X
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ৩ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

দুই কারণে ড্রিমলাইনার বিমানে: প্রধানমন্ত্রী

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:২৩

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আমি শুনলাম, কেউ কেউ বলেছে, আমি নাকি কত বস্তা, না কত ট্রাঙ্ক বৈদেশিক মুদ্রা নিয়ে না কি বিমানে এসেছি। যারা এই কথাগুলো বলেছে, তারা যখন এই বিষয়টা জানে, তো সেই ট্রাঙ্কগুলো গেল কোথায়, রাখলাম কোথায়, কী হল? সেই খোঁজটা তারা একটু দিক।’

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ড্রিমলাইনার বিমানে করে দুটি কারণে নিউইয়র্কে এসেছেন বলে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, প্রথম কারণ হচ্ছে- অন্য এয়ারলাইন্সের পরিবর্তে দেশীয় একটি এয়ারলাইন্সকে অর্থ প্রদান এবং এভাবে আমাদের নিজের হাতেই এ ধরনের অর্থ থেকে যায়।

নিউইয়র্ক সময় শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) লাগার্ডিয়া এয়ারপোর্টের ম্যারিয়ট হোটেলে আওয়ামী লীগের ইউএস চ্যাপ্টার আয়োজিত এক ভার্চুয়াল সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন শেখ হাসিনা।

সরকারপ্রধান বলেন, খালেদা জিয়া ক্ষমতায় থাকাকালে ১৫০টি সুটকেসে অর্থ ভর্তি করে সৌদি আরবে গিয়েছিলেন এবং সৌদি আরবের লকার ভাড়া করে ওই অর্থ রেখেছেন। তার স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বাবরকে কয়েক লাখ ডলারসহ যুক্তরাষ্ট্রের এয়ারপোর্টে আটক করা হয় এবং পরে বাংলাদেশি দূতাবাসের মধ্যস্থতায় তাকে মুক্ত করা হয়। বাংলাদেশের পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রেও দুর্নীতির সাথে খালেদা জিয়া ও তার দুই ছেলের সম্পৃক্ততার তথ্য পাওয়া গেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, তার দুই ছেলে তারেক জিয়া ও কোকো দেশ থেকে অর্থ পাচারের মামলায় দোষী সাব্যস্ত হয়েছে। সরকার তাদের পাচার করা অর্থের একটি অংশ ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিদেশে অর্থ পাচারের মাধ্যমে সেখানে বিলাসী জীবন যাপন করাই তাদের চরিত্র।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘যখনই আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকে, তখনই বাংলাদেশ সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যেতে থাকে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যদি একটি বিমান উড্ডয়ন না করে বিমানবন্দরেই থেকে যায়, তাহলেও প্রতিদিন একটি বিরাট অংকের টাকা খরচ হয়। এমনিতেই করোনাভাইরাসের কারণে বিমানবন্দরের আন্তর্জাতিক ফ্লাইটগুলো স্থগিত রয়েছে।

তিনি বলেন, তার সরকার ঢাকা-নিউইয়র্ক রুটে পুনরায় বিমান পরিচালনা শুরু করতে একটি প্রক্রিয়া শুরু করেছে। যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না তারা মূলত ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে দেশে এবং বিদেশে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করছে। বিদেশে অবস্থানরত কিছু লোক (সরকারের) সমালোচনা এবং দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করতে ব্যস্ত। এমন সময়ে তারা এসব করছে, যখন আওয়ামী লীগ সরকার দেশকে মর্যাদাপূর্ণ অবস্থানে নিয়ে গেছে। কেউই যাতে দেশে মানুষের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে না পারে সেব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী সকলকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান।

কিছু মানুষ আওয়ামী লীগ সরকারকে অবৈধ হিসেবে আখ্যায়িত করছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমার প্রশ্ন হল তারা কিভাবে এই কথাগুলো বলার সুযোগ পায়? যদি তাদের কোনও আদর্শ থাকে, তারা কখনোই তা করতে পারে না। যারা সরকারের সমালোচনা করছে তারা মূলত বিএনপি-জামায়াত চক্রের কেনা গোলাম।

তিনি বলেন, জিয়াউর রহমানের স্ত্রী খালেদা জিয়া এতিমদের অর্থ আত্মসাতের জন্য দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন এবং তার ছেলে (তারেক রহমান) ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলা এবং ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রের এফবিআই দুর্নীতিতে তাদের জড়িত থাকার তথ্য প্রকাশ করেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে জয়কে (সজীব আহমেদ ওয়াজেদ) অপহরণ ও হত্যার জন্য বিএনপি টাকা দিয়েছিল। কিন্তু, এখন তারা আওয়ামী লীগ সরকারকে অবৈধ বলছে।

জনগণের প্রতি বিশ্বাস থাকলে বিএনপিকে সাধারণ নির্বাচনে অংশ নেওয়ার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

পরে সাংবাদিকের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন প্রধানমন্ত্রী। সেখানে প্রবাসীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগ করার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ‘আপনারা বাংলাদেশি প্রবাসীরা মার্কিন নাগরিকদের পাশাপাশি বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে পারেন।’

তিনি বলেন, সারা দেশে প্রায় ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপন করা হচ্ছে। প্রবাসী বাংলাদেশি এবং আমেরিকানরা এ থেকে লাভবান হতে বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে পারেন এবং প্রবাসীরা এতে আরও সুবিধা পাবেন। আমরা সবাইকে ভালো সুযোগ দিচ্ছি। প্রবাসীদের আরও সুবিধা (অন্যদের তুলনায়) দেওয়া হচ্ছে। সুতরাং তারা এ সুযোগটি গ্রহণ করতে পারেন এবং বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে পারেন।

সাংবাদিকদের কাছ থেকে তিনি কী চান এমন প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা বলেন, সংবাদপত্র সমাজের আয়না। সমাজের প্রতি তাদের দায়বদ্ধতা রয়েছে। সুতরাং, নির্বিচারে সমালোচনা না করে একটি গঠনমূলক ভূমিকা পালন করা উচিত। মিথ্যা অভিযোগ করে কাউকে খাটো না করে দেশ ও জনগণের কল্যাণে কাজ করতে হবে। খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সরকারি ব্যবস্থা সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে তার সরকার খাদ্য উৎপাদনে সর্বাধিক অগ্রাধিকার দিয়েছে।

/পিএইচসি/এমআর/

সম্পর্কিত

সব ধর্মের মানুষ নিজ ধর্ম পালন করবে স্বাধীনভাবে: প্রধানমন্ত্রী

সব ধর্মের মানুষ নিজ ধর্ম পালন করবে স্বাধীনভাবে: প্রধানমন্ত্রী

হামলায় জড়িতদের বিরুদ্ধে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে অ্যাকশন নেওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

হামলায় জড়িতদের বিরুদ্ধে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে অ্যাকশন নেওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

সাম্প্রদায়িক অপশক্তির তৎপরতা প্রতিরোধের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

সাম্প্রদায়িক অপশক্তির তৎপরতা প্রতিরোধের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

পীরগঞ্জের ঘটনা তদন্তে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের কমিটি গঠন 

আপডেট : ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৩১

রংপুরের পীরগঞ্জে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করেছে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন। তদন্ত সম্পন্ন করে আগামী ৭ কার্যদিবসের মধ্যে কমিশনের কাছে পূর্ণাঙ্গ তাদের প্রতিবেদন দাখিলের  কথা বলা হয়েছে। সোমবার (১৮ অক্টোবর) কমিশনের পরিচালক (প্রশাসন ও অর্থ) কাজী আরফান আশিক স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে এ তথ্য জানা যায়।

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের পরিচালক (অভিযোগ ও তদন্ত) মোহাম্মদ আশরাফুল আলমকে আহ্বায়ক করে গঠিত কমিটির অপর দুই সদস্য হলেন রংপুরের জেলা প্রশাসক মনোনীত একজন প্রতিনিধি এবং জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের উপ-পরিচালক এমএ রবিউল ইসলাম। 

অফিস আদেশে বলা হয়, বসতভিটা ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনা অত্যন্ত নিন্দনীয়, যা মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন। কমিটি ঘটনার প্রকৃত চিত্র উদঘাটন, মানবাধিকার লঙ্ঘনবিষয়ক তথ্যাদি সংগ্রহ ও বিশ্লেষণ, স্থানীয় প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দায়িত্বে কোনও অবহেলা ছিল কিনা, সে বিষয়ে তথ্য অনুসন্ধান করবে।

এতে আরও বলা হয়, পীরগঞ্জ উপজেলার রামনাথপুর ইউনিয়নের মাঝিপাড়াসহ অন্যান্য কয়েকটি স্থানে বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনা জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের দৃষ্টিগোচর হয়। প্রকাশিত সংবাদ প্রতিবেদন মতে, গত রবিবার রাত ১০টার দিকে দুর্বৃত্তরা এ হামলা করে।

 

/আরটি/আইএ/

সম্পর্কিত

সব ধর্মের মানুষ নিজ ধর্ম পালন করবে স্বাধীনভাবে: প্রধানমন্ত্রী

সব ধর্মের মানুষ নিজ ধর্ম পালন করবে স্বাধীনভাবে: প্রধানমন্ত্রী

গণমাধ্যম এড়িয়ে গেলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

গণমাধ্যম এড়িয়ে গেলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

জাকাত ব্যবস্থাপনায় নতুন আইন মন্ত্রিসভায় অনুমোদন

জাকাত ব্যবস্থাপনায় নতুন আইন মন্ত্রিসভায় অনুমোদন

২৩ সদস্যের প্রতিনিধি দল নিয়ে দিল্লি গেলেন নৌ সচিব

২৩ সদস্যের প্রতিনিধি দল নিয়ে দিল্লি গেলেন নৌ সচিব

সব ধর্মের মানুষ নিজ ধর্ম পালন করবে স্বাধীনভাবে: প্রধানমন্ত্রী

আপডেট : ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১৮:২৯

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন,  বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িক চেতনার দেশ। সব ধর্মের মানুষ তার ধর্ম পালন করবে স্বাধীনভাবে। সেটাই আমাদের লক্ষ্য। তিনি বলেন, ‘এত রক্ত ক্ষয়, এত কিছু বাংলাদেশে ঘটে গেছে, আর যেন এ ধরনের ঘটনা না ঘটে।’

মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট ছেলে শেখ রাসেলের জন্মদিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে যুক্ত হন তিনি।

পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট হত্যাকাণ্ডের বিচার প্রক্রিয়া বর্ণনা করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘খুনিদের প্রতি খালেদা জিয়ার এই যে পক্ষপাতিত্ব এটার কারণটা কী? কারণটা খুব স্পষ্ট। কারণ, খুনি মোশতাকের সঙ্গে  জিয়াউর রহমান সম্পূর্ণভাবে এই খুনের সঙ্গে জড়িত ছিল। এই রাসেলকে সর্বশেষে হত্যা করা হয়। বলা হয়েছিল, ওই ছোট্ট শিশুটি যেন বাঁচে না। এই নির্দেশটা কে দিয়েছিল? কারা দিয়েছিল? সব শেষে, সব চেয়ে এটাই কষ্টের।’

তিনি বলেন, ‘যখন বিরোধী দলে ছিলাম তখনও চেষ্টা করেছি, এখনও চেষ্টা করি এই দেশের শিশুরা তাদের লেখাপড়া, তাদের চিকিৎসা ব্যবস্থা, তারা যেন নিয়মিত স্কুলে যেতে পারে। আজকে যেমন আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ করেছি, সেই ডিজিটাল বাংলাদেশ, সেইটা তৈরি করার জন্য তাদেরকে প্রস্তুত করা, তাদেরকে ট্রেনিং দেওয়া, সব রকম ব্যবস্থা করে দিচ্ছি।’

সরকার প্রধান বলেন, ‘শিশুর নিরাপত্তা, শিশু অধিকার আইন তো জাতির পিতা ১৯৭৪ সালে করে দিয়ে গেছেন। প্রাথমিক শিক্ষাটাকে অবৈতনিক করে দিয়ে গেছেন, বাধ্যতামূলক করে দিয়ে গেছেন। কাজেই আমার বাবার আদর্শ নিয়েই আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। আমাদের এই দেশের শিশুরা যেন আর  এই নির্মমতার শিকার না হয়।’

তিনি বলেন, ‘কিন্তু দুর্ভাগ্য আমাদের, এখনও আমরা দেখি, সেই নির্মমতা এখনও মাঝে মাঝে দেখি। পরবর্তীতেও আমরা দেখেছি। কিন্তু এইটা যেন না হয়। দেখেছি, আগুন দিয়ে পুড়িয়ে কীভাবে হত্যা করা হচ্ছে জ্যান্ত মানুষগুলোকে, শিশুকে পর্যন্ত। এই খালেদা জিয়া বিরোধী দলে থাকতে অগ্নিসন্ত্রাস করে চলন্ত বাসে আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়েছে। বাপ দেখেছে নিজের চোখের সামনে আগুনে পুড়ে সন্তান মারা যাচ্ছে। সে রকম নিষ্ঠুর ঘটনা তো বাংলাদেশে ঘটেছে। এটাই হচ্ছে সব থেকে দুর্ভাগ্য এই বাংলাদেশের।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি এইটুকু চাইবো, এখানে মানবতার প্রশ্ন যারা তোলে, তারা যেন এই ঘটনাগুলো ভালোভাবে দেখে যে, বাংলাদেশে কী ঘটলো। কিন্তু আমরা সরকারে আসার পর থেকে আমাদের প্রচেষ্টা— যেকোনও শিশু রাস্তায় ঘুরে বেড়াবে না, টোকাই থাকবে না। তাদের যেন একটা ঠিকানা থাকে, তারা যেন একটু ভালোভাবে বসবাস করতে পারে।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের একটাই লক্ষ্য— এই দেশের প্রতিটি গৃহহীন মানুষ একটা ঘর পাবে। প্রতিটি মানুষ শিক্ষা পাবে। চিকিৎসা পাবে। ভালোভাবে বাঁচবে। প্রতিটি শিশু তার যে মেধা, তার যে জ্ঞান, তার যে বুদ্ধি সেটা যেন বিকশিত হতে পারে। বাংলাদেশকে তারা যেন সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে। সেই চেষ্টাই আমি করে যাচ্ছি।’

/পিএইচসি/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

গণমাধ্যম এড়িয়ে গেলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

গণমাধ্যম এড়িয়ে গেলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

জাকাত ব্যবস্থাপনায় নতুন আইন মন্ত্রিসভায় অনুমোদন

জাকাত ব্যবস্থাপনায় নতুন আইন মন্ত্রিসভায় অনুমোদন

২৩ সদস্যের প্রতিনিধি দল নিয়ে দিল্লি গেলেন নৌ সচিব

২৩ সদস্যের প্রতিনিধি দল নিয়ে দিল্লি গেলেন নৌ সচিব

‘পল্লবীর সাহিনুদ্দিন হত্যার ভিডিও নোয়াখালীর যতন সাহার বলে অপপ্রচার’

‘পল্লবীর সাহিনুদ্দিন হত্যার ভিডিও নোয়াখালীর যতন সাহার বলে অপপ্রচার’

গণমাধ্যম এড়িয়ে গেলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

আপডেট : ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১৮:১২

সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনায় সচিবালয়ে মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) সাংবাদিকদের ব্রিফ করার কথা ছিল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের। কিন্তু তিনি এ সংবাদ সম্মেলন এড়িয়ে গেছেন। 

জানা যায়, কুমিল্লা ও রংপুরে হামলার ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত খুঁজে বের করতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে ইনস্ট্যান্ট অ্যাকশনে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এ নির্দেশ দেওয়া হয়। নির্দেশনা অনুসারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রধানদের নিয়ে জরুরি সভাও করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। বিষয়টি নিয়ে পৃথক সভা করেন ১৪ দলীয় নেতাদের সঙ্গেও। এ সভায় রাশেদ খান মেনন, দিলীপ বড়ুয়া, মাহবুবুল আলম হানিফসহ অন্য নেতারা এসেছিলেন সাম্প্রদায়িক উসকানিমূলক ঘটনার বিচারের দাবি নিয়ে। বলা ছিল এই সভার মূল অংশ গণমাধ্যমকে ব্রিফ করবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সচিবালয়ে দায়িত্বরত সাংবাদিকরাও উপস্থিত হয়েছিলেন। কিন্তু স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বৈঠকের বিষয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেননি। সাংবাদিকদের এড়িয়ে সচিবালয় ত্যাগ করেছেন আসাদুজ্জামান খান কামাল।

অপরদিকে, মন্ত্রিপরিষদের সভা শেষে অনুষ্ঠিত নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংয়ে কেবিনেট সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম জানিয়েছিলেন, যারা এর সঙ্গে জড়িত আছে, তাদের অবশ্যই ধরতে হবে। পাশাপাশি জনগণকে একটু ধৈর্য ধরতে হবে, রিঅ্যাকশন করা যাবে না। কুমিল্লা ও রংপুরের হামলার ঘটনায় জড়িতদের খুব দ্রুত খুঁজে বের করা (ফাইন্ড আউট) হবে।

ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘আজকে অলরেডি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে, ইনস্ট্যান্ট অ্যাকশন নিতে। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব, যারা এগুলোর সূত্রপাত করলো, তাদের বিরুদ্ধে অ্যাকশন নেবে। পাশাপাশি ধর্মীয় ও রাজনৈতিক ব্যক্তিদের বলা হয়েছে, ছোটখাট টুইস্টিং কেউ করলেই এভাবে রিঅ্যাকশন করা যাবে না।’

খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘ফেসবুক বন্ধের বিষয়ে কেবিনেট মিটিংয়ে কোনও আলোচনা হয়নি।’

তিনি জানান, এসব বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নিয়মিত ব্রিফ করছেন, সেখানে আমাদের ইন্টেলিজেন্সও কাজ করছে। গতকাল (১৮ অক্টোবর) রাতেও আমরা বসছিলাম। নিশ্চয়ই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহেব আজকে ব্রিফ করবেন। সেজন্য আমি আর এটা নিয়ে বলছি না। কুমিল্লার বিষয়ে আমার ধারণা যে, খুব তাড়াতাড়িই একটা ফাইন্ড আউট হবে।’

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘কেবিনেট মিটিংয়ে পরিষ্কার করে দেওয়া হয়েছে, হোম মিনিস্ট্রিকে ইনস্ট্যান্ট অ্যাকশনে যেতে হবে। যারা এর সঙ্গে জড়িত আছে, তাদের অবশ্যই ধরতে হবে। পাশাপাশি জনগণকে একটু ধৈর্য ধরতে হবে, রিঅ্যাকশন করা যাবে না।’

তিনি বলেন, ‘আমার কোরআনের যদি কেউ অবমাননা করে, কোরআন আমাকে অনুমতি দেয়নি যে ঘরবাড়ি ভাঙবো। এটা ঠিক না। এটা অপরাধ। ধর্ম নিয়ে কেউ অবমাননা করলে প্রতিবাদ করতে পারি, সরকারের কাছে দাবি করতে পারি যে, ধরে শাস্তি দিতে হবে। কিন্তু ধ্বংসাত্মক কাজ করবো, এটা সম্পূর্ণ আন-এক্সপেকটেবল, ঠিক না। ইসলামে যেটা সবচেয়ে বড় অপরাধ ফিতনা।’

 

/আইএ/

সম্পর্কিত

জাকাত ব্যবস্থাপনায় নতুন আইন মন্ত্রিসভায় অনুমোদন

জাকাত ব্যবস্থাপনায় নতুন আইন মন্ত্রিসভায় অনুমোদন

২৩ সদস্যের প্রতিনিধি দল নিয়ে দিল্লি গেলেন নৌ সচিব

২৩ সদস্যের প্রতিনিধি দল নিয়ে দিল্লি গেলেন নৌ সচিব

‘পল্লবীর সাহিনুদ্দিন হত্যার ভিডিও নোয়াখালীর যতন সাহার বলে অপপ্রচার’

‘পল্লবীর সাহিনুদ্দিন হত্যার ভিডিও নোয়াখালীর যতন সাহার বলে অপপ্রচার’

প্যারিসে বাংলাদেশ দূতাবাসে শেখ রাসেল দিবস উদযাপিত

আপডেট : ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১৭:২১

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট ছেলে শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন উপলক্ষে প্যারিসে বাংলাদেশ দূতাবাস ‘শেখ রাসেল দিবস’ উদযাপন করেছে।

সোমবার (১৮ অক্টোবর) অনুষ্ঠানের শুরুতে বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের শহীদ সদস্যদের আত্মার শান্তি ও মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। এ ছাড়া দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করে শোনানো হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইউনেস্কো নির্বাহী পরিষদে বাংলাদেশের প্রতিনিধি তারিক সুজাত, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইউনেস্কো বাংলাদেশ জাতীয় কমিশনের ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল সোহেল ইমাম খান।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি শেখ রাসেল সম্পর্কে স্মৃতিচারণ করে বলেন, রাজনৈতিক পরিবারে জন্ম নেওয়া শেখ রাসেলও পরিবারের অন্য সদস্যদের মতো খুবই সাধারণ জীবনযাপন করতেন। রাষ্ট্র প্রধানের সন্তান হিসেবে কখনো তারা জীবন নির্বাহ করেননি।

চার্জ দ্যা অ্যাফেয়ার্স ও মিনিস্টার (রাজনৈতিক) এস.এম. মাহবুবুল আলম বলেন, মাত্র ১০ বছর বয়সে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট মানব ইতিহাসের নৃশংসতম হত্যাযজ্ঞে, কাপুরুষ-ঘাতকের বুলেটে ক্ষত-বিক্ষত হয়ে পরিবারের অন্য সদস্যদের সাথে শাহাদাৎ বরণ করেন শেখ রাসেল। ক্ষমতা দখল কিংবা রাজনৈতিক উদ্দেশ চরিতার্থ করার জন্য পৃথিবীর ইতিহাসে বহু দেশে বিভিন্ন সময়ে রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড, সেনা অভ্যুত্থান হয়েছে। কিন্তু অন্তঃসত্ত্বা নারী ও কোমলমতি শিশু রাসেলসহ পুরো পরিবারের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুকে যেভাবে হত্যা করা হয়েছে তা বিশ্বের ইতিহাসে বিরল।

পরে আলোচনা অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন ফ্রান্স প্রবাসী বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। বক্তারা শেখ রাসেলের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

অনুষ্ঠানে শেখ রাসেলের জীবনের ওপর নির্মিত একটি ভিডিও তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। এ সময় উল্লেখযোগ্য সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশি ও দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী উপস্থিত ছিলেন।

শেখ রাসেল দিবস উপলক্ষে দূতাবাস দুই দিনব্যাপী অনুষ্ঠান আয়োজন করে। গত ১৭ অক্টোবর   দূতাবাস প্রাঙ্গণে প্রবাসী শিশু-কিশোরদের অংশগ্রহণে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে শিশু-কিশোররা অংশগ্রহণ করে। শেষে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

/এমএস/

জাকাত ব্যবস্থাপনায় নতুন আইন মন্ত্রিসভায় অনুমোদন

আপডেট : ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১৭:১৯

‘জাকাত তহবিল ব্যবস্থাপনা আইন, ২০২১’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

মন্ত্রিসভার বৈঠকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে গণভবন থেকে শেখ হাসিনা ও সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীরা বৈঠকে যোগ দেন।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম জানান, জাকাত তহবিল গঠন করা হবে। তহবিলের অর্থ সরকারিভাবে সংগৃহীত হবে। প্রবাসী বাংলাদেশি, বিদেশি যেকোনও ব্যক্তি বা সংস্থা থেকে প্রাপ্ত অর্থ যে কোনও তফসিলি ব্যাংকের জাকাত ফান্ডে জমা দিয়ে জাকাত আদায় করতে পারবেন। আর একটি বোর্ড থাকবে। ধর্মমন্ত্রী বা প্রতিমন্ত্রী এই বোর্ডের চেয়ারম্যান হবেন। জাকাত বোর্ডে সদস্য থাকবে ১০ জন। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে কমিটি করে দেওয়া হবে ইসলামি ফাউন্ডেশন বা ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে। কালেকশন ও ডিস্ট্রিবিউশনটা তারা করবেন। কাকে কাকে কীভাবে দেবে, এটা তারাই ঠিক করবে। তাদের একটি অ্যাকাউন্ট থাকবে, সেখান থেকে তারা অর্থ সংগ্রহ করবে।

মন্ত্রিসভার বৈঠকে অনুমোদন পাওয়া আইনটিতে ১৪টি ধারা রয়েছে জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘সরকারিভাবে জাকাত সংগ্রহ ও বিতরণ করা হবে এবং আধুনিক তথ্য ও প্রযুক্তি ব্যবহার করে সরকারিভাবে যাকাতদানে উদ্বুদ্ধ করা হবে। জাকাত সংগ্রহ কেন্দ্র স্থাপন, জাকাতদানে আগ্রহী ব্যক্তিদের যাকাতযোগ্য সম্পদের বিষয়টি খসড়া আইনে রয়েছে।’

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘সুরা তাওবায় প্রিসাইসলি সাতটি ক্যাটাগরি করে দেওয়া হয়েছে, প্রত্যেক ব্যক্তি যে জাকাতযোগ্য, সেই সাত ক্যাটাগরির যেকোনও একজনকে জাকাত দিতে পারবেন। বিভিন্ন ইসলামিক দেশগুলোতে বোর্ড আছে। অনেকেরই হয়তো ব্যক্তিগতভাবে দেওয়ার সুযোগ থাকে না, সে হয়তো যাকাত ফান্ডে দিয়ে দিলেন। তখন জাকাত ফান্ড তার পক্ষে জাকাত আদায় করে দেবে।’

সচিব বলেন, ‘কোরআনে পরিষ্কার বলে দেওয়া হয়েছে যে, তোমার যখন সাড়ে সাত ভরি স্বর্ণ বা ওই পরিমাণ টাকা যদি এক বছর থাকে, তাহলে আড়াই শতাংশ জাকাত দিতে হবে। সেটা যদি ব্যক্তিগতভাবে দিলেন তো দিলেন, না-হলে সরকারি ফান্ডে দিলে সেটাও দিতে পারবেন।’

খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘আপনি যখন হজে যাবেন, আপনি কিন্তু কোরবানি করতে যাবেন না। আপনি টাকা জমা দিয়ে দেবেন, ব্যাংক একটা টাইম দিয়ে দেবে, ১০ তারিখ এতটার সময় আপনার কোরবানি হয়ে যাবে। সেজন্য এ সিস্টেমটা পুরো পৃথিবীতেই আছে।’

/এসআই/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

সব ধর্মের মানুষ নিজ ধর্ম পালন করবে স্বাধীনভাবে: প্রধানমন্ত্রী

সব ধর্মের মানুষ নিজ ধর্ম পালন করবে স্বাধীনভাবে: প্রধানমন্ত্রী

গণমাধ্যম এড়িয়ে গেলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

গণমাধ্যম এড়িয়ে গেলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

২৩ সদস্যের প্রতিনিধি দল নিয়ে দিল্লি গেলেন নৌ সচিব

২৩ সদস্যের প্রতিনিধি দল নিয়ে দিল্লি গেলেন নৌ সচিব

‘পল্লবীর সাহিনুদ্দিন হত্যার ভিডিও নোয়াখালীর যতন সাহার বলে অপপ্রচার’

‘পল্লবীর সাহিনুদ্দিন হত্যার ভিডিও নোয়াখালীর যতন সাহার বলে অপপ্রচার’

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সব ধর্মের মানুষ নিজ ধর্ম পালন করবে স্বাধীনভাবে: প্রধানমন্ত্রী

সব ধর্মের মানুষ নিজ ধর্ম পালন করবে স্বাধীনভাবে: প্রধানমন্ত্রী

হামলায় জড়িতদের বিরুদ্ধে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে অ্যাকশন নেওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

হামলায় জড়িতদের বিরুদ্ধে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে অ্যাকশন নেওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

সাম্প্রদায়িক অপশক্তির তৎপরতা প্রতিরোধের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

সাম্প্রদায়িক অপশক্তির তৎপরতা প্রতিরোধের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

শেখ রাসেলকে নিয়ে দুই বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী

শেখ রাসেলকে নিয়ে দুই বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী

একটা অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বাংলাদেশকে গড়তে চাই: প্রধানমন্ত্রী

একটা অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বাংলাদেশকে গড়তে চাই: প্রধানমন্ত্রী

‘রাসেল নামটি শুনলেই যে ছবি সামনে ভেসে আসে...’

‘রাসেল নামটি শুনলেই যে ছবি সামনে ভেসে আসে...’

সর্বশেষ

পীরগঞ্জের ঘটনা তদন্তে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের কমিটি গঠন 

পীরগঞ্জের ঘটনা তদন্তে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের কমিটি গঠন 

সব ধর্মের মানুষ নিজ ধর্ম পালন করবে স্বাধীনভাবে: প্রধানমন্ত্রী

সব ধর্মের মানুষ নিজ ধর্ম পালন করবে স্বাধীনভাবে: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রীর ছবি বিকৃতি, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মাদরাসাশিক্ষক গ্রেফতার

প্রধানমন্ত্রীর ছবি বিকৃতি, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মাদরাসাশিক্ষক গ্রেফতার

গুচ্ছ আলোচনা অনুষ্ঠান ‘ভিশনারিসে’র যাত্রা শুরু

গুচ্ছ আলোচনা অনুষ্ঠান ‘ভিশনারিসে’র যাত্রা শুরু

ধর্মীয় সহিংসতায় ক্ষতিগ্রস্তদের প্রতি সমবেদনা যুক্তরাষ্ট্রের

ধর্মীয় সহিংসতায় ক্ষতিগ্রস্তদের প্রতি সমবেদনা যুক্তরাষ্ট্রের

© 2021 Bangla Tribune