X
শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪
২৯ আষাঢ় ১৪৩১

ব্যাংক খাতে তারল্যের সংকট কোন পর্যায়ে

গোলাম মওলা
২০ জুন ২০২৪, ২২:০০আপডেট : ২১ জুন ২০২৪, ০৯:২৫

ব্যাংক খাতে তারল্যের সংকট প্রকট আকার ধারণ করেছে। এরইমধ্যে বেশ কয়েকটি ব্যাংকের ঋণ শৃঙ্খলা ভেঙে পড়ছে। কিছু ব্যাংক তাদের গ্রাহকের আমানতের টাকা ফেরত দিতে হিমশিম খাচ্ছে। ১০ লাখ টাকার চেক নগদায়নেও গ্রাহকের কাছে সময় চাচ্ছে কোনও কোনও ব্যাংক। শরিয়াহভিত্তিক বেশ কয়েকটি ব্যাংক দিন পার করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বিশেষ সহায়তা নিয়ে। শুধু তাই নয়, দৈনন্দিন লেনদেন সম্পন্ন করতে বেশিরভাগ ব্যাংককে এখন কলমানি মার্কেট থেকে প্রতিনিয়ত উচ্চ সুদে টাকা ধার করতে হচ্ছে। বৃহস্পতিবার (২০ জুন) গড়ে ৯ দশমিক ১৩ শতাংশ সুদ হারে ২৪ ঘণ্টার জন্য ৫ হাজার ২৬ কোটি টাকা  (ওভারনাইট) ধার দেওয়া-নেওয়ার‌ ঘটনা ঘটেছে।

ব্যাংকাররা জানান, গত দুই বছর ধরে ব্যাংকিং খাত তারল্য-সংকট নিয়ে চলছে। কোনও কোনও ইসলামি ব্যাংক এক বছরের বেশি সময় ধরে টানা তারল্য-সংকটে ভুগছে। এর প্রভাব পড়েছে সামগ্রিক ব্যাংকিং খাতে। এর প্রভাবে ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রেও ব্যাংকগুলো চাপে পড়েছে।

প্রসঙ্গত, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের জন্য অর্থবছরের শুরু থেকেই মুদ্রাবাজার থেকে টাকা তুলে নেওয়া শুরু করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। কিন্তু ব্যাংকের ওপর মানুষের আস্থা কমে যাওয়া, মানুষের হাতে নগদ টাকার পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় তারল্য সংকট বেড়েই চলেছে।

জানা গেছে, দুর্বল ব্যাংকগুলো সবল ব্যাংকের সঙ্গে বাধ্যতামূলক একীভূত হওয়ার খবরে অনেকেই আতঙ্কিত হয়ে দুর্বল ব্যাংক থেকে আমানত প্রত্যাহার করছেন। শুধু সাধারণ আমানতকারী নন, সরকারি আমানত প্রত্যাহার করার জন্য চিঠি দেওয়া হয়েছে। অস্বাভাবিক হারে আমানত কমে যাওয়ায় তারা দৈনন্দিন ব্যয় মেটাতে পারছেন না। এ বিষয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়সহ কেন্দ্রীয় ব্যাংককে অবহিত করেছে বেসিক ব্যাংক ও রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক। এছাড়া কয়েকটি ব্যাংক থেকে প্রায় ৫ হাজার কোটি টাকার আমানত উত্তোলন করেছেন গ্রাহকরা।

টাকার প্রবাহ কমানোর কথা বলা হলেও মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির সময়ে বাজারে টাকার প্রবাহ বাড়ানোর ঘটনাও আছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, ২০২২-২৩ অর্থবছরের শেষ মাস জুনে দেশের ব্যাংক খাতে ছাপানো টাকার পরিমাণ ছিল ৩ লাখ ১১ হাজার ৯৪৮ কোটি। এর মধ্যে ছাপানো নোট ছিল ৩ লাখ ১১ হাজার ৯৫৪ কোটি এবং কয়েন ছিল ১ হাজার ৭৯৪ কোটি টাকার। তবে চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে সংকোচন করে টাকার প্রবাহ কমিয়ে ২ লাখ ৯২ হাজার ৫৩৪ কোটিতে নামিয়ে আনা হয়। অর্থবছরের অক্টোবর পর্যন্ত এই সংকোচন অব্যাহত থাকে। ওই মাসে টাকার প্রবাহ কমে দাঁড়ায় ২ লাখ ৭৩ হাজার ৩৭ কোটি। কিন্তু পরের মাস নভেম্বরে টাকার প্রবাহ ১ হাজার ৪৭৪ কোটি বেড়ে দাঁড়ায় ২ লাখ ৭৪ হাজার ৫১১ কোটিতে। আর গত মার্চে তা আরও বেড়ে দাঁড়ায় ২ লাখ ৯১ হাজার ১৮৯ কোটি। অর্থাৎ সংকোচন থেকে বেরিয়ে ৫ মাসেই বাজারে ১৮ হাজার ১৫২ কোটি টাকা বাড়িয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। যদিও জুন পর্যন্ত তা কয়েকগুণ বেড়েছে বলে জানা গেছে। দেশে বর্তমানে মানি মাল্টিপ্লেয়ার ৫-এর বেশি। সে হিসাবে অর্থনীতিতে ৯০ হাজার কোটি টাকার প্রভাব তৈরি করতে পারে। এটি দেশের মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণকে বাধাগ্রস্ত করছে।

এ প্রসঙ্গে বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশের (পিআরআইবি) নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, একদিকে বলছে সংকোচনমূলক মুদ্রানীতি, আবার অপরদিকে ব্যাংকগুলোকে রেপো সুবিধা দেওয়া হচ্ছে।’ তিনি বলেন, ‘সংকোচনমূলক মুদ্রানীতিতে রেপোতে ধার দেওয়া সম্পূর্ণ সাংঘর্ষিক। এ কারণেই মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে কোনও প্রভাব পড়ছে নাা।’

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, চলতি মাসের শুরু থেকেই ব্যাংকগুলোর আন্তঃব্যাংক কলমানিতে সুদের হার দাঁড়িয়েছে ৯ শতাংশের বেশি। এটি গত এক যুগের মধ্যে সর্বোচ্চ গড় সুদহার। আর কলমানিতে ২০ জুন ৫ দিনের জন্য ধার নেওয়ার বিপরীতে সর্বোচ্চ সুদ হার দাঁড়িয়েছে ১১.৫০ শতাংশ। এদিন কলমানি ৯১ দিনের টার্ম লোনে সর্বোচ্চ সুদহার উঠেছে ১২ দশমিক ৪০ শতাংশ।

চলতি মাসের প্রথম ১০ কর্মদিবসেই শুধু কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে ব্যাংকগুলোর ধারের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে দেড় লাখ কোটি টাকার বেশি।

এদিকে বৃহস্পতিবার (২০ জুন) কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে নতুন করে বাংলাদেশ ব্যাংক রেপো, অ্যাসিউরড লিকুইডিটি সাপোর্ট ফ্যাসিলিটি (এএলএসএফ) ও ইসলামিক ব্যাংকস লিকুইডিটি ফ্যাসিলিটি (আইবিএলএফ)  সুবিধার আওতায় ৮ হাজার ৪৮১ কোটি টাকা ধার নিয়েছে বেশ কয়েকটি ব্যাংক। এর আগে গত ১৯ মে নিলামে ৪২টি ব্যাংক ও ৪টি ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠান (এনবিএফআই) রেপো ও তারল্য সহায়তা সুবিধার মাধ্যমে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছ থেকে ১৭ হাজার ৯২ কোটি ৪ লাখ টাকা ধার নিয়েছে।

অর্থাৎ বেশিরভাগ ব্যাংক ঋণ নিয়ে আগের ঋণ পরিশোধ করছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, কেন্দ্রীয় ব্যাংক ও কলমানি মিলে গড়ে প্রতিদিন ২০-২৫ হাজার কোটি টাকা ধার নিচ্ছে ব্যাংকগুলো। এর মধ্যে সরকারি, বেসরকারি উভয় খাতেরই ব্যাংক রয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যমতে, তারল্য সংকটে পড়ে চলতি জুনের প্রথম ১০ কর্মদিবসে ব্যাংকগুলো কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে ১ লাখ ৫২ হাজার ৬৬৫ কোটি টাকা ধার নিয়েছে। এর মধ্যে গত ৯ জুন সর্বোচ্চ ২০ হাজার কোটি টাকা ধার করেছে ব্যাংকগুলো। এসব ধারে সর্বোচ্চ সুদ হার ছিল ৮ দশমিক ৭৫ শতাংশ। আর সর্বনিম্ন সুদ গুনতে হয়েছে ৮ দশমিক ৫০ শতাংশ।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক প্রতিবেদনে দেখা যায়, বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর নেওয়া ঋণ বা ধারের পরিমাণ গত বছরের অক্টোবর-ডিসেম্বর প্রান্তিকে ছিল ১ লাখ ২৯ হাজার ৬৪৯ কোটি ৫৮ লাখ টাকা। জানুয়ারি-মার্চ প্রান্তিকে এসে ধারের স্থিতি দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৩৫ হাজার ৭৭১ কোটি ৮৭ লাখ টাকা। সেই হিসাবে মাত্র তিন মাসের ব্যবধানে ব্যাংকগুলোর ধার বেড়েছে ৬ হাজার ১১২ কোটি ২৯ লাখ টাকা।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মেজবাউল হক  বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমরা মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের অংশ হিসেবে  টাকা তুলে নিচ্ছি। এ কারণে ব্যাংকগুলোতে  কিছুটা তারল্যের সংকট দেখা দিয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ করতে বাংলাদেশ ব্যাংক সংকোচনমূলক মুদ্রানীতি দিয়েছে। এতে সব ধরনের সুদের হার বেড়েছে। পাশাপাশি বাংলাদেশ ব্যাংক আরও কিছু টুলস ব্যবহার করে বাজার থেকে টাকা তুলে নিচ্ছে।  তবে সংকট যাতে প্রকট আকার ধারণ না করে, সে জন্য আমরা বাংলাদেশ ব্যাংক রেপো, অ্যাসিউরড লিক্যুইডিটি সাপোর্ট ফ্যাসিলিটি (এএলএসএফ), স্ট্যান্ডিং লেন্ডিং ফ্যাসিলিটি (এসএলএফ) এবং শরিয়াহভিত্তিক ব্যাংকগুলোর জন্য স্পেশাল লিক্যুইডিটি সাপোর্টসহ (এসএলএস) বিভিন্ন মাধ্যমে সহায়তা দিচ্ছি।’ তিনি উল্লেখ করেন, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে এলে এবং সংকোচন থেকে বেরিয়ে গেলেই ব্যাংকের তারল্য সংকট কেটে যাবে।

/এপিএইচ/
সম্পর্কিত
এবারের মুদ্রানীতি কি মূল্যস্ফীতি কমাতে পারবে?
রিজার্ভ এখন কত?
টেকসই ১০ ব্যাংকের তালিকা প্রকাশ
সর্বশেষ খবর
অ্যান্টিভেনমেও সাপে কাটা রোগীকে বাঁচানো যাচ্ছে না কেন
অ্যান্টিভেনমেও সাপে কাটা রোগীকে বাঁচানো যাচ্ছে না কেন
কমতে শুরু করেছে যমুনার পানি, এখনও পানিবন্দি এক লাখ মানুষ
কমতে শুরু করেছে যমুনার পানি, এখনও পানিবন্দি এক লাখ মানুষ
মস্কোর কাছে রুশ জেট বিধ্বস্ত, তিন ক্রু নিহত
মস্কোর কাছে রুশ জেট বিধ্বস্ত, তিন ক্রু নিহত
উজানে কমছে, ভাটিতে এখনও হাজারো পরিবার পানিবন্দি
উজানে কমছে, ভাটিতে এখনও হাজারো পরিবার পানিবন্দি
সর্বাধিক পঠিত
ভিটামিন বি-১২ কমে গেলে যেসব রোগের ঝুঁকি বাড়ে
ভিটামিন বি-১২ কমে গেলে যেসব রোগের ঝুঁকি বাড়ে
দুই টাইলসের মাঝে দাগ পড়লে কী করবেন
দুই টাইলসের মাঝে দাগ পড়লে কী করবেন
রাশিয়াকে সহযোগিতা নিয়ে ন্যাটোর অভিযোগে চীনের পাল্টা আক্রমণ
রাশিয়াকে সহযোগিতা নিয়ে ন্যাটোর অভিযোগে চীনের পাল্টা আক্রমণ
পুলিশ কর্মকর্তা কামরুলের স্ত্রীর নামে আছে পাঁচ জাহাজ
পুলিশ কর্মকর্তা কামরুলের স্ত্রীর নামে আছে পাঁচ জাহাজ
রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরুর ব্যাপারে ইতিবাচক মিয়ানমার
বিমসটেক রিট্রিটরোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরুর ব্যাপারে ইতিবাচক মিয়ানমার