X
শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ৩১ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

ছয় বছর ধরে পানিবন্দি ফতুল্লার ওসমান আলী স্টেডিয়াম 

আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:১৬

দুই টেস্ট ও ১০টি ওয়ানডে ম্যাচসহ প্রিমিয়ার লীগের অসংখ্য খেলা গড়িয়েছে যে মাঠে সেটি এখন পড়ে আছে নিতান্ত অবহেলায়। অনেকটাই পরিত্যক্ত অবস্থায় গত ছয় বছর ধরে পানির নিচে তলিয়ে আছে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামের মাঠ। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের মালিকানাধীন আর্ন্তজাতিক মানের এ মাঠটির সংস্কারে কোনও উদ্যোগ নেই বলে অভিযোগ খেলোয়াড় ও সংগঠকদের। তাদের মতে অযত্ন-অবহেলার এক অনন্য নিদর্শন খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়াম। তবে কর্তৃপক্ষ বলছে দ্রুতই মাঠের সংস্কার করে খেলার উপযোগী করতে কাজ চলছে।  

সংশ্লিষ্টরা জানান, ২০০০ সালের ১০ সেপ্টেম্বর বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়াম উদ্বোধন করেন। ২০০৬ সালে বাংলাদেশ বনাম অস্ট্রেলিয়ার টেস্ট ম্যাচ দিয়ে আর্ন্তজাতিক ভেনু হিসেবে যাত্রা শুরু করে স্টেডিয়ামটি। দুই টেস্ট এবং ১০টি ওয়ানডেসহ প্রিমিয়ারলীগের অসংখ্য ম্যাচে রঙ ছড়িয়েছেন ক্রিকেটাররা। সর্বশেষ ২০১৫ সালে বাংলাদেশ ও ওয়েস্টইন্ডিজ টেস্ট ম্যাচের পর আর কোনও আর্ন্তজাতিক ম্যাচ মাঠটিতে গড়ায়নি। 

আউটার স্টেডিয়ামে জলাবদ্ধতা সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় আউটার স্টেডিয়াম থেকে শুরু করে মূল স্টেডিয়াম ভরা থৈ থৈ পানি আর কচুরিপানা। মাঠটি ডিএনডি প্রজেক্টের ভেতের থাকায় এবং ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড থেকে অনেক নিচু হওয়ায় সামান্য বৃষ্টিতেই তলিয়ে যায়। পাশের আউটার স্টেডিয়াম বর্তমানের হাটু পানির নিচে তলিয়ে আছে। কচুরিপানা আর কালো নোংরা পানিতে সৃষ্ট উৎকট দুর্গন্ধে টেকা দায়। আউটার স্টেডিয়ামের জলাবদ্ধতার আটকে থাকা পানি চুইয়ে মূল স্টেডিয়ামের ভেতের ঢুকে পড়ায় মাঠ পানির নিচে রয়েছে। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে পানির নিচে থাকায় এবং সংস্কার না হওয়ায় মাঠে জন্মেছে বড় বড় ঘাস। 

স্টেডিয়ামের দর্শক চেয়ারগুলো এখন বিবর্ণ ও নষ্ট হওয়ার পথে ২৫ হাজার দর্শকের ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন গ্যালারিতে বসার চেয়ার, ইলেকট্রনিক স্কোরবোর্ড, ভিআইপি গ্যালারি, সাংবাদিকদের বসার স্থান (প্রেস বক্স) ক্রিকেটারদের ড্রেসিং ও ওয়েটিংরুমসহ বাথরুম সবই এখন ব্যবহারের অনুপযোগী হওয়ার পথে। হঠাৎ করে মূল রাস্তা থেকে দেখলে আর্স্তজাতিক স্টেডিয়াম না ভেবে বড় ধরনের জলাশয় ভেবে বসতে পারেন যে কেউ। 

স্টেডিয়ামের মূল মাঠে যেন ঘাসের চাষ করা হয়েছে স্থানীয় ক্রিকেটার মোহাম্মদ আহমেদ হোসেন বলেন, নারায়ণগঞ্জ থেকে ফুটবল ও ক্রিকেটের অনেক খেলোয়াড় জাতীয় পর্যায়ে খেলে সুমান অর্জন করেছেন। কিন্তু আমাদের দুর্ভাগ্য নারায়ণগঞ্জে একটি আর্ন্তজাতিক মানের স্টেডিয়াম থাকার পরেও শুধু সংস্কারের অভাবে আমরা পিছিয়ে পড়ছি। এই স্টেডিয়ামের আর্ন্তজাতিক মানের খেলা অনুষ্ঠিত হলে, অনেকেই উৎসাহ পেতো। স্থানয়িভাবে আরও খেলোয়াড় তৈরি হতো। 

তিনি আক্ষেপ নিয়ে আরও বলেন, দীর্ঘ ছয় বছর ধরে মাঠটি পানির নিচে, আউটার স্টেডিয়াম পানির নিচে থাকায় আমরা খেলাধুলা এবং প্র্যাকটিস পর্যন্ত করতে পারছি না। কিন্তু সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের যেন কোনও মাথাব্যথা নেই। 

মূল মাঠে পানি জমে থাকায় জন্মেছে বড় বড় ঘাস সাবেক ক্রিকেটার আল মামুন বলেন, জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ শুধু নতুন স্টেডিয়াম বানানোর প্রকল্প নিয়ে ব্যস্ত। কিন্তু এই স্টেডিয়ামটি সংস্কার করলে যে টাকা খরচ হবে, নতুন একটি স্টেডিয়াম তৈরি করলে তার থেকে দশগুণ বেশি খরচ পড়বে। কিন্তু তারা নতুন স্টেডিয়াম বানাতেই বেশি আগ্রহী। যে কারণে গত ছয় বছর ধরে পানির নিচে থাকলেও নারায়ণগঞ্জের স্টেডিয়ামটির কোনও সংস্কার হচ্ছে না। 

স্থানীয় ক্রিকেটার নাহিয়ান বলেন, ফতুল্লা খান সাহেব ওসামান আলী স্টেডিয়ামের পূর্বপাশের আউটার স্টেডিয়ামে ২০১২, ১৩ ও ১৪ সালে একাধারে প্র্যাকটিস করেছি। সে সময় আমার মতো অসংখ্য ছেলে সেখানে প্র্যাকটিস করেছে। কিন্তু মাঠটি রাস্তা থেকে নিচু হওয়ায় এবং সামান্য বৃষ্টি হলে পানি জমে  জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। পানি নিষ্কাশনের কোনও ব্যবস্থা নেই। যে কারণে মাঠটি দীর্ঘদিন ধরেই পরিত্যক্ত অবস্থায় আছে। 

তিনি আরও বলেন, একটি মাঠের অভাবে আমাদের খেলাধুলা ও প্র্যাকটিস ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে, ঝরে পড়ছে উঠতি বয়সের খেলোয়াড়রা।


নারায়ণগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক তানভীর আহমেদ টিটু বলেন, জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ চাইলে আগামী সাত দিনের মধ্যে খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামের সংস্কার কাজ শুরু করে দিতে পারে। একজন খেলোয়াড় বা সংগঠক হিসেবে স্টেডিয়ামের দ্রুত সংস্কার শুরু করার দাবি জানাচ্ছি। 
তিনি আরও বলেন, এই মাঠে যদি একটি আর্ন্তজাতিক ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয় তবে বাংলাদেশের সব মানুষ কিন্তু নিজের দেশে খেলা হচ্ছে বলেই খেলা দেখবে। এই জন্য বলছি এটি নারায়ণগঞ্জবাসীর নয়, দেশের সম্পদ।

তবে স্টেডিয়াম সংস্কারের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ। তিনি বলেন, দীর্ঘদিন ধরে সংস্কারের অভাবে খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামটি ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়ে আছে। সেখানে জলাবদ্ধতার পানি আটকে থাকে। স্টেডিয়ামের প্রকৃত মালিক হচ্ছে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ। পরিষদ ক্রিকেট বোর্ডকে মাঠটি ব্যবহারের জন্য দিয়েছিল। স্টেডিয়ামের সংস্কারের জন্য বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড, জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ যৌথভাবে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) মাধ্যমে একটি কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। ইতোমধ্যে ফিজিবিলিটি স্টাডি হয়েছে। শুনেছি খুব দ্রুতই সংস্কার কাজ শুরু হবে। এটি ভেঙে নতুন করে উঁচু করে স্টেডিয়ামের আনুসাঙ্গিক কাজ করা হবে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক এবং সিনিয়র মাঠ ব্যবস্থাপক সৈয়দ আব্দুল বাতেন বলেন,  জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ ও সিবিসি যৌথভাবে খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামের সংস্কারের উদ্যোগ নিয়েছে। এরই মধ্যে বুয়েট ড্রয়িং ডিজাইনের কাজ শেষ করেছে। এখন বিল অব কনট্রাক্টের কাজ চলছে। বুয়েটের সমীক্ষা শেষে আগামী ২০ বা ২৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে কত টাকা ব্যয় হবে সেই প্রস্তাবনা দেওয়া হবে। পরে দ্রুত সিদ্ধান্ত নিয়ে সংস্কার কাজ শুরু করা হবে বলে জানান তিনি।

 

/টিটি/ 

সম্পর্কিত

বাসা থেকে ডেকে নিয়ে এক ব্যক্তিকে হত্যা

বাসা থেকে ডেকে নিয়ে এক ব্যক্তিকে হত্যা

ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে সিঙ্গাপুর প্রবাসীর আত্মহত্যা

ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে সিঙ্গাপুর প্রবাসীর আত্মহত্যা

‘পাবজি খেলাকে কেন্দ্র করে’ স্কুলছাত্রকে হত্যা

‘পাবজি খেলাকে কেন্দ্র করে’ স্কুলছাত্রকে হত্যা

বাসা থেকে ডেকে নিয়ে এক ব্যক্তিকে হত্যা

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ২০:৪৫

নারায়ণগঞ্জে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে সুজন ফকির (৪৫) নামে এক ব্যক্তিকে দুর্বৃত্তরা ছুরিকাঘাতে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার সকাল ৮টায় ফতুল্লার নয়াবাজার মসলিমনগর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত সুজন ফতুল্লার নবীনগরের শাহ আলমের বাড়িতে ভাড়া থাকতেন।

সুজনের স্ত্রী মর্জিনা বেগম জানান, হত্যার ঘটনার আধঘণ্টা আগেই অজ্ঞাত ব্যক্তিরা তাকে মোবাইল ফোনে কল করে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে যায়। পরে তাকে হত্যা করে লাশ ফেলে যায়। সুজন কাজ করতেন বিসিকের একটি পোশাক কারখানায়। জটিল রোগে অসুস্থ হয়ে পড়লে তার অস্ত্রোপচার হয়। সুস্থ হওয়ার পর চাকরি ছেড়ে ভাড়ায় ইজিবাইক চালানো শুরু করেন তিনি।

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি মো. রাকিবুজ্জামান জানান, ধারণা করা হচ্ছে, পরিকল্পিতভাবে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে সুজনকে হত্যা করা হয়েছে। হত্যার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে। এ ঘটনায় নিহতের ছেলে বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে।

 

/এমএএ/

সম্পর্কিত

ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে সিঙ্গাপুর প্রবাসীর আত্মহত্যা

ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে সিঙ্গাপুর প্রবাসীর আত্মহত্যা

স্বামীকে হত্যার অভিযোগে স্ত্রী আটক

স্বামীকে হত্যার অভিযোগে স্ত্রী আটক

‘পাবজি খেলাকে কেন্দ্র করে’ স্কুলছাত্রকে হত্যা

‘পাবজি খেলাকে কেন্দ্র করে’ স্কুলছাত্রকে হত্যা

আবাসিক হোটেলে গার্মেন্টসকর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ, স্বামী আটক

আবাসিক হোটেলে গার্মেন্টসকর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ, স্বামী আটক

টিকার লাইনে দাঁড়ানো নারীর চেইন ছিনতাই, আটক ৫

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ২০:৪৪

বগুড়ার শিবগঞ্জে করোনাভাইরাসের টিকা নিতে লাইনে দাঁড়ানো মরিয়ম বেগম (৫০) নামের এক নারীর গলা থেকে সোনার চেইন ছিনিয়ে নিয়ে পালানোর সময় পাঁচ নারীকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে উপস্থিত জনতা। শনিবার (১৬ অক্টোবর) সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চত্বরে ঘটনাটি ঘটে।

আটকদের গ্রেফতার দেখিয়ে বিকালে আদালতের মাধ্যমে বগুড়া জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। শিবগঞ্জ থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম জানান, এদের বাড়ি হবিগঞ্জ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়াতে হলেও তারা স্থানীয় মোকামতলায় ভাড়া বাড়িতে থেকে চুরি, ছিনতাই, পকেটকাটাসহ বিভিন্ন অপরাধ করতেন।

গ্রেফতার নারীরা হলেন- ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলার দলমডল গ্রামের ইউনুস আলীর স্ত্রী নাজমা বেগম (৩৫), একই এলাকার কাওসার আলীর স্ত্রী ফুলতারা বেগম (২৫), মো. শামীমের স্ত্রী রাবেয়া বেগম (২১) এবং হবিগঞ্জ জেলা সদরের উচাইল গ্রামের আলমগীর হোসেনের স্ত্রী শাহানা বেগম (২৫) ও একই জেলার চুনারুঘাট উপজেলার জোয়ার লালচাঁন গ্রামের বাশির উদ্দিনের স্ত্রী জোসনা বেগম (২৬)।

পুলিশ ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, শনিবার সকাল ১০টার দিকে শিবগঞ্জ উপজেলার মোকামতলা ইউনিয়নের চকপাড়া গ্রামের হুজ্জাতুল ইসলামের স্ত্রী মরিয়ম বেগম করোনার টিকার দ্বিতীয় ডোজের টিকা নিতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসেন। তিনি টিকাদান কেন্দ্রের সামনে অন্যদের সঙ্গে লাইনে দাঁড়ান। এ সময় নাজমা বেগম ও তার চার সহযোগী মরিয়মের গা ঘেঁষে দাঁড়ান। তাদের সরে যেতে বলা হলেও কর্ণপাত করেননি। এক পর্যায়ে পেছনে থাকা নাজমা বেগম বোরকার ভেতরে হাত দিয়ে গলা থেকে সোনার চেইন ছিনিয়ে নিয়ে দৌড় দেন। মরিয়ম বেগম টের পেয়ে চিৎকার দিলে উপস্থিত জনতা তাকে হাতেনাতে আটক করেন। এছাড়া পলায়নরত তার চার সহযোগীকেও আটক করা হয়। পরে তাদের শিবগঞ্জ থানা পুলিশে সোপর্দ করা হয়। এ বিষয়ে মরিয়ম বেগমের ছেলে হাসান আলী থানায় ওই পাঁচ নারীর বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

শিবগঞ্জ থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম আরও জানান, উদ্ধার করা চেইনটি মালিককে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। গ্রেফতার পাঁচজনকে বিকালে আদালতের মাধ্যমে বগুড়া জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

/এফআর/

সম্পর্কিত

মাদকসেবনে বাধা দেওয়ায় স্ত্রীকে হত্যা

মাদকসেবনে বাধা দেওয়ায় স্ত্রীকে হত্যা

স্বামীকে হত্যার অভিযোগে স্ত্রী আটক

স্বামীকে হত্যার অভিযোগে স্ত্রী আটক

যমুনার খালে গোসলে নেমে মেডিক্যাল ছাত্রের মৃত্যু

যমুনার খালে গোসলে নেমে মেডিক্যাল ছাত্রের মৃত্যু

২৬ বই-লিফলেটসহ শিবিরের ২ নেতা আটক

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ২০:১৫

মৌলভীবাজারে বিশেষ অভিযান চালিয়ে ২৬ বই ও লিফলেটসহ শিবিরের দুই নেতাকে আটক করেছে মডেল থানা পুলিশ। শুক্রবার (১৫ অক্টোবর) রাতে মৌলভীবাজার পৌর শহরের ৬৪১ পূর্ব সুলতানপুর এলাকায় চাঁদ মিয়ার বসত বাড়ি থেকে বৈঠক করার সময় তাদের আটক করা হয়।

আটকরা হলেন- মৌলভীবাজার টাউন সিনিয়র মাদ্রাসার ছাত্র শিবিরের সভাপতি সাব্বির ইসলাম তানভির ও সাধারণ সম্পাদক কুতুব উদ্দিন মোহাম্মদ বখতিয়ার। তাদের মধ্যে সাব্বিরের বাড়ি রাজনগর উপজেলায় ও কুতুব উদ্দিনের বাড়ি কুলাউড়া উপজেলার টাট্রিউলি গ্রামে।

শনিবার (১৬ অক্টোবর) দুপুরে মৌলভীবাজার পুলিশ সুপার হলরুমে এক সংবাদ সম্মেলনে জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) হাসান মো. নাসের রিকাবদার জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাদেরকে আটক করা হয়েছে। তারা ঘটনাস্থলে রাষ্ট্রদ্রোহী ও ধ্বংসাত্মক এবং সন্ত্রাসী কার্যক্রমের জন্য গোপনে বৈঠক করছিল। এ সময় অন্যান্যরা দৌড়ে পালিয়ে গেলেও তানভির ও বখতিয়ারকে পুলিশ আটক করতে সক্ষম হয়।

তিনি আরও জানান, তাদের কাছ থেকে জামায়াতে ইসলামী ও ছাত্র শিবিরের জিহাদি বই, লিফলেট, চাঁদা আদায়ের রশিদ, মোবাইল ফোনসহ ২৬ ধরনের বই উদ্ধার করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে আরও জানানো হয়, সম্প্রতি পূজামণ্ডপে হামলার সঙ্গে তাদের কোনও সম্পৃক্ততা নেই। রিমান্ডের জন্য আদালতে আবেদন জানানো হবে। এছাড়া দুর্গাপূজার সময় সংঘটিত কর্মকাণ্ডে কুলাউড়া ও কমলগঞ্জ উপজেলায় পৃথক পাঁচটি মামলা দায়ের করা হয়েছে এবং দুই জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

/এফআর/

সম্পর্কিত

ষড়যন্ত্রকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেবে সরকার: পরিবেশমন্ত্রী

ষড়যন্ত্রকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেবে সরকার: পরিবেশমন্ত্রী

কুমিল্লার ঘটনায় কাদের যোগসাজশ তা বের হবে: পরিবেশ মন্ত্রী

কুমিল্লার ঘটনায় কাদের যোগসাজশ তা বের হবে: পরিবেশ মন্ত্রী

সন্তানদের সাঁতার শেখাতে গিয়ে পাইলটের মৃত্যু

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ২০:০৩

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে সন্তানদের পুকুরে সাঁতার শেখানোর সময় হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে কাজি মফিজুর রহমান (৪৪) নামে বিমান বাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত এক উইং কমান্ডারের (পাইলট) মৃত্যু হয়েছে। শনিবার দুপুর ১২টায় উপজেলার মধ্য কেরোয়া গ্রামের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

মফিজুর রহমান ওই গ্রামের মৃত কাজি সিদ্দিকুর রহমানের তৃতীয় সন্তান। তার স্ত্রীসহ এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।

পাইলট মফিজুর রহমানকে দুপুর আড়াইটার দিকে তার ঢাকার বসুন্ধরা গ্রিন সিটির বাসায় নেওয়া হয়েছে। বিকালে বিমানবাহিনীর সদর দফতরে জানাজা শেষে তাকে ঢাকাতেই দাফন করা হবে বলে পারিবারিক সূত্র জানা গেছে।

মৃতের স্বজন কাজি ফরিদ হোসেন ও কাজি এরফান জানান, মফিজুর রহমান ১৯ বছর চাকরিজীবন শেষে স্বেচ্ছায় অবসর নেন। গত দুই বছর ধরে তিনি একটি বেসরকারি বিমান সংস্থায় পাইলট হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তার স্ত্রীসহ এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। বৃহস্পতিবার ছুটিতে মধ্য কেরোয়া গ্রামের বাড়িতে বেড়াতে আসেন তিনি। শনিবার সকাল ১১টায় ওই এলাকার সাত জন অসহায় পরিবারকে সেলাইমেশিন দান করেন। দুপুর ১২টার সময় নিজেদের বাড়ির পুকুরে ছেলেমেয়েকে সাঁতার শেখাচ্ছিলেন। এ সময় বুকে হঠাৎ ব্যথা উঠে ডুবে যান তিনি। ছেলেমেয়ের চিৎকারে স্বজনরা এগিয়ে গিয়ে মফিজকে উদ্ধার করে রায়পুর সরকারি হাসপাতালে নেন। কর্তব্যরত ডাক্তার তাহমিনা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

রায়পুর পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবুল হোসেন বলেন, ‘বেসরকারি বিমানের পাইলট মফিজুর রহমান ভালো লোক ছিলেন। তার মৃত্যুতে আমরা শোকাহত।’

/এমএএ/

সম্পর্কিত

দিনাজপুরে বজ্রাঘাতে ২ জনের মৃত্যু

দিনাজপুরে বজ্রাঘাতে ২ জনের মৃত্যু

দুই সন্তানসহ স্ত্রীর লাশ উদ্ধার, স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা

দুই সন্তানসহ স্ত্রীর লাশ উদ্ধার, স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা

পুকুরে ডুবে ভাইবোনের মৃত্যু

পুকুরে ডুবে ভাইবোনের মৃত্যু

ট্রাকের পেছনে বাসের ধাক্কা, নিহত বেড়ে ৭

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৫৯

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ত্রিশালের চেলেরঘাটে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে সাত জনে দাঁড়িয়েছে। শনিবার (১৬ অক্টোবর) সন্ধ্যায় ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৪৫ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি মারা যান।

এর আগে, বিকাল ৩টায় মহাসড়কে দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকের পেছনে শেরপুরগামী রহিম পরিবহনের বাসটি (ময়মনসিংহ গ ১১-০৯৪৮) ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই একই পরিবারের চার জনসহ পাঁচ জন নিহত হন। এ ঘটনায় ১০ জন আহত হয়েছে। তাদের উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানে আরেকজন মারা যান। এই নিয়ে হাসপাতালে দুই জনের প্রাণ গেছে। ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. জাকিউল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নিহতরা হলেন- ফুলপুর উপজেলা হুজু (৩০), তার স্ত্রী ফাতেমা (২৮), ছেলে আব্দুল্লাহ (১০) ও মেয়ে আজমিনা (৮)। বাকি তিন জনের নাম-পরিচয় এখনও জানা যায়নি। এ ঘটনায় আহতদের ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

ত্রিশাল থানার ওসি মাইন উদ্দিন জানান, উপজেলার চেলেরঘাট নামক স্থানে দাঁড়িয়ে থাকা ড্রাম ট্রাকের পেছনে শেরপুরগামী বাস ধাক্কা দিলে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। মহাসড়কে গাড়ি চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

/এফআর/

সম্পর্কিত

দিনাজপুরে বজ্রাঘাতে ২ জনের মৃত্যু

দিনাজপুরে বজ্রাঘাতে ২ জনের মৃত্যু

পরিবারের ৪ জনকে হারিয়ে সড়কে বসেই বিলাপ

পরিবারের ৪ জনকে হারিয়ে সড়কে বসেই বিলাপ

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

বাসা থেকে ডেকে নিয়ে এক ব্যক্তিকে হত্যা

বাসা থেকে ডেকে নিয়ে এক ব্যক্তিকে হত্যা

ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে সিঙ্গাপুর প্রবাসীর আত্মহত্যা

ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে সিঙ্গাপুর প্রবাসীর আত্মহত্যা

‘পাবজি খেলাকে কেন্দ্র করে’ স্কুলছাত্রকে হত্যা

‘পাবজি খেলাকে কেন্দ্র করে’ স্কুলছাত্রকে হত্যা

৪২ টাকার নিচে নামছে না পেঁয়াজের দাম

৪২ টাকার নিচে নামছে না পেঁয়াজের দাম

নারীকে বাঁচাতে যাওয়ায় সাংবা‌দি‌ককে মারধর, গ্রেফতার ১ 

নারীকে বাঁচাতে যাওয়ায় সাংবা‌দি‌ককে মারধর, গ্রেফতার ১ 

শুধু বাহবায় বড় ক্রিকেটার হওয়া যায় না, সাদিদ প্রসঙ্গে তার মা 

শুধু বাহবায় বড় ক্রিকেটার হওয়া যায় না, সাদিদ প্রসঙ্গে তার মা 

ইজিবাইকে ছিনতাইয়ের জন্যই কি হত্যা?  

ইজিবাইকে ছিনতাইয়ের জন্যই কি হত্যা?  

কুমিল্লার ঘটনায় কাদের যোগসাজশ তা বের হবে: পরিবেশ মন্ত্রী

কুমিল্লার ঘটনায় কাদের যোগসাজশ তা বের হবে: পরিবেশ মন্ত্রী

সর্বশেষ

দুই ডোজ টিকার আওতায় ১ কোটি ৮৯ লাখ মানুষ

দুই ডোজ টিকার আওতায় ১ কোটি ৮৯ লাখ মানুষ

ইয়েমেনে সৌদি জোটের হামলায় ১৬০ হুথি বিদ্রোহী নিহত

ইয়েমেনে সৌদি জোটের হামলায় ১৬০ হুথি বিদ্রোহী নিহত

কুমিল্লার ঘটনায় জড়িতদের শিগগিরই বিচারের আওতায় আনা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

কুমিল্লার ঘটনায় জড়িতদের শিগগিরই বিচারের আওতায় আনা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

বাসা থেকে ডেকে নিয়ে এক ব্যক্তিকে হত্যা

বাসা থেকে ডেকে নিয়ে এক ব্যক্তিকে হত্যা

‘এ’ ইউনিটে প্রতি আসনে লড়বেন ১১ শিক্ষার্থী

কাল থেকে গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা শুরু‘এ’ ইউনিটে প্রতি আসনে লড়বেন ১১ শিক্ষার্থী

© 2021 Bangla Tribune