X
শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ৯ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

দুবলার চরে রাসমেলায়...

আপডেট : ০৫ ডিসেম্বর ২০১৫, ১৪:১৫

_MG_0224 ভোর পাঁচটা হবে তখন। ঘুম ভেঙ্গে গেল। তাকিয়ে দেখি আবছা সরের মত কুয়াশা লেগে আছে চারদিকে। এমন দৃশ্যে আবেশে আচ্ছন্ন হলাম। মাথা তুলে এদিক ওদিক তাকাই, শান্ত চারপাশ। স্বপ্নের মত ঠান্ডা হাওয়া বইছিল ঝিরঝির। বিছানা ছেড়ে উঠতে ইচ্ছে করছিল না, কম্বলটা আরও ভাল করে গায়ে টেনে দিতেই পাশ থেকে কারও ধাক্কা! সঙ্গে পশুর নদীর ঢেউয়ের দোল। সুতরাং বিছানা ছাড়তেই হল। ইতোমধ্যে নাজমুল হক স্যার ক্যামেরা হাতে ট্রলারের সামনের দিকে চলে গেছেন। আর রাজীব রাসেল ক্যামেরায় পোজ দিতে গোলুইতে বসে পড়েছেন। আমি আকাশের দিকে দৃষ্টি ফেরালাম। হলুদাভ কিছু নজরে আসতেই নড়েচড়ে বসলাম। পূর্ব দিগন্তে কিছু একটা হচ্ছে। চোখ কচলে স্থির তাকালাম। একসময় ধীরে ধীরে লাল থালার মত সূর্য আমার দিকে তাকিয়ে চোখ টিপে হাসল। বিমোহিত আমি স্থির তাকিয়েই রইলাম, চোখ-মন কোনটাই ফেরাতে পারলাম না। হাত হয়ে গেল অচল, ক্যামেরা চলল না। পশুর নদীর সেই ভোর আর সূর্যোদয় আজীবন মনে থাকবে।

IMG_9082

বঙ্গোপসাগরের কোলে জেগে ওঠা ছোট্ট দ্বীপ দুবলার চর। অনেকে এই চরকে বলেন আলোর কোল। আলোর কোল বা দুবলার চরে রাস মেলার রয়েছে দীর্ঘ ঐতিহ্য। পশুর ও কুঙ্গা নদীর মোহনায় জেগে ওঠা ছোট্ট এই চরে প্রতিবছর কার্তিক অগ্রায়ন পূর্ণিমা তিথীতে বসে রাসমেলা। রাসমেলা উপলক্ষে এখানে আসেন অর্ধলক্ষাধিক পুণ্যার্থী। উৎসবে সামিল হতে আসেন দেশ-বিদেশের বহু পর্যটক। গত বছর প্রথমবারের মতো গিয়েছিলাম রাসমেলায়। যাত্রাসঙ্গী ছিল সিলেট, চট্টগ্রাম আর ঢাকা মিলে মোট ১২ জন। মাওয়া-কাওড়াকান্দি হয়ে মাদারিপুর আর গোপালগঞ্জ পেছনে ফেলে ভোরবেলাতেই ছুটে চললাম মংলা সমুদ্র বন্দরের দিকে, পৌঁছলাম দুপুরে। এখানে আগে থেকেই ট্রলার ঠিক করা ছিল। কিছু প্রয়োজনীয় রসদ সংগ্রহ আর খাওয়া দাওয়া শেষে যখন ট্রলারে উঠি তখন বিকাল।

IMG_9421

সেই বিকালে আমরা করমজল ইকোপার্কে যাই। এখানে রয়েছে বিশাল ওয়াচটাওয়ার। যেখানে দাঁড়িয়ে পুরো সুন্দরবনে একবার চোখ বুলিয়ে নেওয়া যায়। আমরা করমজল ঘুরে বন বিভাগের প্রবেশ অনুমতির অপেক্ষায় নন্দবালা টহল ঘাঁটিতে অপেক্ষায় বসি। এখানেই জানতে পারি মংলাসহ সুন্দরবনের মোট আটটি পয়েন্ট দিয়ে রাসমেলায় প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়। এরমধ্যে আমরা পাশের জয়মনি বাজার ঘুরে এসেছি। প্রবেশপত্র বা অনুমতি পাওয়া গেল রাত বারোটায়, তারপরই শুরু হল আমাদের মূল যাত্রা। সেই রাতে আকাশে চাঁদ ছিল, দমকা বাতাস ছিল। সঙ্গীরা সবাই আড্ডায় মেতে উঠলো। আর আমি আগে ভাগে ঘুমাতে চলে গেলাম। তারপরই তো সেই ভোরে সূর্যের নরম আলোয় মন ভরে যাওয়া।

IMG_9918

আমাদের ট্রলার তখন বঙ্গোপসাগরের নোনাজল বিলি কেটে ছুটে চলেছে। এরমধ্যে আমাদের গাইড কৃষ্ণদা জানালেন, আমরা পথ হারিয়েছি! নেটওয়ার্কের বাইরে চলে এসেছি সুতরাং যোগাযোগের কোন উপায় নেই। আশেপাশে কোন ট্রলারও নেই। মাঝি এসে আমাদের আশ্বস্ত করলো সামনেই দুবলার চর, কোন সমস্যা নাই। একসময় আমরা সুন্দরবন ঘেরা সুন্দর এক দ্বীপে চলে আসি। সেই দ্বীপে তখন আমাদের মতই এক পথহারা ট্রলার দাঁড়িয়ে, তাদের সঙ্গে কথা বলে সেই দ্বীপে নামার প্রস্তুতি নিলাম। তখনই হইহই করে বনবিভাগের নিরাপত্তারক্ষীবাহী ট্রলারের আগমন। তাদের কাছেই জানতে পারি সেই চরের নাম মাধিয়ার দ্বীপ বা মাইধ্যার দ্বীপ। আমরা কেবল ভুল পথে আসিনি, ভয়ংকর বিপদসংকুল এলাকায় চলে এসেছি। শুনে তো আমাদের দিশাহারা অবস্থা। এবার আমরা সঠিক পথ জেনে নিয়ে ছুটে চললাম দুবলার চরের দিকে। আরও দুইঘন্টা সমুদ্র ভ্রমণ শেষে আরেক দুপুরে দুবলার চর পৌঁছলাম। ধকল একটু বেশি গেলেও সবাই ব্যাগ গুছিয়ে সমুদ্রস্নানে ছুটল।

_MG_0392

সমুদ্রস্নানের পাশাপাশি সে রাতে আমরা স্নান করেছিলাম জোছনাতেও। আর রাতের খাবার টাটকা মাছ ভাজার সঙ্গে আলুভর্তা ভাত। তারপর বহুপথ হেঁটে গিয়েছিলাম স্থানীয় নিউ মার্কেট, তারপর মেলাস্থল। আমরা মেলা ঘুরে দেখি, কীর্ত্তন শুনি। তারপর চলে আসি পাশের সমুদ্র সৈকতে।

IMG_9846

দুটো ডাব গাছ, অনেকগুলো কাটা গাছ যেন এক একটি আলাদা ভাস্কর্য হয়ে দাঁড়িয়ে আছে সৈকতে। সে জোছনা ভরা রাতে আমরা রাসমেলার পাশে দুবলার চর সমুদ্র সৈকতে বসেছিলাম রাত দুইটা পর্যন্ত। তারপর ট্রলারে ফিরে ঘুম। সে ঘুম ভাঙ্গে পাশের অনেকগুলো ট্রলার থেকে ভেসে আসা প্রার্থনা সংগীতে। আমরাও তৈরি হয়ে নিই। তারপর ছুটে যাই সমুদ্র সৈকতে।

IMG_9439

সনাতন ধর্মাবলম্বীরা সবাই পূজায় ব্যস্ত। দেবতা নীলকমল ও গঙ্গাদেবীর উদ্দেশ্যে সমুদ্র তীরে বসে সবাই পূজা দিচ্ছেন। ডাব, মিষ্টি আর আগরবাতি নিয়ে পূজা শেষ করে সেসব ডাব আর মিষ্টি সমুদ্রের ঢেউয়ে উৎসর্গ করছেন। তারপরই পাপ মোচনের জন্য সমুদ্রে ঝাঁপিয়ে পড়া।

IMG_9598

সমুদ্র থেকে উঠে আসার সময় সবাই সংগ্রহ করে নিয়ে আসছেন পবিত্র জল। এসব জল নিজে রাখবেন আর দেবেন প্রিয়জনকে। আসলে মানুষের টিকে থাকার সংগ্রাম পরস্পরকে ভালোবেসে। এমন উৎসবে না এলে সেটা বোঝা খুব কষ্টকর। আমরা সেটা বুঝলাম, আরও বুঝলাম কেন পর্যটকদের স্বর্গরাজ্য হয়ে উঠেছে দুবলার চর!

IMG_9681

প্রয়োজনীয় তথ্য
প্রতিবছর কার্তিক অগ্রায়ন পূর্ণিমা তিথীতে দুবলার চরে বসে রাসমেলা। এই চরের মোট আয়তন ৮১ বর্গমাইল। পুরোটাই সুন্দরবনের দক্ষিণে সমুদ্র কোল ঘেঁষে। রাসমেলা মনিপুরীদের প্রধান উৎসব হলেও বিভিন্ন হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যেও এই উৎসব পালিত হয়। অনেকে দুবলার চরের রাসমেলা উৎসবকে মৎস আহরণ উৎসব বলে মনে করেন। কারণ রাসমেলার পরপরই শুরু হয় পুরোদমে মৎস আহরণ। দুবলার চর বা রাসমেলায় যেতে হবে আপনাকে পূর্ণিমা তিথীকে সামনে রেখে। এ মাসের পূর্ণিমা ২৬ নভেম্বর, সময় বেশি নেই। দলবেঁধে বা একা যেভাবেই যান, সুন্দরবন প্যাকেজ ট্যুরের ব্যবস্থাপক যে কোনও ভাল ট্যুরিষ্ট গাইডের সহযোগিতা নিতে পারেন।

IMG_9384

এ সময় সুন্দর বনের আটটি পয়েন্ট কর্তৃপক্ষ খুলে দিয়ে পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেন। তাই নিজেরাও ট্রলার ভাড়া করে চলে যেতে পারেন দুবলার চর। সেক্ষেত্রে জানাশোনা ভাল গাইড ও ট্রলার নেবেন। নিজেদের আয়োজনে গেলে ঢাকা থেকে সর্বসাকুল্যে খরচ হবে জনপ্রতি ৫ হাজার টাকার মতো। আর টুরিষ্ট গাইডের এর প্যাকেজে গেলে জনপ্রতি খরচ হবে ৭ থেকে ১২ হাজার টাকা।


ছবি: লেখক

/এনএ/

সম্পর্কিত

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

রেসিপি : হয়ে যাক বিফ চিজ বার্গার

রেসিপি : হয়ে যাক বিফ চিজ বার্গার

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ১৭:৫০

হলুদ খাওয়ার উপকারের কথা মোটামুটি সবারই জানা। তবে ত্বকের যত্নেও এর ব্যবহার হয়ে আসছে যুগ যুগ ধরে।

 

উজ্জ্বলতা বাড়ায়

আগে থেকেই কাঁচা হলুদ গায়ে মাখার চল রয়েছে। বিভিন্ন উৎসবেও ত্বকে হলুদ মাখা হয়। মূলত হলুদে থাকা অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও আন্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদান মানুষের ত্বকের অনাকাঙ্ক্ষিত দাগ দূর করে উজ্জ্বলতা বাড়ায়। দই, মধু ও হলুদ দিয়ে পেস্ট বানিয়ে মুখে ও ঘাড়ে লাগিয়ে ২০/২৫ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন।

 

ব্রণ দূর করে

ব্রণ নিয়ে টিনএজ বয়স থেকেই শুরু হয় মাথাব্যথা। হলুদ মিশ্রিত একটি প্যাক ব্রণ সমস্যা দূর করতে পারে সহজেই। এক চা চামচ দই ও এক চা চামচ মুলতানি মাটির  সঙ্গে হলুদ মিশিয়ে সঙ্গে খানিকটা গোলাপ জল দিয়ে প্যাক তৈরি করুন। এবার মুখে লাগিয়ে ২০ মিনিট পর ঠান্ডা পানিতে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত এ প্যাক ব্যবহারে ব্রণ যাবে পালিয়ে।

 

কালো দাগ হটাতে

মুখে বা চোখের নিচে কালো দাগ (ডার্ক সার্কেল) দূর করতে দুই টেবিল চামচ হলুদ গুঁড়ায় এক টেবিল চামচ দই ও দুই ফোঁটা লেবুর রস মিশিয়ে প্যাক বানান। দাগের ওপর লাগিয়ে ২০ মিনিট অপেক্ষা করুন। তারপর ধুয়ে ফেলুন। এভাবে চালিয়ে যেতে হবে কয়েকদিন।

 

ফাটা দাগ দূর করে

বিশেষ করে সন্তান জন্মদানের পর মায়েদের পেটের নিচে ফাটা দাগ দেখা দেয়। এক টেবিল চামচ নারিকেল তেলের সঙ্গে আধা চা চামচ হলুদ গুঁড়া মিশিয়ে ফাটা দাগের জায়গাগুলোতে মেখে রাখুন এক ঘণ্টা পর্যন্ত। তারপর ধুয়ে ফেলুন। এভাবে নিয়মিত ব্যবহার করুন।

/এফএ/

সম্পর্কিত

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

রেসিপি : হয়ে যাক বিফ চিজ বার্গার

রেসিপি : হয়ে যাক বিফ চিজ বার্গার

জিরাপানি কেন খাবেন, বানাবেন কী করে?

জিরাপানি কেন খাবেন, বানাবেন কী করে?

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ১৫:৩৬

পুষ্টির বিচারে মিষ্টি আলু স্বাভাবিক গোল আলুর মতো নয়। বরং ওটার চেয়ে ঢের এগিয়ে। একটি মাঝারি মিষ্টি আলুতেই প্রতিদিনকার চাহিদার চেয়ে চার গুণ বেশি ভিটামিন এ আছে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর পাশাপাশি হৃৎপিণ্ড ও কিডনি ভালো রাখার উপাদানও আছে এতে। ফাইবারেরও বেশ ভালো উৎস মিষ্টি আলু। আছে ভিটামিন বি, সি, ডি, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, পটাশিয়াম, থায়ামিন ও জিংক।

 

মিষ্টি আলুর ক্ষীর বানাতে যা যা লাগবে

  • ২ টেবিল চামচ ঘি।
  • ৪ কাপ দুধ।
  • ১ চা চামচ সবুজ এলাচ গুঁড়ো।
  • ৬টা কাঠবাদাম কুচি।
  • ৫০০ গ্রাম মিষ্টি আলু, গ্রেট করা।
  • ৬টা কাজুবাদাম কুচি।
  • দেড় কাপ চিনি।
  • ৫-৬ টুকরো জাফরান।

 

যেভাবে বানাবেন

  • একটি প্যানে মাঝারি আঁচে ঘি ঢালুন। গরম হয়ে এলে তাতে বাদামকুচিগুলো ভাজুন। বাদামের রং বাদামি হয়ে এলে তুলে রাখুন। বাড়তি ঘি-টাও রেখে দিন।
  • ওই প্যানে এবার গ্রেট করা মিষ্টি আলুর কুচিগুলো দিয়ে নেড়েচেড়ে পাঁচ মিনিট ভাজুন।
  • আলু খানিকটা নরম হয়ে আসতে শুরু করলে তাতে দুধ দিন। ১০ মিনিট রান্না করুন। এরপর চিনি ঢেলে নেড়েচেড়ে ভালো করে মিশিয়ে আরও ৫ মিনিট মাঝারি আঁচে রাখুন।
  • এলাচ গুঁড়ো ও জাফরান দিয়ে আরও ২-৩ মিনিট রান্না করুন।
  • এরপর আঁচ কমিয়ে তাতে ভেজে রাখা বাদামকুচি মিশিয়ে দিন। চাইলে গরম গরম পরিবেশন করতে পারেন, কিংবা রেখে দিতে পারেন ফ্রিজে।

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

রেসিপি : হয়ে যাক বিফ চিজ বার্গার

রেসিপি : হয়ে যাক বিফ চিজ বার্গার

জিরাপানি কেন খাবেন, বানাবেন কী করে?

জিরাপানি কেন খাবেন, বানাবেন কী করে?

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ০৮:০০

মাছ কিনতে বাজারে গেলেই বিপদে পড়ে যান অনেকে। মাছ টিপেটুপেও নিশ্চিত হতে পারেন না। সিদ্ধান্তহীনতায় কেটে যায় অনেকটা সময়। দরদামের চেয়েও তাদের টেনশনটা হলো, মাছ পচা হবে না তো? তাদের জন্য রইলো তাজা মাছ চেনার সহজ কিছু টিপস।

 

নাকের ওপর ভরসা

কাজটা একটু অস্বস্তিকর মনে হতে পারে। তবে তাজা মাছ চিনতে এটা বেশ কাজের। মাছটাকে সম্ভব হলে নাকের কাছে নিয়ে গন্ধ শুঁকে দেখুন। তাজা মাছ হলে বিশেষ কোনও গন্ধ পাবেন না। নদী বা সমুদ্রের তাজা মাছ হলে খানিকটা শ্যাওলা পানির গন্ধ পেতে পারেন। তবে সেটা নাকে ধাক্কা দেবে না। আর যদি কড়া আঁশটে গন্ধ পান, তবে বুঝতে হবে মাছটা পুরোপুরি পচা না হলেও বাসি। কিছু সময় পরই পচন ধরবে। এই গন্ধটা রান্নার পরও থাকবে।

 

চোখ লুকানো যায় না

মাছে যতই রাসায়নিক দেওয়া হোক, এর চোখ কিন্তু ঢাকা যায় না। তাই হাত দিয়ে ধরার আগে মাছের চোখ দেখুন। তাজা মাছের চোখটাও জ্বলজ্বলে হবে। চোখ যত সাদা ও ঘোলাটে হবে, ধরে নিতে হবে মাছটা তত পচে যাওয়ার কাছাকাছি পর্যায়ে আছে।

 

ত্বক পরীক্ষা

তাজা মাছের বাহ্যিকটা হবে বেশ চকচকে, যাকে বলে মেটালিক টেক্সচার। বাসি মাছের ত্বক হবে ফ্যাকাসে। আবার তাজা মাছের গায়ে জোরে হাত দিয়ে ঘষা দিলেও সহজে আঁশ ছুটে আসবে না। সবশেষে অনেকের মতো মাছটা টিপেও দেখুন। আঙুল সরানোর সঙ্গে সঙ্গে যদি বাউন্স করে আবার ত্বক সমান হয়ে যায় তবে মাছটা তাজাই আছে। পচা হলে দেবেই থাকবে কিংবা উঠে আসতে সময় লাগবে।

 

কানকোর রঙ

তাজা মাছের কানকো হাত দিয়ে তুলে দেখাতে বিক্রেতারা সবসময়ই তৎপর। তাজা মাছের কানকোর রঙ দেখতে ভেজা মনে হবে। আর বাসি মাছ হলে কানকোর রঙটাকে শুকিয়ে যাওয়া মনে হবে। আবার আঙুল দিয়ে পরীক্ষা করে দেখুন, রংটা আসল না নকল। তাজা মাছের কানকোর রঙটা হয় সচরাচর গাঢ় লাল বা মেরুন রঙের।

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

রেসিপি : হয়ে যাক বিফ চিজ বার্গার

রেসিপি : হয়ে যাক বিফ চিজ বার্গার

জিরাপানি কেন খাবেন, বানাবেন কী করে?

জিরাপানি কেন খাবেন, বানাবেন কী করে?

রেসিপি : হয়ে যাক বিফ চিজ বার্গার

আপডেট : ২৩ জুলাই ২০২১, ০৮:০০

কোরবানিতে রান্না মাংস খেতে আর ইচ্ছে করছে না? এবার চেষ্টা করে দেখুন ভিন্ন কিছু। সহজেই বানাতে পারেন বিফ চিজ বার্গার।

 

প্যাটির জন্য যা যা লাগবে

  • বড় চাকা ও হাড়ছাড়া আঁশযুক্ত মাংস ২০০ গ্রাম (২ পিসে ২০০ গ্রাম হয় এমন হলে ভালো)।
  • পরিমাণমতো লবণ।
  • তেজপাতা ২টি।
  • এলাচ ও লবঙ্গ ৫টি করে।
  • দারুচিনি বড় ১ টুকরা।

 

বার্গানের জন্য

  • বার্গার বান ৪ টি।
  • শশা, টমেটো, পেঁয়াজ, ক্যাপসিকাম ও লেটুস পাতা পরিমাণমতো।
  • টমেটো সস।
  • মাস্টার্ড সস
  • মেয়োনেজ পরিমাণমতো।
  • ঘি বা মাখন।
  • মজারেলা চিজ।

 

যেভাবে বানাবেন বিফ চিজ বার্গার

  • প্রথমেই মাংসটা তৈরি করে নিতে হবে। একটি হাঁড়িতে মেজারমেন্ট কাপে ২ কাপ পানি নিন। এতে মাংস ও মাংসের জন্য নেওয়া সকল উপকরণ দিয়ে মাঝারি আঁচে ৩০ মিনিট রান্না করুন।
  • পানি শুকিয়ে এলে কাঁটাচামচের মাধ্যমে দেখতে হবে মাংস নরম হয়েছে কি না। না হলে আরও কিছুটা পানি দিয়ে নরম না হওয়া পর্যন্ত জ্বাল দিন।
  • চুলা থেকে নামিয়ে কাঁটাচামচ দিয়ে মাংসগুলো ঝুরি বানিয়ে নিন।
  • এই ঝুরা মাংসে লবণ ও গ্রেটার দিয়ে গ্রেট করা চিজ দিন। মাস্টার্ড সস ও মেয়োনেজ দিয়ে ভালো করে মিক্স করুন।
  • এবার বানের প্রতিটিকে দুই ভাগ করে কেটে নিন। গরম তাওয়ায় ১টি বানের জন্য ১ চাচামচ ঘি বা বাটার দিয়ে বানগুলো গরম করে নিন।
  • বানের নিচের ও উপরের অংশে টমেটো সস লাগিয়ে নিন।
  • মাংসের মিশ্রণকে হাতের তালুতে নিয়ে চাপ দিয়ে টিকিয়ার মতো করে বানের নিচের অংশে দিন।
  • এর উপর শশা, টমেটো, পেঁয়াজ ও ক্যাপসিকাম দিন।
  • ওভেনে ১০ সেকেন্ড দিয়ে পরিবেশন করুন। ওভেন না থাকলে তাওয়াতেও গরম করা যাবে। এতে মাংসের মধ্যে দেওয়া চিজ গলবে।

মেয়োনিজ তৈরির রৈসিপি দেখে নিন এই লিংকে

/এফএ/

সম্পর্কিত

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

জিরাপানি কেন খাবেন, বানাবেন কী করে?

জিরাপানি কেন খাবেন, বানাবেন কী করে?

জিরাপানি কেন খাবেন, বানাবেন কী করে?

আপডেট : ২২ জুলাই ২০২১, ১৫:৩৯

জিরাপানির অনেক গুণ। তবে এ তালিকায় সবার আগে আসবে হজমের কথা- কোরবানির ঈদের পর যা অনেকেরই মাথাব্যথা হয়ে দাঁড়ায়। জিরাপানি খেলে আরও কী উপকার পাবেন, নজর বুলিয়ে নিন ঝটপট-

 

হজমে চমৎকার

কোরবানির ঈদে একটু বেশি মাংস খাওয়া হয় বলে হজমে গোলমাল দেখা দেয় অনেকের। দেখা দেয় গ্যাসট্রাইটিসের সমস্যাও। জিরাপানিতে আছে শক্তিশালী অ্যান্টি-গ্যাস উপাদান। এটি পান করলে বাজে ঢেঁকুর থেকে শুরু করে পেট ফাঁপাও কমে আসবে। আবার একটু ভারী কিছু খেলেই যাদের পেটটা চেঁচিয়ে ওঠে তাদের জন্যও বেশ কাজে আসবে জিরাপানি।

 

জ্বালাপোড়া কমায়

জিরাপানিতে পাওয়া যাবে থাইমোকুইনান। যা আমাদের লিভারের জন্য উপকারী। রাসায়নিকটি এতটাই কাজের যে এটা দিয়ে হজমসংক্রান্ত ওষুধও বানানো হয়। প্রাকৃতিক উৎস তথা জিরাপানির মাধ্যমে সরাসরি এটা গ্রহণ করলে কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও হয় না।

 

অ্যান্টি-ক্যান্সার

অনেকেই বলেন রেড-মিট ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায়। তো এখন যেহেতু রেড-মিট একটু আধটু খাওয়াই হচ্ছে, তাই ঝুঁকি কমাতে নিয়ম করে জিরাপানিও খান। জিরাপানি শরীরে ক্যান্সার সৃষ্টিকারী মুক্ত র‌্যাডিকেল ধ্বংস করে। এটি আবার যকৃতের স্বাভাবিক দূষণরোধের ক্ষমতাও বাড়ায়। হজম সংক্রান্ত এনজাইমের নিঃসরণ বাড়ায় জিরাপানি। এতে খাবারের পুষ্টিগুণ শরীরের পুরোপুরি কাজে আসে।

 

ওজন কমায়

কোরবানির ঈদ এলেই ওজন বেড়ে যায়? সমাধান আছে জিরাপানিতে। এক গবেষণায় দেখা গেছে ৭৮ জন মুটিয়ে যাওয়া মানুষকে রোজ ৩ বেলা করে মোট ২ মাস জিরাপানি পান করতে দেওয়া হয়েছিল। তাদের শরীরের অতিরিক্ত চর্বি কমে যাওয়াটা ছিল লক্ষ্যণীয়।

 

ইনসুলিনের ক্ষমতায় বাড়ায়

যাদের ডায়াবেটিস আছে তাদের অনেকেই ঈদের সময় এটা ওটা খেয়ে বাড়িয়ে ফেলেন সুগার। এতে ইনসুলিন তৈরিতে চাপ পড়ে অগ্ন্যাশয়ে। জিরাপানি এক্ষেত্রে ইনসুলিনের কর্মদক্ষতা বাড়িয়ে সুগার নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

 

পানিশূন্যতা দূর করবে

ভ্যাপসা গরমে শরীরে পানির চাহিদা একটু বাড়তি থাকে। আবার শরীর ঘামায়ও বেশি। এ অবস্থায় জিরাপানির সঙ্গে সামান্য মধু ও এক চিমটি লবণ মিশিয়ে খেলে শরীর চাঙ্গা থাকবে। ভারসাম্য বজায় থাকবে ইলেকট্রোলাইটেও। ব্যায়াম করার আগেই পান করুন জিরাপানি। এতে গরমে মাথাঘোরা ভাবও কমবে।

 

রক্তচাপ কমায়

ভারী ভারী খাবার ও বেশি আমিষ গ্রহণে বেড়ে যেতে পারে রক্তচাপ। এ অবস্থায় জিরাপানিতে থাকা পটাশিয়াম ও ম্যাগনেশিয়াম করবে বেশ উপকার। হৃৎস্পন্দন রাখবে স্বাভাবিক।

 

খেয়াল রাখুন: জিরাপানি সুগারের মাত্রা কমিয়ে দিতে পারে দ্রুত। তাই গর্ভাবস্থায় বা ডায়াবেটিক রোগীরা এটি একবারে বেশি করে পান করতে যাবেন না।

 

যেভাবে বানাবেন জিরাপানি

  • জিরা আর পানিতেই হয়ে যায় জি রাপানি। তবে মুখরোচক পানীয় আকারে তৈরিতে এতে যোগ করা হয় বাড়তি কিছু উ্পাদান। এর মধ্যে অন্যতম হলো তেঁতুল।
  • ৪ গ্লাস জিরাপানি তৈরিতে দরকার হবে দেড় টেবিল চমচ তেঁতুল ও  পরিমাণমতো আখের গুড় কিংবা চিনি। তবে ডায়াবেটিক হলে চিনি এড়িয়ে চলাই ভালো। পরিমাণমতো লবণও যোগ করতে পারেন।
  • ৪ কাপ পানিতে টেলে নেওয়া জিরার গুঁড়ো দিতে হবে ১ চা চামচ। বিট লবণ দিন আধা চা চামচ। এক চিমটি সাদা গোলমরিচের গুঁড়া মেশান।
  • আখের গুড় পানিতে মিশিয়ে সেটা ছেঁকে নিলে ভালো। এরপর সব ভালোভাবে মিশিয়ে পান করুন। চাইলে বরফকুচিও মেশাতে পারেন। তবে স্বাভাবিক তাপমাত্রায় পান করলেই উপকার বেশি।
/এফএ/

সম্পর্কিত

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

রেসিপি : হয়ে যাক বিফ চিজ বার্গার

রেসিপি : হয়ে যাক বিফ চিজ বার্গার

সর্বশেষ

নিখোঁজের দুই দিন পর পর্যটকের লাশ উদ্ধার

নিখোঁজের দুই দিন পর পর্যটকের লাশ উদ্ধার

‘পিলারের সঙ্গে ফেরির ধাক্কা অস্বাভাবিক কিছু নয়’

‘পিলারের সঙ্গে ফেরির ধাক্কা অস্বাভাবিক কিছু নয়’

৫ দিনে করোনায় ৯২১ জনের মৃত্যু

৫ দিনে করোনায় ৯২১ জনের মৃত্যু

চীনকে মাথায় রেখে ভারত আসছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

চীনকে মাথায় রেখে ভারত আসছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

পদ্মা সেতু এড়িয়ে ফেরি চলার কোনও সুযোগ নেই

পদ্মা সেতু এড়িয়ে ফেরি চলার কোনও সুযোগ নেই

কারখানা খোলা রাখায় এ-ওয়ান পলিমারকে জরিমানা

কারখানা খোলা রাখায় এ-ওয়ান পলিমারকে জরিমানা

আইসিইউ ফাঁকা আছে মাত্র ৩৮টি

করোনাভাইরাসআইসিইউ ফাঁকা আছে মাত্র ৩৮টি

বাংলাদেশের চামড়াজাত ও সিরামিক পণ্যে আগ্রহ দক্ষিণ কোরিয়ার ব্যবসায়ীদের

বাংলাদেশের চামড়াজাত ও সিরামিক পণ্যে আগ্রহ দক্ষিণ কোরিয়ার ব্যবসায়ীদের

শীতে করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট আসবে! আশঙ্কা ফরাসি বিশেষজ্ঞের

শীতে করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট আসবে! আশঙ্কা ফরাসি বিশেষজ্ঞের

কিশোরীকে পতিতালয়ে বিক্রির হুমকি, আটক ১

কিশোরীকে পতিতালয়ে বিক্রির হুমকি, আটক ১

‘২১ কোটি ভ্যাকসিনের ব্যবস্থা করা হয়েছে’

‘২১ কোটি ভ্যাকসিনের ব্যবস্থা করা হয়েছে’

নমুনা পরীক্ষার সঙ্গে কমেছে শনাক্তও

নমুনা পরীক্ষার সঙ্গে কমেছে শনাক্তও

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

রেসিপি : হয়ে যাক বিফ চিজ বার্গার

রেসিপি : হয়ে যাক বিফ চিজ বার্গার

জিরাপানি কেন খাবেন, বানাবেন কী করে?

জিরাপানি কেন খাবেন, বানাবেন কী করে?

নবাবি স্বাদের গলৌটি কাবাব

নবাবি স্বাদের গলৌটি কাবাব

পাঁচ ত্বকের পাঁচ প্যাক

পাঁচ ত্বকের পাঁচ প্যাক

গরুর মাংসের আছে অনেক উপকার

গরুর মাংসের আছে অনেক উপকার

ঈদের রেসিপি : বিফ ব্রকোলি স্টার ফ্রাই

ঈদের রেসিপি : বিফ ব্রকোলি স্টার ফ্রাই

ঈদের রেসিপি : কুড়মুড়ে গাজর ফ্রাই

ঈদের রেসিপি : কুড়মুড়ে গাজর ফ্রাই

© 2021 Bangla Tribune