X
বুধবার, ১৭ আগস্ট ২০২২
২ ভাদ্র ১৪২৯

স্ত্রীর ঋণে দিশেহারা প্রবাসী স্বামী 

কুমিল্লা প্রতিনিধি
২৫ এপ্রিল ২০২২, ১১:৪০আপডেট : ২৫ এপ্রিল ২০২২, ১১:৪০

প্রবাসী স্বামীর অবর্তমানে স্ত্রীকে একাধিক এনজিও দিয়েছে ঋণ। বর্তমানে দেশে ফিরে ওই স্বামী এখন ঋণের দায়ে জর্জরিত। কিস্তির চাপে দিশাহারা প্রবাসীর অভিযোগ এনজিওগুলো কীভাবে আমার অবর্তমানে এত টাকা ঋণ দিলো। কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার সোনাইসার গ্রামের এ ঘটনায় এলাকায় চলছে আলোচনা-সমালোচনা।

ওই প্রবাসীর নাম রবিউল আলম সোহেল। তিনি কুমিল্লা বুড়িচং উপজেলার সোনাইসার গ্রামের বাসিন্দা। গত জানুয়ারি মাসে ফ্রান্স থেকে দেশে আসেন। আসার পর জানতে পারেন স্ত্রী তার অবর্তমানে অন্তত সাতটি এনজিও থেকে অর্ধকোটির বেশি ঋণ নিয়েছেন। 

ভুক্তভোগী রবিউল আউয়াল বলেন, রেমিট্যান্স লোন দিলে অবশ্যই প্রবাসে অবস্থানরত ব্যক্তির সঙ্গে ভিডিওকলে কথা বলতে হবে। তা না করে আমার স্ত্রীকে তারা কিভাবে লোন দিলো। এটা আমার বোধগম্য নয়। আজ সাত বছর পর দেশে এসে আমি নিঃস্ব। আমি জানি আমার স্ত্রী অপরাধী। কিন্তু এনজিওগুলো কিভাবে ভুয়া কাগজপত্র বানিয়ে আমার স্ত্রীকে ঋণ দিলো। এখানে তারা অবশ্যই বেনিফিটেড হয়েছে। 

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রবিউল আউয়ালের স্ত্রী মারিয়া আফরিন এই পর্যন্ত সাতটি এনজিও থেকে মোট ৬৮ লাখ টাকা ঋণ নিয়েছেন। এনজিওগুলো হলো এসএসএস,সিসিডিএ, পল্লী মঙ্গল,দ্বীপ, টিএমএসএস, গাক ও ব্র্যাক। কিস্তি পরিশোধের মধ্যে এখন পর্যন্ত আরও ২২ লাখ টাকা ঋণ রয়েছে।
 
ভুক্তভোগী রবিউল আলম বলেন, আমি বাড়ি এসে একটি ফোনকলের সূত্র ধরে জানতে পারি আমার স্ত্রী আমার অগোচরে বিভিন্ন সংস্থা থেকে ঋণ নিয়েছেন। আমার প্রশ্ন হলো আমার অবর্তমানে আমার স্ত্রীকে কিভাবে তারা এত টাকার ঋণ দিলো। এখানে অবশ্যই এনজিওর ফিল্ড ম্যানেজাররা অবৈধ সুযোগ গ্রহণ করেছেন। 

ভুক্তভোগী রবিউল আলম আরও জানান, গত সাত বছর ফ্রান্সে থেকে যে আয় করেছেন তা দিয়ে একটি বাড়ি নির্মাণ শুরু করেছেন। এখনও নির্মাণকাজ বাকি। এই মুহূর্তে বাড়ি এসে ঋণের কথা শুনে আমি এখন দিশেহারা। আমার এক ছেলে ও এক মেয়ে। স্ত্রী আমাকে বলে এ ঘটনায় সে আত্মহত্যা করবে। এখন আমি কি করবো। 

এদিকে এনজিওগুলোর মধ্যে গাকের ফিল্ড অফিসার রিপন জানান, তিনি তার গ্রাহক মারিয়া আফরিনের মোবাইলফোনে স্বামীর সঙ্গে কথা বলেই ঋণ দিয়েছেন। সেক্ষেত্রে ফোনের অপর প্রান্তে কে ছিল তা তিনি নিশ্চিত নন। 

একই কথা বললেন এসএসএস’র ফিল্ড অফিসার বিপ্লব ভদ্র। তিনি জানান, এসএসএস থেকে এখন পর্যন্ত মারিয়া পাঁচবার ঋণ নিয়েছেন। প্রতিবারই ঋণ দেওয়ার সময় যতটুকু দলিলপত্রাদি রাখা দরকার, আমরা রেখেছি। আমাদের কাছে খালি চেকও আছে। 

সিসিডিএ ভরাসার শাখার ব্রাঞ্চ ম্যানেজার কাউছার আলম জানান, মারিয়ার স্বামী ফোনে বলেছে তার শ্বশুর সব জানে। মারিয়াকে ঋণ দিলে কোনও সমস্যা নেই। আমরা আমাদের নিয়ম মেনেই ঋণ দিয়েছি। প্রায় সবগুলো এনজিও প্রতিনিধিদের দাবি তারা নিয়ম মেনেই ঋণ দিয়েছেন। 

তবে রবিউল আলমের স্ত্রী মারিয়া আফরিন বলেন, আমাকে ঋণ দেওয়ার সময় কোনও এনজিও কর্মকর্তা স্বামীর সঙ্গে কথা বলেননি। তারা এখন মিথ্যা বলছে, যে আমার স্বামীর সঙ্গে কথা বলেছে। কিভাবে এত টাকা ঋণ নিলেন এমন প্রশ্নের জবাবে মারিয়া আফরিন বলেন, প্রথমে আমি একটি এনজিও থেকে ঋণ নেই। এনজিওর লোকজন আমাদের ঘরবাড়ি দেখেই কাগজপত্র তৈরি করে ঋণ দিয়েছে। পরে ওই এনজিওর কিস্তি পরিশোধ করতে অন্য আরও একটা থেকে ঋণ নেই।  এভাবে এক এনজিওর কিস্তি পরিশোধ করতে গিয়ে আরেক এনজিও থেকে ঋণ নেই। এভাবে ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়েছি।

 

/টিটি/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
অনেক মামলা ঝুলে আছে নিম্ন আদালতে
অনেক মামলা ঝুলে আছে নিম্ন আদালতে
ইউক্রেন সফরে আসছেন এরদোয়ান ও গুতেরেস
ইউক্রেন সফরে আসছেন এরদোয়ান ও গুতেরেস
গ্রিস-তুরস্ক সীমান্তের নির্জন দ্বীপে ৩৮ অভিবাসী উদ্ধার
গ্রিস-তুরস্ক সীমান্তের নির্জন দ্বীপে ৩৮ অভিবাসী উদ্ধার
কেজিতে ৪০ টাকা কমলো কাঁচা মরিচের দাম 
কেজিতে ৪০ টাকা কমলো কাঁচা মরিচের দাম 
এ বিভাগের সর্বশেষ
১৮ বছর ধরে জহিরুলের সরকারি চাকরিটি করছেন আরেকজন
১৮ বছর ধরে জহিরুলের সরকারি চাকরিটি করছেন আরেকজন
তেল কম দেওয়ায় ২ ফিলিং স্টেশনকে লাখ টাকা জরিমানা 
তেল কম দেওয়ায় ২ ফিলিং স্টেশনকে লাখ টাকা জরিমানা 
সৌদি দূতাবাসের কথা বলে ইউপি ভবনে নিলো আঙুলের ছাপ
সৌদি দূতাবাসের কথা বলে ইউপি ভবনে নিলো আঙুলের ছাপ
মোটা অঙ্কের টাকায় নিয়োগের লিখিত পরীক্ষায় পাস, মৌখিক দিতে এসে আটক
মোটা অঙ্কের টাকায় নিয়োগের লিখিত পরীক্ষায় পাস, মৌখিক দিতে এসে আটক
সুজি-চিনি-রং মিশিয়ে গুড় তৈরি, পাত্রে মরা কাঠবিড়ালি
সুজি-চিনি-রং মিশিয়ে গুড় তৈরি, পাত্রে মরা কাঠবিড়ালি