X
রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
১২ ফাল্গুন ১৪৩০

সানন্দবাড়ীতে অসময়ের ভাঙনে ব্রহ্মপুত্রের গর্ভে ঘরবাড়ি-ফসলি জমি

জামালপুর প্রতিনিধি
২০ অক্টোবর ২০২৩, ১২:৪৫আপডেট : ২০ অক্টোবর ২০২৩, ১৩:১০

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জের সানন্দবাড়ীতে অসময়ে ব্রহ্মপুত্র নদে আবারও তীব্র ভাঙন দেখা দিয়েছে। গত কয়েকদিনের টানা বর্ষণ আর উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে দেড় কিলোমিটার এলাকাজুড়ে এই ভাঙন দেখা দিয়েছে। এতে প্রায় শতাধিক একর জমি নদীগর্ভে চলে গেছে। বিলীন হওয়ার পথে রয়েছে কয়েকটি গ্রাম।

কিছুদিন আগে পানি উন্নয়ন বোর্ড জিও ব্যাগ ফেলে ভাঙনরোধের চেষ্টা করেছিল। কিন্তু এবারের ভাঙনে জিও ব্যাগ আর কাজে আসছে না, ভেসে যাচ্ছে। ভাঙনরোধে স্থায়ী কোনও পদক্ষেপের উদ্যোগ না নেওয়ায় এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ। 

ইতোমধ্যে ওই এলাকার চর আমখাওয়া ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের পাটাধোয়া পাড়া, ৫নং ওয়ার্ডের পশ্চিমপাড়ায় দেড় কিলোমিটার এলাকা জুড়ে শত শত একর ফসলি জমি ঘরবাড়ি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। কয়েকদিনে ৫০ থেকে ৬০টি পরিবার ভিটেমাটি হারিয়েছে। এ ছাড়া খোলাবাড়ী টুপকার চর বিলীন হওয়ার পথে।

পাটাধোয়া পাড়া এলাকার রফিকুল ইসলাম, ছোরহাব উদ্দিন, বারেক মিয়াসহ স্থানীয় কয়েকজন বলেন, ‘বাড়িঘর জমিজমা, সব নদীতে চলে গেছে, চরে অস্থায়ীভাবে আশ্রয় নিয়েছি। কোথাও যাওয়ার জায়গা নেই, সরকার যেন আমাদের সহায়তা করে ঘর তুলে দেয়।’

তাদের দাবি স্থায়ী বাঁধ নির্মাণ। কিছুদিন আগে পানি উন্নয়ন বোর্ড ভাঙন রোধে ১৬০ মিটার এলাকায় ১৩ হাজার জিও ব্যাগ ফেলা হলেও সেগুলো স্রোতে ধসে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে ২০ মিটার জায়গার জিও ব্যাগ নদীতে চলে গেছে।

চর আমখাওয়া ইউপি চেয়ারম্যান জিয়াউল ইসলাম বলেন, ‘কিছুদিন আগে পাউবির পক্ষ থেকে ১৬০ মিটার এলাকায় জিও ব্যাগ ফেলা হয়। তার মধ্যে ২০ মিটার এলাকার জিও ব্যাগ নদীগর্ভে চলে গেছে।’ স্থায়ী প্রতিরক্ষা বাঁধ নির্মাণের দাবি জানান তিনি ।

দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) কামরুন্নাহার শেফা জানান, এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের নির্বাহী প্রকৌশলী স্যার গত সপ্তাহে সেখানে ভিজিট করেছেন। স্থায়ী বাঁধ নির্মাণের জন্য একটি প্রস্তাবনা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো আছে। আমরা আশা করি সমস্যার সমাধান হবে।’

/এমএএ/
সম্পর্কিত
অসময়ে ভাঙছে ব্রহ্মপুত্রের পাড়, দুশ্চিন্তায় স্থানীয়রা
নদ থেকে অবৈধভাবে তোলা বালুতে পৌরসভার চত্বর তৈরি করছেন প্যানেল মেয়র
অসময়ে পদ্মার ভাঙনে আতঙ্কে এলাকাবাসী
সর্বশেষ খবর
বিদ্যুৎ কোম্পানিতে চাকরি, বাড়ি-গাড়ির সুবিধাসহ মূল বেতন ১ লাখ ৪৯ হাজার
বিদ্যুৎ কোম্পানিতে চাকরি, বাড়ি-গাড়ির সুবিধাসহ মূল বেতন ১ লাখ ৪৯ হাজার
পিলখানা হত্যাকাণ্ডের নেপথ্যের ব্যক্তিদের খুঁজে বের করা হবে: ফারুক খান
পিলখানা হত্যাকাণ্ডের নেপথ্যের ব্যক্তিদের খুঁজে বের করা হবে: ফারুক খান
বাজারে কিছুটা অস্থিতিশীলতা আছে, সংসদকে জানালেন শিল্পমন্ত্রী
বাজারে কিছুটা অস্থিতিশীলতা আছে, সংসদকে জানালেন শিল্পমন্ত্রী
পোশাকশ্রমিককে চাপা দেওয়া ট্রাকচালক গ্রেফতার
পোশাকশ্রমিককে চাপা দেওয়া ট্রাকচালক গ্রেফতার
সর্বাধিক পঠিত
ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে গ্রামীণ ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মানববন্ধন
ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে গ্রামীণ ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মানববন্ধন
ইউক্রেন যুদ্ধ থেকে যা শিখেছে পেন্টাগন
ইউক্রেন যুদ্ধ থেকে যা শিখেছে পেন্টাগন
গানে বাধা দিয়ে আর বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ না করার মুচলেকা দিলেন সাবেক শিক্ষার্থী
গানে বাধা দিয়ে আর বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ না করার মুচলেকা দিলেন সাবেক শিক্ষার্থী
মার্কিন প্রতিনিধি দলের সঙ্গে মির্জা ফখরুলের বৈঠক
মার্কিন প্রতিনিধি দলের সঙ্গে মির্জা ফখরুলের বৈঠক
রাশিয়ার আভদিভকা দখল, পাল্টে যাবে যুদ্ধের গতি?
রাশিয়ার আভদিভকা দখল, পাল্টে যাবে যুদ্ধের গতি?