X
বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২
২৩ আষাঢ় ১৪২৯

শিবচরে বাড়ছে জমির দাম

আপডেট : ২৩ জুন ২০২২, ২৩:১৩

স্বপ্নের পদ্মা সেতুর দ্বার খুলছে আগামী শনিবার (২৫ জুন)। রবিবার থেকে সেতু দিয়ে চলবে যানবাহন। সেতুর উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্বোধনকে ঘিরে চলছে বিশাল কর্মযজ্ঞ। সেতুর উদ্বোধনের দিন মাদারীপুরের বাংলাবাজার ঘাটে জনসভা করবেন প্রধানমন্ত্রী।

সেতুটি চালুর মধ্য দিয়ে দক্ষিণাঞ্চলে যোগাযোগ ব্যবস্থা, কৃষি, ব্যবসা-বাণিজ্য ও পর্যটন শিল্পের নতুন দুয়ার খুলবে। ইতিমধ্যে শিবচরে নতুন নতুন শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। নিরবচ্ছিন্ন সড়ক যোগাযোগের কারণে সময়ের পাশাপাশি কমবে পণ্য পরিবহন খরচ।

পদ্মা সেতু হওয়ার ফলে সড়কপথে মাদারীপুরের ব্যবসা-বাণিজ্যে আমূল পরিবর্তন ঘটবে। এতে জেলার শিবচরের বিশেষ করে ঢাকা-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়ের আশপাশের জমির দাম কয়েকগুণ বেড়েছে। এখানে সড়কের পাশে জমির দাম এখন আকাশছোঁয়া।

সরেজমিনে বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) পদ্মা সেতু সংলগ্ন শিবচরের বাংলাবাজার ঘাট, কাঁঠালবাড়ি, কুতুবপুর, পাচ্চর, মাদবরের চর এলাকার  স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এক দশক আগেও ঢাকা থেকে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত মহাসড়কের পাশের জমি অনেক কম দামে কেনাবেচা হতো। সেই সময়ের তুলনায় এখন জমির দাম বেড়েছে ১৫ থেকে ২০ গুণ।

এদিকে, পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে মাদারীপুরজুড়ে চলছে নতুন নতুন প্রকল্পের পরিকল্পনা। এসব প্রকল্পের কাজ শেষ হলে বদলে যাবে দক্ষিণাঞ্চলের চিত্র। এই সেতুর মধ্য দিয়ে পদ্মা পাড়ের মানুষের জীবন-জীবিকার মানে পরিবর্তনের আভাস পাওয়া যাচ্ছে। হাতে নেওয়া হয়েছে শত শত কোটি টাকার মেগা প্রকল্প। দক্ষিণের জেলা মাদারীপুরে এসব মেগা প্রকল্পের জন্য অধিগ্রহণ করা হয়েছে প্রায় পাঁচ হাজার একর জমি। এরই মধ্যে কয়েকটি প্রকল্পে কাজ দৃশ্যমান হতে শুরু করেছে। এতে আশান্বিত সাধারণ মানুষ, দুঃখ ঘুচবে নিন্মাঞ্চলের মানুষের। প্রকল্পের কাজ শেষ হলে বদলে যাবে এ জেলার চিত্র। এ ছাড়া বেসরকারি উদ্যোগে বিভিন্ন কলকারখানা গড়ে তোলার জন্য জমি ক্রয় করছে বড় বড় শিল্প প্রতিষ্ঠান। এতে করে এই অঞ্চলে কর্মসংস্থান বাড়বে। কমবে বেকারত্ব।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, শিবচরের কুতুবপুরে ইউনিয়নে এক্সপ্রেসওয়ের পাশেই ৭০ একর জায়গায় দেশের প্রথম ইনফরমেশন টেকনোলজি ইনস্টিটিউট ও হাইটেক পার্ক নির্মাণের জন্য ভূমি অধিগ্রহণের চিঠি দিয়েছে মন্ত্রণালয়। একই ইউনিয়নে ১০৮ একর জমিতে বেনারসি পল্লী নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে। টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ নির্মাণের জন্য ১৫ একর জমি অধিগ্রহণে ভূমি মন্ত্রণালয় কাজ শুরু করেছে। পরিকল্পিত শহরায়নের জন্য ৭৫০ একর জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে শিবচরে। এখানে দাদাভাই উপশহর নামে পরিকল্পিত শহরায়নের কাজ প্রায় শেষ পর্যায় রয়েছে। চর জানাজাতে অলিম্পিক ভিলেজ নির্মাণকাজ শুরু হয়েছে। চর জানাজার এক হাজার একর জমিতে মাটি ভরাট করা হচ্ছে।

দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে রাজধানীর যোগাযোগ ব্যবস্থা আধুনিকায়নে জন্য যাত্রাবাড়ী উড়াল সেতুর ঢাল থেকে মুন্সীগঞ্জের মাওয়া হয়ে পদ্মার দক্ষিণ পাড়ের মাদারীপুরের শিবচর থেকে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত মোট ৫৫ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে আট লেন বিশিষ্ট দেশের প্রথম এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্পের কাজ শেষ। এর মধ্যে পদ্মার উত্তরপাড়ে ২৫ কিলোমিটার এবং পদ্মার দক্ষিণপাড়ের মাদারীপুরের শিবচরে ৯ কিলোমিটার ও ফরিদপুরের ভাঙ্গায় ২১ কিলোমিটার সড়ক।

শিবচরের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শাকিল আহমেদ বলেন, ‘বেসরকারি উদ্যোগে বিভিন্ন কলকারখানা নির্মাণের প্রস্তুতি চলছে। এই অঞ্চলে কর্মসংস্থান বাড়বে। কমবে বেকারত্ব। অবহেলিত দক্ষিণাঞ্চলের মানুষ সোনালী দিনের স্বপ্ন দেখছে এসব প্রকল্প ঘিরে। তবে আমাদের এই অঞ্চলে গ্যাসের সংযোগ নেই। গ্যাসের সংযোগ না থাকলে কলকারখানা গড়ে তোলা সম্ভব নয়। তাই সরকারের কাছে আমাদের দাবি, উন্নয়ন প্রকল্পের সঙ্গে সঙ্গেই যেন গ্যাস সংযোগের ব্যবস্থা করে।’

কাঁঠালবাড়ি ও কুতুবপুর এলাকায় জমি কেনাবেচার সঙ্গে যুক্ত ইউনুছ মোল্লা বলেন, ‘প্রকৃতপক্ষে বর্তমানে জমির বাজার মূল্য সরকারি দরেরও ১২-১৫ গুণ বেশি। আগামী ২৫ জুন পদ্মা সেতু উদ্বোধন হবে। ২০২০ সালের মার্চে পদ্মা সেতুর দুই প্রান্তে ঢাকা থেকে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত ৫৫ কিলোমিটার এক্সপ্রেসওয়ে খুলে দেওয়া হয়েছে। তবে জমির দাম বেশি বাড়ছে মূলত এক্সপ্রেসওয়ের দুপাশে।’

কাঁঠালবাড়ী ইউনিয়নের বাগিয়া গ্রামের বাহাদুর খান বলেন, ‘আগে শতাংশ ১০ হাজার টাকা ছিল। ১০ বছরের ব্যবধানে শতাংশ দুই লাখ ২৫ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তাও সুবিধাজনক স্থানে জমি পাওয়া যায় না। সরকার অনেক জমি অধিগ্রহণ করার ফলে এলাকায় জমি কমে গেছে। বাড়ি করার এখন তেমন জমি নেই।’

পাচ্চর এলাকার চান মিয়া মুন্সী বলেন, ‘১৫ বছর আগে আমাগো এইহানে প্রতি প্রতি বিঘা ছিল ৩০ লাখ টাকা। এখন এখানে এক বিঘা জমি ৫০ লাখ হয়ে গেছে।’

ইমতিয়াজ আহমেদ নামে স্থানীয় এক যুবক বলেন, ‘আমাদের এলাকার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী বাদশা টেক্সটাইলের মালিক বাদশা ভাই ২০১৫ সাল থেকে পদ্মা সেতু এলাকার আশপাশে জমি কিনতে শুরু করেন। পদ্মা সেতুর সংযোগ সড়কের উত্তর প্রান্তে নাওডোবা মৌজায় ৩০ বিঘা জমি কিনেছে বাদশা টেক্সটাইল নামে একটি প্রতিষ্ঠান। প্রথম দিকে প্রতি বিঘা জমির দাম ২০-২৫ লাখ টাকা ছিল। সাত বছর পর এখন একই এলাকায় জমির দাম বিঘা প্রতি কোটি টাকায় উঠেছে। এ ছাড়াও অনেকেই এক্সপ্রেসওয়ের আশপাশে জমি দেখতে আসেন।’

কুতুবপুর এলাকার হায়দার আলী নামে এক যুবক বলেন, ‘পদ্মা সেতুর কারণে ঢাকার সঙ্গে যোগাযোগ অনেক সহজ হবে, এমন চিন্তা থেকে আমাদের এমপি সাহেব শিক্ষাপল্লী করার পরিকল্পনা করেছেন। শিবচরের এক্সপ্রেসওয়ের দুপাশে বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কিনে রেখেছেন। কেউ কেউ জমি কিনে সীমানা প্রাচীর তৈরি করে রেখেছেন। আবার কেউ কেউ অবকাঠামো নির্মাণও শুরু করে দিয়েছেন। বর্তমান অবস্থায় কেউ আর জমি বেচতে রাজি হচ্ছেন না। পদ্মা সেতুর জন্য প্রথম যখন অধিগ্রহণ করা হয়, তখন মূল্যের দেড়গুণ ক্ষতিপূরণ পেতেন মালিকরা। সরকার আইন পাল্টে ক্ষতিপূরণের হার তিন গুণ করেছে। তবে অনেক ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান জমি কেনার পর থেকেই জমির দাম বাড়তে শুরু করে। তাই এখন আর কেউ জমি বিক্রি করতে রাজি নন। কিন্তু জমি কেনার জন্য ঘুরছেন অনেকে।’

শিবচর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল লতিফ মোল্লা বলেন, ‘পদ্মা সেতু দক্ষিণ অঞ্চলের ২১ জেলার মানুষের প্রাণের দাবি ছিল। সরকার সেতুটি করেছে। আগামী ২৫ জুন সেটি প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করবেন। এতদিন দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল বিনিয়োগ ও ব্যবসা-বাণিজ্যের দিক দিয়ে পিছিয়েছিল। এ জনপদের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির বিরাট সুযোগ সৃষ্টি করেছে পদ্মা সেতু। আমাদের এই এলাকায় অনেকেই বিনিয়োগ করার পরিকল্পনা করেছে। এতে মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে।’

মাদারীপুর চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি হাফিজুর রহমান বাচ্চু খান বলেন, ‘একসময় মাদারীপুর পদ্মা নদীর কারণে অবহেলিত একটি জনপদ ছিল। পদ্মা সেতুর ঘিরে দক্ষিণ প্রান্তে উদ্যোক্তরা বিনিয়োগের কথা ভাবছেন। তবে বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য সরকারকে উপযোগী পরিবেশ তৈরিতে বিশেষ নজর দিতে হবে।’

জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুন বলেন, ‘পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে মাদারীপুরের শিবচর উপজেলায় বিভিন্ন মেগা প্রকল্পের জন্য জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে। কিছু প্রকল্পের কাজ ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে। সেতুকে ঘিরে চলমান মেগা প্রকল্পগুলো সম্পন্ন হলে দক্ষিণাঞ্চলের আর্থসামাজিক চিত্র বদলে যাবে। এখান থেকে মোংলা ও পায়রা বন্দর কাছে হওয়ায় গড়ে উঠবে কলকারখানা। বাড়বে কর্মসংস্থান ও ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষেত্র। আগামীতে এসব প্রকল্প চলমান থাকলে অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ হবে মাদারীপুর। বদলে যাবে দক্ষিণাঞ্চলের চিত্র।’

/এফআর/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
নোয়াখালী ভার্সেস বরিশাল: কারা বেশি রোমান্টিক!
নোয়াখালী ভার্সেস বরিশাল: কারা বেশি রোমান্টিক!
যুদ্ধকে কেন্দ্র করে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা মানবাধিকার লঙ্ঘনের সামিল: প্রধানমন্ত্রী
যুদ্ধকে কেন্দ্র করে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা মানবাধিকার লঙ্ঘনের সামিল: প্রধানমন্ত্রী
গ্যাস ব্যবহারে মিতব্যয়ী হওয়ার পরামর্শ জ্বালানি প্রতিমন্ত্রীর
গ্যাস ব্যবহারে মিতব্যয়ী হওয়ার পরামর্শ জ্বালানি প্রতিমন্ত্রীর
শ্রীলঙ্কার আরও তিন ক্রিকেটার করোনায় আক্রান্ত
শ্রীলঙ্কার আরও তিন ক্রিকেটার করোনায় আক্রান্ত
এ বিভাগের সর্বশেষ
যানবাহনের চাপ নেই পদ্মা সেতুতে
যানবাহনের চাপ নেই পদ্মা সেতুতে
ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের ২৫ কিলোমিটারে যানজট
ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের ২৫ কিলোমিটারে যানজট
ঈদযাত্রায় সড়কে প্রাণ গেলো ২ জনের
ঈদযাত্রায় সড়কে প্রাণ গেলো ২ জনের
জেলের জালে ৩১ কেজির বাগাড়
জেলের জালে ৩১ কেজির বাগাড়
জোর করে গরু নামাতে বাধা দেওয়ায় পুলিশের ওপর হামলা, গ্রেফতার ৩
জোর করে গরু নামাতে বাধা দেওয়ায় পুলিশের ওপর হামলা, গ্রেফতার ৩