাভাবনার দরজা খোলার বহু উপাদান আছে।’      

হারুন উর রশীদ বাংলা ট্রিবিউনের নির্বাহী সম্পাদক হারুন উর রশীদ নদীরক্ষায় বিভিন্ন উদ্যোগের দীর্ঘসূত্রতার প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন,  ‘নদীরক্ষায় বিভিন্ন মহলে ইদানীং সচেতনতা দেখা যাচ্ছে। কিন্তু সচেতন হতে হতে নদী থাকবে তো? ক্ষমতাবানরা সব সময় চান, নদী দখল করে ব্যক্তিগত অর্থনৈতিক উন্নয়ন। কিন্তু তারা এটি বুঝতে চান না যে, যখন একটি গাছ থাকবে না, একটি নদী থাকবে না, তখন বেঁচে থাকার উপকরণগুলোও থাকবে না। তারা বুঝতে পারেন না যে, টাকা কিন্তু খাওয়া যায় না।’

নদীরক্ষায় সাংবাদিক ও তরুণদের এগিয়ে আসার প্রশংসা করে তিনি বলেন, ‘সাংবাদিকরা নদী নিয়ে ইদানীং খুব আগ্রহী হয়ে উঠেছেন। এর অবদান আমি আইনুন নিশাত স্যারদের দিতে চাই। তারা ধরিয়ে দিয়েছেন নদী দখলের মূল কারণ। নদী দখলের সঙ্গে ক্ষমতার একটি সম্পর্ক আমরা সাংবাদিকরা সব সময় দেখেছি। সেই জায়গাগুলো সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে সাধারণ মানুষকে বোঝানোর চেষ্টা করা হয়েছে। একদিকে যেমন নদী দখল হয়ে যাচ্ছে, নদীকে মেরে ফেলা হচ্ছে, অন্যদিকে কিন্তু নদীকে ভালোবাসার মানুষও বাড়ছে। বিশেষ করে আমি সাংবাদিক হিসেবে দেখি, তরুণরা নদী নিয়ে ভাবেন। নদীকে দেখতে দল বেঁধে তরুণরা যাচ্ছেন, গ্রুপ তৈরি হচ্ছে। এটি কিন্তু অত্যন্ত ইতিবাচক দিক। আরেকটি বড় ইতিবাচক হলো, ঢাকায় নদী নিয়ে বড় সম্মেলনটি হবে। নদীরক্ষায় সবাই এগিয়ে আসছে।’         

মুন্নী সাহা এ বৈঠকি সরাসরি সম্প্রচার করেছে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এটিএন নিউজ। পাশাপাশি বাংলা ট্রিবিউনের ফেসবুক ও হোমপেজে লাইভ দেখা গেছে এ আয়োজন। ইউল্যাবের সহযোগিতায় বৈঠকিটি আয়োজিত হয়েছে। 

 

/এসও/এমএএ/

সম্পর্কিত

শিল্পকলা একাডেমিতে ‘শরৎ উৎসব’ উদ্বোধন

শিল্পকলা একাডেমিতে ‘শরৎ উৎসব’ উদ্বোধন

মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার ৫২

মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার ৫২

দুর্গাপূজাকে ঘিরে ব্যস্ত প্রতিমাশিল্পী,  উদযাপনের কিছু শর্ত শিথিল হতে পারে

দুর্গাপূজাকে ঘিরে ব্যস্ত প্রতিমাশিল্পী,  উদযাপনের কিছু শর্ত শিথিল হতে পারে

নদীর দখল রোধে আবার পিলার

নদীর দখল রোধে আবার পিলার

সাইক্লিং নিরাপদে ১০ সুপারিশ

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:৩২

আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর বিশ্ব পর্যটন দিবস। দিবসটি উপলক্ষে সাইকেল র‌্যালির আয়োজন করেছে পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন (পবা) ও বাংলাদেশ ট্যুরিস্ট সাইক্লিং। শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টায় জাতীয় জাদুঘরের সামনে থেকে র‌্যালিটি শুরু হয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গিয়ে শেষ হয়। এর আগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে সংগঠন দুটি। সমাবেশে বক্তারার সাইক্লিং নিরাপদে ১০টি সুপারিশ করেছে।

সুপারিশগুলো হলো:

১. সাইকেল নেটওয়ার্ক তৈরি করা।

২. সাইকেলবান্ধব অবকাঠামো তৈরি।

৩. সাইকেল আরোহীদের আরও সচেতনভাবে সাইকেল চালানোর জন্য সতর্ক করা এবং নিয়ম মেনে সাইকেল চালাতে উৎসাহিত করা।

৪. সাইকেল লেন ব্যবহার করার প্রতি সচেতনতা সৃষ্টি করা।

৫. পরিবেশবান্ধব এই বাহনটি ব্যবহারের সুবিধা নিয়ে প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের সাইক্লিংয়ের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা।

৬. দুর্ঘটনা রোধ করার জন্য নিরাপদ সড়ক ও সাইকেল লেনের ব্যবস্থা করা।

৭. যে স্বল্প পরিমাণ সাইকেল লেন আছে তা দখলমুক্ত করে নিরাপদ সাইক্লিং করার নিশ্চয়তা প্রদান করা।

৮. পারিবারিকভাবে সন্তানকে সাইকেল চালানোয় উৎসাহিত করার জন্য জনমত গড়ে তোলা।

৯. দেশের বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে সাইকেল পার্কিংয়ের সুব্যবস্থা রাখতে হবে।

১০. দেশি-বিদেশি ট্যুরিস্ট সাইক্লিস্টনের সরকারি সুযোগ সুবিধায় অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

 

 

/আইএ/

সম্পর্কিত

বিশ্ব পর্যটন দিবস উপলক্ষে সাইকেল র‌্যালি

বিশ্ব পর্যটন দিবস উপলক্ষে সাইকেল র‌্যালি

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি

শিল্পকলা একাডেমিতে ‘শরৎ উৎসব’ উদ্বোধন

শিল্পকলা একাডেমিতে ‘শরৎ উৎসব’ উদ্বোধন

হাতিরঝিলে মাইক্রোবাসের ধাক্কায় সাইকেল আরোহী নিহত

হাতিরঝিলে মাইক্রোবাসের ধাক্কায় সাইকেল আরোহী নিহত

বিশ্ব পর্যটন দিবস উপলক্ষে সাইকেল র‌্যালি

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:২৯

আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর বিশ্ব পর্যটন দিবস। দিবসটি উপলক্ষে সাইকেল র‌্যালির আয়োজন করেছে পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন (পবা) ও বাংলাদেশ ট্যুরিস্ট সাইক্লিং। শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টায় জাতীয় জাদুঘরের সামনে থেকে র‌্যালিটি শুরু হয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গিয়ে শেষ হয়। এর আগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে সংগঠন দুটি।

সমাবেশে পবা’র চেয়ারম্যান আবু নাসের খান বলেন, ‘সাইকেল শুধু যাতায়াতের জন্য নয়, পরিবেশের অন্যতম প্রধান বাহন এই সাইকেল। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় আমরা এই সাইকেল চলাচলকে নিরাপদ করতে পারিনি। আজকের অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্য হবে—আমরা নিজেরা নিরাপদে সাইকেল চলাচল করবো এবং অন্যের অসুবিধার কারণ হবো না।’

তিনি আরও বলেন, ‘লেনসহ সাইকেল চলাচলের অন্যান্য প্রতিবন্ধকতাগুলো দূর করা দরকার। সাইকেল সচেতনতামূলক প্রচারণার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়সহ অন্যান্য কর্তৃপক্ষকে ভূমিকা রাখতে হবে।’

বাংলাদেশ ট্যুরিস্ট সাইক্লিংয়ের প্রধান সমন্বয়ক আমিনুল ইসলাম টুকুসের সভাপতিত্বে উক্ত সাইকেল র‍্যালিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত বাংলাদেশ মানবাধিকার সমিতির চেয়ারম্যান মনজুর হোসেন ঈশা, বাংলাদেশ ট্যুরিস্ট সাইক্লিংয়ের সমন্বয়ক রজিনা আক্তার দুমিল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাইক্লিং ক্লাবের সভাপতি নাজমুল হাসান, বাংলাদেশ সাইকেল লেন বাস্তবায়ন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আরিফ আহমেদ, বিডিক্লিকের সহ-সভাপতি দিনার হোসেন পাটোয়ারী, মিণফোর্সের সদস্য আহসান হাবীব প্রমুখ।

সমাবেশে সাইক্লিং নিরাপদ করতে ১০টি সুপারিশ করা হয়। সুপারিশগুলো হলো:

১. সাইকেল নেটওয়ার্ক তৈরি করা।

২. সাইকেলবান্ধব অবকাঠামো তৈরি।

৩. সাইকেল আরোহীদের আরও সচেতনভাবে সাইকেল চালানোর জন্য সতর্ক করা এবং নিয়ম মেনে সাইকেল চালাতে উৎসাহিত করা।

৪. সাইকেল লেন ব্যবহার করার প্রতি সচেতনতা সৃষ্টি করা।

৫. পরিবেশবান্ধব এই বাহনটি ব্যবহারের সুবিধা নিয়ে প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের সাইক্লিং প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা।

৬. দুর্ঘটনা রোধ করার জন্য নিরাপদ সড়ক ও সাইকেল লেনের ব্যবস্থা করা।

৭. যে স্বল্প পরিমাণ সাইকেল লেন আছে তা দখলমুক্ত করে নিরাপদ সাইক্লিং করার নিশ্চয়তা প্রদান করা।

৮. পারিবারিকভাবে সন্তানকে সাইকেল চালানোয় উৎসাহিত করার জন্য জনমত গড়ে তোলা।

৯. দেশের বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে সাইকেল পার্কিংয়ের সুব্যবস্থা রাখতে হবে।

১০. দেশি-বিদেশি ট্যুরিস্ট সাইক্লিস্টনের সরকারি সুযোগ সুবিধায় অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

 

/আইএ/

সম্পর্কিত

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি

শিল্পকলা একাডেমিতে ‘শরৎ উৎসব’ উদ্বোধন

শিল্পকলা একাডেমিতে ‘শরৎ উৎসব’ উদ্বোধন

ভাষাসৈনিক আহমদ রফিকের পাশে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়

ভাষাসৈনিক আহমদ রফিকের পাশে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়

ঢাকায় ‘জলবায়ু অবরোধ আন্দোলন’ কর্মসূচি

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:১৫

জলবায়ু পরিবর্তন রোধে ঢাকায় ‘জলবায়ু অবরোধ আন্দোলন’ কর্মসূচি পালন করেছে ইন্টারন্যাশনাল ইয়ুথ চেঞ্জ মেকারের স্বেচ্ছাসেবকরা। শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এই কর্মসূচি পালন করা হয়।

সংগঠনটির পক্ষ থেকে জানানো হয়, একটি দেশ বা অঞ্চলের আবহাওয়া ও জলবায়ু তার জীবিকা, জীবনযাত্রা ও সংস্কৃতির উপর প্রভাব রাখে। কিন্তু সম্প্রতি জলবায়ু পরিবর্তনে দেশে বেশ কিছু প্রাকৃতিক দূর্যোগসহ প্রকৃতির বিভিন্ন অসামঞ্জস্যতা দেখা গিয়েছে। এর ফলে জনজীবন ও বন্য পশু-পাখি ঝুঁকির মুখে। 

কর্মসূচিতে বক্তারা বলেন, এই দুর্যোগ ও প্রাকৃতিক অসামঞ্জস্যতার মূল কারণ জলবায়ু পরিবর্তন। আর এই জলবায়ু পরিবর্তনে অপরিকল্পিতভাবে নগরায়ন এবং শিল্পায়নের বিস্তার দায়ী। প্রতিনিয়তই পরিবেশের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ এমন আচরণ করে যাচ্ছে মানবসমাজ। ফলে জলবায়ু এই পরিবর্তনে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে সারা বিশ্ব এবং বিলুপ্ত হতে পারে বিভিন্ন প্রজাতির প্রাণী।

তাদের দাবি, খুব দেরি হয়ে যাওয়ার আগেই সবাইকে সচেতন হতে হবে। পরিবেশবান্ধব পণ্য, যন্ত্রাংশ ব্যবহারে নজর দিতে হবে। সমাজের সকল স্তরের জনগণকে এই বিষয়ে সচেতন হতে হবে এবং জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে সকলের অংশগ্রহণ করতে হবে।

/জেডএ/ইউএস/

সম্পর্কিত

বিশ্ব পর্যটন দিবস উপলক্ষে সাইকেল র‌্যালি

বিশ্ব পর্যটন দিবস উপলক্ষে সাইকেল র‌্যালি

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি

বাড্ডায় ১০ কেজি গাঁজাসহ গ্রেফতার ২

বাড্ডায় ১০ কেজি গাঁজাসহ গ্রেফতার ২

অধিভুক্ত কলেজের নাম থেকে ‘বিশ্ববিদ্যালয়’ শব্দ প্রত্যাহারের নির্দেশ

অধিভুক্ত কলেজের নাম থেকে ‘বিশ্ববিদ্যালয়’ শব্দ প্রত্যাহারের নির্দেশ

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:০৮

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় কার্যকর পদক্ষেপ চায় ‘সেইভ ফিউচার বাংলাদেশ’। এ লক্ষ্যে দেশের পাহাড়-টিলা, বনাঞ্চল, বন্যপ্রাণী, নদী রক্ষা ও সংরক্ষণসহ প্লাস্টিক দূষণ এবং বায়ুদূষণ রোধে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানায় সংগঠনটি।

শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বিশ্বব্যাপী অনুষ্ঠিতব্য জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে আন্দোলন ‘গ্লোবাল ক্লাইমেট স্ট্রাইক’ কর্মসূচির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে আয়োজিত মানববন্ধনে এ দাবি জানানো হয়।

সংগঠন থেকে জানানো হয়, বর্তমানে বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে সবচেয়ে ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম। বাংলাদেশের জনসংখ্যার প্রায় ৪০ শতাংশ শিশুদের জীবন ও ভবিষ্যৎ অন্ধকার করে তুলছে এই বিরূপ জলবায়ুর পরিবর্তন।

মানববন্ধন থেকে আরও বলা হয়, বৈশ্বিক উষ্ণায়নের ফলে হিমালয়ের হিমবাহ গলতে থাকায় সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি এবং প্রাণঘাতী দুর্যোগ ঝুঁকি আরও বাড়ছে। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগও বৃদ্ধি পাচ্ছে। গবেষণা বলছে, ২০৫০ সালের মাধ্যে ২ কোটিরও বেশি মানুষ জলবায়ু উদ্বাস্তু হতে পারে। সমুদ্রের উচ্চতা এক মিটার বৃদ্ধি পেলে বাংলাদেশের ২০ এলাকা পানিতে তলিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে এবং এতে বাংলাদেশ উপকূলীয় অঞ্চল সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে।’

জলবায়ু পরিবর্তন রোধে তাদের দাবি, উপকূল জুড়ে টেকসই ব্লক বাঁধ নির্মাণসহ উপকূলীয় অঞ্চলের মানুষের জীবনমান উন্নয়নে কাজ করতে হবে। জলবায়ু শরণার্থীদের টেকসই পুনর্বাসন করতে হবে। সুপেয় পানির স্থায়ী সমাধান করতে হবে। পরিবেশ-প্রতিবেশ রক্ষা ও সংরক্ষণ করতে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে এবং প্যারিস অ্যাগ্রিমেন্ট বাস্তবায়ন করতে হবে।

 

 

/জেডএ/আইএ/

সম্পর্কিত

শিল্পকলা একাডেমিতে ‘শরৎ উৎসব’ উদ্বোধন

শিল্পকলা একাডেমিতে ‘শরৎ উৎসব’ উদ্বোধন

ভাষাসৈনিক আহমদ রফিকের পাশে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়

ভাষাসৈনিক আহমদ রফিকের পাশে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়

নেদারল্যান্ডস ভ্রমণের শর্ত শিথিল

নেদারল্যান্ডস ভ্রমণের শর্ত শিথিল

অনলাইনে কারিগরির অ্যাডভান্সড কোর্সে নিবন্ধনের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

অনলাইনে কারিগরির অ্যাডভান্সড কোর্সে নিবন্ধনের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

বাড্ডায় ১০ কেজি গাঁজাসহ গ্রেফতার ২

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:৫০

রাজধানীর বাড্ডা থানা এলাকা থেকে ১০ কেজি গাঁজাসহ দুই জনকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) এর গোয়েন্দা গুলশান বিভাগ। তারা হলেন মো. রুবেল ইসলাম ও নাফিসা আক্তার। বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) বিকালে বাড্ডা থানার উত্তর বাড্ডা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে গোয়েন্দা গুলশান জোনাল টিম।

গুলশান গোয়েন্দা বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মাহবুবুল হক সজীব শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে বলেন, ‘মাদক ব্যবসায়ীরা ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা হতে গাঁজা সংগ্রহ করে ঢাকা হয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জে নিয়ে যাওয়ার জন্য উত্তর বাড্ডা বাসস্ট্যান্ডে অবস্থান করছেন—এমন তথ্যের ভিত্তিতে ওই এলাকায় অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি বুঝতে পেরে পালানোর চেষ্টাকালে একজন পুরুষ ও একজন নারীকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার রুবেলের সঙ্গে থাকা ল্যাগেজের ভেতর থেকে ৬ কেজি গাঁজা এবং নাফিসার ট্রাভেল ব্যাগ থেকে ৪ কেজি গাঁজা উদ্ধার করা হয়।’

বাড্ডা থানার মামলায় গ্রেফতারকৃতদের আদালতে পাঠানো হয়েছে বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

গোয়েন্দা গুলশান বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার মশিউর রহমানের নির্দেশনায় অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মো. কামরুজ্জামান সরদারের তত্ত্বাবধানে অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (টিম লিডার) মাহবুবুল হক সজীবের নেতৃত্বে অভিযানটি পরিচালিত হয়।

 

/আরটি/আইএ/

সম্পর্কিত

রাজধানীতে মাদক ব্যবসায়ী সাড়ে ৩ হাজার 

রাজধানীতে মাদক ব্যবসায়ী সাড়ে ৩ হাজার 

মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার ৫২

মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার ৫২

ফকিরাপুলে ভিওআইপি সরঞ্জামসহ গ্রেফতার ৪

ফকিরাপুলে ভিওআইপি সরঞ্জামসহ গ্রেফতার ৪

ধর্ষণ মামলায় ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত নেতা সবুজের বিরুদ্ধে চার্জশিট

ধর্ষণ মামলায় ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত নেতা সবুজের বিরুদ্ধে চার্জশিট

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

শিল্পকলা একাডেমিতে ‘শরৎ উৎসব’ উদ্বোধন

শিল্পকলা একাডেমিতে ‘শরৎ উৎসব’ উদ্বোধন

মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার ৫২

মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার ৫২

দুর্গাপূজাকে ঘিরে ব্যস্ত প্রতিমাশিল্পী,  উদযাপনের কিছু শর্ত শিথিল হতে পারে

দুর্গাপূজাকে ঘিরে ব্যস্ত প্রতিমাশিল্পী,  উদযাপনের কিছু শর্ত শিথিল হতে পারে

নদীর দখল রোধে আবার পিলার

নদীর দখল রোধে আবার পিলার

বাউবি’র স্থগিত বিএ ও বিএসএস পরীক্ষা  শুক্রবার শুরু

বাউবি’র স্থগিত বিএ ও বিএসএস পরীক্ষা  শুক্রবার শুরু

গুলশানে তিন ফার্মেসিকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা

গুলশানে তিন ফার্মেসিকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা

১৪ নভেম্বর থেকে দাখিল পরীক্ষা শুরু

১৪ নভেম্বর থেকে দাখিল পরীক্ষা শুরু

সরকারি কর্মচারীদের প্রতিবন্ধী সন্তানের জন্য হচ্ছে দিবাযত্ন কেন্দ্র

সরকারি কর্মচারীদের প্রতিবন্ধী সন্তানের জন্য হচ্ছে দিবাযত্ন কেন্দ্র

‘সাম্প্রদায়িকতাকে উসকে দেওয়ার ষড়যন্ত্র চলছে’

‘সাম্প্রদায়িকতাকে উসকে দেওয়ার ষড়যন্ত্র চলছে’

অনূর্ধ ১০ বছর বয়সী ডেঙ্গু রোগীই প্রায় ২৫ শতাংশ

অনূর্ধ ১০ বছর বয়সী ডেঙ্গু রোগীই প্রায় ২৫ শতাংশ

সর্বশেষ

সাইক্লিং নিরাপদে ১০ সুপারিশ

সাইক্লিং নিরাপদে ১০ সুপারিশ

বিশ্ব পর্যটন দিবস উপলক্ষে সাইকেল র‌্যালি

বিশ্ব পর্যটন দিবস উপলক্ষে সাইকেল র‌্যালি

‘বিদ্যালয়ে এসে করোনা আক্রান্তের প্রমাণ পাওয়া যায়নি’

‘বিদ্যালয়ে এসে করোনা আক্রান্তের প্রমাণ পাওয়া যায়নি’

ঢাকায় ‘জলবায়ু অবরোধ আন্দোলন’ কর্মসূচি

ঢাকায় ‘জলবায়ু অবরোধ আন্দোলন’ কর্মসূচি

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি

© 2021 Bangla Tribune