সেকশনস

দেশে কার্বণ নিঃসরণ কমবে যেভাবে

আপডেট : ০৯ জানুয়ারি ২০২১, ২৩:০৪

কার্বণ নিঃসরণ রোধে সরকারি ও বেসরকারি খাতকে যৌথভাবে কাজ করতে হবে। সরকারের একার পক্ষে কার্বন নির্গমন রোধ করা সম্ভব না। তাই এতে বেসরকারি খাততে যুক্ত করতে হবে। এছাড়া কার্বণ নিঃসরণ কমাতে হলে পরিবেশবান্ধব যন্ত্রাংশের ব্যবহার বাড়ানো, নবায়নযোগ্য জ্বালানিতে জোর দেওয়া এবং সবশেষে সাশ্রয়ী জ্বালানিতে যাওয়ার কোনও বিকল্প নেই। শনিবার (৯ জানুয়ারি) এনার্জি অ্যান্ড পাওয়ার ম্যাগাজিন আয়োজিত ‘বাংলাদেশের এনার্জি খাতের লো কার্বন ইমিশন’ শীর্ষক ভার্চুয়াল সেমিনারে বক্তারা এমন অভিমত দিয়েছেন।

বিদ্যুৎ বিভাগের সাবেক সচিব ড. সুলতান আহমেদ বলেন, আমাদের কার্বন নিঃসরণ এখনও অনেক কম।   নবায়নযোগ্য জ্বালানি খাতে আমাদের ২০৩০ সাল পর্যন্ত যে লক্ষ্য রয়েছে তাতে এটি আরও কমবে বলে আশা করছি। বিদ্যুতের মহাপরিকল্পনা যদি বাস্তবায়ন করতে পারি এবং যদি সবাই সাশ্রয়ী হই তাহলে কার্বন নিঃসরণ সীমার মধ্যেই থাকবে।

তিনি বলেন, আমরা বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন কর‍তে যাচ্ছি। এতে সলিড ওয়েস্ট থেকে মিথেন ইমিশন কমে যাবে। এই কেন্দ্রে প্রায় ছয় হাজার মেট্রিক টন বর্জ্য ব্যবহৃত হবে, এখানেও গ্রিন হাউস গ্যাস ইমিশন কমবে। আবাসিকে ৩৬ শতাংশ বিদ্যুৎ ব্যবহার হয়। এক্ষেত্রে আমাদের আবাসিক ভবনগুলো আরও পরিবেশবান্ধব করতে হবে।

তিনি বলেন, কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র যেমন রামপাল, পায়রার ক্ষেত্রে এর কয়লা পরিবহনের বিষয়টি নিবিড়ভাবে মনিটরিং করতে হবে। এক্ষেত্রে কর্মতৎপর হতে হবে পরিবেশ অধিদফতরকেও।

বিদ্যুৎ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) নুরুল আলম বলেন, আমাদের রামপাল ও পায়রা কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র দুটিতেই মনিটরিং সিস্টেম ভালো। আমাদের প্রতি বছর এই বিষয়টি পর্যালোচনা করার পরিকল্পনা রয়েছে। এ ধরনের বিদ্যুৎকেন্দ্রে এখন অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, জ্বালানিতে খরচ কমাতে হলে ফসিল ফুয়েলে যেতেই হবে। বিশেষ করে কয়লায় যেতেই হবে। মহাপরিকল্পনায় ২০৩০ সালের মধ্যে ৩৫ শতাংশ কয়লাভিত্তিক বিদ্যুতের কথা বলা হয়েছে। রিভিউ করার সময় ২৫  ভাগে নামিয়ে আনার চিন্তা করা হচ্ছে।  দূষণ কমাতে বৈদ্যুতিক গাড়ির ব্যবহার বাড়ানোর চিন্তা করা হচ্ছে।

বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান প্রকৌশলী খালেদ মাহমুদ বলেন, রামপালে চিমনীর উচ্চতা হচ্ছে ২৭৫ মিটার। রামপালকে মডেল প্লান্ট করার ইচ্ছা আছে। স্টিম টারবাইনকে রিপাওয়ারিং করা হচ্ছে। পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে কার্বণ নিঃসরণ এমনিতে কম।  নতুন নতুন টেকনোলজি আসছে।  আমরা সেগুলো নিয়ে কাজ করতে যাচ্ছি। এসিএমএল’র সিনিয়র উপদেষ্টা সিদ্দিক জুবায়ের বলেন, ৪৮ শতাংশ এনার্জি ব্যবহৃত হয় শিল্পখাতে। এনার্জি অডিটিং, বৃহৎ এনার্জি ব্যবহারকারী চিহ্নিত করে তাদের সাশ্রয়ী করা যেতে পারে। আমরা এটি সঠিকভাবে করতে পারিনি। এখন পর্যন্ত ক্যাম্পেইনের মধ্যে আটকে আছি। গ্যাস সেক্টরে সাশ্রয়ী হওয়ার অনেক সুযোগ রয়েছে। তাহলে কার্বন ইমিশন কমানোর সুযোগ ছিল। গ্যাসের লিকেজ অ্যান্ড সিপেজের ক্ষেত্রে যদি আধুনিকায়ন করতে পারতাম তাহলে অনেক সাশ্রয় হতো।

তিনি বলেন, ফার্নেস ওয়েলে অনেক দুষণ হয়। যদি এগুলো বসিয়ে দেওয়া যায়, কয়লায় যেমন উন্নত প্রযুক্তি তেমনি  এগুলোকে এলএনজি দিয়ে রিপ্লেস করার চিন্তা করতে পারে সরকার। 

পরিবেশ অধিদফতরের পরিচালক জিয়াউল হক বলেন,  প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করছেন উন্নয়নশীল দেশের পার ক্যাপিটা কার্বন ইমিশন দুই টনের লিমিট ক্রস করবো না। নতুন যে পাওয়ার প্লান্টগুলো আসবে সেখানে এসআরও জারি করা হয়েছে। ২২০ মিটার চিমনি করতে বলা হয়েছে। তাহলে গ্রাউন্ড লেভেল পলিউশন কমে যাবে। দুই মাস পরপর রিপোর্ট আমাদের কাছে পাঠাবে। তাহলে আমরা ঢাকায় বসে জানতে পারবো কোথায় কী অবস্থা। অনেকে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে দুষণের শঙ্কা প্রকাশ করেছেন, এগুলো করলে দুষণ কমাতে পারবো।

ম্যাগাজিনের সম্পাদক মোল্লাহ আমজাদ হোসেনের সঞ্চালনায় ওয়েবিনারে অন্যদের মধ্যে সাবেক অতিরিক্ত সচিব এসএম মঞ্জুরুল হান্নান খান, মাইনিং ইঞ্জিনিয়ার মশফিকুর রহমান, এনার্জি অ্যান্ড পাওয়ারের কন্ট্রিবিউটিং এডিটর জ্বালানি বিশেষজ্ঞ খন্দকার সালেক সুফী বক্তব্য রাখেন।

 

/এসএনএস/এফএস/

সম্পর্কিত

জুলাইয়ের মধ্যে ৪ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন আসবে, পাবেন বিদেশিরাও

জুলাইয়ের মধ্যে ৪ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন আসবে, পাবেন বিদেশিরাও

ভ্যাকসিন নিয়ে ১৫ দিন পর পর বৈঠক  

ভ্যাকসিন নিয়ে ১৫ দিন পর পর বৈঠক  

খালেদা জিয়ার দণ্ড মওকুফ ও জামিনের শর্ত শিথিলের আবেদন

খালেদা জিয়ার দণ্ড মওকুফ ও জামিনের শর্ত শিথিলের আবেদন

খালেদা জিয়ার দণ্ড মওকুফ ও জামিনের শর্ত শিথিলের আবেদন

খালেদা জিয়ার দণ্ড মওকুফ ও জামিনের শর্ত শিথিলের আবেদন

পুলিশের কাছ থেকে তদন্তভার যে কারণে ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে

শিক্ষানবিশ আইনজীবীর মৃত্যুপুলিশের কাছ থেকে তদন্তভার যে কারণে ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে

দুদকে নতুন চেয়ারম্যান

দুদকে নতুন চেয়ারম্যান

স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিন দেওয়া হবে

স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিন দেওয়া হবে

এইচ টি ইমামের শারীরিক অবস্থার অবনতি হচ্ছে

এইচ টি ইমামের শারীরিক অবস্থার অবনতি হচ্ছে

সর্বশেষ

দারুল ইহসানের সনদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়নি শিক্ষা মন্ত্রণালয়

দারুল ইহসানের সনদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়নি শিক্ষা মন্ত্রণালয়

ভাসানচরে পৌঁছেছে ২ হাজার ২৫৭ জন রোহিঙ্গা

ভাসানচরে পৌঁছেছে ২ হাজার ২৫৭ জন রোহিঙ্গা

বিএনপির নেতিবাচক রাজনীতিতে উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে: ওবায়দুল কাদের

বিএনপির নেতিবাচক রাজনীতিতে উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে: ওবায়দুল কাদের

মামুনুল-বাবুনগরীর বিরুদ্ধে মামলা: তদন্ত প্রতিবেদন ১ এপ্রিল

মামুনুল-বাবুনগরীর বিরুদ্ধে মামলা: তদন্ত প্রতিবেদন ১ এপ্রিল

বিষপানে দুই বোনের মৃত্যু

বিষপানে দুই বোনের মৃত্যু

জুলাইয়ের মধ্যে ৪ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন আসবে, পাবেন বিদেশিরাও

জুলাইয়ের মধ্যে ৪ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন আসবে, পাবেন বিদেশিরাও

২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত বেড়েছে, কমেছে মৃত্যু

২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত বেড়েছে, কমেছে মৃত্যু

ভ্যাকসিন নিয়ে ১৫ দিন পর পর বৈঠক  

ভ্যাকসিন নিয়ে ১৫ দিন পর পর বৈঠক  

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ফেব্রুয়ারিতেও রেমিট্যান্সে রেকর্ড

ফেব্রুয়ারিতেও রেমিট্যান্সে রেকর্ড

২০ বছরে ৩০ হাজার মেগাওয়াট সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদনের পরিকল্পনা

২০ বছরে ৩০ হাজার মেগাওয়াট সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদনের পরিকল্পনা

চালের দাম আরও বেড়েছে

চালের দাম আরও বেড়েছে

সংকট সামলাতে এলএনজি সরবরাহ বাড়ছে

সংকট সামলাতে এলএনজি সরবরাহ বাড়ছে


[email protected]
© 2021 Bangla Tribune
Bangla Tribune is one of the most revered online newspapers in Bangladesh, due to its reputation of neutral coverage and incisive analysis.