X
সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ২ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

সূর্যমুখীর আবাদে কৃষকের মুখে হাসি

আপডেট : ২০ মার্চ ২০২১, ০৯:২৯

নেত্রকোনায় বাণিজ্যিকভাবে সূর্যমুখী ফুলের চাষ ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। নেত্রকোনার বারহাট্টা উপজেলার চরসিংধা গ্রামে সৌখিন কৃষক শাহ মোরশেদ মাহবুব ৮০ শতাংশ জমিতে সূর্যমুখীর চাষ করে ব্যাপক সাড়া ফেলেছেন এলাকায়। তার দেখাদেখি এখন অনেকেই উদ্বুদ্ধ হচ্ছেন এই ফুল চাষে।

শাহ মোরশেদ জানান, সূর্যমুখী আবাদে তার এক লাখ টাকা খরচ হয়েছে।  সূর্যমুখীর বীজ বিক্রি করে কমপক্ষে আড়াই লাখ টাকা আয় হবে বলে আশা করছেন। তার বাগানে কাজ করে এলাকার অনেকের কর্মসংস্থান হচ্ছে। সকাল  থেকে  সন্ধ্যা পর্যন্ত দর্শনার্থীরা তার ক্ষেতে ভিড় করনে। কেউ ঘুরে বেড়াচ্ছেন, কেউ ছবি তুলছেন।

সূর্যমুখী ফুল

বারহাট্টা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোহাইমিনুর রশিদ জানান, এ অঞ্চলের মাটি ও আবহাওয়া সূর্যমুখী চাষে উপযোগী। এজন্য দিন দিন বাড়ছে  সূর্যমুখীর আবাদ। এতে কৃষি পর্যটনের সুযোগও তৈরি হচ্ছে। এছাড়া সূর্যমুখীর বীজ খুব সহজেই সরিষার ঘানি থেকে ভেঙে তেল উৎপাদন করা যায়। কৃষক যাতে এর সঠিক মূল্য পায় আর সহজে বাজারজাত করতে পারে এজন্য কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে সার্বিক সহযোগিতা করা হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা গোলাম মোর্শেদ জানান, কৃষি বহুমুখী করণে বর্তমান সরকার অনেক কাজ করছে। বিশেষ করে কৃষকদের  বিভিন্ন ফসলের প্রণোদনা দিচ্ছে। এই এলাকায় সূর্যমুখীর আবাদ বাড়ছে। এতে একদিকে কৃষক লাভবান হবেন। অন্যদিকে কৃষি বহুমুখী করণে কৃষিতে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়ায় সরকারের যে উদ্দেশ্য তাও বাস্তবায়ন হবে দ্রুত।

 

/এসটি/

সম্পর্কিত

নির্মাণের ১৫ দিনে হেলে পড়া সেতুটি ৪ বছরেও ‌‘সোজা’ হয়নি

নির্মাণের ১৫ দিনে হেলে পড়া সেতুটি ৪ বছরেও ‌‘সোজা’ হয়নি

শূন্য শনাক্তের দিনে ময়মনসিংহ মেডিক্যালে ৩ মৃত্যু

শূন্য শনাক্তের দিনে ময়মনসিংহ মেডিক্যালে ৩ মৃত্যু

ট্রাকের পেছনে বাসের ধাক্কা, নিহত বেড়ে ৭

ট্রাকের পেছনে বাসের ধাক্কা, নিহত বেড়ে ৭

পরিবারের ৪ জনকে হারিয়ে সড়কে বসেই বিলাপ

পরিবারের ৪ জনকে হারিয়ে সড়কে বসেই বিলাপ

হত্যা মামলায় যুবলীগ নেতা ফোয়াদের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি 

আপডেট : ১৮ অক্টোবর ২০২১, ১০:১১

বাস শ্রমিক হত্যা মামলায় ফরিদপুর জেলা যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক এ এইচ এম ফোয়াদ আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। রবিবার (১৭ অক্টোবর) সন্ধ্যায় ফরিদপুরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ফারুক হোসেন এ জবানবন্দি নথিভুক্ত করেন। জবানবন্দি গ্রহণ শেষে আদালতের নির্দেশে ফোয়াদকে জেল হাজতে পাঠানো হয়। 

দুই দফায় চারদিন পুলিশি রিমান্ড শেষে রবিবার বিকালে ফোয়াদকে আদালতে উপস্থিত করা হয়।  

মানি লন্ডারিং, ছোটন বিশ্বাস হত্যা মামলাসহ আট মামলার আসামি ফোয়াদকে গত ১২ অক্টোবর ঢাকার বসুন্ধরা এলাকার ‘সি’ ব্লকের ৮ নম্বর সড়কে অবস্থিত ১৮৩ নম্বর বাসার সামনে থেকে আটক করে ফরিদপুরের গোয়েন্দা পুলিশ। পরে তাকে ২০১৬ সালের ১২ জুলাই সংঘটিত ফরিদপুর শহরের রাজবাড়ী রাস্তার মোড় এলাকায় ছোটন বিশ্বাস হত্যা মামলার আসামি হিসেবে গ্রেফতার দেখানো হয়।  পর পর দুই দফায় মোট চারদিন পুলিশি রিমান্ড শেষে তাকে এক নম্বর আমলি আদালতের বিচারক মো. ফারুক হোসেনের আদালতে উপস্থিত করা হয়।

তদন্ত কর্মকর্তা ফরিদপুর কোতোয়ালি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আব্দুল গফফার বলেন, স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি গ্রহণ শেষে রাতে আদালতের নির্দেশে এ এইচ এম ফোয়াদকে জেল হাজতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

এছাড়া ফরিদপুরের আলোচিত দুই ভাই শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন বরকত ও ফরিদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি (পরে বহিস্কৃত) ইমতিয়াজ হাসান রুবেলের বিরুদ্ধে ঢাকার সিআইডির দায়ের করা দুই হাজার কোটি টাকা মানি লন্ডারিং মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি ফোয়াদ। 

২০১৮ সালের ২১ মার্চ এ এইচ এম ফোয়াদ ফরিদপুর জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক হন। এর আগে এক যুগ তিনি জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ছিলেন। গত বছরের ২৩ আগস্ট জেলা যুবলীগের ওই আহ্বায়ক কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়। ছাত্র অবস্থায় তিনি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন।
 

/টিটি/

সম্পর্কিত

পাবজি খেলা নিয়ে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত কিশোর সংশোধনাগারে

পাবজি খেলা নিয়ে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত কিশোর সংশোধনাগারে

প্রেমিকার আপত্তিকর ছবি-ভিডিও ছড়িয়ে যুবক গ্রেফতার 

প্রেমিকার আপত্তিকর ছবি-ভিডিও ছড়িয়ে যুবক গ্রেফতার 

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক থেকে প্রবাসীর লাশ উদ্ধার

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক থেকে প্রবাসীর লাশ উদ্ধার

১১ বছর আইনি লড়াইয়ের পর চাকরি ফিরে পেলেন অধ্যক্ষ  

১১ বছর আইনি লড়াইয়ের পর চাকরি ফিরে পেলেন অধ্যক্ষ  

পাবজি খেলা নিয়ে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত কিশোর সংশোধনাগারে

আপডেট : ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৫৩

অনলাইন প্লাটফর্মে পাবজি খেলার বিরোধের জেরে সিংগাইর উপজেলায় এক কিশোরকে হত্যার ঘটনায় ঢাকার জেলার নবাবগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা হয়েছে। এ ছাড়া লাইসেন্সকৃত (নবায়ন) অস্ত্র দিয়ে ভয়ভীতি দেখানোর অভিযোগে সিংগাইর থানায় অস্ত্র আইনে আরেকটি মামলা হয়েছে।

হত্যা মামলায় অভিযুক্ত কিশোরকে এবং অস্ত্র আইনে কিশোরের মা ও ভগ্নিপতিকে আসামি করা হয়েছে। পৃথক দুই মামলায় গ্রেফতার কিশোর গাজীপুর কিশোর সংশোধনাগারে এবং মা ও ভগ্নিপতিকে মানিকগঞ্জ জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে জানা গেছে, পাবজি খেলা নিয়ে সিংগাইর উপজেলায় দুই কিশোরের মধ্যে বিরোধের সৃষ্টি হয়। এরই জের ধরে গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কৌশলে রাজুকে সাইকেলে করে গ্রামের পাশে ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলার শোল্লা ইউনিয়নের রুপারচর এলাকায় নিয়ে যায় অভিযুক্ত কিশোর। সেখানে কালীগঙ্গা নদীর তীরে কাশবনে রাজুকে ইট দিয়ে মাথায় আঘাত করা হয়। আহত রাজু শনিবার সকালে ঢাকার সাভারে এনাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।
 
এ ঘটনায় শনিবার দুপুরে নিহতের স্বজন ও এলাকাবাসী অভিযুক্ত কিশোরের বাড়ি ঘেরাও করে তাকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। এ সময় অভিযুক্ত কিশোরের ভগ্নিপতি লাইসেন্স করা একটি শর্টগান দিয়ে স্থানীয় লোকজনকে ভয়ভীতি দেখান। এতে স্থানীয় লোকজন আরও উত্তেজিত হয়ে ওঠেন। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে গেলে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে স্থানীয়রা। এতে তিন জন পুলিশ সদস্য আহত হন। পরে পুলিশ কিশোর অভিযুক্ত কিশোর, তার মা ও ভগ্নিপতিকে শর্টগানসহ আটক করে থানায় নিয়ে যায়। 

এ ঘটনায় রবিবার (১৭ অক্টোবর) অভিযুক্ত কিশোরের ভগ্নিপতি ও মায়ের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে পুলিশ বাদী হয়ে সিংগাইর থানায় মামলা করে।
 
সিংগাইর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সফিকুল ইসলাম মোল্লা বলেন, রবিবার বিকালে দুই আসামিকে মানিকগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারকের নির্দেশে তাদের জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে নবাবগঞ্জ থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম বলেন, রবিবার দুপুরে নিহত কিশোর রাজুর বাবা মোসলেম উদ্দিন বাদী হয়ে হত্যা মামলা করেছেন। সন্ধ্যায় অভিযুক্ত কিশোরকে গাজীপুরে কিশোর সংশোধনাগারে পাঠানো হয়েছে।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক থেকে প্রবাসীর লাশ উদ্ধার

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক থেকে প্রবাসীর লাশ উদ্ধার

১১ বছর আইনি লড়াইয়ের পর চাকরি ফিরে পেলেন অধ্যক্ষ  

১১ বছর আইনি লড়াইয়ের পর চাকরি ফিরে পেলেন অধ্যক্ষ  

জেলের জালে ২৫ কেজির বাঘাইড়, ২৫ হাজার বিক্রি

জেলের জালে ২৫ কেজির বাঘাইড়, ২৫ হাজার বিক্রি

দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকে মোটরসাইকেলের ধাক্কা, নিহত ২

দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকে মোটরসাইকেলের ধাক্কা, নিহত ২

প্রেমিকার আপত্তিকর ছবি-ভিডিও ছড়িয়ে যুবক গ্রেফতার 

আপডেট : ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৫১

প্রেমিকার আপত্তিকর ছবি ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে মো. মাঈন উদ্দিন হিরন চৌধুরী (৪০) নামে এক ব্যক্তিকে আটক করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) সদস্যরা। চট্টগ্রামের চকবাজার থানার দামপাড়া এলাকা থেকে তাকে আটকের কথা জানিয়েছেন র‍্যাব-৭ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মো. নূরুল আবছার।

তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ভিকটিমের অভিযোগের ভিত্তিতে নগরীর দামপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে মাঈন উদ্দিনকে আটক করা হয়। শনিবার গ্রেফতারের পর তার কাছ থেকে একটি মোবাইল ও কথা রেকর্ড করে রাখা সিডি উদ্ধার করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, প্রায় এক বছর আগে মাঈন উদ্দিন হিরনের সঙ্গে ভিকটিমের পরিচয় হয়। এরপর দুই জনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সম্পর্কের এক পর্যায়ে মাঈন ভিকটিমকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। ওই সময়ের একটি দৃশ্য মাঈন তার মোবাইলে ধারণ করে। পরে ওই ছবি এবং ভিডিও দিয়ে মাঈন ভিকটিমকে বিভিন্নভাবে ব্ল্যাকমেইল করার চেষ্টা করেন। একপর্যায়ে অভিযুক্ত মাঈন সে সব ছবি ও ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ছড়িয়ে দেন। 

র‌্যাব কর্মকর্তা আরও জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মাঈন ঘটনা স্বীকার করেছেন। তাকে চট্টগ্রাম নগরীর চকবাজার থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

 

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

পাহাড়ে রাস্তা ছাড়াই সেতু, ঘষে তুলে ফেলেছে নির্মাণ ব্যয়

পাহাড়ে রাস্তা ছাড়াই সেতু, ঘষে তুলে ফেলেছে নির্মাণ ব্যয়

রাঙামাটির ১১ ইউপিতে ৩৯৭ জনের মনোনয়ন দাখিল

রাঙামাটির ১১ ইউপিতে ৩৯৭ জনের মনোনয়ন দাখিল

সেন্ট মার্টিনে আটকে পড়েছেন তিনশ’ পর্যটক

সেন্ট মার্টিনে আটকে পড়েছেন তিনশ’ পর্যটক

চিৎমরমে চেয়ারম্যান প্রার্থী হত্যা: ইউপি নির্বাচন পিছিয়ে তৃতীয় ধাপে

চিৎমরমে চেয়ারম্যান প্রার্থী হত্যা: ইউপি নির্বাচন পিছিয়ে তৃতীয় ধাপে

সিরাজগঞ্জের মহাসড়কে মা-ছেলেসহ ৩ জন নিহত

আপডেট : ১৭ অক্টোবর ২০২১, ২২:৫৯

সিরাজগঞ্জের মহাসড়কে ট্রাকচাপায় মা-ছেলে এবং বাস-ট্রাক্টরের মুখোমুখি সংঘর্ষে একজনের মৃত্যু হয়েছে। এ দুটি দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন কমপক্ষে আরও আট জন। রবিবার (১৭ অক্টোবর) রাতে দিকে ঢাকা-উত্তরবঙ্গ মহাসড়কের নলকা মোড় এলাকায় এবং ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কের খালকুলা ৫নং সেতু এলাকায় দুর্ঘটনা দুটি ঘটে।

ট্রাকচাপায় নিহত দুজন হলেন সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকার মাসিমপুর মহল্লার নাসির উদ্দিনের স্ত্রী মনোয়ারা বেগম (৪৫) এবং তার ছেলে নয়ন (২২)।  অপর দুর্ঘটনায় নিহত ব্যক্তির পরিচয় পাওয়া যায়নি।

বঙ্গবন্ধু পশ্চিম থানার কর্তব্যরত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আব্দুল মজিদ জানান, রবিবার রাত পৌনে ৮টার দিকে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম সংযোগ মহাসড়কের কামারখন্দ উপজেলার নলকা সেতু এলাকায় ব্যাটারিচালিত একটি অটোভ্যান রাস্তা পার হওয়ার সময় বিকল হয়ে পড়ে। এ সময় দ্রুতগামী একটি ট্রাক অটোভ্যানটিকে চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই মনোয়ারা বেগম (৪৫) ও তার ছেলে নয়ন (২২) নিহত হন। আহত হয় মেয়ে ইসরাত জাহান। খবর পেয়ে পুলিশ হতাহতদের উদ্ধার করে সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে পাঠায়।

হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আব্দুল্লাহেল বাকী জানান, ঢাকা থেকে রাজশাহীগামী দেশ ট্রাভেলসের একটি বাসের সঙ্গে রাস্তা মেরামতের কাজে ব্যবহৃত একটি ট্রাক্টরের মহাসড়কের খালকুলা ৫নং সেতু এলাকায় মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এ সময় ট্রাক্টরে থাকা এক ব্যক্তি ঘটনাস্থলেই মারা যান। এবং বাসের কমপক্ষে সাত যাত্রী আহত হন। আহতদের স্থানীয়রা উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠিয়েছেন। নিহত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে থানায় নেওয়া হয়েছে।

 

/এমএএ/

সম্পর্কিত

মাধবপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত ৪

মাধবপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত ৪

মনোনয়ন ফরম তোলার আগে জানলেন তারা ‌মারা গেছেন

মনোনয়ন ফরম তোলার আগে জানলেন তারা ‌মারা গেছেন

গরুকে ধাক্কা দেওয়ার জেরে দু’পক্ষের সংঘর্ষ, নিহত ১

গরুকে ধাক্কা দেওয়ার জেরে দু’পক্ষের সংঘর্ষ, নিহত ১

প্রকল্প ছাড়াই টাকা উত্তোলন

১৮ লাখ টাকা ফেরত দিয়ে ‘ক্ষমা’ চাইলেন চেয়ারম্যান

আপডেট : ১৭ অক্টোবর ২০২১, ২২:৫৭

প্রকল্প গ্রহণ না করেই গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরে ভূমি হস্তান্তর কর বরাদ্দের উত্তোলনকৃত সাড়ে ১৮ লাখ টাকা ফেরত দিয়েছেন ৩ নম্বর দামোদরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এজেডএম সাজেদুল ইসলাম স্বাধীন। 

শোকজ নোটিশের পর উন্নয়ন প্রকল্পে ইউনিয়ন পরিষদের ব্যাংক হিসাব নম্বরে এই টাকা জমা করা হয়। এ ছাড়া আয়কর বাবদ দুই লাখ ৪৯ হাজার টাকাও জমা করা হয়। একই সঙ্গে চেয়ারম্যান স্বাধীন তার শোকেজের জবাবে ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চেয়েছেন। 

রবিবার বিকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সাদুল্লাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রোকসানা বেগম। তিনি বলেন, শোকজের লিখিত জবাব বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) আমার দফতরে জমা দেওয়া হয়। শোকজ জবাব গাইবান্ধা স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক রোখছানা বেগমের দফতরে পাঠিয়েছি। এ ছাড়া উত্তোলন করা সাড়ে ১৮ লাখ টাকা ও আয়করের আড়াই লাখ টাকা জমা দিয়েছেন চেয়ারম্যান।

শোকজের নোটিশ পাওয়ার পর গত ৩ অক্টোবর ভ্যাট-আয়কর বাবদ দুই লাখ ৪৯ হাজার ৯২৩ টাকা জমা ও ৬ অক্টোবর সাদুল্লাপুর উপজেলা প্রশাসনের ভূমি হস্তান্তর বরাদ্দের তুলে নেওয়া সাড়ে ১৮ লাখ টাকা পরিষদের ব্যাংক হিসাবে জমা করা হয়। এসব তথ্য নিশ্চিত করে পরিষদের সচিব মো. নুরজামান মিয়া বলেন, ‘সোনালী ব্যাংক সাদুল্লাপুর শাখার হিসাব নম্বরে এসব টাকা জমার রশিদ এবং ট্রেজারি চালানের কপি ইউএনওসহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হয়েছে। লিখিত জবাবে চেয়ারম্যান অভিযোগের ঘটনায় ক্ষমা চেয়েছেন। 

সচিব আরও বলেন, ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় টিউবওয়েল, স্প্রে মেশিন বিতরণ ও কালভার্টসহ উন্নয়ন প্রকল্পের চলমান কাজগুলোও হচ্ছে ভূমি হস্তান্তর কর বরাদ্দের টাকায়। এ কারণে জমা দেওয়ার ওই টাকা আবারও তুলে প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।
 
গাইবান্ধা স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক রোখছানা বেগম বলেন, চেয়ারম্যান স্বাধীনের লিখিত জবাব ইউএনও’র মাধ্যমে আমার কাছে পাঠানো হয়েছে। তার জবাব পর্যালোচনাসহ সরেজমিনে অভিযোগগুলো তদন্ত করেই পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

প্রকল্প ছাড়াই টাকা তুলে নেওয়ার খবর প্রকাশের পর জেলায় আলোড়ন সৃষ্টি হয়। তাৎক্ষণিক ফেসবুক লাইভে এসে অভিযুক্ত চেয়ারম্যান স্বাধীন নিজের দোষ আড়ালে নির্বাচনি প্রতিপক্ষ প্রার্থীসহ স্থানীয় দুই সংবাদকর্মীকে নিয়ে মিথ্যাচার করেন।

গত ১৪ সেপ্টেম্বর দামোদরপুর ইউনিয়ন পরিষদ পরিদর্শনে নথিপত্র যাচাই ও ব্যাংক হিসাবে প্রকল্প গ্রহণ ছাড়াই সাড়ে ১৮ লাখ টাকা উত্তোলন এবং ২০১৭-১৮ অর্থবছরের আয়কর বাবদ দুই লাখ ৪৯ হাজার টাকা জমা না দেওয়ার ঘটনা ধরা পড়ে। 

এ ঘটনায় চেয়ারম্যানকে ২৯ সেপ্টেম্বর কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠিয়ে এক সপ্তাহের মধ্যে লিখিত জবাব দেওয়ার নির্দেশ দেন স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক রোখছানা বেগম।

/এএম/

সম্পর্কিত

করোনাকালীন প্রণোদনার দাবিতে নার্সদের বিক্ষোভ

করোনাকালীন প্রণোদনার দাবিতে নার্সদের বিক্ষোভ

পঞ্চগড়ে চায়ের অকশন মার্কেট স্থাপনের পরিকল্পনা

পঞ্চগড়ে চায়ের অকশন মার্কেট স্থাপনের পরিকল্পনা

পেঁয়াজের আমদানি শুল্ক প্রত্যাহার আজ থেকেই কার্যকর

পেঁয়াজের আমদানি শুল্ক প্রত্যাহার আজ থেকেই কার্যকর

হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি-রফতানি শুরু

হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি-রফতানি শুরু

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

নির্মাণের ১৫ দিনে হেলে পড়া সেতুটি ৪ বছরেও ‌‘সোজা’ হয়নি

নির্মাণের ১৫ দিনে হেলে পড়া সেতুটি ৪ বছরেও ‌‘সোজা’ হয়নি

শূন্য শনাক্তের দিনে ময়মনসিংহ মেডিক্যালে ৩ মৃত্যু

শূন্য শনাক্তের দিনে ময়মনসিংহ মেডিক্যালে ৩ মৃত্যু

ট্রাকের পেছনে বাসের ধাক্কা, নিহত বেড়ে ৭

ট্রাকের পেছনে বাসের ধাক্কা, নিহত বেড়ে ৭

পরিবারের ৪ জনকে হারিয়ে সড়কে বসেই বিলাপ

ত্রিশালে সড়ক দুর্ঘটনাপরিবারের ৪ জনকে হারিয়ে সড়কে বসেই বিলাপ

দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকে বাসের ধাক্কায় নিহত ৬

দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকে বাসের ধাক্কায় নিহত ৬

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে আরও চার জনের মৃত্যু

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে আরও চার জনের মৃত্যু

হাসপাতালে চিকিৎসক পরিচয়ে রোগীর মোবাইলফোন চুরি

হাসপাতালে চিকিৎসক পরিচয়ে রোগীর মোবাইলফোন চুরি

জিয়া ও এরশাদ সরকার রেলপথ ধ্বংস করেছে: রেলমন্ত্রী

জিয়া ও এরশাদ সরকার রেলপথ ধ্বংস করেছে: রেলমন্ত্রী

যাত্রীবেশে অটোরিকশা চুরি করতো তারা

যাত্রীবেশে অটোরিকশা চুরি করতো তারা

সর্বশেষ

হত্যা মামলায় যুবলীগ নেতা ফোয়াদের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি 

হত্যা মামলায় যুবলীগ নেতা ফোয়াদের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি 

পাবজি খেলা নিয়ে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত কিশোর সংশোধনাগারে

পাবজি খেলা নিয়ে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত কিশোর সংশোধনাগারে

দক্ষিণ কোরিয়া গেলেন সেনাপ্রধান

দক্ষিণ কোরিয়া গেলেন সেনাপ্রধান

সম্পাদকের অনুসারীদের হাতে চবি ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি লাঞ্ছিত

সম্পাদকের অনুসারীদের হাতে চবি ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি লাঞ্ছিত

রাসেলকে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি, জেলখানা ওর আব্বার বাড়ি

রাসেলকে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি, জেলখানা ওর আব্বার বাড়ি

© 2021 Bangla Tribune