X
সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
২৩ মাঘ ১৪২৯

কুমিল্লায় প্রথম ‘ভাষা চত্বর’ উদ্বোধন

কুমিল্লা প্রতিনিধি
২১ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ১৮:০২আপডেট : ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ১৮:০২

কুমিল্লায় ভাষা শহীদদের স্মৃতি রক্ষায় প্রথম ভাষা চত্বরের উদ্বোধন করা হয়েছে। সোমবার (২১ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ১টায় নগর উদ্যানের সামনে এ ভাষা চত্বরের উদ্বোধন করেন কুমিল্লা সদর আসনের এমপি আ. ক. ম. বাহাউদ্দিন বাহার।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা সিটি করপোরেশন মেয়র মনিরুল হক সাক্কু, সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. শফিকুল ইসলামসহ সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন ওয়ার্ডের কাউন্সিলররা।

জানা গেছে, এই ভাষা চত্বরে পাঁচ ভাষা শহীদ ও কুমিল্লার ৩৪ ভাষাসৈনিকের নাম রয়েছে। কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে নগর শিশু উদ্যানের প্রবেশপথে তৈরি হয়েছে এই ভাষা চত্বর। চত্বরের ছয় ফুট জায়গায় রয়েছে ভাষা আন্দোলনের বর্ণমালা সংবলিত প্ল্যাকার্ড, ভাষা আন্দোলনের ব্যানার, ১৮ ফুট জায়গায় রয়েছে শহীদ মিনার, রক্তিম সূর্য, চার পাশে রয়েছে ভাষা শহীদদের ছবি ও কুমিল্লার ভাষাসৈনিকদের নাম। ভাষাসৈনিকদের নামের পাশে রয়েছে পানির পোয়ারা ও নান্দনিক আলোকসজ্জা।।

ভাষা চত্বরের নির্মাতা শিল্পী মোহাম্মদ শাহীন বলেন, এই কাজে আমাকে সহায়তা করেছে কুমিল্লা সিটি করপোরেশন এবং অঙ্কনশালার শিল্পী ও শিক্ষার্থীরা। কুমিল্লাতে ভাষা চত্বর এই প্রথম নির্মিত হয়েছে। শহীদ মিনার আছে। কিন্তু এতদিন ভাষা চত্বর ছিল না। কুমিল্লার শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ও বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলামকে ছাড়া বাংলা ভাষার ইতিহাস অসম্পূর্ণ। এখানে অনেক ভাষাসৈনিকের বাড়ি। তাদের প্রতি সম্মান জানিয়ে বিনা পারিশ্রমিকে ভাষা চত্বর নির্মাণের কাজটি করেছি আমি। এতে নতুন প্রজন্ম ভাষার ইতিহাস সম্পর্কে গভীরভাবে জানতে পারবে। আমার বিশ্বাস এটি কুমিল্লার সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে যেমন অবদান রাখবে তেমনি ইতিহাস ঐতিহ্যে স্থান করে নেবে।

ভাষা আন্দোলন ভিত্তিক সংগঠন তিন নদী পরিষদের সভাপতি আবুল হাসানাত বাবুল বলেন, এটি ভালো উদ্যোগ। কুমিল্লায় এটি ছাড়া আর কোনও ভাষা চত্বর নেই। সব বয়সী মানুষ যখন এটি দেখবে তখন বাংলা ভাষার কথা মনে পড়বে। শহীদদের ত্যাগের কথা মনে হবে। এটি নবীনদের জন্য বার্তাবহ।

কুমিল্লার মেয়র মো. মনিরুল হক সাক্কু বলেন, অনেকদিন ধরেই এই পরিকল্পনা গ্রহণ করেছিলাম। এরপর সুধীজনদের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করি। তারপর শিল্পী শাহীনকে বিষয়টি জানাই। তিনি পারিশ্রমিক ছাড়াই কাজটি করে দিয়েছেন। আজ এটি উদ্বোধন করেছি আমরা।

এমপি আ. ক. ম. বাহাউদ্দিন বাহার বলেন, ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য এটি একটি বইয়ের মতো। ভাষা চত্বরটি অনেক সুন্দর করে নির্মাণ করেছেন শিল্পী। আমি বিমোহিত। কারণ ভাষা আন্দোলনের ইতিহাসকে একজন শিল্পী এভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন; যা অনন্য।

প্রসঙ্গত, ১৯৪৮ সালে পাকিস্তানের গণপরিষদের অধিবেশনে বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার প্রস্তাব করেন নগরীর ঝাউতলার বাসিন্দা অ্যাডভোকেট শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত। তিনি কুমিল্লা জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। নগরীর উজিরদিঘীর পাড়ের বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের রূপকার। মৃত্যুর তিন বছর পর ২০১৬ সালে তাকে ‌স্বাধীনতা পুরস্কার দেওয়া হয়।

/এএম/
সর্বশেষ খবর
ভিনিসিয়ুসকে ‘বানর’ বলে ডাকা হয়েছিল!
ভিনিসিয়ুসকে ‘বানর’ বলে ডাকা হয়েছিল!
প্রেস ক্লাবে সাংবাদিক আহসান উল্লাহর জানাজা অনুষ্ঠিত
প্রেস ক্লাবে সাংবাদিক আহসান উল্লাহর জানাজা অনুষ্ঠিত
বাবাকে হত্যা করে ছেলের আত্মসমর্পণ
বাবাকে হত্যা করে ছেলের আত্মসমর্পণ
তুরস্কে ভূমিকম্পে নিহত ছাড়াতে পারে ১০ হাজার: ইউএসজিএস
তুরস্কে ভূমিকম্পে নিহত ছাড়াতে পারে ১০ হাজার: ইউএসজিএস
সর্বাধিক পঠিত
ব্যাংকের আমানতকারীদের জন্য সুখবর আসছে
ব্যাংকের আমানতকারীদের জন্য সুখবর আসছে
পানির বিল নিয়ে বিরোধে ‘সুলতান ভাই কাচ্চির’ ম্যানেজারকে গুলি
পানির বিল নিয়ে বিরোধে ‘সুলতান ভাই কাচ্চির’ ম্যানেজারকে গুলি
বুয়েটের সামনে কাভার্ডভ্যান আটকে ‘ছিনতাই’, ঢাবির ৩ শিক্ষার্থী আটক
বুয়েটের সামনে কাভার্ডভ্যান আটকে ‘ছিনতাই’, ঢাবির ৩ শিক্ষার্থী আটক
হানিফ সংকেতের ‘আবেগ যখন বিবেকহীন’
হানিফ সংকেতের ‘আবেগ যখন বিবেকহীন’
আমার সঙ্গে নির্বাচন করুন, দেখুন কে জেতে: ওবায়দুল কাদেরকে হিরো আলম
আমার সঙ্গে নির্বাচন করুন, দেখুন কে জেতে: ওবায়দুল কাদেরকে হিরো আলম