X
বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

পদায়নের ৫ দিনেই বিজয়নগর থানার ওসি বদলি

আপডেট : ১৭ জুন ২০২১, ২১:২৭
image

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর থানায় পদায়নের পাঁচ দিনের মাথায় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লোকমান হোসেনকে আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নে (এপিবিএন) বদলি করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৭ জুন) দুপুরে পুলিশ সদরদফতরের এক আদেশে তাকে এপিবিএনে সংযুক্ত করা হয়। এর আগে গত ১২ জুন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার কার্যালয়ের এক আদেশে তাকে বিজয়নগর থানার ওসি হিসেবে পদায়ন করা হয়। তখন তিনি জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) ওসি ছিলেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) মোল্লা মোহাম্মদ শাহীন সাংবাদিকদের জানান, জনস্বার্থে ওসি লোকমানকে ঢাকায় এপিবিএনে সংযুক্ত করা হয়েছে। আর বিজয়নগরে এখন পর্যন্ত নতুন কাউকে পদায়ন করা হয়নি।

জানা গেছে, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গত মার্চ মাসে হেফাজতের তিন দিনের (২৬-২৮ মার্চ) সহিংসতার পর জেলা পুলিশে বেশ রদবদল করা হয়েছে। ইতোমধ্যে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন), সহকারী পুলিশ সুপার (বিশেষ শাখা), ওসি লোকমান ও পুলিশ পরিদর্শক পদমর্যাদার পাঁচ কর্মকর্তাসহ পুলিশের মোট ২৪ সদস্যকে বদলি করা হয়েছে। লোকমান বাদে বাকিদের সিলেট, বরিশাল, রংপুর, চট্টগ্রাম ও রাঙ্গামাটি জেলায় বদলি করা হয়।

উল্লেখ্য, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের বিরোধিতা করে গত ২৬ থেকে ২৮ মার্চ পর্যন্ত তিন দিন ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরসহ বিভিন্ন স্থানে ব্যাপক সহিংসতা চালায় হেফাজতের নেতাকর্মীরা। সহিংসতা চলাকালে তারা সরকারি-বেসরকারি অন্তত অর্ধশত স্থাপনায় ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করে। এসব ঘটনায় মোট ৫৬টি মামলা দায়ের হয়েছে। মামলাগুলোর এজাহারে ৪১৪ জনকে আসামি করা হয়েছে। এছাড়া অজ্ঞাত ৩০ থেকে ৩৫ হাজার জনকে আসামি করা হয়। পুলিশ গত আড়াই মাসে অন্তত পাঁচ শতাধিক আসামিকে গ্রেফতার করে।

/এফআর/

সম্পর্কিত

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

কুমিল্লায় কাভার্ডভ্যান উল্টে দুই শ্রমিকসহ নিহত ৩ 

কুমিল্লায় কাভার্ডভ্যান উল্টে দুই শ্রমিকসহ নিহত ৩ 

লকডাউনে ছেলের বিয়ের আয়োজন, জরিমানা গুনলেন নারী মেম্বার 

লকডাউনে ছেলের বিয়ের আয়োজন, জরিমানা গুনলেন নারী মেম্বার 

বীর মুক্তিযোদ্ধাকে পিটিয়ে হত্যা, তিন ছেলেকে কুপিয়ে জখম

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৫:০০

জমি নিয়ে বিরোধের জেরে বরিশালের উজিরপুরে এক বীর মুক্তিযোদ্ধাকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে প্রতিপক্ষের লোকজনের বিরুদ্ধে। এ সময় বীর মুক্তিযোদ্ধার তিন ছেলেসহ চার জনকে কুপিয়ে আহত করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) সকালে উপজেলার বামরাইল ইউনিয়নের আটিপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত বীর মুক্তিযোদ্ধা দেলোয়ার হোসেন তালুকদার (৮০) আটিপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। আহতরা হলেন তার ছেলে বিপ্লব তালুকদার, সোহাগ তালুকদার ও জুয়েল তালুকদার এবং বিপ্লবের স্ত্রী রোজিনা বেগম। আহতদের বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মুক্তিযোদ্ধার মেয়ে সোনিয়া আক্তার বলেন, ‘প্রতিপক্ষ নুরুল ইসলাম ও তার সহযোগীরা আমার বাবাকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে জখম করে। হাসপাতালে আনার পর বাবার মৃত্যু হয়।’

শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মো. মাহাবুবুর রহমান বলেন, দেলোয়ার হোসেনের শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তার মৃত্যু হয়েছে।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিপ্লব তালুকদার বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে একই গ্রামের নুরুল ইসলাম ও তার সহযোগীদের সঙ্গে জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল। এ নিয়ে আদালতে মামলা চলমান। সকালে নুরুল ইসলাম ৩০-৩৫ জন লোক নিয়ে বিরোধপূর্ণ জমিতে চাষাবাদ শুরু করে। খবর পেয়ে বাবা সেখানে উপস্থিত হন। এ সময় নুুরুল ইসলামের সঙ্গে বাবার বাগবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে নুরুল ইসলাম ও তার সহযোগীরা পিটিয়ে ও কুপিয়ে বাবাকে জখম করে। খবর পেয়ে সেখানে গেলে আমাদেরও এলোপাতাড়ি কুপিয়ে আহত করা হয়।’

উজিরপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আরশেদ বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধাকে হত্যায় জড়িতদের আটক করতে পুলিশের অভিযান চলছে। এরই মধ্যে ঘটনায় জড়িতরা এলাকা ছেড়ে পালিয়ে গেছে।

/এএম/

সম্পর্কিত

কুপিয়ে ছাত্রলীগ নেতার কবজি কেটে নিলেন অপর নেতা  

কুপিয়ে ছাত্রলীগ নেতার কবজি কেটে নিলেন অপর নেতা  

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১২ মৃত্যু

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১২ মৃত্যু

সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যার কথা স্বীকার

সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যার কথা স্বীকার

টানা বৃষ্টিতে ভেঙে পড়েছে বিদ্যুতের খুঁটি-গাছ

টানা বৃষ্টিতে ভেঙে পড়েছে বিদ্যুতের খুঁটি-গাছ

কিশোরীকে বিভিন্নস্থানে আটকে রেখে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ 

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪:৫৭

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় এক কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলায় মাহমুদ আলী (৩০) নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। গ্রেফতার মাহমুদ আলী বানিয়াচং উপজেলার কদুপুর গ্রামের সঞ্জব আলীর ছেলে।

পুলিশ ও মামলা বিবরণীতে জানা যায়, নবীগঞ্জ উপজেলার নির্যাতনের শিকার ওই কিশোরীকে ২০ জুলাই সন্ধ্যায় পাশের বানিয়াচং উপজেলার কদুপুর গ্রামের মাহমুদ আলী ও তার সহযোগীরা সিএনজিতে করে নিয়ে যায়। পরে রাতভর বিভিন্নস্থানে নিয়ে তাকে সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণ করে তারা। ২১ ও ২২ জুলাই সিলেটের একটি আবাসিক হোটেলে রেখেও তাকে ধর্ষণ করা হয়। পরবর্তীতে অভিযুক্ত মাহমুদ ওই কিশোরীকে নিয়ে তার নিজ বাড়িতে উপস্থিত হলে পবিারের লোকজন কিশোরীকে তার বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। বাড়ি ফিরে কিশোরী ধর্ষণের বিষয়টি তার পরিবারকে জানায়। পরে ২৫ জুলাই ওই কিশোরীকে হবিগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) এ ঘটনায় ওই কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে নবীগঞ্জ থানায় মামলা (নম্বর-৯) দায়ের করেন। ভোররাতে নবীগঞ্জ থানার ওসি মো. ডালিম আহমেদ ও পরিদর্শক (তদন্ত) আমিনুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল অভিযান চালিয়ে উপজেলার কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়নের রসুলগঞ্জ বাজার থেকে মূলহোতা মাহমুদ আলীকে গ্রেফতার করে। 

নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ডালিম আহমেদ গ্রেফতারের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

নারী শ্রমিককে ধর্ষণ, বিচার চাইতে গিয়ে মা লাঞ্ছিত

নারী শ্রমিককে ধর্ষণ, বিচার চাইতে গিয়ে মা লাঞ্ছিত

সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যার কথা স্বীকার

সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যার কথা স্বীকার

বাড়ির উঠানে স্ত্রীর লাশ পুঁতে রাখলো স্বামী

বাড়ির উঠানে স্ত্রীর লাশ পুঁতে রাখলো স্বামী

ধর্ষণের অভিযোগে ছাত্রলীগের সাবেক নেতার বিরুদ্ধে কলেজছাত্রীর মামলা

ধর্ষণের অভিযোগে ছাত্রলীগের সাবেক নেতার বিরুদ্ধে কলেজছাত্রীর মামলা

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪:৪০

বেগমগঞ্জ উপজেলার নরোত্তমপুর ইউনিয়নের এক বাড়ি থেকে অন্তঃসত্ত্বা এক গৃহবধূর (২৫) মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার (২৮ জুলাই) দিবাগত রাতে জসীম উদ্দিনের নতুন বাড়ি থেকে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার হয়। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গৃহবধূর স্বামীকে (৩৫) আটক করা হয়েছে। 

নিহত গৃহবধূ জান্নাতুল ফেরদৌসি রুপা সোনাইমুড়ী উপজেলার বজরা গ্রামের মো. ওয়াহিদুল এর মেয়ে। তার স্বামী সালাউদ্দিন সোহেল উপজেলার নরোত্তমপুর ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের পাটোয়ারী বাড়ির মৃত আবুল হাশেমের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বুধবার রাত ১০ টায় তিন সন্তানের জননী ও চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা জান্নাতুল ফেরদৌসি রুপা পরিবারের সদস্যদের অগোচরে বসতঘরের আড়ার সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। 

তবে তার স্বজনদের অভিযোগ, পারিবারিক কলহের জেরে রুপাকে তার স্বামী হত্যা করে ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখে। 

খবর পেয়ে, বেগমগঞ্জ মডেল থানার পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধার করে থানায় এনে রাখে। পরে বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) সকালে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। একইসঙ্গে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য স্বামী সালাউদ্দিন সোহেলকে আটক করে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

বেগমগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মুহাম্মদ কামরুজ্জামান শিকদার বলেন, নিহতের স্বামীকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পেলে মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

কুমিল্লায় কাভার্ডভ্যান উল্টে দুই শ্রমিকসহ নিহত ৩ 

কুমিল্লায় কাভার্ডভ্যান উল্টে দুই শ্রমিকসহ নিহত ৩ 

লকডাউনে ছেলের বিয়ের আয়োজন, জরিমানা গুনলেন নারী মেম্বার 

লকডাউনে ছেলের বিয়ের আয়োজন, জরিমানা গুনলেন নারী মেম্বার 

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪:১৬

চাঁদপুর ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতালের আইসোশেন ইউনিটে সাত জন মারা গেছেন। বুধবার (২৮ জুলােই) রাত ১০ টা থেকে বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) ভোর ৬টা পর্যন্ত চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়। এর মধ্যে দুই জন করোনা আক্রান্ত ছিলেন।

হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার (আরএমও) ডা. সুজাউদ্দৗলা রুবেল এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ৮ ঘণ্টার ব্যবধানে হাসপাতালের আইসোলেশনে আসা রোগীদের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে দু’জন করোনা পজিটিভ ছিলেন। অন্যদের করোনা উপসর্গ ছিল।

করোনা আক্রান্ত হয়ে ফরিদগঞ্জ ও চাঁদপুর সদরের দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। উপসর্গ নিয়ে কচুয়া, খাজুরিয়া, ফরিদগঞ্জ, গনিয়া ও রামগঞ্জের একজন করে রোগী মারা গেছেন। 

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

কুষ্টিয়ায় আরও ১১ মৃত্যু

কুষ্টিয়ায় আরও ১১ মৃত্যু

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে ২৪ ঘণ্টায় ১৬ মৃত্যু

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে ২৪ ঘণ্টায় ১৬ মৃত্যু

তলিয়ে গেছে মোংলা শহর, পানিবন্দি ৭ হাজার মানুষ

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪:০৭

তিন দিনের টানা বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে মোংলা শহর ও উপজেলার বিভিন্ন এলাকা। পৌরসভার বিভিন্ন এলাকায় হাঁটু ও কোমর পানি। বাড়িঘর তলিয়ে যাওয়ায় পানিবন্দি সাত হাজারের বেশি মানুষ। 

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) দুপুর পর্যন্ত বৃষ্টিপাত অব্যাহত রয়েছে। পানি নিষ্কাশনের ড্রেন ও খাল ডুবে থাকায় পানি নামার ব্যবস্থা নেই। প্রায় ৩-৪ ফুট পানিতে নিমজ্জিত রয়েছে ঘরবাড়ি। খাটের ওপরে পানি উঠে যাওয়ায় পৌরসভার পশু হাসপাতাল রোডের কয়েকশ মানুষ সরকারি বঙ্গবন্ধু মহিলা কলেজে আশ্রয় নিয়েছে। 

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, জলাবদ্ধতার সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে পশু হাসপাতাল রোড ও কামারডাঙ্গা এলাকায়। এসব এলাকার ঘরবাড়ি ডুবে গেছে।

পাশাপাশি পৌরসভার ৩, ৪, ৭ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দারা পানিবন্দি হয়ে দুর্ভোগে আছেন বলে জানিয়েছেন পৌরসভার মেয়র শেখ আব্দুর রহমান।

এদিকে বুধবার বিকাল থেকে বৃহস্পতিবার বিকাল পর্যন্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। বড় বড় গাছ উপড়ে পড়ে বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙে গেছে।

স্থানীয়রা বলছেন, এত পরিমাণ বৃষ্টি এর আগে হয়নি। এবার খাটের ওপর পানি উঠেছে। ঘরবাড়ি, রাস্তাঘাট পানির নিচে। অনেকেই আশ্রয়কেন্দ্রে উঠেছেন।

পৌর মেয়র শেখ আব্দুর রহমান বলেন, পুরো পৌরসভা পানির নিচে। স্মরণকালের বৃষ্টিতে ভয়াবহ জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। দুর্গতের খাদ্য সহায়তা দেওয়া হবে। দ্রুত পানি সরানোর কাজ চলছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কমলেশ মজুমদার বলেন, বৃষ্টিতে উপজেলা তলিয়ে গেছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে সাত হাজার মানুষ। ভেসে গেছে এক হাজার ঘেরের চিংড়ি ও অন্যান্য মাছ। যারা বিভিন্ন আশ্রয়কেন্দ্রে উঠেছেন তাদের খাদ্য সহায়তা দেওয়া হচ্ছে। তবে পানিবন্দি লোকজন ও তলিয়ে যাওয়া ঘেরের সংখ্যা আরও বাড়বে।

/এএম/

সম্পর্কিত

কুষ্টিয়ায় আরও ১১ মৃত্যু

কুষ্টিয়ায় আরও ১১ মৃত্যু

খুলনার চার হাসপাতালে একদিনে ১৬ মৃত্যু

খুলনার চার হাসপাতালে একদিনে ১৬ মৃত্যু

বাগেরহাটে পানিবন্দি হাজারো পরিবার, টর্নেডোতে বিধ্বস্ত বাড়িঘর

বাগেরহাটে পানিবন্দি হাজারো পরিবার, টর্নেডোতে বিধ্বস্ত বাড়িঘর

সর্বশেষ

প্রতিদিন দুই ঘণ্টা করে টানা ১০ বছর সম্প্রচার!

প্রতিদিন দুই ঘণ্টা করে টানা ১০ বছর সম্প্রচার!

বীর মুক্তিযোদ্ধাকে পিটিয়ে হত্যা, তিন ছেলেকে কুপিয়ে জখম

বীর মুক্তিযোদ্ধাকে পিটিয়ে হত্যা, তিন ছেলেকে কুপিয়ে জখম

কত প্রকার মাদক আছে দেশে?

মাদক ভয়ংকর-৪কত প্রকার মাদক আছে দেশে?

কিশোরীকে বিভিন্নস্থানে আটকে রেখে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ 

কিশোরীকে বিভিন্নস্থানে আটকে রেখে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ 

'বাঘের জীবন রক্ষায় সুন্দরবন রক্ষা জরুরি'

আজ আন্তর্জাতিক বাঘ দিবস'বাঘের জীবন রক্ষায় সুন্দরবন রক্ষা জরুরি'

চুক্তিতে কিলিং মিশনে কাজ করতো তারা

চুক্তিতে কিলিং মিশনে কাজ করতো তারা

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

ফকিরাপুলে হোটেল থেকে যুবকের লাশ উদ্ধার

ফকিরাপুলে হোটেল থেকে যুবকের লাশ উদ্ধার

সম্পদের হিসাব দিতে কারও আপত্তি থাকার কথা নয়, আমিও প্রস্তুত: ওবায়দুল কাদের

সম্পদের হিসাব দিতে কারও আপত্তি থাকার কথা নয়, আমিও প্রস্তুত: ওবায়দুল কাদের

অলিম্পিকে হারলেও প্রশংসা পাচ্ছেন দিয়া

অলিম্পিকে হারলেও প্রশংসা পাচ্ছেন দিয়া

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

তলিয়ে গেছে মোংলা শহর, পানিবন্দি ৭ হাজার মানুষ

তলিয়ে গেছে মোংলা শহর, পানিবন্দি ৭ হাজার মানুষ

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

কুমিল্লায় কাভার্ডভ্যান উল্টে দুই শ্রমিকসহ নিহত ৩ 

কুমিল্লায় কাভার্ডভ্যান উল্টে দুই শ্রমিকসহ নিহত ৩ 

লকডাউনে ছেলের বিয়ের আয়োজন, জরিমানা গুনলেন নারী মেম্বার 

লকডাউনে ছেলের বিয়ের আয়োজন, জরিমানা গুনলেন নারী মেম্বার 

ছেলের জন্য আইসিইউ বেড ছেড়ে মারা গেলেন মা

ছেলের জন্য আইসিইউ বেড ছেড়ে মারা গেলেন মা

চট্টগ্রামে তিন দিনে ৫২ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৩১৫ জন

চট্টগ্রামে তিন দিনে ৫২ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৩১৫ জন

বিলের মাঝখানে উপহারের ঘর, ডুবলো পানিতে

বিলের মাঝখানে উপহারের ঘর, ডুবলো পানিতে

৪ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ: ওসি প্রদীপের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র

৪ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ: ওসি প্রদীপের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র

‘গরু বিক্রির ১২ লাখ টাকার জন্য মালিক-কর্মচারীকে হত্যা’

‘গরু বিক্রির ১২ লাখ টাকার জন্য মালিক-কর্মচারীকে হত্যা’

কক্সবাজারে পানিবন্দি ২ লাখ, আরও ১২ জনের মৃত্যু

কক্সবাজারে পানিবন্দি ২ লাখ, আরও ১২ জনের মৃত্যু

© 2021 Bangla Tribune