X
মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১০ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

যুবদলের পকেট কমিটি বাতিলের দাবিতে ঝাড়ু ও জুতা মিছিল

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৫৫

ব্রাহ্মণবাড়িয়া আখাউড়া উপজেলা ও পৌর যুবদলের পকেট কমিটি বাতিলের দাবিতে ঝাড়ু ও জুতা মিছিল করেছেন যুবদলের নেতাকর্মীরা। রবিবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে আখাউড়া পৌর এলাকার তারাগন এলাকায় এই বিক্ষোভ মিছিল করা হয়।

এ সময় যুবদলের নেতাকর্মীরা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের একান্ত সচিব আব্দুর রহমান সানী এবং তার বড় ভাই ভূঁইয়া ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান কবির আহমেদ ভূঁইয়ার কুশপুত্তলিকা দাহ করেন।

জানা গেছে, পূর্ব ঘোষিত বিক্ষোভ কর্মসূচি অনুযায়ী বেলা ১১টার দিকে আখাউড়া যুবদলের নেতাকর্মীরা তারাগন মাঝার এলাকা থেকে ব্যানার ফেস্টুনসহ এই মিছিল বের করেন। পরে মিছিলটি এলাকার গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

বিক্ষোভ মিছিলে আখাউড়া উপজেলা যুবদল নেতা মামুন আহমেদ, জাহাঙ্গীর আলম রানা, মোবাশ্বির আহসান, এফ এ ফোরকান জানান, গত ১২ জুন আখাউড়া উপজেলা যুবদলের পকেট কমিটি অনুমোদন করা হয়। এর তিন মাস পর ১২ সেপ্টেম্বর কমিটি ফেসবুকের মাধ্যমে যুবদলের নতুন কমিটি ঘোষণা করে। তারা এ ঘটনার জন্য আব্দুর রহমান সানী এবং তার বড় ভাই কবির আহমেদ ভূঁইয়াকে দায়ী করে বলেন, ‘মোটা অংকের অর্থ বাণিজ্যের মাধ্যমে সানীর মাধ্যমে তারেক রহমানের নাম ভাঙিয়ে কবির আহমেদ ভূঁইয়া আখাউড়া উপজেলা যুবদলের নতুন কমিটি ঘোষণা করেছেন। কমিটিতে যাদের নাম আছে আখাউড়া উপজেলায় তাদের কোনও অবস্থান নেই।’ তারা অবিলম্বে আগামী সাত দিনের মধ্যে এই পকেট কমিটি বাতিলের দাবি জানান। তা না হলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেন তারা।

এ সময় আব্দুর রহমান সানী এবং কবির আহমেদ ভূঁইয়াকে আখাউড়ায় অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেন উপজেলা যুবদলের নেতারা। পরে সাংবাদিক সম্মেলনে তারা বিভিন্ন দাবি-দাওয়া পেশ করেন।

 

/এমএএ/

সম্পর্কিত

মীরসরাইয়ে বিদ্রোহী প্রার্থীর অফিসে ভাঙচুরের অভিযোগ

মীরসরাইয়ে বিদ্রোহী প্রার্থীর অফিসে ভাঙচুরের অভিযোগ

‘ভবঘুরে’ নয়, রিমান্ডে নতুন তথ্য দিচ্ছেন ইকবাল

‘ভবঘুরে’ নয়, রিমান্ডে নতুন তথ্য দিচ্ছেন ইকবাল

বরকত উল্লাহ বুলুর নাম উল্লেখ করে ফয়সালের জবানবন্দি

বরকত উল্লাহ বুলুর নাম উল্লেখ করে ফয়সালের জবানবন্দি

হাসপাতালে দায়িত্বরত ২ আনসার সদস্যকে ছুরিকাঘাত

হাসপাতালে দায়িত্বরত ২ আনসার সদস্যকে ছুরিকাঘাত

একটি সেতুর জন্য পাঁচ গ্রামের মানুষের দুর্ভোগ

আপডেট : ২৬ অক্টোবর ২০২১, ২১:৩৫

‘আমরা ১৯৬৫ সালে এহানে আইছি। এর থাইকে কষ্ট করতাছি। এই নদীর ওপর এডা ব্রিজ অইলে আমাগো খুব বালা অইতো। আমরা অনেক কষ্ট কইরা নদী পার অই। যেদিন পানি বেশি থাহে, ওই দিন আর বাড়িতে যাবার পাই না। নদীর এপারেই কষ্ট কইরা থাহন নাগে। কত মানুষ আইলো আমাগো ব্রিজ কইরা দেবে। ভোটও দিলাম। কিন্তু ব্রিজ আর অইলো না।’

শেরপুরের শ্রীবরদী উপজেলার সোমেশ্বরী নদীর পাড়ের খারামুরা গ্রামের ৯৫ বছর বয়সী কৃষক আইজুর রহমান এসব কথা বলছিলেন। আইজুর রহমান ১৯৬৫ সালে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে আসাম থেকে বাংলাদেশে এসে সীমান্ত এলাকা শ্রীবরদীর খারামুরা গ্রামে বসতি গড়েন। 

তিনি জানান, সোমেশ্বরী নদীতে একটি সেতুর অভাবে বছরের পর বছর দুর্ভোগ পোহাচ্ছে পাঁচ গ্রামের প্রায় ১৫ হাজার মানুষ। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন পার হচ্ছে শিশুসহ স্কুলের শিক্ষার্থীরা। অনেক জনপ্রতিনিধি কথা দিয়েছিলেন সোমেশ্বরী নদীতে সেতু করে দেবেন। কিন্তু কেউ কথা রাখেননি। শেষ জীবনে সেতু দেখে যেতে চান বৃদ্ধ আইজুর রহমান। 

শুধু আইজুর রহমান নন, স্থানীয় সবার একই অভিযোগ। তারা বলছেন, দেশ স্বাধীনের পর থেকে এই নদীর ওপর একটি সেতু নির্মাণের দাবি থাকলেও শোনেনি কর্তৃপক্ষ। যদিও বরাবরের মতো আশ্বাস দিয়েছেন উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের (এলজিইডি) প্রকৌশলীরা।

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন পার হচ্ছে মানুষ

স্থানীয়রা সূত্রে জানা যায়, তিন দিকে ভারত থেকে নেমে আসা সোমেশ্বরী নদী আর উত্তরপ্রান্তে ভারত সীমানায় বিচ্ছিন্ন করে রেখেছে শ্রীবরদী উপজেলার গারো পাহাড়ের খারামোরা, রাঙাজান ও কোচপাড়াসহ পাঁচ গ্রামের বাসিন্দাদের। শুষ্ক মৌসুমে নদীতে হাঁটুপানি থাকে। বৃষ্টি হলেই পাহাড়ি ঢলে নদীর পানি থাকে কানায় কানায় পূর্ণ। 

এতে নিয়মিত বিদ্যালয়ে যেতে পারে না শিক্ষার্থীরা। সীমান্তে টহল দিতে পারেন না বিজিবির সদস্যরা। প্রতিবেশীরা যেতে পারেন না ওসব গ্রামে। চরম ভোগান্তি পোহায় কয়েকশ শিক্ষার্থীসহ ১৫ হাজার মানুষ। নদীর দুই পাশে তিনটি প্রাথমিক বিদ্যালয়, তিনটি মাদ্রাসা, মসজিদ, গির্জা ও সরকারি-বেসরকারি এনজিও অফিস আছে।

স্থানীয় বাসিন্দা শমসের আলীর অভিযোগ, দেশ স্বাধীনের পর থেকে সেতুর দাবি থাকলেও আজও বাস্তবায়ন হয়নি। নদীতে পানি বেশি থাকলে অনেক সময় পার হওয়া যায় না। সারা বছর নৌকায় কষ্টে পার হতে হয়। কেউ অসুস্থ হলে সময়মতো চিকিৎসা করা সম্ভব হয় না। অনেক সময় বিনা চিকিৎসায় মারা যায়।

খারামোরা গ্রামের কালাম বলেন, বাপ-দাদার আমল থেকে হাজার হাজার মানুষ কষ্ট করে নদী পার হয়। বর্ষাকালে নদীতে পানি বেড়ে গেলে হাটবাজারে যাওয়া যায় না।

শুষ্ক মৌসুমে নদীতে হাঁটুপানি থাকে, বৃষ্টি হলেই পাহাড়ি ঢলে কানায় কানায় পূর্ণ

কোচপাড়ার শিক্ষার্থী সানোয়ার হোসেন জানায়, বছরের অধিকাংশ সময় পাহাড়ি ঢলের কারণে নদীতে পানি বেড়ে যায়। এই সময়ে নদী পার হতে না পারায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাওয়া যায় না। অনেক সময় নৌকা দিয়ে নদী পার হতে গিয়ে দুর্ঘটনার শিকার হতে হয়। 

তাওয়াকুচার গৃহবধূ সমরিন বেগম বলেন, সেতু না থাকায় সারা বছর খুব কষ্ট করতে হয়। সেতু নির্মাণের জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের হস্তক্ষেপ চাই।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের উপজেলা প্রকৌশলী মো. জাহাঙ্গীর হোসাইন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, সেতু নির্মাণের জন্য ইতোমধ্যে নকশা ও মাটি পরীক্ষার কাজ চলছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রকল্প প্রণয়ন করে সংশ্লিষ্ট দফতরে পাঠানো হবে। দরপত্র আহ্বানের মাধ্যমে কাজের অনুমোদন পেলেই শুরু হবে নির্মাণকাজ।

শুধু আশ্বাস নয়, দ্রুত সময়ের মধ্যে সোমেশ্বরী নদীর ওপর একটি সেতু হবে। বদলে যাবে পাহাড়ি জনপদের জীবন এমনটাই প্রত্যাশা সবার।

/এএম/

সম্পর্কিত

যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা সেজে কোটিপতি, নিয়েছেন সরকারি ফ্ল্যাট

যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা সেজে কোটিপতি, নিয়েছেন সরকারি ফ্ল্যাট

কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে একজন গ্রেফতার

কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে একজন গ্রেফতার

চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা, আটক ৩

চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা, আটক ৩

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে আরও ৪ মৃত্যু

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে আরও ৪ মৃত্যু

মাংস খাওয়া নিয়ে সংঘর্ষে নববধূকে তালাক, পরদিন ফের বিয়ে

আপডেট : ২৬ অক্টোবর ২০২১, ২১:৩৩

বিয়ের অনুষ্ঠানে মাংস বেশি খাওয়ায় বরপক্ষের লোকজনকে মারধরের অভিযোগে নববধূকে তালাক দেওয়ার পর আবারও বিয়ে করেছেন বর। রবিবার বিয়ের রাতেই বর ও কনের তালাক হয়। সোমবার পরিবারের সিদ্ধান্তে আবারও তাদের বিয়ে হয়।

জানা গেছে, রবিবার চুয়াডাঙ্গার সদর উপজেলার বদরগঞ্জ দশমিপাড়ার রহিম আলীর ছেলে সবুজের সঙ্গে একই এলাকার নজরুল ইসলামের মেয়ে সুমি খাতুনের বিয়ের অনুষ্ঠান হয়। এদিন সন্ধ্যায় বরপক্ষের লোকজনকে খেতে দেওয়া হয়। বর সবুজের সঙ্গে খেতে বসেন তার বন্ধুসহ আত্মীয়-স্বজন। খাওয়া শেষ হওয়ার মুহূর্তে বরপক্ষের লোকজন বেশি মাংস চাইলে কনেপক্ষের লোকজন আপত্তি করেন। এতে তাদের মধ্যে বাগবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে উত্তেজনা শুরু হলে কনেপক্ষের লোকজন বরপক্ষের তিন জনকে লাঠি দিয়ে মারধর করেন।

প্রত্যক্ষদর্শী গ্রামের মিঠু মিয়া জানায়, বরপক্ষের লোকজন ভাত না খেয়ে বারবার শুধু মাংস চাচ্ছিলেন। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে মারামারি হয়। পরে ওই রাতেই অনুষ্ঠানে বরপক্ষের লোকজনকে মারধর করার কারণে নববধূকে তালাক দিয়েছেন বর।

কুতুবপুর ইউপি চেয়ারম্যান আলী আহমেদ হাসানুজ্জামান বলেন, ‘বিয়েবাড়িতে বারবার মাংস চাওয়ায় কনেপক্ষের লোকজন বরপক্ষের তিন জনকে পিটিয়েছেন। ওই দিন রাতেই দুপক্ষের উপস্থিতিতে বিয়েবিচ্ছেদ ঘটে। পরদিন সোমবার সুমির সঙ্গে সবুজের আবারও বিয়ে হয়।’

উল্লেখ্য, ঝিনাইদহের হলিধানি গ্রামের রহিম আলীর ছেলে প্রবাসী সবুজের সঙ্গে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বদরগঞ্জ দশমিপাড়ার এক তরুণীর মোবাইল ফোনে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ২০১৯ সালে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে তাদের বিয়ে হয়। সম্প্রতি সবুজ দেশে ফিরলে রবিবার আনুষ্ঠানিকতা শেষে নববধূকে তুলে নেওয়ার কথা ছিল।

 

/এমএএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

পুকুরে বাবা-মা-মেয়ের লাশ: পুলিশ হেফাজতে ৪ জন

পুকুরে বাবা-মা-মেয়ের লাশ: পুলিশ হেফাজতে ৪ জন

দুবলার চরে যাচ্ছেন জেলেরা 

দুবলার চরে যাচ্ছেন জেলেরা 

বাড়ির পাশে ফল ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা

বাড়ির পাশে ফল ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা

পুকুরে ভেসে উঠলো বাবা-মা-মেয়ের লাশ

পুকুরে ভেসে উঠলো বাবা-মা-মেয়ের লাশ

মীরসরাইয়ে বিদ্রোহী প্রার্থীর অফিসে ভাঙচুরের অভিযোগ

আপডেট : ২৬ অক্টোবর ২০২১, ২১:১১

মীরসরাই সদর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মো. সাইফুল্লাহ দিদারের অফিস ভাঙচুর করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) সন্ধ্যায় মিঠাছরা বাজারে অবস্থিত অফিসে ১০/১২ জনের একটি গ্রুপ হামলা চালিয়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন জিনিসপত্র ভাঙচুর করে।

সাইফুল্লাহ দিদার সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করে বলেন, ‘মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর ভাইসহ ১০/১২ জনের একটি গ্রুপ এসে আমার ব্যবসায়িক অফিস ভাঙচুর করে। এ সময় তারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি, শেখ হাসিনা, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি, মাহবুব রহমান রুহেল ও বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের ছবিসহ আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ জিনিসপত্র নিয়ে যায় এবং ব্যাপক মালামাল ভাঙচুর করে। এই বিষয়ে উপজেলা নির্বাচন অফিস ও মীরসরাই থানায় লিখিত অভিযোগ দেবো।’

মীরসরাই থানার ডিউটি অফিসার এএসআই জসিম উদ্দিন বলেন, ‘অফিস ভাঙচুরের বিষয়ে এখনও কোনও অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

/এফআর/

সম্পর্কিত

‘ভবঘুরে’ নয়, রিমান্ডে নতুন তথ্য দিচ্ছেন ইকবাল

‘ভবঘুরে’ নয়, রিমান্ডে নতুন তথ্য দিচ্ছেন ইকবাল

সিরাজগঞ্জে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ের পথে ৬ চেয়ারম্যান

সিরাজগঞ্জে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ের পথে ৬ চেয়ারম্যান

বরকত উল্লাহ বুলুর নাম উল্লেখ করে ফয়সালের জবানবন্দি

বরকত উল্লাহ বুলুর নাম উল্লেখ করে ফয়সালের জবানবন্দি

হাসপাতালে দায়িত্বরত ২ আনসার সদস্যকে ছুরিকাঘাত

হাসপাতালে দায়িত্বরত ২ আনসার সদস্যকে ছুরিকাঘাত

‘ভবঘুরে’ নয়, রিমান্ডে নতুন তথ্য দিচ্ছেন ইকবাল

আপডেট : ২৬ অক্টোবর ২০২১, ২১:২২

কুমিল্লায় পূজামণ্ডপে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে বিএনপি, জামায়াত ও শিবিরের ৫২ জনসহ এ পর্যন্ত ৭২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এদিকে, নানুয়া দিঘির পাড় পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন শরিফ রাখা ইকবাল হোসেন রিমান্ডে নতুন নতুন তথ্য দিচ্ছেন। এতে ঘটনার মূল রহস্য উদঘাটন ও ইন্ধনদাতাদের শনাক্ত করা সহজ হবে বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

রিমান্ডে থাকা কোরআন অবমাননা মামলার চার আসামি যেসব তথ্য দিচ্ছেন তা-ও গভীরভাবে যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। এ ছাড়া এই ঘটনায় রাজনৈতিক সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের নামও উঠে আসছে বলে জানিয়েছে সিআইডি। কুমিল্লা জেলায় সহিংসতার ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১০টি মামলা হয়েছে। এরমধ্যে তদন্তভার পেয়ে কোরআন অবমাননা ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের দুই মামলায় গ্রেফতার ইকবালসহ পাঁচ জনের দেওয়া তথ্য ব্যাপকভাবে সিআইডি অনুসন্ধান করছে। এদিকে, ফেসবুক লাইভ করার বিষয়টি স্বীকার করে ফয়েজও দিয়েছেন অনেক তথ্য। তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকায় আরও পাঁচ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

সিআইডির একাধিক সূত্রে জানা গেছে, ঘটনার পরপরই ৯৯৯-এ কল করে পুলিশকে জানানো রেজাউল হোসেন ইকরাম ইতোমধ্যে রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতার কথা স্বীকার করলেও তাদের ইন্ধন ছিল কিনা সে বিষয়ে কিছু জানাননি। তবে তার ফেসবুক আইডির প্রোফাইল বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, স্থানীয়ভাবে তিনি কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের মেয়র মনিরুল হক সাক্কু, প্রয়াত সাবেক মন্ত্রী কর্নেল (অব.) আকবর হোসেন ও যুবদল নেতা ইউছুফ মোল্লা টিপুসহ বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের ছবি ব্যবহার করে বিভিন্ন সময় পোস্ট দিয়েছেন।

এদিকে, মাজারের দুই খাদেম ফয়সাল ও হুমায়ুনের রাজনৈতিক কোনও পরিচয় এখনও মেলেনি। তবে প্রধান অভিযুক্ত ইকবালকে ‘ভবঘুরে’ বললেও সে তা নয়। পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে স্বাভাবিক আচরণ করে যাচ্ছেন তিনি। ইকবাল হোসেনের মামলার নথি আনুষ্ঠানিকভাবে সিআইডির কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

সিআইডির কুমিল্লা জেলা পুলিশ সুপার খান মোহাম্মদ রেজওয়ান বলেন, ‘কোরআন অবমাননার মামলাটি রবিবার (২৪ অক্টোবর) রাতে পুলিশ সদর দফতরের নির্দেশে তদন্তের জন্য সিআইডিকে দেওয়া হয়। সে আলোকে মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) দুপুর আড়াইটায় মামলার সব নথি আনুষ্ঠানিকভাবে আমাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। আমরা এরই মধ্যে দুটি মামলা গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত শুরু করেছি, যাতে ঘটনার গভীরে যাওয়া যায় এবং ইকবালের ইন্ধনদাতা ও জড়িতদের খুঁজে আইনের আওতায় আনতে পারি।’

রিমান্ডে ইকবাল যেসব তথ্য দিচ্ছেন, তা যাচাই-বাচাই করে দেখা হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘তদন্তের স্বার্থে এসব বলা যাচ্ছে না। মামলার গুরুত্বপূর্ণ আলামত হচ্ছে পূজামণ্ডপ থেকে পুলিশের উদ্ধার করা পবিত্র কোরআন। তবে ওই কোরআন শরিফে অনেকেরই ফিঙ্গারপ্রিন্ট রয়েছে। তবে আমরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে এতে সুনির্দিষ্ট কারও ফিঙ্গারপ্রিন্ট পাইনি।’

জেলা পুলিশের সূত্রে জানা গেছে, কুমিল্লায় কোরআন অবমাননা, হিন্দুদের পূজামণ্ডপ ভাঙচুর ও মন্দিরে হামলার ঘটনায় কুমিল্লার কোতোয়ালি, সদর দক্ষিণ, দাউদকান্দি ও দেবিদ্বার থানায় পৃথক ১০টি মামলা হয়েছে। এই ১০ মামলায় এজাহারনামীয় ৯২ জনসহ এক হাজার ১০২ জনকে আসামি করা হয়েছে। এরমধ্যে গ্রেফতার হয়েছেন ৭২ জন। গ্রেফতারদের মধ্যে দলীয় পরিচয়ে বিএনপির ৩৬ এবং জামায়াত ও শিবিরের ১৬ নেতাকর্মী রয়েছেন।

গত ১৩ অক্টোবর নগরীর নানুয়া দিঘির পাড় পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন রাখার ঘটনায় নগরের কয়েকটি পূজামণ্ডপে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। এর জেরে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ, নোয়াখালীর চৌমুহনী, রংপুরের পীরগঞ্জে বিশৃঙ্খলা ছড়িয়ে পড়ে। পরে পুলিশের সংগ্রহ করা সিসিটিভি ফুটেজের মাধ্যমে পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা প্রধান অভিযুক্ত ইকবালকে শনাক্ত করে। ২১ অক্টোবর অভিযুক্ত ইকবালকে কক্সবাজার থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ২২ অক্টোবর তাকে কুমিল্লায় এনে ২৩ অক্টোবর আদালতে হাজির করা হয়। আদালত ইকবাল, মাজারের দুই খাদেম ও ৯৯৯-এ কল করা ইকরামের সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

/এফআর/এমওএফ/

সম্পর্কিত

মীরসরাইয়ে বিদ্রোহী প্রার্থীর অফিসে ভাঙচুরের অভিযোগ

মীরসরাইয়ে বিদ্রোহী প্রার্থীর অফিসে ভাঙচুরের অভিযোগ

থানার জানালা ভেঙে পালালেন আসামি, ২ পুলিশ প্রত্যাহার

থানার জানালা ভেঙে পালালেন আসামি, ২ পুলিশ প্রত্যাহার

যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা সেজে কোটিপতি, নিয়েছেন সরকারি ফ্ল্যাট

যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা সেজে কোটিপতি, নিয়েছেন সরকারি ফ্ল্যাট

থানার জানালা ভেঙে পালালেন আসামি, ২ পুলিশ প্রত্যাহার

আপডেট : ২৬ অক্টোবর ২০২১, ২০:৩৬

দিনাজপুরের পার্বতীপুর মডেল থানা হাজতের জানালার গ্রিল ভেঙে পালিয়েছেন মাদক মামলার এক ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি। এই ঘটনায় দায়িত্ব অবহেলার অভিযোগে থানার এক এএসআই ও কনস্টেবলকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইন্সে সংযুক্ত করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) সন্ধ্যায় তাদেরকে প্রত্যাহার করা হয়। এর আগে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে জানালার গ্রিল ভেঙে পালিয়ে যান আসামি। প্রত্যাহার হওয়া দুই পুলিশ হলেন- ডিউটি অফিসার এএসআই কে বি এম শাহারিয়ার ও পুলিশ কনেস্টেবল সাবিনা ইয়াছমিন।

দিনাজপুর পুলিশের ফুলবাড়ী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আসাদুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘এখন পর্যন্ত দুই জনকে প্রত্যাহার (ক্লোজ) করা হয়েছে। এ প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।’

এই ঘটনার পর দিনাজপুর জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মমিনুল করিম ও ফুলবাড়ী সার্কেলের
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আসাদুজ্জামান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সোমবার (২৫ অক্টোবর) দিবাগত রাত ১২টার দিকে অভিযান চালায় পার্বতীপুর উপজেলার বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের সদস্যরা। এ সময় উপজেলার হাবড়া ইউনিয়নের ভবানীপুর এলাকা থেকে মোকারুল ইসলাম (৩২) নামে এক ওয়ারেন্টভুক্ত আসামিকে গ্রেফতার করে। পরে রাতেই মাদক মামলার ওই আসামিকে পার্বতীপুর মডেল থানায় হস্তান্তর করে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের সদস্যরা। দুপুরে তাকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানোর কথা থাকলেও এর আগেই সকাল সাড়ে ১০টার দিকে পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে হাজতখানার জানালার তিনটি গ্রিল ভেঙে ফেলে পালিয়ে যান ওই আসামি। পরে বিষয়টি জানাজানি হয়ে গেলে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পুলিশ কর্মকর্তা জানান, হাজতে থাকার সময় আসামি সবার অগোচরে পাশের দরজার তালা ভেঙে স্টোর রুমে প্রবেশ করেন। সেখানে সে রুমের জানালার গ্রিল ভেঙে পালিয়ে যান। ঘটনা জানাজানির হওয়ার পর থেকেই আসামিকে গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

/এফআর/

সম্পর্কিত

‘ভবঘুরে’ নয়, রিমান্ডে নতুন তথ্য দিচ্ছেন ইকবাল

‘ভবঘুরে’ নয়, রিমান্ডে নতুন তথ্য দিচ্ছেন ইকবাল

যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা সেজে কোটিপতি, নিয়েছেন সরকারি ফ্ল্যাট

যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা সেজে কোটিপতি, নিয়েছেন সরকারি ফ্ল্যাট

গাইবান্ধায় রিকশাচালক হত্যার ঘটনায় দুই ভাই কারাগারে

গাইবান্ধায় রিকশাচালক হত্যার ঘটনায় দুই ভাই কারাগারে

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মীরসরাইয়ে বিদ্রোহী প্রার্থীর অফিসে ভাঙচুরের অভিযোগ

মীরসরাইয়ে বিদ্রোহী প্রার্থীর অফিসে ভাঙচুরের অভিযোগ

‘ভবঘুরে’ নয়, রিমান্ডে নতুন তথ্য দিচ্ছেন ইকবাল

‘ভবঘুরে’ নয়, রিমান্ডে নতুন তথ্য দিচ্ছেন ইকবাল

বরকত উল্লাহ বুলুর নাম উল্লেখ করে ফয়সালের জবানবন্দি

নোয়াখালীতে পূজামণ্ডপে হামলাবরকত উল্লাহ বুলুর নাম উল্লেখ করে ফয়সালের জবানবন্দি

হাসপাতালে দায়িত্বরত ২ আনসার সদস্যকে ছুরিকাঘাত

হাসপাতালে দায়িত্বরত ২ আনসার সদস্যকে ছুরিকাঘাত

দেড় বছর পর ক্লাসে বান্দরবান বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা

দেড় বছর পর ক্লাসে বান্দরবান বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা

হেফাজতের আমির মুহিবুল্লাহ বাবুনগরী হাসপাতালে

হেফাজতের আমির মুহিবুল্লাহ বাবুনগরী হাসপাতালে

নিষেধাজ্ঞা ওঠার সঙ্গে সঙ্গে বাজারে হাজার মণ ইলিশ

নিষেধাজ্ঞা ওঠার সঙ্গে সঙ্গে বাজারে হাজার মণ ইলিশ

সিনহা হত্যা মামলায় সাক্ষ্য দিলেন আরও ১৪ জন

সিনহা হত্যা মামলায় সাক্ষ্য দিলেন আরও ১৪ জন

উখিয়ায় ছয় রোহিঙ্গা হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার আরও ৪

উখিয়ায় ছয় রোহিঙ্গা হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার আরও ৪

চট্টগ্রাম মেডিক্যালে চালু হলো বিশেষ স্ট্রোক ইউনিট

চট্টগ্রাম মেডিক্যালে চালু হলো বিশেষ স্ট্রোক ইউনিট

সর্বশেষ

একটি সেতুর জন্য পাঁচ গ্রামের মানুষের দুর্ভোগ

একটি সেতুর জন্য পাঁচ গ্রামের মানুষের দুর্ভোগ

ক্ষতিপূরণ না পেয়ে মেয়র আতিকের বিরুদ্ধে রিট

ক্ষতিপূরণ না পেয়ে মেয়র আতিকের বিরুদ্ধে রিট

সৌদি খেজুর ও ভিয়েতনামের নারিকেল চাষে মিলবে ব্যাংক ঋণ

সৌদি খেজুর ও ভিয়েতনামের নারিকেল চাষে মিলবে ব্যাংক ঋণ

মাংস খাওয়া নিয়ে সংঘর্ষে নববধূকে তালাক, পরদিন ফের বিয়ে

মাংস খাওয়া নিয়ে সংঘর্ষে নববধূকে তালাক, পরদিন ফের বিয়ে

মীরসরাইয়ে বিদ্রোহী প্রার্থীর অফিসে ভাঙচুরের অভিযোগ

মীরসরাইয়ে বিদ্রোহী প্রার্থীর অফিসে ভাঙচুরের অভিযোগ

© 2021 Bangla Tribune