X
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

বিরল তুষারপাতে ঢেকে গেলো ব্রাজিল

আপডেট : ৩১ জুলাই ২০২১, ১৭:১৩

বিরল তুষারপাতের সাক্ষী হলো ব্রাজিল। তাপমাত্রা হিমাঙ্কের নিচে নেমে যাওয়ায় তুষারে ঢেকে যায় বহু জায়গা। অসময়ে তুষারপাতে বিভিন্ন অঞ্চলে শ্বৈত্যপ্রবাহ বয়ে যায়।

১৯৬৪ সালের দিকে এমন দৃশ্য দেখতে পায় লাতিন আমেরিকার এই দেশটি। তখন সান্তা ক্যাটরিনা রাজ্যে ৪ দশমিক ৩ ফুট পর্যন্ত তুষার রেকর্ড করা হয়। এবারের আকস্মিক তুষারে অনেককেই পথে নেমে উপভোগ করতে দেখা গেছে। কিন্তু প্রবল ঠাণ্ডায় তা ভোগান্তিতে গড়াতে সময় লাগেনি।

রাস্তায় ঘাট বরফে ঢেকে ব্যাহত হয় যান চলাচল। বুধবার পর্যন্ত দেশটির ৪৩টি শহর প্রবল তুষারপাতে থমকে যায় স্বাভাবিক জীবনযাত্রা। আবহাওয়া পূর্ভবাস বলছে, তাপমাত্রা কমতে থাকায় আরও তুষাপাত হতে পারে। এই পরিস্থিতিতে দেশটির কৃষিখাত ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। কনকনে ঠাণ্ডার সঙ্গে যুক্ত হয়েছে বাতাস।

১৯৫৭ সাল-এর দিকে এমন তুষারপাত হয় দেশটিতে

দেশটির আবহাওয়া দপ্তর বলছে, আগস্টের শুরু পর্যন্ত এ তুষারপাত চলবে। গ্রোসো দুল সুল, সাও পাওলো, মিনাস গেরেইস ও গোয়াস রাজ্যে তাপমাত্রা আরও কমবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তুষার হওয়া অঞ্চলগুলোর বাসিন্দাদের নিরাপদে চলাচলে পরামর্শ দিয়েছে সরকার।

/এলকে/

সম্পর্কিত

জাতিসংঘ সফর শেষে কোভিড আইসোলেশনে ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট

জাতিসংঘ সফর শেষে কোভিড আইসোলেশনে ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট

জাতিসংঘ অধিবেশনে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত ব্রাজিলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী

জাতিসংঘ অধিবেশনে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত ব্রাজিলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী

শান্তিপূর্ণ উপায়ে আফগান পরিস্থিতি সামালের তাগিদ ব্রিকস নেতাদের

ব্রিকস সম্মেলনে গুরুত্ব পেলো আফগান পরিস্থিতি

ব্রাজিলে গরুর দেহে বিরল রোগ

ব্রাজিলে গরুর দেহে বিরল রোগ

মিয়ানমার জান্তার বিরুদ্ধে রাজপথে গণতন্ত্রপন্থী বৌদ্ধ ভিক্ষুরা

আপডেট : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৩০

মিয়ানমারে সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে রাজপথে মিছিল করেছেন গণতন্ত্রপন্থী বৌদ্ধ ভিক্ষুরা। শনিবার দেশটির দ্বিতীয় বৃহত্তম শহরে মিছিল করেন। ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি এখবর জানিয়েছে।

ফেব্রুয়ারিতে অং সান সু চি’র নেতৃত্বাধীন নির্বাচিত সরকারকে উৎখাতের মধ্য দিয়ে সামরিক সরকার গঠনের পর থেকেই মিয়ানমারে রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা বিরাজ করছে। গণতন্ত্রপন্থীদের বিক্ষোভ দমনে শক্তি ও গুলি প্রদর্শনের অভিযোগে আন্তর্জাতিকভাবে নিন্দা ও সমালোচনার মুখে পড়েছে জান্তা সরকার।

ঐতিহাসিকভাবে বৌদ্ধ ভিক্ষুদের দেশটির সর্বোচ্চ নৈতিক কর্তৃপক্ষ হিসেবে বিবেচনা করা হয় মিয়ানমারে। অতীতে সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সম্প্রদায়কে সংগঠিত করেছে তারা। কিন্তু এবার এই ধারায় ফাটল ধরেছে। কয়েকজন শীর্ষস্থানীয় ভিক্ষু জেনারেলদের আশীর্বাদ দিয়েছেন। বাকিরা বিক্ষোভকারীদের সমর্থন করছেন।

শনিবার বেশ কয়েকজন ভিক্ষু তাদের কমলা ও লালচে রঙের পোশাক পরে মান্দালয়ে মিছিল করেন। এসময় তারা বিভিন্ন পতাকা, ব্যানার প্রদর্শন করেন। সামরিক সরকার কর্তৃক বন্দি বেসামরিক নেতা সু চি’র মুক্তির দাবিতেও স্লোগান দেন তারা।

এক নেতা বলেন, সত্য ও জনগণের পক্ষে দাঁড়াতে ভালোবাসে ভিক্ষুরা।

কয়েকজন ভিক্ষু বাটি হাতে মিছিলে অংশ গ্রহণ করেন। সাধারণত মানুষের কাছ থেকে দান হিসেবে খাবার সংগ্রহ করা হয় এসব বাটি দিয়ে। এর মাধ্যমে প্রতীকীভাবে জান্তা সরকারকে প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে।

৩৫ বছর বয়সী এক ভিক্ষু বলেন, যে কোনও মুহূর্তে গ্রেফতার বা গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঝুঁকি আমাদের নিতে হবে। আমরা নিজেদের ধর্মালয়ে বাস করতে এখন আর নিরাপদ না।

২০০৭ সালে মিয়ানমারজুড়ে তৎকালীন সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছিল বৌদ্ধ ভিক্ষুরা। জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে এই বিক্ষোভ শুরু হয়েছিল।

 

/এএ/

সম্পর্কিত

রাস্তার মোড়ে ক্রেনে মরদেহ ঝুলালো তালেবান

রাস্তার মোড়ে ক্রেনে মরদেহ ঝুলালো তালেবান

জাতিসংঘ অধিবেশনে ভাষণের সুযোগ পাচ্ছেন না তালেবান প্রতিনিধি

জাতিসংঘ অধিবেশনে ভাষণের সুযোগ পাচ্ছেন না তালেবান প্রতিনিধি

মিয়ানমারে দ্রুত গণতন্ত্র ফেরাতে মোদি-বাইডেনের বিবৃতি

মিয়ানমারে দ্রুত গণতন্ত্র ফেরাতে মোদি-বাইডেনের বিবৃতি

নিজেদের যোদ্ধাদের তিরস্কার করলো তালেবান

নিজেদের যোদ্ধাদের তিরস্কার করলো তালেবান

রাস্তার মোড়ে ক্রেনে মরদেহ ঝুলালো তালেবান

আপডেট : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:০০

বারবার মানবাধিকারের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়ার আশ্বাস দিলেও তালেবান একটি মরদেহ রাস্তার মোড়ে ক্রেনে ঝুলিয়ে রাখে। আফগানিস্তানের হেরাত শহরের প্রধান মোড়ে এই মরদেহ ঝুলিয়ে রাখা হয়। প্রত্যক্ষদর্শীকে উদ্ধৃত করে শনিবার মার্কিন বার্তা সংস্থা এসোসিয়েটেড প্রেস (এপি) এখবর জানিয়েছে।

খবরে বলা হয়েছে, সুন্নি পশতুন যোদ্ধারা দেশটির তৃতীয় বৃহত্তম শহর হেরাতের প্রধান মোড়ে চারটি মরদেহ নিয়ে আসে। চারটির মধ্যে তিনটি মরদেহ অন্যান্য মোড়ে মানুষের দেখার জন ঝুলিয়ে রাখে।

ওয়াজির আহমদ সিদ্দিকী জানান, প্রধান মোড়ে মরদেহ আনার পর তালেবান ঘোষণা দেয় অপহরণের চেষ্টার সময় তাদের আটক করা হয় এবং পুলিশ হত্যা করেছে।

তালেবান এখনও প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কোনও ঘোষণা দেয়নি। তবে তাদের আগের শাসনামলে শরিয়াহ আইন বাস্তবায়নে দায়িত্ব প্রাপ্ত মোল্লা নুরুদ্দিন তুরাবি এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, অঙ্গ কর্তন ও মৃত্যুদণ্ড ফিরিয়ে আনা হবে।

সম্প্রতি মার্কিন সংবাদ মাধ্যম নিউ ইয়র্ক পোস্টকে অপর এক তালেবান কর্মকর্তা জানিয়েছেন, অপরাধীদের ইসলামি শাস্তি দেওয়া হবে। তিনি জানান, চোরের হাত কেটে ফেলা হবে, বেআইনি যৌন সম্পর্কে জড়িতদের পাথর নিক্ষেপ করা হবে। সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস

/এএ/

সম্পর্কিত

মিয়ানমার জান্তার বিরুদ্ধে রাজপথে গণতন্ত্রপন্থী বৌদ্ধ ভিক্ষুরা

মিয়ানমার জান্তার বিরুদ্ধে রাজপথে গণতন্ত্রপন্থী বৌদ্ধ ভিক্ষুরা

জাতিসংঘ অধিবেশনে ভাষণের সুযোগ পাচ্ছেন না তালেবান প্রতিনিধি

জাতিসংঘ অধিবেশনে ভাষণের সুযোগ পাচ্ছেন না তালেবান প্রতিনিধি

জাতিসংঘ অধিবেশনে ভাষণের সুযোগ পাচ্ছেন না তালেবান প্রতিনিধি

আপডেট : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:১১

আফগানিস্তানের তালেবান নেতৃত্বাধীন সরকারের মনোনীত প্রতিনিধি জাতিসংঘের চলমান সাধারণ অধিবেশনে ভাষণ দেওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন না। তবে উৎখাত হওয়ার সরকারের মনোনীত আফগান দূত সোমবার ভাষণ দেবেন। শুক্রবার জাতিসংঘের এক মুখপাত্র এই তথ্য জানিয়েছেন।

জাতিসংঘের মুখপাত্র স্টেফানি দুজারিক বলেন, আপাতত আফগানিস্তানের প্রতনিধি হিসেবে গুলাম এম. ইসাকজাইয়ের নাম তালিকাভুক্ত রয়েছে।

তালেবান দ্বারা উৎখাত হওয়া আফগান সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে ইসাকজাই জাতিসংঘে নিযুক্ত ছিলেন।

তালেবান পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির খান মুত্তাকি গত সোমবার জাতিসংঘে বিশ্বনেতাদের সামনে তাদের মনোনীত প্রার্থীকে ভাষণ দেওয়ার সুযোগ দিতে আহ্বান জানান। এজন্য তালেবান তাদের দোহাভিত্তিক মুখপাত্র সুহাইল শাহীনকে আফগানিস্তানের জাতিসংঘ দূত হিসেবে মনোনয়ন দেয়।  

জাতিসংঘের অ্যাক্রিডিটেশন নয় সদস্যের একটি কমিটি দেখাশোনা করে। এতে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, চীন ও রাশিয়া। সাধারণত এই কমিটি অক্টোবর বা নভেম্বরে বৈঠকে বসে। আগামী বৈঠকে জাতিসংঘের বিভিন্ন উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে মুত্তাকিকে ভাষণ দেওয়ার অনুমতি দেওয়া হবে কিনা তা সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

সাধারণ অধিবেশনের নিয়ম অনুসারে, নতুন সিদ্ধান্তের আগ পর্যন্ত আফগানিস্তানের প্রতিনিধি হিসেবে ইসাকজাই বহাল থাকবেন।

 

/এএ/

সম্পর্কিত

রাস্তার মোড়ে ক্রেনে মরদেহ ঝুলালো তালেবান

রাস্তার মোড়ে ক্রেনে মরদেহ ঝুলালো তালেবান

ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড ছাড়তে ইসরায়েলকে আল্টিমেটাম আব্বাসের

ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড ছাড়তে ইসরায়েলকে আল্টিমেটাম আব্বাসের

মিয়ানমারে দ্রুত গণতন্ত্র ফেরাতে মোদি-বাইডেনের বিবৃতি

আপডেট : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৫৮

মিয়ানমারের অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে দেশটিতে দ্রুত গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনা, রাজনৈতিক বন্দিদের মুক্তি এবং সহিংসতা বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও ভারত। শুক্রবার হোয়াইট হাউসে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে পর যৌথ বিবৃতিতে আসিয়ানের পাঁচ দফা বাস্তবায়নেরও তাগিদ দেয় এই দুই দেশ।

বিবৃতিতে মিয়ানমারে যেকোনও মূল্যে সহিংসতা বন্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার ওপর জোর দিয়েছেন মোদি ও বাইডেন। চলতি বছরের ১ ফেব্রুয়ারি ভোরে মিয়ানমারের সু চি সরকারকে উৎখাত করে ক্ষমতা দখলে নেয় জান্তা সরকার। এরপরই মিয়ানমারের অধিকাংশ রাজনৈতিক নেতাদের গৃহবন্দি করে সামরিক সরকার। দেশজুড়ে অনর্দিষ্টকালের জন্য জারি করে জরুরি অবস্থা।

প্রতিবাদে রাজপথে আন্দোলন করে আসছে সাধারণ মানুষ। এতে নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে এ পর্যন্ত এক হাজারের বেশি মানুষ নিহত হয়েছেন। জান্তাবিরোধী আন্দোলনের কারণে আটক হয়েছেন সাড়ে তিন হাজারের বেশি মানুষ।   

এদিকে, মিয়ানমারে শান্তি ফেরাতে ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তায় আসিয়ান দেশগুলোর বৈঠকে দেশটিতে রক্তপাত বন্ধে পাঁচ দফা ঘোষণা করে দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর জোট আসিয়ান।

/এলকে/

সম্পর্কিত

কমলা হ্যারিসে মুগ্ধ নরেন্দ্র মোদি

কমলা হ্যারিসে মুগ্ধ নরেন্দ্র মোদি

মোদি-কমলার বৈঠক, পাকিস্তানকে সন্ত্রাসীদের সমর্থন বন্ধ করা উচিত: কমলা

মোদি-কমলার বৈঠক, পাকিস্তানকে সন্ত্রাসীদের সমর্থন বন্ধ করা উচিত: কমলা

ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড ছাড়তে ইসরায়েলকে আল্টিমেটাম আব্বাসের

আপডেট : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:১৭

ফিলিস্তিনের ভূখণ্ড ছাড়তে ইসরায়েলকে এক বছরের সময় দিলেন ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস। অন্যথায় ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ ১৯৬৭ সালের সীমানা মানবে না বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন তিনি।

শুক্রবার জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭৬তম অধিবেশনে দেওয়া ভাষণে আব্বাস ইসরায়েলের বিরুদ্ধে বর্ণবৈষ্যম ও জাতিগত নির্মূলকরণেরও অভিযোগ আনেন। ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড থেকে না সড়ে গেলে রাষ্ট্রের স্বীকৃতিও প্রত্যাহারের হুমকি দেন তিনি।  

প্রেসিডেন্ট আব্বাস বলেন, এক বছরের মধ্যে ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড থেকে ইসরাইলকে চলে যেতে হবে অন্যথায় ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের ভূমি দখলের বৈধতা প্রশ্নে ফিলিস্তিনিরা আন্তর্জাতিক আদালতে যাবে। অধিকৃত ফিলিস্তিনের রামাল্লাহ শহর থেকে ভিডিও লিংকের মাধ্যমে মাহমুদ আব্বাস জাতিসংঘ অধিবেশনে তার ভাষণ তুলে ধরেন।

ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট বলেন, আগামী এক বছরের মধ্যে পশ্চিম তীর, পূর্ব জেরুজালেম শহর এবং গাজা উপত্যকায় যদি দখলদারিত্বের অবসান না হয় তাহলে ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ ১৯৬৭ সালের সীমানা মানবে না। জাতিসংঘের প্রস্তাব অনুযায়ী ইসরায়েল ও ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের চূড়ান্ত মর্যাদা দেওয়া নিয়ে যে সমস্যা চলছে তা সমাধানে কাজ করতে প্রস্তুত ফিলিস্তিনিরা। 

/এলকে/

সম্পর্কিত

জাতিসংঘ অধিবেশনে ভাষণের সুযোগ পাচ্ছেন না তালেবান প্রতিনিধি

জাতিসংঘ অধিবেশনে ভাষণের সুযোগ পাচ্ছেন না তালেবান প্রতিনিধি

শান্তির বার্তা ইমরান খানের মুখে মানায় না: স্নেহা দুবে

শান্তির বার্তা ইমরান খানের মুখে মানায় না: স্নেহা দুবে

তালেবান সরকারের বিশ্ব সমর্থন জরুরি: জাতিসংঘে ইমরান খান

তালেবান সরকারের বিশ্ব সমর্থন জরুরি: জাতিসংঘে ইমরান খান

বর্ণবাদবিরোধী সম্মেলনে জায়নবাদকে নিশ্চিহ্নের অঙ্গীকার ইরানের

বর্ণবাদবিরোধী সম্মেলনে জায়নবাদকে নিশ্চিহ্নের অঙ্গীকার ইরানের

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

জাতিসংঘ সফর শেষে কোভিড আইসোলেশনে ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট

জাতিসংঘ সফর শেষে কোভিড আইসোলেশনে ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট

জাতিসংঘ অধিবেশনে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত ব্রাজিলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী

জাতিসংঘ অধিবেশনে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত ব্রাজিলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী

শান্তিপূর্ণ উপায়ে আফগান পরিস্থিতি সামালের তাগিদ ব্রিকস নেতাদের

ব্রিকস সম্মেলনে গুরুত্ব পেলো আফগান পরিস্থিতি

ব্রাজিলে গরুর দেহে বিরল রোগ

ব্রাজিলে গরুর দেহে বিরল রোগ

রাষ্ট্রদূত হত্যায় স্ত্রীর কারাদণ্ড

রাষ্ট্রদূত হত্যায় স্ত্রীর কারাদণ্ড

জয়লাভ, কারাবরণ কিংবা মৃত্যু ছাড়া পথ নেই: বলসোনারো

জয়লাভ, কারাবরণ কিংবা মৃত্যু ছাড়া পথ নেই: বলসোনারো

ব্রাজিলের প্রেসিডেন্টের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান পার্লামেন্টের

ব্রাজিলের প্রেসিডেন্টের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান পার্লামেন্টের

ব্রাজিলের অনন্য ‘কোকা কোলা’ লেক!

ব্রাজিলের অনন্য ‘কোকা কোলা’ লেক!

প্রমাণ ছাড়া অভিযোগ তুলে তদন্তের মুখে ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট

প্রমাণ ছাড়া অভিযোগ তুলে তদন্তের মুখে ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট

ব্রাজিলের নির্বাচন ব্যবস্থা বদলের দাবি বলসোনারো সমর্থকদের

ব্রাজিলের নির্বাচন ব্যবস্থা বদলের দাবি বলসোনারো সমর্থকদের

সর্বশেষ

মিয়ানমার জান্তার বিরুদ্ধে রাজপথে গণতন্ত্রপন্থী বৌদ্ধ ভিক্ষুরা

মিয়ানমার জান্তার বিরুদ্ধে রাজপথে গণতন্ত্রপন্থী বৌদ্ধ ভিক্ষুরা

বার্সেলোনার জন্য আরও দুঃসংবাদ

বার্সেলোনার জন্য আরও দুঃসংবাদ

কলার মোচার যত গুণ

কলার মোচার যত গুণ

২৫ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে এডিবি

২৫ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে এডিবি

ভারতে গেলো আরও ১৮৬ মেট্রিক টন ইলিশ

ভারতে গেলো আরও ১৮৬ মেট্রিক টন ইলিশ

© 2021 Bangla Tribune