X
রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ১ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

স্থানীয় নির্বাচনে আগ্রহ বাড়ছে ধর্মভিত্তিক দলগুলোর

আপডেট : ১১ অক্টোবর ২০২১, ১৭:৪১

স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলগুলোর খুব একটা আগ্রহ কখনোই দেখা যায়নি। তবে সম্প্রতি নতুন করে এই নির্বাচনের দিকে ঝুঁকছে তারা। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গেল কয়েক মেয়াদে এসব রাজনৈতিক দলের মধ্যে একমাত্র ইসলামী আন্দোলন নিয়মিত নির্বাচনে অংশ নিয়ে আসছিল। এবার অন্য দলগুলোর মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতার আগ্রহ তৈরি হয়েছে। আগামী ১১ নভেম্বর অনুষ্ঠিতব্য ইউনিয়ন পরিষদের দ্বিতীয় দফা ভোটে খেলাফত মজলিস, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামসহ কয়েকটি দলের প্রার্থীরা অংশ নিচ্ছেন।

স্থানীয় সরকারের নির্বাচনে অংশগ্রহণ নিয়ে ধর্মভিত্তিক দলগুলোর কয়েকজন নেতা বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, স্থানীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণের ব্যাপারে ইসলামি দলগুলোর অনীহা বরাবরই। মূলত তৃণমূল পর্যায়ে দলীয় কার্যক্রম না থাকাই স্থানীয় নির্বাচনের প্রতি এই অনাগ্রহের মূল কারণ। আবার ক্ষেত্রবিশেষে কখনও প্রার্থীকে সমর্থন দিলেও প্রচার-প্রচারণার ব্যয়সহ আনুষাঙ্গিক খরচের কারণে কেন্দ্রীয়ভাবে খুব একটা উৎসাহ দেওয়া হয় না।

বাংলা ট্রিবিউনের সঙ্গে আলাপকালে তারা জানিয়েছেন, এবার স্থানীয় সরকারের নির্বাচনে আগ্রহের পেছনে বিভিন্ন সংস্থার চাপ রয়েছে। ‘একমুখী নির্বাচনে’র বিষয়টি আলোচনায় থাকার কারণে এই চাপ সৃষ্টি হয়েছে।

তারা মনে করেন, আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রাক-প্রস্তুতি শুরু করা সম্ভব হবে ইউপি নির্বাচনের মাধ্যমে। আর কেউ কেউ বলছেন, মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী দল জামায়াতে ইসলামীকেও তৃণমূল পর্যায় থেকে মোকাবিলা করার পথ সহজ হলো। 

২৬১ ইউপিতে ইসলামী আন্দোলনের জয় একটিতে

গত জুন ও সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদের প্রথম দফার ভোটে অংশগ্রহণ করে ইসলামী আন্দোলন। ৩৬৪টি ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যে শেষ পর্যন্ত ২৬১টিতে প্রার্থী দিতে সক্ষম হয় দলটি। এগুলোর মধ্যে বরিশাল সদর উপজেলার মাত্র একটি ইউনিয়নে বিজয়ী হন ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী।

দলের প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক আহমদ আবদুল কাইয়ুম জানান, ইউপির দ্বিতীয় পর্বের নির্বাচনে ৮৪৮টি ইউপিতে নির্বাচন হবে। এ পর্বে এরইমধ্যে ২৯৮টি ইউপিতে ফরম জমা দেওয়া হয়েছে। চূড়ান্তভাবে অন্তত পাঁচ শতাধিক ইউপিতে ইসলামী আন্দোলন প্রার্থী দিতে পারবে বলে আশা করা হচ্ছে।

গতবার অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে দলটির ১ হাজার ৮১ জন প্রার্থিতা করেছিলেন। ইউনিয়ন পরিষদের এবারের সবগুলো নির্বাচন মিলিয়ে ইসলামী আন্দোলনের কমপক্ষে সাড়ে ৩ হাজার প্রার্থী হতে পারে বলে দলীয়সূত্র জানিয়েছে।

দ্বিতীয় পর্বে অংশ নিচ্ছে মজলিস, জমিয়ত ও ঐক্যজোট

ইউনিয়ন পরিষদের প্রথম পর্বে অংশ না নিলেও দ্বিতীয় পর্বে প্রার্থিতা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি-জোট ছেড়ে আসা খেলাফত মজলিস, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ও ইসলামী ঐক্যজোট।

জমিয়তের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী জানান, চলমান ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের দ্বিতীয় পর্বে এখন পর্যন্ত ৮-১০ জন প্রার্থিতা করার সম্ভাবনা রয়েছে। এর অধিকাংশ প্রার্থী সিলেট, সুনামগঞ্জ ও নীলফামারী এলাকার।

প্রথম পর্বে জমিয়তের নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করার কারণ জানতে চাইলে মাওলানা আফেন্দী বলেন, ‘প্রথম পর্বে তো সেরকম ভোট হয়নি। আর কৌশলগত কারণও ছিল। স্থানীয় সরকারের নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার সিদ্ধান্ত ছিল কাসেমী (আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী) সাহেবের জীবদ্দশাতেই।’

গতবারের ইউপি নির্বাচনে সুনামগঞ্জের একটি ইউনিয়নে জমিয়তের একজন বিজয়ী হন। আর সিলেটে অন্য একাধিক ইউপি নির্বাচনে হাড্ডাহাড্ডি ভোট হয় বলে জানান আফেন্দী। 

খেলাফত মজলিস সূত্র জানায়, প্রথম পর্বে অংশ না নিলেও আগামী ১১ নভেম্বর অনুষ্ঠিতব্য ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় পর্বে দলটির অন্তত ২০টিতে প্রার্থিতা থাকতে পারে। এছাড়া মেম্বার পদে অন্তত ৩০-৩৫ জন অংশ নেবেন।

এ বিষয়ে যুগ্ম মহাসচিব অধ্যাপক আবদুল জলিল বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমরা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অংশ নেওয়ার বিষয়ে ইতিবাচক। দলীয়ভাবে আগেই সিদ্ধান্ত ছিল নির্বাচনে অংশগ্রহণের। পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতির কারণে এবার খুব বেশি প্রার্থী নেই।’

দ্বিতীয় পর্বের নির্বাচনে প্রার্থী দেওয়ার বিষয়ে ইসলামী ঐক্যজোট ইতিবাচক বলে জানিয়েছেন দলটির শরিক নেজামে ইসলাম পার্টির নির্বাহী সভাপতি মাওলানা একেএম আশরাফুল হক। তিনি বলেন, ‘প্রথম দফায় নেজামে ইসলাম পার্টি থেকেই প্রার্থিতা দেওয়ার কথা চিন্তা করেছিলাম। কিন্তু নানা কারণে দেওয়া যায়নি।’

ইসলামী ঐক্যজোটের এই যুগ্ম মহাসচিব আরও বলেন, ‘ইসলামী ঐক্যজোট দ্বিতীয় পর্বে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলসহ কয়েকটি এলাকায় প্রার্থী দেওয়ার সম্ভাবনা আছে।’

দলীয়ভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা না করলেও ব্যক্তিগত উদ্যোগে নির্বাচনে সায় দিয়েছে খেলাফত আন্দোলন। রবিবার (১০ অক্টোবর) সন্ধ্যায় দলের নায়েবে আমির মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী বলেন, ‘কেন্দ্রীয়ভাবে দলের নেতা কর্মীদের আমরা নির্বাচনে অংশ নিতে নিরুৎসাহিত করেছি। তবে কেউ যদি প্রার্থী হয়, তাতে আপত্তি নেই।’

প্রসঙ্গত, দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ১৭ অক্টোবর ও ভোটগ্রহণ হবে ১১ নভেম্বর।

আরও পড়ুন:

সংগঠন গোছাতে ধর্মভিত্তিক দলগুলোর মনোযোগ 

কেন ভেঙে যাচ্ছে বিএনপি জোট?

বিএনপি জোটকে আরও দুর্বল করতে চায় সরকার!

বাকি আছে জামায়াত

/সিএ/ইউএস/

সম্পর্কিত

সরকারের সঙ্গে আলেমদের কোনও বিরোধ নেই: মাওলানা হাসান

সরকারের সঙ্গে আলেমদের কোনও বিরোধ নেই: মাওলানা হাসান

গুজব রটিয়ে সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদে জাসদ

গুজব রটিয়ে সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদে জাসদ

মানুষের পেটে খাবারই না থাকলে দেশ থেকে লাভ কী: মান্না

মানুষের পেটে খাবারই না থাকলে দেশ থেকে লাভ কী: মান্না

যেকোনও শৈথিল্যে জামায়াত-শিবির সুযোগ নেবে: মেনন

যেকোনও শৈথিল্যে জামায়াত-শিবির সুযোগ নেবে: মেনন

‘দেশে ধর্মীয় দাঙ্গা বাধানোর চক্রান্ত হচ্ছে’

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৯:০০

উগ্র সম্প্রদায়ের কেউ দেশে ধর্মীয় দাঙ্গা-হাঙ্গামা বাধানোর চক্রান্ত করছে বলে মন্তব্য করেছেন ইসলামী আন্দোলনের প্রেসিডিয়াম সদস্য মাওলানা সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল-মাদানী। তিনি বলেন,  কুমিল্লায় পূজামণ্ডপে মূর্তির পায়ের নিচে পবিত্র কোরআন রেখে যারা ঘোলাপানিতে মাছ শিকার করতে চায় তাদের খুঁজে বের করে কঠোর শাস্তির আওতায় আনা সরকারের দায়িত্ব।

শনিবার (১৬ অক্টোবর) বিকালে কোরআন অবমাননাকারীদের বিচারের দাবিতে  বায়তুল মোকাররম উত্তর গেটে বিক্ষোভ মিছিল পূর্ব সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

নিত্যপয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের  ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদ জানিয়ে সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল-মাদানী বলেন,  কোনও কারণ ছাড়াই বার বার নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের লাগামহীন মূল্যবৃদ্ধির কারণে জনজীবন চরম দুর্বিষহ হয়ে উঠছে। সরকার সিন্ডিকেটের কাছে মাথা নত করেছে। তিনি অবিলম্বে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণ করার দাবি জানান।

সমাবেশ শেষে একটি  মিছিল বায়তুল মোকাররম উত্তর গেইট, পল্টন মোড় ও বিজয়নগর মোড়ে পৌঁছলে পুলিশ মিছিলের গতি রোধ করে। সেখানে মিছিল শেষ হয়।

সংগঠনের ঢাকা মহানগর উত্তর সভাপতি মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন  মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, মাওলানা লোকমান হোসাইন জাফরী, মাওলানা নেছার উদ্দিন,  শরীফুল ইসলাম রিয়াদ, মাওলানা আরিফুল ইসলাম, ডা. শহিদুল ইসলাম প্রমুখ।

/সিএ/এমআর/

সম্পর্কিত

‘বিএনপি নেতাদের মধ্যে বিরোধ, আ.লীগ রাজনীতিতে নেই’ 

‘বিএনপি নেতাদের মধ্যে বিরোধ, আ.লীগ রাজনীতিতে নেই’ 

নভেম্বর থেকে জেলা সফর শুরু করবেন জাপা মহাসচিব

নভেম্বর থেকে জেলা সফর শুরু করবেন জাপা মহাসচিব

তথ্য প্রতিমন্ত্রীকে ক্ষমা চাইতে হবে: জিএম কাদের

তথ্য প্রতিমন্ত্রীকে ক্ষমা চাইতে হবে: জিএম কাদের

সরকার মুক্তিযুদ্ধের গৌরবকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে: আ স ম রব

সরকার মুক্তিযুদ্ধের গৌরবকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে: আ স ম রব

‘বিএনপি নেতাদের মধ্যে বিরোধ, আ.লীগ রাজনীতিতে নেই’ 

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৭:৫৭

বিএনপির নেতাদের মধ্যে বিভেদ ও বিভাজন এবং আওয়ামী লীগ রাজনীতিতে নেই বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের। তার দাবি, রাজনীতিতে একমাত্র সোচ্চার জাতীয় পার্টি।

শনিবার (১৬ অক্টোবর) দলের চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয় মিলনায়তনে গাজীপুর মহানগর ও অঙ্গ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এ কথা বলেন।

জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান বলেন, নিবন্ধিত প্রায় ৪০টি দলের মধ্যে মাত্র আওয়ামী লীগ, বিএনপি এবং জাতীয় পার্টি সক্রিয় আছে। বাকি দলগুলো সাইনবোর্ড বা নেতা সর্বস্ব রাজনৈতিক দলে পরিণত হয়েছে। বিএনপি নেত্রী মুচলেকা দিয়ে জেল থেকে বের হয়ে রাজনীতির মাঠে নেই। আবার তাদের আরেক নেতা দণ্ডপ্রাপ্ত হয়ে বিদেশে। বাকী নেতাদের মধ্যে বিভেদ ও বিভাজনের অভাব নেই। আবার আওয়ামী লীগ সরকার পরিচালনা ও উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে ব্যস্ত। রাজনীতির মাঠেও আওয়ামী লীগ নেই বললেই চলে। কিন্তু গণমানুষের দাবি আদায়ে রাজনীতিতে সোচ্চার আছে শুধু জাতীয় পার্টি।’

কাদের দাবি করেন, ৩১ বছর রাষ্ট্র ক্ষমতার বাইরে থেকেও জাতীয় পার্টি রাজনীতিতে টিকে আছে। নানা অপবাদ ও ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে জাতীয় পার্টি এগিয়ে চলছে। দেশের মানুষ আওয়ামী লীগ ও বিএনপির কর্মকাণ্ডে রাজনীতি নিয়ে হতাশাগ্রস্ত। দেশের মানুষ আগামী দিনে জাতীয় পার্টিকে রাষ্ট্র পরিচালনায় দেখতে চায়।

জাপা চেয়ারম্যান বলেন, বর্তমান সংবিধান অনুযায়ী গণতান্ত্রিক চর্চা সম্ভব নয়। বর্তমান সংবিধান গণতান্ত্রিক চর্চার সাথে সাংঘর্ষিক। গণতন্ত্র চর্চা করতে হলে সংবিধানের অনেক ধারা সংশোধন করতে হবে। সংবিধানের ৭০ ধারার কারণে সরকার দলীয় কোনও সংসদ সদস্য সরকারের কোনও সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করতে পারে না। এতে এক ব্যক্তির হাতে সকল ক্ষমতা কেন্দ্রীভূত হয়েছে। দেশের নির্বাহী বিভাগ, আইন সভা ও রাষ্ট্রপতির মাধ্যমে বিচার বিভাগের প্রায় ৯০ ভাগই সরকার প্রধানের নিয়ন্ত্রণে। তাই সরকার প্রধান যা চাইবেন, তার বাইরে কিছুই সম্ভব নয়।

জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান বলেন, অবাধ, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন নিশ্চিত করতে সংবিধান অনুযায়ী আইন করতে হবে। আইন না করে নির্বাচন কমিশন গঠন করা হচ্ছে, ফুটবল খেলায় একটি দলের পক্ষ থেকে রেফারি নিয়োগ দেওয়ার মতো। আইন করে, উপযুক্ত ব্যক্তিদের নিয়ে নির্বাচন কমিশন গঠন করে সংবিধান অনুযায়ী সকল ক্ষমতা নির্বাচন কমিশনকে দিতে হবে।

এসময় আরও বক্তব্য রাখেন- জাতীয় পার্টি মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য সাহিদুর রহমান টেপা, অ্যাডভোকেট শেখ মুহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম, মীর আব্দুস সবুর আসুদ, অ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভুঁইয়া, অনুষ্ঠানে সভপতিত্ব করেন চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা এমএম নিয়াজ উদ্দিন।

/এসটিএস/এমআর/

সম্পর্কিত

‘দেশে ধর্মীয় দাঙ্গা বাধানোর চক্রান্ত হচ্ছে’

‘দেশে ধর্মীয় দাঙ্গা বাধানোর চক্রান্ত হচ্ছে’

নভেম্বর থেকে জেলা সফর শুরু করবেন জাপা মহাসচিব

নভেম্বর থেকে জেলা সফর শুরু করবেন জাপা মহাসচিব

তথ্য প্রতিমন্ত্রীকে ক্ষমা চাইতে হবে: জিএম কাদের

তথ্য প্রতিমন্ত্রীকে ক্ষমা চাইতে হবে: জিএম কাদের

সরকার মুক্তিযুদ্ধের গৌরবকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে: আ স ম রব

সরকার মুক্তিযুদ্ধের গৌরবকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে: আ স ম রব

নভেম্বর থেকে জেলা সফর শুরু করবেন জাপা মহাসচিব

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৭:৫২

আগামী নভেম্বর থেকে দল পুনর্গঠনের কাজে সারাদেশের জেলা সফর শুরু করবেন জাতীয় পার্টি মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু। শনিবার (১৬ অক্টোবর) দলের চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয় মিলনায়তনে গাজীপুর মহানগর ও অঙ্গ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় চুন্নু এ কথা জানান।

সভায় মুজিবুল হক বলেন, দেশের কোটি কোটি বেকারদের জন্য কারও মাথা ব্যথা নেই। বিএনপি হাওয়া ভবন আর খাওয়া ভবন করে রাজনীতি থেকে ছিটকে পড়েছে। আর আওয়ামী লীগের উন্নয়নের ধাক্কায় মানুষের জীবন ওষ্ঠাগত।

চুন্নু বলেন, দেশ ও দেশের মানুষের কথা মাথায় রেখেই জাতীয় পার্টির রাজনীতি। জাতীয় পার্টি আগামী দিনে গণমানুষের কল্যাণে কর্মসূচি ঘোষণা করে মাঠে থাকবে। দেশের মানুষের প্রত্যাশা পূরণে জাতীয় পার্টি কাজ করবে। গণমানুষের আস্থা নিয়েই জাতীয় পার্টি আগামী দিনে সরকার পরিচালনা করবে।

/এসটিএস/এমআর/

সম্পর্কিত

‘দেশে ধর্মীয় দাঙ্গা বাধানোর চক্রান্ত হচ্ছে’

‘দেশে ধর্মীয় দাঙ্গা বাধানোর চক্রান্ত হচ্ছে’

‘বিএনপি নেতাদের মধ্যে বিরোধ, আ.লীগ রাজনীতিতে নেই’ 

‘বিএনপি নেতাদের মধ্যে বিরোধ, আ.লীগ রাজনীতিতে নেই’ 

তথ্য প্রতিমন্ত্রীকে ক্ষমা চাইতে হবে: জিএম কাদের

তথ্য প্রতিমন্ত্রীকে ক্ষমা চাইতে হবে: জিএম কাদের

সরকার মুক্তিযুদ্ধের গৌরবকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে: আ স ম রব

সরকার মুক্তিযুদ্ধের গৌরবকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে: আ স ম রব

তথ্য প্রতিমন্ত্রীকে ক্ষমা চাইতে হবে: জিএম কাদের

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৭:৪৯

হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সম্পর্কে মন্তব্যের কারণে তথ্য প্রতিমন্ত্রী ড. মুরাদ হাসানকে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জিএম কাদের। তিনি বলেন, ‘সরকারের একজন প্রতিমন্ত্রী হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে কটূক্তি করে এবং রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম পরিবর্তন করার ঘোষণা দিয়ে গর্হিত কাজ করেছেন। এজন্য তাকে ক্ষমা চাইতে হবে।’

শনিবার (১৬ অক্টোবর) দলের চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয় মিলনায়তনে গাজীপুর মহানগর ও অঙ্গ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এ কথা বলেন।

জিএম কাদের আরও বলেন, ‘২০১১ সালে পঞ্চদশ সংশোধনী করেছে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার। তাতেও রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম সমুন্নত আছে। তাই কটূক্তি করে  প্রতিমন্ত্রী আওয়ামী লীগের দলীয় শৃঙ্খলাও ভঙ্গ করেছেন। তাকে অবশ্যই ক্ষমা চাইতে হবে, তা না হলে দেশের মানুষ একদিন এর বিচার করবে।’

তিনি বলেন, ‘রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম ঘোষণার সঙ্গে সকল ধর্মের অধিকার সাংবিধানিকভাবেই নিশ্চিত করেছিলেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম পরিবর্তন করার সাহস আর ক্ষমতা কারও নেই।’

/এসটিএস/এমআর/

সম্পর্কিত

‘দেশে ধর্মীয় দাঙ্গা বাধানোর চক্রান্ত হচ্ছে’

‘দেশে ধর্মীয় দাঙ্গা বাধানোর চক্রান্ত হচ্ছে’

‘বিএনপি নেতাদের মধ্যে বিরোধ, আ.লীগ রাজনীতিতে নেই’ 

‘বিএনপি নেতাদের মধ্যে বিরোধ, আ.লীগ রাজনীতিতে নেই’ 

নভেম্বর থেকে জেলা সফর শুরু করবেন জাপা মহাসচিব

নভেম্বর থেকে জেলা সফর শুরু করবেন জাপা মহাসচিব

সরকার মুক্তিযুদ্ধের গৌরবকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে: আ স ম রব

সরকার মুক্তিযুদ্ধের গৌরবকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে: আ স ম রব

সরকার মুক্তিযুদ্ধের গৌরবকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে: আ স ম রব

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৭:৩০

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি সভাপতি আ স ম রব বলেছেন, ‘সরকার মুক্তিযুদ্ধের চেতনার নামে রাষ্ট্রের মৌলিক কাঠামো বিনষ্ট করে, গণতন্ত্র হত্যা করে,  ভোটাধিকারকে প্রহসনে পরিণত করে  মুক্তিযুদ্ধের গৌরবকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে। সরকারের অপশাসনের কারণে বাঙালি জাতীয়তাবাদ চরম ঝুঁকিতে পড়ছে। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট হচ্ছে, সমাজে হিংসা প্রতিহিংসা নিষ্ঠুরতা বিস্তার লাভ করছে।

শনিবার (১৬ অক্টোবর) বিকালে  জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে জেএসডি ঢাকা মহানগর সমন্বয় কমিটি আয়োজিত মানববন্ধন -সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিলে রব এসব কথা বলেন।

রব বলেন, ‘ক্ষমতা দীর্ঘস্থায়ী করার জন্য বর্তমান সরকার বাঙালি জাতীয়তাবাদ এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনা দুটোকেই পরিত্যাগ করেছে। এখন রাষ্ট্রের একমাত্র পথ হচ্ছে গণজাগরণের মাধ্যমে জাতীয় নৈতিক শক্তির পুনরুজ্জীবন করা। এই পুনরুজ্জীবিত শক্তিই জাতীয় সরকার গঠন করবে। বিদ্যমান সংকট নিরসনের একমাত্র বিকল্প  জাতীয় সরকার গঠন করা।’

ঢাকা মহানগর কমিটির সমন্বয়ক কামাল উদ্দিন পাটোয়ারীর সভাপতিত্বে বিক্ষোভে আরও বক্তব্য রাখেন- সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. ছানোয়ার হোসন তালুকদার, সা কা ম আনিসুর রহমান খান কামাল, তানিয়া রব, অ্যাড. কে এম জাবির, অ্যাড. সৈয়দ বেলায়েত হোসেন বেলা প্রমুখ।

/এসটিএস/এমআর/

সম্পর্কিত

‘দেশে ধর্মীয় দাঙ্গা বাধানোর চক্রান্ত হচ্ছে’

‘দেশে ধর্মীয় দাঙ্গা বাধানোর চক্রান্ত হচ্ছে’

‘বিএনপি নেতাদের মধ্যে বিরোধ, আ.লীগ রাজনীতিতে নেই’ 

‘বিএনপি নেতাদের মধ্যে বিরোধ, আ.লীগ রাজনীতিতে নেই’ 

নভেম্বর থেকে জেলা সফর শুরু করবেন জাপা মহাসচিব

নভেম্বর থেকে জেলা সফর শুরু করবেন জাপা মহাসচিব

তথ্য প্রতিমন্ত্রীকে ক্ষমা চাইতে হবে: জিএম কাদের

তথ্য প্রতিমন্ত্রীকে ক্ষমা চাইতে হবে: জিএম কাদের

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সরকারের সঙ্গে আলেমদের কোনও বিরোধ নেই: মাওলানা হাসান

সরকারের সঙ্গে আলেমদের কোনও বিরোধ নেই: মাওলানা হাসান

গুজব রটিয়ে সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদে জাসদ

গুজব রটিয়ে সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদে জাসদ

মানুষের পেটে খাবারই না থাকলে দেশ থেকে লাভ কী: মান্না

মানুষের পেটে খাবারই না থাকলে দেশ থেকে লাভ কী: মান্না

যেকোনও শৈথিল্যে জামায়াত-শিবির সুযোগ নেবে: মেনন

যেকোনও শৈথিল্যে জামায়াত-শিবির সুযোগ নেবে: মেনন

নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধিতে মানুষের জীবন দুর্বিষহ: এলডিপি মহাসচিব সেলিম

নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধিতে মানুষের জীবন দুর্বিষহ: এলডিপি মহাসচিব সেলিম

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষা মহানবীর শিক্ষা: সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষা মহানবীর শিক্ষা: সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন

সাম্প্রদায়িক ষড়যন্ত্রের বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে: হেফাজত

সাম্প্রদায়িক ষড়যন্ত্রের বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে: হেফাজত

ভাসানী ছাত্র ব্রিগেডের আত্মপ্রকাশ

ভাসানী ছাত্র ব্রিগেডের আত্মপ্রকাশ

ফাঁদে পা না দিতে সতর্ক থাকার আহ্বান ইসলামী ঐক্যজোটের

ফাঁদে পা না দিতে সতর্ক থাকার আহ্বান ইসলামী ঐক্যজোটের

সরকারকে বিপদে ফেলতে পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা হয়েছে: ইউনাইটেড ইসলামী পার্টি

সরকারকে বিপদে ফেলতে পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা হয়েছে: ইউনাইটেড ইসলামী পার্টি

সর্বশেষ

টিকায় ভালো পরিকল্পনার ঘাটতি আছে: অধ্যাপক ডা. বে-নজির

টিকায় ভালো পরিকল্পনার ঘাটতি আছে: অধ্যাপক ডা. বে-নজির

বাঙালিদের শুভেচ্ছা নিয়ে জাপানে রওয়ানা দেন বঙ্গবন্ধু

বাঙালিদের শুভেচ্ছা নিয়ে জাপানে রওয়ানা দেন বঙ্গবন্ধু

বদনজর থেকে শিশুকে বাঁচাতে টিপ দেওয়া যাবে?

বদনজর থেকে শিশুকে বাঁচাতে টিপ দেওয়া যাবে?

ফেনীতে ত্রিমুখী সংঘর্ষ, আহত ৩০

ফেনীতে ত্রিমুখী সংঘর্ষ, আহত ৩০

ফরিদা মজিদের কথা

ফরিদা মজিদের কথা

© 2021 Bangla Tribune