X
শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

সৌন্দর্যের ভুবনে নাহিন কাজী’র চার দশক

আপডেট : ১৮ জুন ২০২১, ১৪:২৫

নাহিন কাজী। ভীষণ পরিচিত একটি নাম। বাংলাদেশের মিডিয়ায় তুমুল সুপরিচিত বিউটি এক্সপার্ট বা রূপ বিশেষজ্ঞ নাহিন কাজী। একটা সময় ছিল এ দেশে যখন সৌন্দর্যচর্চা, মেকাপ আর্ট ও আর্টিস্ট বা বিউটি এক্সপার্টদের গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হতো না। সেই সময় বন্ধুর পথ পাড়ি দিতে পথে নেমেছিলেন নাহিদ কাজী। দেখতে দেখতে চার দশক পূর্তি।

অনেক তিক্ততার মধ্যে দিয়ে লড়াই করে যেসব বিউটিশিয়ান বাংলাদেশের বিউটি ইন্ডাস্ট্রিকে আজকে পর্যায়ে এনেছেন নাহিন কাজী তাদের মধ্যে অন্যতম। শুরুটা করেছিলেন আশির দশকে। কানাডা থেকে বাংলাদেশি তরুণী সাঈদা আহমেদ দেশে ফিরেন এবং রাজধানীর ধানমন্ডিতে একটি পার্লার দেন। সাঈদা যেহেতু বাইরে থেকে শিখে এসেছেন তাই তার কাজের ধরন ছিল ভিন্ন। সেখান থেকে প্রথম কাজ শেখেন নাহিন। পরবর্তীকালে সৌন্দর্যচর্চার ওপর উচ্চতর পাঠ নিতে তিনি চলে যান দিল্লিতে। সেখানে তিনি ডিপ্লোমা কোর্স শেষ করেন। দেশে ফিরে এরপর বায়োটিক হারবালের ফ্রেঞ্চাইজে নেন তিনি। তার প্রতিষ্ঠানের নাম হয় বায়োটিক হারবাল সেবা কেন্দ্র।

নাহিনের সাজানোর বিভিন্ন মুহূর্ত ১৯৯৪ সালে তিনি ধানমন্ডিতে গড়ে তোলেন অ্যাঞ্জেলস বিউটি পার্লার। ২০০৯ সালে তিনি ধানমন্ডিতে নিজের নামে ‘নাহিন বিউটি স্টুডিও’। সৌন্দর্যপ্রেমীদের পছন্দের একটি পরিপূর্ণ স্টুডিও এটি।

একইসময়ে তিনি মিডিয়া জগতে পা রাখেন। টিভি নাটক, বিজ্ঞাপনের মডেলদের মেকাপের কাজ শুরু করেন তিনি।

মিডিয়া প্রবেশের ঘটনাটা বেশ অন্যরকম। তেলের বিজ্ঞাপনের জন্য প্রখ্যাত নির্মাতা সাইদুল আনাম খান টুটুল মডেল খুঁজছিলেন। নাহিনের বড় বোন শাহীনের ছিল দীঘল কালো চুল। তিনি শাহীনকে বিজ্ঞাপনে নেন আর সে সময় মেকাপ করে দেন নাহিন। এ দেখে মুগ্ধ হয়ে যান নির্মাতা ও অভিনেতা আফজাল হোসেন। তিনি নাহিনকে সঙ্গে নিয়ে কাজ শুরু করেন।

নাহিন কাজীর ওপরে বিশেষ বই তার মেকআপ আর্ট নিয়ে আফজাল হোসেন বলেছিলেন, তিনি পেশাদার মেকআপম্যান নন। তিনি একজন শিল্পী। আজকে মডেল ইন্ডাস্ট্রির প্রসারের পেছনে নাহিনের মতো মেকআপ আর্টিস্টের ভূমিকা বিশাল। যে সৌন্দর্যের ধারণা তিনি তার মেকআপ ব্রাশে তুলেছেন সেটিতেই প্রভাবিত হয়েছে তরুণ প্রজন্ম।

টেলিভিশন, বিজ্ঞাপনে অবাধ বিস্তার হলেও চলচ্চিত্রে মেকআপ আর্টিস্ট হিসেবে তার একটিই কাজ। অনুপ সিংহ পরিচালিত ‘একটি নদীর নাম’ ছবিতে অভিনেত্রী শমি কায়সারের মেকআপ করেন তিনি। সেটিও ভীষণ প্রশংসিত হয়।

নিজের মেকআপের কাজ নিয়ে নাহিন নিজেকে ভিন্নভাবে মূল্যায়ন করেন। বলেন, স্থান-কাল-পাত্রভেদে মেকআপ করতে পারাটাই একজন আর্টিস্টের মূল চালিকাশক্তি। বিউটি এক্সপার্ট হিসেবে ২৫ বছরপূর্তি আয়োজনে তিনি এ কথা বলেছিলেন। তিনি বলেন, নাটকে মেকআপ করাতে হয় চরিত্র ও পরিবেশ অনুযায়ী। অন্যদিকে বিজ্ঞাপনে পণ্য যাই হোক মডেলের গ্ল্যামার প্রাধান্য পাবে। মঞ্চের মেকআপ হবে জমকালো, যাতে দূর থেকেও মডেলকে দেখা যায়। র্যা ম্পের মেকআপ হবে মডেলের পোশাকের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে। পারলারের মেকআপ হবে গ্রাহকের ত্বকের রঙের সঙ্গে তাল মিলিয়ে।

রয়েছে অসংখ্য প্রফেশনাল সার্টিফিকেট নাহিনের দাবি সময় ও স্টাইলের সঙ্গে মেকআপ পাল্টাবে। লাইট, ব্রাইটের খেলা চলবে নিত্য। রিসোর্স হিসেবে তিনি ফলো করেন, চলচ্চিত্র, ফ্যাশন টিভি, ইন্টারেন্ট থেকে নেওয়া তথ্য। এভাবেই নিত্য এক্সপেরিমেন্ট করেছেন মেকআপ নিয়ে এবং সফল হয়েছেন। ৪০ বছরে এই ইন্ডাস্ট্রিতে নাহিন কাজী একটি উজ্জ্বল নাম।

মিডিয়াতে তিনি ভরসার আরেক নাম। জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী সাবিনা ইয়াসমিন ‘সারপ্রাইজ বুক অব নাহিন কাজী’ এ এমনটাই লিখেছিলেন। তিনি বলেন, নাহিন মেকআপে আছে জানলে পুরোপুরি নিশ্চিত থাকা যায়। নাহিন একবার সাবিনা ইয়াসমিনের ৮টি গানে ৮ ধরনের মেকআপ লুক করে দিয়েছিলেন। সেটি ভীষণ প্রশংসিত হয়। সাবিনা ইয়াসমিন সেটিও তুলে ধরেন।

একই বইতে ফেরদৌসি মজুমদার লিখেছিলেন, নাহিন তার কাজ নিয়ে ভীষণ স্বচ্ছ। সে তার কাজটা জানে। কোনো জাঁকজমক করে না। যেটুকু করে বুঝেই করে। কার মুখে কী মানাবে সেটি সে ভালো জানে।

প্রয়াত অভিনেতা হুমায়ুন ফরিদি নাহিনের কাজের ভীষণ ভক্ত ছিলেন। তিনি বলতেন নাহিন একজন উঁচুদরের মেকআপ আর্টিস্ট ও বিউটিশিয়ান। বহুবার বহু সুন্দরীর প্রশংসা করতে গিয়ে শুনেছি আমি নই- নাহিন আপা এই সৌন্দর্যের জন্য দায়ী।

অভিনেত্রী শমি কায়সার লিখেছিলেন, নাহিন শুধু আর্টিস্ট নন আমার বন্ধু। প্যাকেজ নাটকের স্বর্ণযুগে আমার কাজের পুরোটা অংশ জুড়ে ছিলেন নাহিন। সেই সময়ের সব জনপ্রিয় অভিনেত্রীরা নাহিনকে দিয়ে মেকআপ করাতেন। নাহিন আছে জানলে আমরা সবাই খুশি হয়ে যেতাম।

সম্মাননা হাতে নাহিন কাজী জনপ্রিয় অভিনেত্রী তারিন জাহান নাহিন কাজীর আপন বোন। তারিন বলেন, সব সময় আপুর হাতেই সেজেছেন তিনি এবং সাজেন। বোন শুধু তার কাছে মেকআপ আর্টিস্ট নন, তার পুরো লাইফস্টাইল গাইড বলেই দাবি করেন তিনি। পেশাগত এবং ব্যক্তিগত দুই স্থানেই নিজের বোনকে সেরার স্থানটি দিয়েছেন তারিন।  

কর্মজীবনে পেয়েছেন অসংখ্য সম্মাননা। শুধু দেশে নয় দেশের বাইরেও মেকআপ আর্ট নিয়ে নাহিন কাজী সমান জনপ্রিয়। বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েসন অব ডাইভারসিটি আর্টস অ্যান্ড মিডিয়া থেকে বিউটি আর্টিস্ট হিসেবে সম্মাননা পান তিনি। সংগঠনটি তাদের ওয়েবসাইটে লেখে- নাহীন কাজী সম্মাননা পেলেন একটু ভিন্ন খাতে। তিনি একজন সফল বিউটিসিয়ান। তার কাজ অনেকটা অন্তরালে। টেলিভিশন বা মঞ্চের অভিনেত্রী বা গায়িকাদের সাজসজ্জায় আমরা মুগ্ধ হই, অনেক সময় অনুকরণ ও করতে চাই, সেই সব মনোমুগ্ধকর সাজ সজ্জা একজন বিউটিশিয়ানের সৃষ্টি। আধুনিক বিশ্বে সব কিছুই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। চলতি ফ্যাশন, ফিউসন, লাইফ স্টাইল ট্রেন্ডস, হেলথ কেয়ার, তথা পারসনাল গ্রুমিং সব কিছুই জীবনে অপরিহার্য। বিশেষ করে যারা সেলিব্রিটি বা মিডিয়ার সাথে যুক্ত। সৌন্দর্য চর্চা এবং সুন্দর থাকা তাদের প্রথম ও প্রধান শর্ত। নাহীন কাজী তার কাজের মাধ্যমে দেশের মিডিয়া জগতে এক নন্দিত শিল্পীর পরিচয়ে পরিচিতি লাভ করেছেন ইতিমধ্যে। 

স্বামী কাজী জসিমুল হক বাপ্পীর সঙ্গে নাহিন কাজী সংসারের বিশাল ক্যানভাস 

নিজের পেশা জীবনের মতো সংসারটাকেও সাজিয়েছেন সুচারু হাতে। স্বামী কাজী জসিমুল ইসলাম বাপ্পী নাহিনকে মনে করেন একটি প্রতিষ্ঠান। নাহিন বুকস অব সারপ্রাইজে এমনটাই লিখেছিলেন তিনি। তার কাছ থেকেই সাংসারিক ও পেশাদার নাহিনকে জানা যায়।

কাজী বাপ্পী বলেন, ‘১৯৮৬ সালে আমাদের দেশে মায়েরা মেয়েদেরকে তিনজন গার্ড ছাড়া বের হতে দেবে না এমন অবস্থা। সে পরিস্থিতিতে একটা গণ্ডির মধ্য থেকে বের হয়ে নিজে বিউটিশিয়ান হিসেবে কাজ করেছে এটা আমাকে বেশ আনন্দ দেয়। মানুষ আমাকে নাহিনের স্বামী হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেয় এটা আলাদা একটা অনূভুতি কাজ করে নিজের মধ্যে।’

তিনি আরও বলেন, ‘৮ বছর আগ পর্যন্ত বাংলাদেশের সিংহভাগ বিজ্ঞাপনে মেকআপ আর্টিস্ট হিসেবে কাজ করেছেন। নাহিন ভারতে আর্ট ফিল্মে মেকআপ আর্টিস্ট হিসেবে কাজ করেছে আমার জানা নেই বাংলাদেশের আর কেউ তা করেছি কিনা। সারা বাংলাদেশে লক্ষাধিক বিউটিশিয়ান কাজ করছেন এই সময়ে। নাহিন যদি সেই ৩৫ বছর আগে সাহসটা না করতো আজ হয়তো অনেকেই সাহস করতো না। নাহিনের সবচেয়ে ভালো লাগার জায়গা হচ্ছে আমি কখনও দেখিনি ও কাউকে বলেছে আমি শিখাবো না৷ যারা আগ্রহ দেখিয়েছে তাদের শিখিয়েছে। বিনিময়ে ৫ টাকাও নেয়নি কারও কাছ থেকে। চাঁদপুরে নাহিনের এক মামী ছিলেন, তার স্বামী মারা যান। এরপর তিনি আমেরিকা যাওয়ার জন্য ডিডি পান। নাহিন তখন বলেন, ডিডি পেয়ে লাভ নেই কিছু শিখে যাও। ৩ মাস নিজের পার্লারে শেখায়। এখন সে আমেরিকায় একজন বড় বিউটিশিয়ান। এমন অসংখ্য গল্প আছে নাহিনকে নিয়ে।’

শুধু পেশাদার বিউটিশিয়ানদের পথিকৃত নন সংসারের হাল ধরতে নাহিন যোগ্যতমদের একজন। এমন তকমাই দিলেন কাজী বাপ্পী। তিনি জানান, ‘১৯৮৯ সাল থেকে আমরা বন্ধু। তারপর একসঙ্গে ব্যবসা শুরু করি আমরা। কীভাবে হারবালকে বৈশ্বিকভাবে ছড়িয়ে দেওয়া যায়। একটা পর্যায়ে আমি সবকিছু থেকে ছিটকে যাই। আমি ব্যবসায় বড় একটা লস খাই। মানুষের জীবনে উত্থান-পতন থাকে তেমনি আমার জীবনে তখন পতন ঘটে। আমার পতনের সময়ে এসে হাতটা ধরে ও। ২০০৫ সালে একসঙ্গে জুটি বাঁধি আমরা। জানলে অবাক হবেন আমাদের বিয়ে হয় যখন তখন আমি আমার রেস্টুরেন্টের ডেকোরেশনের কাজ দেখছিলাম। আমি ওখানেই ওয়াশরুম গোসল করে রেডি হয়ে নেই। তারপর ওর খালার বাসায় ছোট করে অনুষ্ঠান করা হয়।’

তবে এত হাজার লোকের মেকআপ আর্টিস্ট নাহিন, কাজী বাপ্পীর মেকআপ করে দিয়েছেন মাত্র একবার। সেও এক মজার ঘটনা। তিনি জানান, ‘বাংলাদেশে প্রথম ইলেকট্রনিক গাড়ি আমি প্রথম বানাই৷ আমরা সেটার জন্য একটা বিজ্ঞাপন তৈরি করবো। নির্মাতা ছিলেন আফজাল হোসেন। ৩০-৪০ জন মডেল নিয়ে কাজ করছে৷ হঠাৎ করে আফজাল ভাই বললো উপরে চলো। নাহিনকে বললো এই ওরে মেকআপ দে। বলা যায় এটাই প্রথম আমাকে মেকআপ করায়।’

সম্মাননা পেয়েছেন শুধু এমনটি নন, সম্মানিত করেছেন মানুষদেরকে মানবিক নাহিন হিসেবে তিনি বলেন, মানুষকে সাহায্যকারী নাহিন। ভালো মনের মানুষ ও আমার রাগ সে সহ্য করে। নাহিনকে নিয়ে প্রতিনিয়ত স্বপ্ন দেখে যান পাশে থাকা মানুষটি। তিনি চান এতিম মেয়েদের জন্য একটা ইন্সটিটিউট করুক নাহিন। যাদেরকে পড়াশোনা করানোর পাশাপাশি নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারে সেভাবে তৈরি করার চেষ্টা করবো। আমার অনেক বন্ধু রয়েছে যারা নিজেরা নিজেদের জায়গায় প্রতিষ্ঠিত। আমি তাদের সবাইকে এই উদ্যোগ সম্পর্কে জানাবো তারা সকলে যাতে নিজেদের সামর্থ্য অনুযায়ী কয়েকজনের দায়িত্ব নেয়। আমি ইতিমধ্যে দুই-তিন বিঘা জমি কেনার পরিকল্পনা করছি এই উদ্যোগটা জন্য।

এমনই অসংখ্য স্বপ্ন নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন নাহিন কাজী। বাংলাদেশের রূপ বিশেষজ্ঞদের পথিকৃত নাহিন শুধু এক গণ্ডিতেই থেমে থাকেননি।

নাহিনের সাজানো মডেল

টিভি আয়োজনে নাহিন কাজী

আর সব স্বপ্ন ছাপিয়ে আরেকটি যে স্বপ্ন দেখেন প্রতিনিয়ত সেটি হচ্ছে নিজের একমাত্র সন্তান জাসিন কাজীকে যোগ্য ও সুসন্তান গড়ে তোলা। মাকে নিয়ে ভীষণ গর্বিত জাসিন। মায়ের মতো কেয়ারিং আর কেউ নেই বলে দাবি ছেলের। তার মতো চমৎকার রান্নাও কেউ করতে পারেন না। একই দাবি অবশ্য কাজী বাপ্পীরও। তার দাবি আমার এই বিশাল বপুর কৃতিত্ব পুরোটাই নাহিনের। তিনিই জানালেন নাহিনের ১২টি রান্নার খাতা আছে। দেশ-বিদেশের রান্না সব টুকে রাখেন তিনি। 

/এফএএন/

সম্পর্কিত

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

রেসিপি : প্রশান্তির পাঁচ শরবত

রেসিপি : প্রশান্তির পাঁচ শরবত

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৬:২২

কোনও গুরুত্বপূর্ণ কাজে ব্যস্ত থাকার সময় অনেক অভিভাবকই চটজলদি শিশুর হাতে ধরিয়ে দেন স্মার্টফোন। এভাবেই শিশুরা আসক্ত হয়ে পড়ে ঝলমলে পর্দার প্রতি। কিন্তু চাইলে মোবাইল ফোন ছাড়াও ব্যস্ত রাখা যায় শিশুকে।

 

বাইরে যাওয়া

যতটা সম্ভব খোলামেলা ও নিরিবিলি পরিবেশ পেলে শিশুকে নিয়ে একটু বাইরে বের হতেই পারেন। আপাতত যেতে পারেন ছাদে। সেখানে সাইকেল চালানো, বাগান করা, খড়ি দিয়ে ছবি আঁকা, ছবি তোলা এমন অনেক কাজেই তাকে ব্যস্ত থাকতে দিন।

 

ঘরের কাজ

বয়স অনুযায়ী শিশুদের কিছু ঘরের কাজ ভাগ করে দিন। বয়স খুব কম হলে তাকে ছোট ছোট কাজগুলো করতে বলুন। যারা একটু বড় হয়েছে তাদের মাঝারি মাপের কাজগুলো দিন। যেমন বিছানা গোছানো, খাওয়া শেষে নিজের প্লেট ধোয়া ইত্যাদি। এতে শিশু শারীরিকভাবে সক্রিয় থাকবে। ডিজিটাল জগতে বুঁদ হয়েও থাকবে না।

 

ক্রাফটিং

পেইন্টিং, কাগজ কেটে বোর্ডে লাগানো, ছবি কোলাজ করা, নিজের বেডরুমের দেয়ালে কাগজ দিয়ে নকশা করা, গলার মালা, কানের দুল থেকে শুরু করে নিজের মতো করে খেলনা বানানো এসব কাজে শিশুদের উৎসাহিত করুন। তখন তারা আপনাকে ব্যস্ত দেখলে আর মোবাইলের জন্য বায়না ধরবে না। নিজে থেকেই এটা ওটা নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়বে। সেই সঙ্গে বাড়বে সৃজনীশক্তিও। এক্ষেত্রে নানা জিনিসপত্র দিয়ে একটি ক্রাফটিং বাকশো বানিয়ে দিন শিশুকে।

 

নতুন কিছু লেখা ও পড়া

পাঠ্যবই নয়, সিলেবাসের বাইরের কোনও বই থেকেই পড়তে দিন। পাশাপাশি তাদের এটা ওটা নিয়ে লিখতে বলুন। হতে পারে সেটা একটা চিঠি কিংবা প্রিয় খেলনাগুলো সম্পর্কে তার ভাবনা। এতে শিশুর বিনোদন জগতে যোগ হবে নতুন মাত্রা। সেইসঙ্গে বাড়বে লেখালেখির দক্ষতাও।

 

ধাঁধা

যেকারও জন্যই ধাঁধা একটি মজার খেলা। বাগ, ফ্লাশলাইট, ডুডল  কোয়েস্ট, ফায়ারফ্লাইসের মতো বোর্ডগেমগুলো খেলা যায় তাদের সঙ্গে। একাধিক শিশু থাকলে তাদের বলুন, একজন আরেকজনকে প্রশ্ন করে বোকা বানাতে পারে কিনা।

 

ছবির অ্যালবাম

এখন ছবি বলতে সবাই ডিজিটাল ছবিই বোঝে। তবে কিছু বিশেষ মুহূর্তের ছবি প্রিন্ট করে শিশুকেই বলুন, সে যেন তার নিজের মতো করে অ্যালবাম সাজায়। নিশ্চিত থাকুন, মোবাইলে বসে ইউটিউব দেখা বা গেইমস খেলার চেয়ে এ কাজেই সে বেশি আনন্দ পাবে।

/এফএ/

সম্পর্কিত

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

রেসিপি : প্রশান্তির পাঁচ শরবত

রেসিপি : প্রশান্তির পাঁচ শরবত

চুলের জন্য অ্যাপেল সিডার ভিনেগার

চুলের জন্য অ্যাপেল সিডার ভিনেগার

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৩:৪৩

আজকাল শহুরে জীবনে ফিট থাকাটা কষ্টের বৈকি। বিশেষ করে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা বিশাল এক ঝক্কির কাজ। তারওপর এখন ঘরের বাইরে হাঁটতে যাওয়াও বারণ। শুয়ে-বসে কাটালে ওজন তো বাড়বেই। তো এখন কী করা যায়?

অনেকেই মনে করেন ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে পছন্দের খাবারগুলোকে দূরে রাখতে হবে। এটা ঠিক নয়। ওজন বেড়ে যাওয়ার কারণ সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা থাকলে সেটা নিয়ন্ত্রণ করাও সম্ভব।

 

কী কী কারণে ওজন বাড়ে?

সঠিক সময়ে না খেলে: লকডাউনে ঘরে থেকেই সব কাজ করতে হয় বলে রুটিনে পরিবর্তন আসবেই। এতে ঠিক সময়ে খাওয়া হয় না অনেকের। বিশেষ করে সব বেলার খাবার খাওয়া হয় দেরিতে। এতে শরীর তার গ্রহণ করা ক্যালরি খরচের সুযোগ কম পায়। তখনই বাড়ে ওজন।

 

সারভিং সাইজ তথা পরিমাণ ঠিক না থাকা: প্রত্যেকের শরীরের গঠন অনুযায়ী নির্দিষ্ট পরিমাণ ক্যালরি গ্রহণ করতে হয়। স্বাভাবিকভাবেই চাহিদার চেয়ে অতিরিক্ত ক্যালরি গ্রহণ করা মানেই শরীর সেটা জমিয়ে রাখবে ও ওজন বাড়াবে।

 

অস্বাস্থ্যকর খাবার: লকডাউনে অলস সময় কাটালে একটু পর পর এটা ওটা খেতে মন চাইতে পারে। এক্ষেত্রে মাথায় আসে মুখরোচক সব ফাস্টফুডের কথা। আর এসব জাংক ফুড যেমন স্বাস্থ্যকর নয়, তেমনি ক্যালরিও থাকে বেশি বেশি। এগুলো ওজন দ্রুত বাড়ায়।

 

শারীরিক পরিশ্রম না করা: লকডাউনের আগে জিমে যাওয়া হতো, কিংবা কাজ শেষে পার্কে জগিং করতেন। এখন সেটা সম্ভব হচ্ছে না বলে ফিজিকাল অ্যাকটিভিটিও হচ্ছে না বেশিরভাগ মানুষের। অনেকে অফিসও করছেন বাসায়। এতে ঘরের ভেতরও টুকটাক হাঁটাহাঁটি হচ্ছে না। এর ফলে ওজন তো বাড়বেই, ঝুঁকিতে পড়বে আপনার হৃৎপিণ্ডের স্বাস্থ্যও।

 

সমাধান

পরিমিত শর্করা: শর্করা খেতেই হবে। তবে অতিমাত্রায় নয়। আবার ওজন কমাতে গিয়ে শর্করা একেবারে বন্ধ করলেও শরীর ভেঙে পড়বে। এক্ষেত্রে বেছে নিতে হবে জটিল শর্করা। জটিল শর্করার মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন পূর্ণশস্য সম্বলিত খাদ্য যেমন লাল বা বাদামী চালের ভাত, গমের রুটি বা লাল আটার রুটি, লাল চিড়া, বাদাম, বীজ জাতীয় খাবার ইত্যাদি।

 

স্বাস্থ্যকর প্রোটিন: ফার্স্ট ক্লাস প্রোটিন হিসেবে অবশ্যই প্রাণিজ প্রোটিন রাখতে হবে খাদ্য তালিকায়। যেমন ডিম, মাছ, মুরগি, লো ফ্যাট মিল্ক। গরুর মাংসের ক্ষেত্রে চর্বিহীন মাংস নিতে হবে। কারণ ওজন কমাতে সাহায্য করে থাকে লিন মিট। এ ছাড়া উদ্ভিজ্জ উৎস যেমন বিভিন্ন ডাল, ছোলা, মটরশুঁটি এসবের পাশাপাশি নিয়মিত বীজ জাতীয় খাবার গ্রহণের অভ্যাস করুন-যেমন কুমড়ার বীজ, সূর্যমুখীর বীজ, তিল, চিয়া সিড ইত্যাদি। এসবও প্রোটিনের ভালো উৎস।

 

পর্যাপ্ত পানি: বেশি পানি পান করলে শরীরের শ্বসন প্রক্রিয়া ঠিক থাকে ও এর গতি বাড়ে। আর উচ্চ মেটাবলিক রেট সম্পন্ন একজন মানুষের ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকে সহজে।

 

মৌসুমি ফল ও শাকসবজি: ওজন নিয়ন্ত্রণের জন্য একজন ব্যক্তির কম ক্যালরি সমৃদ্ধ পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ করা প্রয়োজন। এক্ষেত্রে শাকসবজি ও ফল বেশ সহায়ক। বিভিন্ন ধরনের সবুজ শাক এবং রঙিন সবজি ফাইবার সমৃদ্ধ ও একইসঙ্গে অল্প ক্যালরিযুক্ত। ওজন কমাতে সহায়ক সবুজ শাকসবজির মাঝে অন্যতম হচ্ছে ব্রকোলি, ফুলকপি, বিভিন্ন  শাক, টমেটো, বাঁধাকপি, লেটুস ও শসা। আবার লাউ, পটল, ঝিঙা, কাঁচা পেঁপেও ওজন কমায়। ফলের মধ্যে উপকারী হচ্ছে সাইট্রাসজাতীয় ফল- কমলা, মালটা, আনারস, জাম্বুরা, আমড়া ইত্যাদি।

 

ব্যায়াম: শুধু খাবারে দিয়ে কাজ হবে না। শারীরিকভাবে সক্রিয় থাকতেই হবে। লকডাউনে জিমে যাবার সুযোগ না পেলে ঘরেই চেষ্টা করবেন। সকালে ২০ মিনিট ফ্রি হ্যান্ড এক্সারসাইজ করুন। প্রতিদিন ৩০ মিনিট হাঁটুন। এ ছাড়া রাতের খাবার শেষে ২০ মিনিট ঘরেই হাঁটুন। অর্থাৎ সবমিলিয়ে প্রতিদিন ৪০-৫০ মিনিট অ্যাকটিভ থাকুন।

/এফএ/

সম্পর্কিত

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

রেসিপি : প্রশান্তির পাঁচ শরবত

রেসিপি : প্রশান্তির পাঁচ শরবত

চুলের জন্য অ্যাপেল সিডার ভিনেগার

চুলের জন্য অ্যাপেল সিডার ভিনেগার

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৩:৩৭

আগস্টের প্রথম রবিবার বন্ধু দিবস। আর এ উপলক্ষে রবিবার (১ আগস্ট) যাবতীয় অনলাইন অর্ডারে ফ্রি ডেলিভারি দিচ্ছে যথাশিল্প। তাই বন্ধু দিবসে বাড়তি খরচ ছাড়াই বন্ধুকে পাঠাতে পারেন যথাশিল্পের টিশার্ট, নোটবুক অথবা শাড়ি। আছে নানান ডিজাইনের নকশি নোটবুক ও গামছা শাড়িও।

গ্রামবাংলার দৃশ্য ও ঐতিহ্যবাহী নকশা মাথায় রেখেই তৈরি হয় যথাশিল্পের পণ্য। পাওয়া যাবে বিভিন্ন সাইজেও।

পরিস্থিতি সাপেক্ষে যখাশিল্পের পণ্য সরাসরি কেনা যাবে আদাবরে অবস্থিত যথাশিল্প সেন্টারে (বাসা ৭১৬, সড়ক ১০, বাইতুল আমান হাউজিং সোসাইটি)। তবে ওয়েবসাইটফেসবুক পেইজে অর্ডার করা যাবে সবসময়ই।

/এফএ/

সম্পর্কিত

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

রেসিপি : প্রশান্তির পাঁচ শরবত

রেসিপি : প্রশান্তির পাঁচ শরবত

চুলের জন্য অ্যাপেল সিডার ভিনেগার

চুলের জন্য অ্যাপেল সিডার ভিনেগার

রেসিপি : প্রশান্তির পাঁচ শরবত

আপডেট : ২৮ জুলাই ২০২১, ১৩:৩২

আবহাওয়া যেমনই হোক, প্রাকৃতিক উপকরণে তৈরি স্বাস্থ্যকর এক গ্লাস শরবত আপনাকে এনে দিতে পারে এক রাজ্যের প্রশান্তি। এ জন্য ঝটপট টুকে নিতে পারেন পাঁচটি মন জুড়ানো শরবতের রেসিপি

 

তেঁতুলের শরবত

যা যা লাগবে: তেঁতুল, চিনি, ধনিয়া পাতা কুচি, শুকনা মরিচের গুঁড়া, বিট লবণ, কাঁচামরিচ কুচি, ও পানি (ঠান্ডা বা স্বাভাবিক)

 

যেভাবে বানাবেন

  • প্রথমে বিচি আলাদা করে তেঁতুলটা একটি পাত্রে সামান্য পানিতে গুলে নিন।
  • গোলানো তেঁতুলে পরিমাণমতো ঠান্ডা পানি মেশান।
  • পরিমাণমতো চিনি, টেলে নেওয়া শুকনো মরিচের গুঁড়া, কাঁচামরিচ কুচি ও ধনিয়া পাতা দিন। স্বাদমতো বিট লবণ দিন।
  • ভালো করে মিশিয়ে ১০ মিনিট রাখুন। এবার মিশ্রণটি অন্য একটি বাটিতে ছেঁকে নিন। হয়ে গেলো টক-ঝাল তেঁতুলের শরবত। পরিবেশন করতে পারেন বরফকুচি দিয়ে।

 

দুধের শরবত

যা যা লাগবে: আগেই দুধ এক লিটার জ্বাল দিয়ে ঠান্ডা করে নিন। এরপর লাগবে আধা কাপ চিনি, ১৫-২০টি কাজু বাদাম বাটা, ১৫টি পেস্তা বাদাম বাটা, ১৫টি কাঠবাদাম বাটা, এক চিমটি জাফরান (দুই টেবিলচামচ গোলাপ জলে ভিজিয়ে রাখা) ও পরিমাণমতো বরফ (২ কাপ)। পরিবেশনের জন্য সামান্য পেস্তা কুচি।  

 

যেভাবে বানাবেন : ঠান্ডা দুধের সঙ্গে চিনি, বরফ, বাদাম বাটা ও জাফরান মিশিয়ে ব্লেন্ড করে নিন। পরিবেশনের আগে পেস্তা বাদাম কুচি ছড়িয়ে দিন।

 

লেবু-পুদিনা শরবত

লেবু পুদিনা শরবত রেসিপি

যা যা লাগবে: মাঝারি আকারের দুটি লেবু, এক মুঠো পুদিনাপাতা, বড় এক কাপ পানি, বরফ কুচি পরিমাণমতো ও স্বাদমতো চিনি।

 

যেভাবে বানাবেন

  • প্রথমে লেবুর খোসা ফেলে টুকরো করে নিন।
  • পুদিনাপাতা কুচি করে কাটুন।
  • ব্লেন্ডারে লেবু, পুদিনা, চিনি ও পানি দিয়ে ব্লেন্ড করুন।
  • ছেঁকে নিয়ে গ্লাসে ঢেলে তাতে বরফকুচি দিন।

 

ডায়েট শসা শরবত

যা যা লাগবে : ২টি মাঝারি শসা। ২৫০ এমএল পানি, পরিমাণমতো চিনি, আদা এক টেবিলচামচ, একটি লেবু।

 

যেভাবে বানাবেন

  • শসা ধুয়ে কেটে নিন।
  • লেবুও খোসা ফেলে কাটুন।
  • ব্লেন্ডারে শসা, লেবু, আদা ও চিনি দিয়ে ব্লেন্ড করুন।
  • ছেঁকে ফ্রিজের নরমালে রেখে দিন।
  • পরে বরফ কুচি দিয়ে পরিবেশন করুন।
  •  

আদা-লেবুর শরবত

যা যা লাগবে: লেবুর রস ১ টেবিল চামচ, আদার রস ১ চা চামচ, পানি ১ গ্লাস, চিনি ২ টেবিল চামচ।

 

যেভাবে বানাবেন : সব উপকরণ একসঙ্গে মেশালেই শরবত হবে।

/এফএ/

সম্পর্কিত

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

চুলের জন্য অ্যাপেল সিডার ভিনেগার

চুলের জন্য অ্যাপেল সিডার ভিনেগার

চুলের জন্য অ্যাপেল সিডার ভিনেগার

আপডেট : ২৮ জুলাই ২০২১, ০৮:৫৯

চুলের রুক্ষ ভাব কাটাতে কত কী-ই না ব্যবহার করছে সবাই। এবার বাকিসব বাদ দিয়ে নজর দিন রান্নাঘরে। কারণ, সেখানেই পাওয়া যাবে অ্যাপেল সিডার ভিনেগারের বোতলটা।

 

  • আপেল সিডার ভিনেগারে (এসিভি) রয়েছে প্রচুর অ্যাসেটিক এসিড। চুলের নিস্তেজ ভাব ও ভঙ্গুরতা দূর করে পিএইচ লেভেল ঠিক রাখে এটি।
  • এতে থাকা আলফা-হাইড্রোক্সি অ্যাসিড মাথার ত্বকের কোষ ঝরা কমায়। এতে খুশকিও কমে।
  • বেশিরভাগ শ্যাম্পুরে চেয়ে এসিভি বেশি অ্যাসিডিক। যা মাথার ত্বকের মরা কোষ পরিষ্কার করতে পারে দ্রুত।
  • নানা ধরনের শ্যাম্পুর পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া দূর করে এসিভি।
  • চুল ঝকঝকে করতে এ ভিনেগারের জুড়ি নেই। কারণ এসিভি চুলের গোড়া থেকে ময়লা দূর করে ও চুলের তেলতেলে ভাব কমায়। পাশাপাশি স্কাল্পও পরিষ্কার রাখে এটি।
  • চুলের গোড়ায় রক্ত সঞ্চালন প্রক্রিয়া বাড়ায় অ্যাপেল সিডার ভিনেগার।
  • চুল পড়া রোধ করে ও চুল দ্রুত বড় করে।
  • এটি সপ্তাহে দুইবার ব্যবহারই যথেষ্ট।

 

যেভাবে ব্যবহার করবেন

শ্যাম্পুর সঙ্গে দুই-তিন চা চামচ এসিভি মিশিয়ে আলতোভাবে মাথায় মেখে ধুয়ে ফেলুন। অথবা পানিতে কয়েক টেবিল চামচ ভিনেগার মেশান। শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার ব্যবহারের পর চুলে সমানভাবে মিশ্রণটি মেখে নিন। স্কালপেও ঘষে নিন। কয়েক মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন।

/এফএ/

সম্পর্কিত

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

রেসিপি : প্রশান্তির পাঁচ শরবত

রেসিপি : প্রশান্তির পাঁচ শরবত

সর্বশেষ

কিউবায় আটক বিক্ষোভকারীদের মুক্তি দাবি ইউরোপীয় ইউনিয়নের

কিউবায় আটক বিক্ষোভকারীদের মুক্তি দাবি ইউরোপীয় ইউনিয়নের

তিউনিসিয়াকে গণতান্ত্রিক পথে ফেরার আহ্বান যুক্তরাষ্ট্রের

তিউনিসিয়াকে গণতান্ত্রিক পথে ফেরার আহ্বান যুক্তরাষ্ট্রের

অগ্নিকাণ্ডের ১৫ দিনেও চালু হয়নি আইসিইউ

অগ্নিকাণ্ডের ১৫ দিনেও চালু হয়নি আইসিইউ

মেঘনায় ট্রলারডুবিতে একজনের মৃত্যু, জীবিত উদ্ধার ১১

মেঘনায় ট্রলারডুবিতে একজনের মৃত্যু, জীবিত উদ্ধার ১১

সংঘর্ষে নিহত নন, তালেবানের হাতে ‘খুন’ হয়েছেন দানিশ সিদ্দিকি

সংঘর্ষে নিহত নন, তালেবানের হাতে ‘খুন’ হয়েছেন দানিশ সিদ্দিকি

হেলেনা জাহাঙ্গীর আটক

হেলেনা জাহাঙ্গীর আটক

রামেবির প্রতিষ্ঠাকালীন উপাচার্য মাসুম হাবিব আর নেই

রামেবির প্রতিষ্ঠাকালীন উপাচার্য মাসুম হাবিব আর নেই

গুঁড়িয়ে দেওয়া হলো ৫০০ ঘরের বস্তিটি

গুঁড়িয়ে দেওয়া হলো ৫০০ ঘরের বস্তিটি

অবিবাহিত বড় ভাই, আত্মহত্যা ছোট ভাইয়ের

অবিবাহিত বড় ভাই, আত্মহত্যা ছোট ভাইয়ের

ভারতকে হারিয়ে ওয়ানডে সিরিজের বদলা নিলো শ্রীলঙ্কা

ভারতকে হারিয়ে ওয়ানডে সিরিজের বদলা নিলো শ্রীলঙ্কা

লেনোভো বাজারে নিয়ে এলো দুটি নতুন ট্যাব

লেনোভো বাজারে নিয়ে এলো দুটি নতুন ট্যাব

জ্বর-শ্বাসকষ্টে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর মৃত্যু

জ্বর-শ্বাসকষ্টে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর মৃত্যু

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

রেসিপি : প্রশান্তির পাঁচ শরবত

রেসিপি : প্রশান্তির পাঁচ শরবত

চুলের জন্য অ্যাপেল সিডার ভিনেগার

চুলের জন্য অ্যাপেল সিডার ভিনেগার

ভুঁড়ি কত প্রকার, কোনটা কীভাবে কমাবেন?

ভুঁড়ি কত প্রকার, কোনটা কীভাবে কমাবেন?

দুধ যেন উপচে না পড়ে

দুধ যেন উপচে না পড়ে

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

রেসিপি : মিষ্টি আলুর ক্ষীর

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

তাজা মাছ চেনার পাঁচ টিপস

© 2021 Bangla Tribune