X
মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪
৩ বৈশাখ ১৪৩১

কোথায় আয়াতের টুকরো করা লাশ ফেলেছে দেখিয়েছে আবির

নাসির উদ্দিন রকি, চট্টগ্রাম
২৮ নভেম্বর ২০২২, ১৬:৩৩আপডেট : ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১৬:৩৩

সাম্প্রতিক সময়ে দেশে ঘটে যাওয়া হত্যাকাণ্ডগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি চাঞ্চল্য তৈরি করেছে চট্টগ্রামে শিশু আলিনা ইসলাম আয়াত (৫) হত্যার ঘটনাটি। দেশের বেশিরভাগ মানুষের মনকে নাড়া দিয়েছে এই হত্যা। নৃশংসতার শিখরে গিয়ে হত্যা, লাশ টুকরো করে গুম ও আলামত ধ্বংস করেছে ঘাতক আবির আলী। প্রশ্ন জেগেছে, কেন এই হত্যাকাণ্ড চালিয়েছে? সেটির আঁচ পাওয়া গেছে আবিরের বাসা থেকে উদ্ধার হওয়া এক ডায়েরি থেকে। পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) অভিযানে তার বাসায় পাওয়া ডায়েরিতে অনেক অর্থের মালিক ও বড় লোক হওয়ার লালসার কথা উল্লেখ রয়েছে।

পিবিআই কর্মকর্তারা বলছেন, অল্প সময়ে বড় লোক হওয়ার নেশায় শিশু আয়াতকে অপহরণ করে পরিবারের কাছ থেকে মুক্তিপণ আদায় করাই ছিল তার মূল লক্ষ্য। শনিবার আবির আলীর দুদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। তারপর তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। রবিবার আবিরকে নিয়ে অভিযান চালায় পিবিআই। কোথায় কোথায় আয়াতের খণ্ডিত দেহ ফেলেছে সেখানে তল্লাশি চালায়। তবে অভিযানে শেষ পর্যন্ত আয়াতের লাশের একটি টুকরোও পাওয়া যায়নি।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও পিবিআই ইন্সপেক্টর মনোজ দে বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘দুদিনের রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে আবিরকে নিয়ে বেড়িবাঁধ সাগরপাড় এলাকায় অভিযান চালানো হয়। আমাদের দেখিয়ে দিয়েছিল, কোথায় কোথায় আয়াতের লাশভর্তি বস্তা ফেলেছিল। পুলিশ এবং স্থানীয় লোকজন লাশের খণ্ডিত অংশ খুঁজতে তল্লাশি চালিয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা পাওয়া যায়নি।’

কোথায় আয়াতের টুকরো করা লাশ ফেলেছে দেখিয়েছে আবির

তিনি আরও বলেন, ‘পরে তাকে নিয়ে ইপিজেড থানাধীন আকমল আলী সড়কে অবস্থিত তার বাসায় অভিযান চালানো হয়। সেখানে একটি ডায়েরি উদ্ধার করা হয়। ওই ডায়েরিতে আবিরের বড় লোক হওয়ার অর্থাৎ অনেক বেশি অর্থ-বিত্তের মালিক হওয়ার আকাঙ্ক্ষার কথা উল্লেখ রয়েছে। এ ডায়েরি আবিরের বলে জানা গেছে। তবে ডায়েরির হাতের লেখা তার কি-না তা যাচাই-বাছাই করে দেখা হবে।’

এদিকে, অভিযানে থাকা পিবিআইয়ের এক কর্মকর্তা বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আবিরের বাসায় এখনও রক্তের দাগ লেগে আছে। আবির দেখিয়ে দিয়েছিল, কোথায় কীভাবে আয়াতের দেহটি খণ্ড-বিখণ্ড করেছিল। কীভাবে বস্তায় ঢুকিয়েছিল লাশ। এর আগে আয়াতকে খণ্ডিত করা কাটার ও বটি উদ্ধার করা হয়।’

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আবির আলী পিবিআই কর্মকর্তাদের জানিয়েছে, আয়াতকে অপহরণের পর তার (আবিরের) বাবার বাসায় নিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। মূলত অপহরণের কথা বলে পরিবারের কাছ থেকে ১৫ থেকে ২০ লাখ টাকা আদায় করা ছিল তার টার্গেট। তবে নিখোঁজের পরপরই স্বজনরা থানায় নিখোঁজ ডায়েরি করেন। তাকে উদ্ধারে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তৎপরতা শুরু হওয়ায় ধরা পড়ার ভয়ে মুক্তিপণ চাওয়া থেকে বিরত থাকে।’

পিবিআইয়ের এক কর্মকর্তা বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আবির হত্যার দায় স্বীকার করার পর পিবিআই কর্মকর্তাদের দাম্ভিকতার সঙ্গে বলেন, ‘‘আমিতো সব এভিডেন্স নষ্ট করে দিয়েছি। কিছুই তো রাখিনি। যেগুলো দিয়ে আপনারা আমাকে ফাঁসাতে পারবেন’’। দেড় মাস আগে আয়াতকে অপহরণের পরিকল্পনা করে। সে ভারতীয় সিরিয়াল ক্রাইম প্যাট্রল ও সিআইডির নিয়মিত দর্শক। আলামত নষ্ট ও হত্যার কৌশল এসব সিরিয়াল থেকে রপ্ত করেছে।’

কোথায় আয়াতের টুকরো করা লাশ ফেলেছে দেখিয়েছে আবির

জিজ্ঞাসাবাদে আবির পিবিআইকে জানায়, গত ১৫ নভেম্বর নগরের ইপিজেড থানাধীন বন্দরটিলা নয়াহাট বিদ্যুৎ অফিস এলাকার মসজিদে প্রতিদিনের মতো আরবি পড়তে যাচ্ছিল আয়াত। ওই মসজিদে এলাকার অন্যান্য ছেলে-মেয়েদের সঙ্গে আসরের নামাজের পর আরবি পড়ানো হয়। প্রথমে একবার আয়াতকে কোলে নিয়েছিল আবির। তখন দেখে ফেলে আয়াতের এক সহপাঠী। এ কারণে তাকে ছেড়ে দেয়। পরে পেছন থেকে ডেকে নিয়ে যায় আবির। আয়াত কাছে আসা মাত্র তাকে চেপে ধরে আবিরের বাবার ভাড়া বাসায় নিয়ে যায়। সেখানে লুঙ্গি দিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। লাশ একটি ব্যাগে ঢুকিয়ে সেখান থেকে নিয়ে যায় মায়ের বাসায়। দুই বাসার দূরত্ব পাঁচ কিলোমিটার। এখানে উল্লেখ্য, গত কয়েকমাস ধরে আবিরের মা-বাবা আলাদা থাকছেন।

পিবিআই কর্মকর্তারা বলেন, লাশভর্তি বস্তাটি মায়ের বাসায় আনার পর প্রথমে শৌচাগারের ওপর ফাঁকা জায়গায় রাখে। সেখান থেকে আবারও আয়াতের বাড়িতে গিয়ে স্বজনদের সঙ্গে সেও খোঁজাখুঁজি করে। পরে রাত সাড়ে ১০টায় পুনরায় মায়ের বাসায় আসে। সেখানে মাকে বলে, ‘আয়াতকে নাকি খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। আমিও বিভিন্ন জায়গায় খুঁজেছি। দীর্ঘদিন তাদের বাসায় ছিলাম, একটু গিয়ে তার মা-বাবাকে সান্ত্বনা দিয়ে আসো’। এই বলে মা এবং বোনকে ওই বাড়িতে পাঠায়। এদিকে ফাঁকা বাসায় আবির কাটার এবং বটি দিয়ে লাশ ছয় টুকরো করে। টুকরোগুলো দুটি বস্তায় ঢুকিয়ে একটি পতেঙ্গা বেড়িবাঁধ এলাকায় বঙ্গোপসাগরে অপর বস্তা স্লুইস গেটের মুখে ফেলে দেয়।

আয়াতের দাদা মঞ্জুর হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমার বাড়ির পাশে একটি ঘর রয়েছে। ওইখানে ২১ বছর ধরে আবির আলীর পরিবার বসবাস করেছে। মাঝখানে দুই বার বের হয়ে অন্যখানে গেলেও ৪-৫ মাস পর আবার চলে আসে। দীর্ঘদিন আমার বাসায় থাকার কারণে পারিবারিক সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এমনকি আবির আলীর জন্মও হয়েছে আমাদের বাসায়। গত আট মাস আগে আবিরের মা আলো বেগম ও বাবা আজমল আলী পৃথক হয়ে যায়। এর পর আজমল আলী আমার ভাড়া ঘরে থেকে গেলেও মা প্রায় পাঁচ কিলোমিটার দূরে ইপিজেড থানাধীন আকমল আলী এলাকায় নতুন করে ঘর ভাড়া নেয়। সেখানে মা ও ছোট বোনকে নিয়ে বসবাস করতো আবির। তবে তার বাবার বাসায়ও প্রায় আসা-যাওয়া করতো।’

উল্লেখ্য, শনিবার আবিরকে দুদিনের রিমান্ডে পাঠান চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন আদালত। তা আজ শেষ হলে ফের রিমান্ড ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়। শুনানি শেষে অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আবদুল হালিমের আদালত সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

/এফআর/
সম্পর্কিত
পর্যটকদের মারধরের অভিযোগ এএসপির বিরুদ্ধে
ইউপি সদস্যকে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা
ফলের আড়তের লকার ভেঙে ১ কোটি ৮০ লাখ টাকা চুরি
সর্বশেষ খবর
আপনি কি টক্সিক প্যারেন্ট? বুঝে নিন এই ৫ লক্ষণে
আপনি কি টক্সিক প্যারেন্ট? বুঝে নিন এই ৫ লক্ষণে
সীমান্ত পেরিয়ে আশ্রয় নিলেন আরও ১২ বিজিপি সদস্য
সীমান্ত পেরিয়ে আশ্রয় নিলেন আরও ১২ বিজিপি সদস্য
রবিনিয়ো-সোহেল-এমফনের নৈপুণ্যে কিংস সেমিফাইনালে
রবিনিয়ো-সোহেল-এমফনের নৈপুণ্যে কিংস সেমিফাইনালে
রেমিট্যান্স বিতরণ নিয়ে প্রিমিয়ার ব্যাংক ও নগদের চুক্তি
রেমিট্যান্স বিতরণ নিয়ে প্রিমিয়ার ব্যাংক ও নগদের চুক্তি
সর্বাধিক পঠিত
শেখ হাসিনাকে নরেন্দ্র মোদির ‘ঈদের চিঠি’ ও ভারতে রেকর্ড পর্যটক
শেখ হাসিনাকে নরেন্দ্র মোদির ‘ঈদের চিঠি’ ও ভারতে রেকর্ড পর্যটক
৪ দিনেই হল থেকে নামলো ঈদের তিন সিনেমা!
৪ দিনেই হল থেকে নামলো ঈদের তিন সিনেমা!
বিসিএস পরীক্ষা দেবেন বলে ক্যাম্পাসে করলেন ঈদ, অবশেষে লাশ হয়ে ফিরলেন বাড়ি
বিসিএস পরীক্ষা দেবেন বলে ক্যাম্পাসে করলেন ঈদ, অবশেষে লাশ হয়ে ফিরলেন বাড়ি
চাসিভ ইয়ার দখল করতে চায় রাশিয়া: ইউক্রেনীয় সেনাপ্রধান
চাসিভ ইয়ার দখল করতে চায় রাশিয়া: ইউক্রেনীয় সেনাপ্রধান
ঘরে বসে আয়ের প্রলোভন: সবাই সব জেনেও ‘চুপ’
ঘরে বসে আয়ের প্রলোভন: সবাই সব জেনেও ‘চুপ’