X
শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১, ১৬ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

হৃদরোগ কেন হয়? ঝুঁকি দূর করতে কী করবেন?

আপডেট : ২৪ জুন ২০২১, ১৫:৩৬

বিশ্বে বছরে প্রায় ৩৮ লাখ পুরুষ ও ৩৪ লাখ নারী হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। এর মধ্যে প্রতি চারজনে একজন মারা যান করোনারি হার্ট ডিজিজ বা ইশকেমিক হার্ট ডিজিজে। যা মূলত এথোরোসক্লেরোসিস-এরই একটি পরিণতি।

 

এথোরোসক্লেরোসিস কী?

আর্টারি বা ধমনীর দেয়ালে চর্বি জাতীয় বস্তু কিংবা স্কার টিস্যু জমা হয়ে যখন ধমনীর দেয়াল মোটা হয়ে যায়, তখন ধমনীর লুমেন (ভেতরের দেয়াল) সরু হয়ে রক্তপ্রবাহ কমে যায়। এতে আর্টারিগুলো শক্ত ওঠে। এই অবস্থাকে এথোরোসক্লেরোসিস বলা হয়।

সহজ কথায়, যদি কোনও চর্বিযুক্ত প্লাক রক্তনালী দিয়ে রক্ত চলাচল সীমিত করে দেয় সেটাই এথোরোসক্লেরোসিস। এটি শরীরের যে কোনও রক্তনালীতে হতে পারে। হাতে-পায়ে হলে সেটাকে পেরিফেরাল ভাস্কুলার ডিজিজ বলা হয়।

শরীরে অতিরিক্ত এলডিএল ক্লোরেস্টেরল থাকলে সেটা রক্তনালীতে জমা হয়ে এথোরোসক্লেরোসিস তৈরি করতে পারে।

করোনারি আর্টারিতে এথোরোসক্লেরোসিস হলে সেখানে রক্তপ্রবাহ কমে যায়। এতে করে সেখানে অক্সিজেন সরবরাহ কমে যায়। কারণ রক্তের হিমোগ্লোবিনের সঙ্গে মিশেই অক্সিজেন সারা দেহে পৌঁছায়। শরীরের কোনও টিস্যুতে চাহিদার তুলনায় অক্সিজেন সরবরাহ কমে গেলে তাকে ইশকেমিয়া বলে। আর হৃৎপিণ্ডে অক্সিজেন সরবরাহ কমলে ওই অবস্থাকে ইশকেমিক হার্ট ডিজিজ বলে।

 

হার্ট অ্যাটাক

হৃৎপিণ্ডের মাংশপেশীগুলো সচল থাকতে হার্টে রক্ত সরবরাহ হয় দুটো রক্তনালীর মাধ্যমে-ডান ও বাম আর্টারি। এগুলোতে চর্বি জমলেই বিপদ। রক্ত সঞ্চালনে বাধাগ্রস্ত হয় এবং করোনারি আর্টারি ডিজিজ দেখা দেয়। এ অবস্থাকে হার্ট ব্লক ও বলা হয়। আবার চর্বি জমে আর্টারি মোটা ও শক্ত গেলে সেটা হয় এথোরোসক্লেরোসিস। এমনটা হলে যে কোনও মুহূর্তে রক্তনালী ছিঁড়ে রক্ত জমাট বেঁধে যেতে পারে। রক্তনালীর ভেতর রক্ত জমাট বাঁধলে সেখানে আর রক্ত চলাচল করতে পারে না। আর বুঝতেই পারছেন, হৃৎপিণ্ডের রক্তনালীতে যদি রক্ত চলাচল করতে না পারে তবে হৃৎপিণ্ডের মাংসপেশীগুলো অক্সিজেন পাবে না।

অক্সিজেন না পেলে হৃৎপিণ্ডে টিস্যু নষ্ট হতে থাকে। এভাবে হার্টের রক্তনালীতে রক্ত জমাট কিংবা শরীরের অন্য কোনও ধমনীতে জমাট বেঁধে তা থ্রম্বোসিস হয়ে রক্তনালী দিয়ে পরিবাহিত হয়ে যদি করোনারি আর্টারিগুলো বা হার্টের ধমনীগুলোকে ব্লক করে দেয় তবে অক্সিজেনের অভাবে হার্টের টিস্যু দ্রুত নষ্ট হতে থাকবে। চিকিৎসাবিজ্ঞানের ভাষায় যাকে বলে মায়োকার্ডিয়াল ইনফার্কশন বা হার্ট অ্যাটাক।

এই সময় খুব দ্রুত রক্ত সরবরাহ চালু করতে না পারলে রোগীর মৃত্যু হতে পারে। এ সময় রোগীর প্রচণ্ড বুকে ব্যথা হবে, শ্বাসকষ্ট হবে, শরীর ঘামাবে, ব্যথা ঘাড়, হাত, পিঠে বা থুতনিতেও যেতে পারে।

 

ইশকেমিক হার্ট ডিজিজের উপসর্গ

রক্তচাপ চেক করা না হলে অধিকাংশ রোগী উপসর্গহীন থাকে। এক সময় তারা হঠাৎ হার্ট অ্যাটাক করে মারা যায়। তবে কারও ক্ষেত্রে কিছু উপসর্গ দেখা দেয়-

 

১। চলতে ফিরতে বুকে ব্যথা।

২। শ্বাসকষ্ট।

৩। খাওয়ার পর বুকে ব্যথা।

৪। সামান্য টেনশনে বুকে ব্যথা।

৫। মাথা ঘোরানো কিংবা মাথাব্যথা।

৬। ঘাড় কিংবা বাহুতে ব্যথা।

৭। বমি বা বমির ভাব

 

ইশকেমিক হার্ট ডিজিজের কারণ

১। উচ্চ রক্তচাপ বা হাইপারটেনশন।

২। অতিরিক্ত চর্বিযুক্ত খাবার যথা গরুর গোস্ত, ডিম বা ট্রান্সফ্যাট জাতীয় খাবার।

৩। ধূমপান বা জর্দা খাওয়া।

৪। অতিরিক্ত ওজন।

৫। অ্যালকোহল, কোমল পানীয়।

৬। পর্যাপ্ত ব্যায়াম না করা।

৭। শারীরিক পরিশ্রম না করা।

৮। সবসময় শুয়ে-বসে কাটানো।

 

ইশকেমিক হার্ট ডিজিজের জটিলতা

১। হার্ট অ্যাটাক হতে পারে।

২। ব্রেইন স্ট্রোক হতে পারে।

 

প্রতিকার

১। ধূমপানের অভ্যাস থাকলে সেটা ছাড়তে হবে সবার আগে।

২। নিয়মিত রক্তচাপ মাপতে হবে এবং তা নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে।

৩। ওজন স্বাভাবিক বিএমআই সূচক অনুযায়ী রাখতে হবে।

৪। চর্বিযুক্ত খাবার পরিহার করতে হবে এবং লবণ কম খেতে হবে।

৫। নিয়মিত ব্যায়াম করতে হবে।

৬। স্বাভাবিক শারীরিক পরিশ্রম করতে হবে।

 

চিকিৎসা

১। লাইফস্টাইল পরিবর্তনই এ রোগের অন্যতম চিকিৎসা। যাদের ওজন বেশি তারা এখন থেকে ব্যায়াম শুরু করে দিন।

২। রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতেই হবে। প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ খেতে হবে। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওই ওষুধ বাদ বা পরিবর্তন করা যাবে না। বুকে ব্যথা হলে দ্রুত নিকটস্থ হাসপাতালে যেতে হবে।

 

লেখক: চিকিৎসক, ঢাকা কমিউনিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।

পরিচালক, সেন্টার ফর ক্লিনিক্যাল এক্সিলেন্স এন্ড রিসার্চ

/এফএ/

সম্পর্কিত

পেটের চর্বি কমাতে যা খাবেন

পেটের চর্বি কমাতে যা খাবেন

বন্ধুর জন্য ভিন্ন কিছু

বন্ধুর জন্য ভিন্ন কিছু

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

পেটের চর্বি কমাতে যা খাবেন

আপডেট : ৩০ জুলাই ২০২১, ১৫:৩০

স্বাস্থ্যকর খাবারের মধ্যে খাবারটি অন্যতম। কারণ এটি রক্তের খারাপ কোলেস্টেরল কমায়। হৃদরোগ, স্ট্রোক ও আরও কিছু রোগের ঝুঁকিও কমায়। এর বাইরে পানিশূন্যতা রোধ এবং হজমেও উপকার করে। বলছিলাম টক দইয়ের কথা। এটাও জেনে রাখুন, টক দই কিন্তু পেটের চর্বিও ঝরাতে পারে!

টক দই ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ। এটি দেহের বিএমআই ইনডেক্স ঠিক রাখে। তাই সুতরাং, ডায়েটে অতিরিক্ত ক্যালোরি কমাতে সহায়ক এটি।

ওজন কমানোর সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর যা নিয়ম করে খেতেই হয় সেটা হলো প্রোটিন। টক দই কম শর্করা ও উচ্চ প্রোটিনযুক্ত খাবার। এতে শরীরের আমিষের চাহিদা মিটলেও ওজন বাড়বে না।

পেটের অতিরিক্ত মেদ কাটাতেও দই ভলো ভূমিকা রাখে। আমেরিকান ডায়েট অ্যাসোসিয়েশনের গবেষণাও বলছে, নিয়মিত টক দই খেলে পেটের অতিরিক্ত চর্বি ঝরতে থাকে। ক্যালসিয়ামই এ কাজটা করে। ১০০ গ্রাম দইয়ে আছে ৮০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম।

  • সকালের নাস্তায় এককাপ দই আর হালকা ফল খান। এতে সারাদিন খিদেবোধ কম হয়।
  • দুপুর ও রাতের খাবারে এক বাটি টক দই রাখুন।
  • ফল বা সবজির রাইতা তৈরিতে টক দই ব্যবহার করুন।
  • চিনিযুক্ত দই এড়িয়ে চলুন।
  • সরাসরি টক দই খেতে ইচ্ছে না করলে লাচ্ছি বানিয়ে খেতে পারেন। এক্ষেত্রে লবণ যতটা সম্ভব কম দিন।
/এফএ/

সম্পর্কিত

বন্ধুর জন্য ভিন্ন কিছু

বন্ধুর জন্য ভিন্ন কিছু

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

১ আগস্ট বন্ধু দিবস

বন্ধুর জন্য ভিন্ন কিছু

আপডেট : ৩০ জুলাই ২০২১, ০৮:০০

বন্ধু দিবস তো এসেই গেলো। জাতিসংঘ ৩০ জুলাই আন্তর্জাতিক বন্ধু দিবস ঘোষণা করলেও বেশিরভাগ দেশেই আগস্টের প্রথম রবিবার এ দিবস পালন করা হয়। আমরাও এর ব্যতিক্রম নই। এদিকে করোনার কারণে বন্ধুর সঙ্গে সামনাসামনি দেখা নেই অনেকদিন। কিন্তু যুগ তো অনলাইনের। তাই কয়েক ক্লিকেই বন্ধুর দোরগোড়ায় পাঠিয়ে দিতে পারেন ভিন্ন এক উপহার।

 

বই ও ‍বুকমার্ক

গিফট হিসেবে বুকমার্কও এখন চলছে বেশ

বইয়ের চেয়ে ভালো উপহার আর হতেই পারে না। মহামারি ও লকডাউনের সময়টাতে তাই দ্বারস্থ হতে হবে অনলাইন বই বিক্রেতাদের কাছেই। রকমারি, বাংলাবাজার বুকস, অবসর, বুকওয়ার্ম বিডি, আনন্দ বুকস, বুক আউলস-সহ অনেক অনলাইন শপে বই তো অর্ডার করতে পারবেনই, সেই সঙ্গে রয়েছে র‌্যাপিং কাগজে মুড়ে দেওয়ার ব্যবস্থাও।

এ নিয়ে কথা হয় অনলাইন বুকশপ 'Book Owls'-এর সাথে। প্রতিষ্ঠানটি জানালো, তাদের উপহার মোড়ানোও হয় চমৎকারভাবে। প্রতিটি বইয়ের সঙ্গে থাকে একটি বুকমার্ক ও গিফট কার্ড। যেখানে লিখে দিতে পারেন মনের কথা।

 

পোস্টকার্ড, ফ্রেমড আর্ট, টাইপোগ্রাফি

টাইপোগ্রাফিও হতে পারে উপহার

কেমন হয়, যদি আপনার পছন্দের গানের লাইন বন্ধুর ঘরের দেয়ালে চমৎকার নকশায় চলে আসে? ‘বাংলায় লিখি’, ‘থ্রি সিক্সটি বিডি’, ‘দাঁড়কাক’সহ অনেক পেজেই এই সেবা পাবেন। 'বাংলায় লিখি' পেজের সত্ত্বাধিকারী নিশাত বিনতে মনসুরকে জানিয়ে দিলেই তিনি সুন্দর করে আপনার বার্তাটি ফুটিয়ে তুলবেন কার্ডে। সেটা বাঁধাই করে পাঠানোর ব্যবস্থাও আছে ঠিকানামতো।

সম্পূর্ণ নতুন ছবির জন্য চার্জ পড়ে এক হাজার থেকে দেড় হাজার টাকা। আবার চাইলে তার স্টকে থাকা ফ্রেমড আর্ট কিনতে পারেন ৩৮০ টাকার মধ্যেই। ফ্রেম ছাড়া দাম ১৫০ টাকা। নিশাতের জনপ্রিয় ভিন্টেজ পোস্টকার্ড সিরিজ 'জাদুর শহর ঢাকা'র মূল্য ১৮০ টাকা। বাংলায় লিখিকে পাওয়া যাবে ইনস্টাগ্রামে

 

সুগন্ধি মোমবাতি

অনলাইনে নিউটন'স আর্কাইভ, ইলনর বিডি, নাজেলড, ক্যান্ডেলকাপবিডি, ভিনসেন্ট'স স্পিয়ারসহ অনেক পেজ সুগন্ধি মোমবাতি বিক্রি করে। এগুলোর দাম সাইজ ও নির্ভর করে আপনি কেমন করে চান সেটার ওপর। দাম শুরু ৩৫০ টাকা থেকে। বড় আকারের মোমবাতির দাম পড়বে ১২০০ টাকা। ভিনসেন্ট'স স্পিয়ারে পাবেন ৩০ রকমের মোমবাতি। প্রতিটি মোমবাতিই বিভিন্ন সিনেমা, গান বা বইয়ের থিমে বানানো।

 

মাটি ও কাঠের গয়না

চমৎকার মাটির রিং

বন্ধুকে পাঠাতে পারেন মাটির কানের দুল, লকেট বা চাবির রিং। এর মধ্যে আবার থাকতে পারে বন্ধুর প্রিয় বই, কার্টুন বা চরিত্রের অবয়ব। অথবা বন্ধুর নিজের চেহারাটাই। ‘সুমাইতাস ডিপোজিটরি’, ‘ফামি ওয়াবিসাবি’, ‘উডেন ড্রিমস’ পেজগুলোত এমনই চমৎকার কিছু গয়না ও অনুষঙ্গ পাবেন। ফামি ওয়াবিসাবিতে একজনের পোর্ট্রেট দিয়ে চাবির রিং বানাতে খরচ হবে ২৮০ টাকা। দুজনের পোর্ট্রেট দিয়ে রিংয়ের দাম ৪০০ টাকা। নিজের ও নিজের পোষা প্রাণীর পোর্ট্রেট দিয়ে চাবির রিং ৩০০ টাকা।

 

কাস্টমাইজড গান

এ এক ব্যতিক্রমী উপহার বটে। এ হলো এমন এক উপহার যা আর কারও কাছেই থাকবে না। বন্ধুকে নিয়ে একটা গান বানিয়ে চমকে দিলে কেমন হয়? এই ভাবনা থেকেই তৈরি হয়েছে আহমেদ রিফাত কবিরের 'সেরেনেড ইয়োর বিলাভেড'। তিনি একটি নির্দিষ্ট মূল্যের বিনিময়ে আপনার প্রিয় মানুষটাকে নিয়ে একটা গান বানিয়ে দেবেন। সেই গানের লাইনগুলোর প্রথম অক্ষর মেলালে দেখা যাবে প্রিয় মানুষটার নাম বের হয়ে আসবে।  

 

থিমড জার্নাল

থিমেটিক জার্নাল

ধরুন বন্ধুর প্রিয় ফুটবল দল আর্জেন্টিনা বা ব্রাজিল। এখন বন্ধুকে আর্জেন্টিনা কিংবা ব্রাজিলের ফ্লেভার আছে এমন কিছু একটা দিতে চান। এক্ষেত্রে উপহার দিতে পারেন থিমড জার্নাল। ‘আর্ট উইথ ক্রাফটি মাইশা’, ‘ক্রিয়েটিভ লী’-সহ নানান পেইজে এমন ভিন্নধর্মী জার্নাল পাবেন। 'ক্রিয়েটিভ লী' পেইজের শৈলী ইসলাম জানালেন, তিনি গ্রাহকদের আবেগ-অনুভূতিই জার্নালের মলাট ও পাতায় ফুটিয়ে তোলেন। এ ছাড়াও সেখানে পাবেন হ্যান্ডমেইড ডিজাইনার খাম, কার্ড, পোস্টকার্ড ইত্যাদি।

/এফএ/

সম্পর্কিত

পেটের চর্বি কমাতে যা খাবেন

পেটের চর্বি কমাতে যা খাবেন

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৬:২২

কোনও গুরুত্বপূর্ণ কাজে ব্যস্ত থাকার সময় অনেক অভিভাবকই চটজলদি শিশুর হাতে ধরিয়ে দেন স্মার্টফোন। এভাবেই শিশুরা আসক্ত হয়ে পড়ে ঝলমলে পর্দার প্রতি। কিন্তু চাইলে মোবাইল ফোন ছাড়াও ব্যস্ত রাখা যায় শিশুকে।

 

বাইরে যাওয়া

যতটা সম্ভব খোলামেলা ও নিরিবিলি পরিবেশ পেলে শিশুকে নিয়ে একটু বাইরে বের হতেই পারেন। আপাতত যেতে পারেন ছাদে। সেখানে সাইকেল চালানো, বাগান করা, খড়ি দিয়ে ছবি আঁকা, ছবি তোলা এমন অনেক কাজেই তাকে ব্যস্ত থাকতে দিন।

 

ঘরের কাজ

বয়স অনুযায়ী শিশুদের কিছু ঘরের কাজ ভাগ করে দিন। বয়স খুব কম হলে তাকে ছোট ছোট কাজগুলো করতে বলুন। যারা একটু বড় হয়েছে তাদের মাঝারি মাপের কাজগুলো দিন। যেমন বিছানা গোছানো, খাওয়া শেষে নিজের প্লেট ধোয়া ইত্যাদি। এতে শিশু শারীরিকভাবে সক্রিয় থাকবে। ডিজিটাল জগতে বুঁদ হয়েও থাকবে না।

 

ক্রাফটিং

পেইন্টিং, কাগজ কেটে বোর্ডে লাগানো, ছবি কোলাজ করা, নিজের বেডরুমের দেয়ালে কাগজ দিয়ে নকশা করা, গলার মালা, কানের দুল থেকে শুরু করে নিজের মতো করে খেলনা বানানো এসব কাজে শিশুদের উৎসাহিত করুন। তখন তারা আপনাকে ব্যস্ত দেখলে আর মোবাইলের জন্য বায়না ধরবে না। নিজে থেকেই এটা ওটা নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়বে। সেই সঙ্গে বাড়বে সৃজনীশক্তিও। এক্ষেত্রে নানা জিনিসপত্র দিয়ে একটি ক্রাফটিং বাকশো বানিয়ে দিন শিশুকে।

 

নতুন কিছু লেখা ও পড়া

পাঠ্যবই নয়, সিলেবাসের বাইরের কোনও বই থেকেই পড়তে দিন। পাশাপাশি তাদের এটা ওটা নিয়ে লিখতে বলুন। হতে পারে সেটা একটা চিঠি কিংবা প্রিয় খেলনাগুলো সম্পর্কে তার ভাবনা। এতে শিশুর বিনোদন জগতে যোগ হবে নতুন মাত্রা। সেইসঙ্গে বাড়বে লেখালেখির দক্ষতাও।

 

ধাঁধা

যেকারও জন্যই ধাঁধা একটি মজার খেলা। বাগ, ফ্লাশলাইট, ডুডল  কোয়েস্ট, ফায়ারফ্লাইসের মতো বোর্ডগেমগুলো খেলা যায় তাদের সঙ্গে। একাধিক শিশু থাকলে তাদের বলুন, একজন আরেকজনকে প্রশ্ন করে বোকা বানাতে পারে কিনা।

 

ছবির অ্যালবাম

এখন ছবি বলতে সবাই ডিজিটাল ছবিই বোঝে। তবে কিছু বিশেষ মুহূর্তের ছবি প্রিন্ট করে শিশুকেই বলুন, সে যেন তার নিজের মতো করে অ্যালবাম সাজায়। নিশ্চিত থাকুন, মোবাইলে বসে ইউটিউব দেখা বা গেইমস খেলার চেয়ে এ কাজেই সে বেশি আনন্দ পাবে।

/এফএ/

সম্পর্কিত

পেটের চর্বি কমাতে যা খাবেন

পেটের চর্বি কমাতে যা খাবেন

বন্ধুর জন্য ভিন্ন কিছু

বন্ধুর জন্য ভিন্ন কিছু

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৩:৪৩

আজকাল শহুরে জীবনে ফিট থাকাটা কষ্টের বৈকি। বিশেষ করে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা বিশাল এক ঝক্কির কাজ। তারওপর এখন ঘরের বাইরে হাঁটতে যাওয়াও বারণ। শুয়ে-বসে কাটালে ওজন তো বাড়বেই। তো এখন কী করা যায়?

অনেকেই মনে করেন ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে পছন্দের খাবারগুলোকে দূরে রাখতে হবে। এটা ঠিক নয়। ওজন বেড়ে যাওয়ার কারণ সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা থাকলে সেটা নিয়ন্ত্রণ করাও সম্ভব।

 

কী কী কারণে ওজন বাড়ে?

সঠিক সময়ে না খেলে: লকডাউনে ঘরে থেকেই সব কাজ করতে হয় বলে রুটিনে পরিবর্তন আসবেই। এতে ঠিক সময়ে খাওয়া হয় না অনেকের। বিশেষ করে সব বেলার খাবার খাওয়া হয় দেরিতে। এতে শরীর তার গ্রহণ করা ক্যালরি খরচের সুযোগ কম পায়। তখনই বাড়ে ওজন।

 

সারভিং সাইজ তথা পরিমাণ ঠিক না থাকা: প্রত্যেকের শরীরের গঠন অনুযায়ী নির্দিষ্ট পরিমাণ ক্যালরি গ্রহণ করতে হয়। স্বাভাবিকভাবেই চাহিদার চেয়ে অতিরিক্ত ক্যালরি গ্রহণ করা মানেই শরীর সেটা জমিয়ে রাখবে ও ওজন বাড়াবে।

 

অস্বাস্থ্যকর খাবার: লকডাউনে অলস সময় কাটালে একটু পর পর এটা ওটা খেতে মন চাইতে পারে। এক্ষেত্রে মাথায় আসে মুখরোচক সব ফাস্টফুডের কথা। আর এসব জাংক ফুড যেমন স্বাস্থ্যকর নয়, তেমনি ক্যালরিও থাকে বেশি বেশি। এগুলো ওজন দ্রুত বাড়ায়।

 

শারীরিক পরিশ্রম না করা: লকডাউনের আগে জিমে যাওয়া হতো, কিংবা কাজ শেষে পার্কে জগিং করতেন। এখন সেটা সম্ভব হচ্ছে না বলে ফিজিকাল অ্যাকটিভিটিও হচ্ছে না বেশিরভাগ মানুষের। অনেকে অফিসও করছেন বাসায়। এতে ঘরের ভেতরও টুকটাক হাঁটাহাঁটি হচ্ছে না। এর ফলে ওজন তো বাড়বেই, ঝুঁকিতে পড়বে আপনার হৃৎপিণ্ডের স্বাস্থ্যও।

 

সমাধান

পরিমিত শর্করা: শর্করা খেতেই হবে। তবে অতিমাত্রায় নয়। আবার ওজন কমাতে গিয়ে শর্করা একেবারে বন্ধ করলেও শরীর ভেঙে পড়বে। এক্ষেত্রে বেছে নিতে হবে জটিল শর্করা। জটিল শর্করার মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন পূর্ণশস্য সম্বলিত খাদ্য যেমন লাল বা বাদামী চালের ভাত, গমের রুটি বা লাল আটার রুটি, লাল চিড়া, বাদাম, বীজ জাতীয় খাবার ইত্যাদি।

 

স্বাস্থ্যকর প্রোটিন: ফার্স্ট ক্লাস প্রোটিন হিসেবে অবশ্যই প্রাণিজ প্রোটিন রাখতে হবে খাদ্য তালিকায়। যেমন ডিম, মাছ, মুরগি, লো ফ্যাট মিল্ক। গরুর মাংসের ক্ষেত্রে চর্বিহীন মাংস নিতে হবে। কারণ ওজন কমাতে সাহায্য করে থাকে লিন মিট। এ ছাড়া উদ্ভিজ্জ উৎস যেমন বিভিন্ন ডাল, ছোলা, মটরশুঁটি এসবের পাশাপাশি নিয়মিত বীজ জাতীয় খাবার গ্রহণের অভ্যাস করুন-যেমন কুমড়ার বীজ, সূর্যমুখীর বীজ, তিল, চিয়া সিড ইত্যাদি। এসবও প্রোটিনের ভালো উৎস।

 

পর্যাপ্ত পানি: বেশি পানি পান করলে শরীরের শ্বসন প্রক্রিয়া ঠিক থাকে ও এর গতি বাড়ে। আর উচ্চ মেটাবলিক রেট সম্পন্ন একজন মানুষের ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকে সহজে।

 

মৌসুমি ফল ও শাকসবজি: ওজন নিয়ন্ত্রণের জন্য একজন ব্যক্তির কম ক্যালরি সমৃদ্ধ পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ করা প্রয়োজন। এক্ষেত্রে শাকসবজি ও ফল বেশ সহায়ক। বিভিন্ন ধরনের সবুজ শাক এবং রঙিন সবজি ফাইবার সমৃদ্ধ ও একইসঙ্গে অল্প ক্যালরিযুক্ত। ওজন কমাতে সহায়ক সবুজ শাকসবজির মাঝে অন্যতম হচ্ছে ব্রকোলি, ফুলকপি, বিভিন্ন  শাক, টমেটো, বাঁধাকপি, লেটুস ও শসা। আবার লাউ, পটল, ঝিঙা, কাঁচা পেঁপেও ওজন কমায়। ফলের মধ্যে উপকারী হচ্ছে সাইট্রাসজাতীয় ফল- কমলা, মালটা, আনারস, জাম্বুরা, আমড়া ইত্যাদি।

 

ব্যায়াম: শুধু খাবারে দিয়ে কাজ হবে না। শারীরিকভাবে সক্রিয় থাকতেই হবে। লকডাউনে জিমে যাবার সুযোগ না পেলে ঘরেই চেষ্টা করবেন। সকালে ২০ মিনিট ফ্রি হ্যান্ড এক্সারসাইজ করুন। প্রতিদিন ৩০ মিনিট হাঁটুন। এ ছাড়া রাতের খাবার শেষে ২০ মিনিট ঘরেই হাঁটুন। অর্থাৎ সবমিলিয়ে প্রতিদিন ৪০-৫০ মিনিট অ্যাকটিভ থাকুন।

/এফএ/

সম্পর্কিত

পেটের চর্বি কমাতে যা খাবেন

পেটের চর্বি কমাতে যা খাবেন

বন্ধুর জন্য ভিন্ন কিছু

বন্ধুর জন্য ভিন্ন কিছু

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৩:৩৭

আগস্টের প্রথম রবিবার বন্ধু দিবস। আর এ উপলক্ষে রবিবার (১ আগস্ট) যাবতীয় অনলাইন অর্ডারে ফ্রি ডেলিভারি দিচ্ছে যথাশিল্প। তাই বন্ধু দিবসে বাড়তি খরচ ছাড়াই বন্ধুকে পাঠাতে পারেন যথাশিল্পের টিশার্ট, নোটবুক অথবা শাড়ি। আছে নানান ডিজাইনের নকশি নোটবুক ও গামছা শাড়িও।

গ্রামবাংলার দৃশ্য ও ঐতিহ্যবাহী নকশা মাথায় রেখেই তৈরি হয় যথাশিল্পের পণ্য। পাওয়া যাবে বিভিন্ন সাইজেও।

পরিস্থিতি সাপেক্ষে যখাশিল্পের পণ্য সরাসরি কেনা যাবে আদাবরে অবস্থিত যথাশিল্প সেন্টারে (বাসা ৭১৬, সড়ক ১০, বাইতুল আমান হাউজিং সোসাইটি)। তবে ওয়েবসাইটফেসবুক পেইজে অর্ডার করা যাবে সবসময়ই।

/এফএ/

সম্পর্কিত

পেটের চর্বি কমাতে যা খাবেন

পেটের চর্বি কমাতে যা খাবেন

বন্ধুর জন্য ভিন্ন কিছু

বন্ধুর জন্য ভিন্ন কিছু

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

সর্বশেষ

করোনায় চট্টগ্রামে আরও ৪ মৃত্যু, শনাক্ত ৭৪২

করোনায় চট্টগ্রামে আরও ৪ মৃত্যু, শনাক্ত ৭৪২

কক্সবাজারে নেমে যাচ্ছে বন্যার পানি, খাদ্য সংকট

কক্সবাজারে নেমে যাচ্ছে বন্যার পানি, খাদ্য সংকট

ইসলামপুরে লকডাউনেও পশুর হাট

ইসলামপুরে লকডাউনেও পশুর হাট

টিকার টার্গেট এক কোটি, তবে পরিকল্পনায় আসতে পারে পরিবর্তন

টিকার টার্গেট এক কোটি, তবে পরিকল্পনায় আসতে পারে পরিবর্তন

হেলেনা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে আরও এক মামলা

হেলেনা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে আরও এক মামলা

সার্বভৌম ক্ষমতার ভিত্তিতে সমস্যা সমাধানের আহ্বান

সার্বভৌম ক্ষমতার ভিত্তিতে সমস্যা সমাধানের আহ্বান

৭৮ বছর বয়সে টিকটকে ভাইরাল

৭৮ বছর বয়সে টিকটকে ভাইরাল

বিরল তুষারপাতে ঢেকে গেলো ব্রাজিল

বিরল তুষারপাতে ঢেকে গেলো ব্রাজিল

গাদ্দাফির ছেলে জীবিত, প্রেসিডেন্ট হওয়ার ইঙ্গিত!

গাদ্দাফির ছেলে জীবিত, প্রেসিডেন্ট হওয়ার ইঙ্গিত!

ওমান উপকূলে জাহাজে হামলায় ইরান দায়ী: ইসরায়েল

ওমান উপকূলে জাহাজে হামলায় ইরান দায়ী: ইসরায়েল

সিনহা হত্যা: সাক্ষ্যগ্রহণে থেমে আছে বিচারকাজ

সিনহা হত্যা: সাক্ষ্যগ্রহণে থেমে আছে বিচারকাজ

ইতালি প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা বাড়লো

ইতালি প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা বাড়লো

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

পেটের চর্বি কমাতে যা খাবেন

পেটের চর্বি কমাতে যা খাবেন

বন্ধুর জন্য ভিন্ন কিছু

১ আগস্ট বন্ধু দিবসবন্ধুর জন্য ভিন্ন কিছু

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

মোবাইল থেকে শিশুকে দূরে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

লকডাউনে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন কী করে?

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

বন্ধু দিবসে যথাশিল্পে ফ্রি ডেলিভারি

রেসিপি : প্রশান্তির পাঁচ শরবত

রেসিপি : প্রশান্তির পাঁচ শরবত

চুলের জন্য অ্যাপেল সিডার ভিনেগার

চুলের জন্য অ্যাপেল সিডার ভিনেগার

ভুঁড়ি কত প্রকার, কোনটা কীভাবে কমাবেন?

ভুঁড়ি কত প্রকার, কোনটা কীভাবে কমাবেন?

দুধ যেন উপচে না পড়ে

দুধ যেন উপচে না পড়ে

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

ত্বকের যত্নে হলুদ কেন জরুরি?

© 2021 Bangla Tribune