শরিয়ত বয়াতির জামিন শুনানি ১২ ফেব্রুয়ারি

Send
টাঙ্গাইল প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৮:৩২, জানুয়ারি ১৪, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:৩৩, জানুয়ারি ১৪, ২০২০

আদালতে বয়াতি শরিয়ত সরকারটাঙ্গাইলে মহানবী (সা.) ও ইসলাম ধর্ম নিয়ে কটূক্তি করার অভিযোগে গ্রেফতার শরিয়ত বয়াতিকে তিন দিনের রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) বিকাল ৩টার দিকে টাঙ্গাইলের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলি আদালতে (মির্জাপুর) আনা হলে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন বিচারক আকরামুল ইসলাম। আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি এই মামলার জামিন শুনানির তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। আসামি পক্ষের আইনজীবী জিনিয়া বক্স এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

গত শনিবার (১১ জানুয়ারি) ভোরে ময়মনসিংহ জেলার ভালুকা উপজেলার বাশিল এলাকা থেকে শরিয়ত বয়াতিকে গ্রেফতার করা হয়। ওইদিন পুলিশ তাকে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠায়। পরে বিচারক তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। শরিয়ত বয়াতি টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুর উপজেলার জামুর্কী ইউনিয়নের আগধল্যা গ্রামের পবন মিয়ার ছেলে।

গত ৯ জানুয়ারি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মির্জাপুর থানায় শরিয়ত বয়াতির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন একই উপজেলার আগধল্যা দারুসসুন্নাহ ফোরকানিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক মাওলানা মো. ফরিদুল ইসলাম।

আসামি পক্ষের আইনজীবী জিনিয়া বক্স বলেন, ‘মহানবী (সা.) ও ইসলাম ধর্ম নিয়ে কটূক্তি করার অভিযোগে শরিয়ত বয়াতির বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে। তিন দিনের রিমান্ড শেষে আজ আদালতে আনা হলে বিচারক শরিয়তকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি এই মামলার জামিন শুনানির তারিখ নির্ধারণ করেছেন বিচারক। আশা করছি ওইদিন তার জামিন মঞ্জুর হবে।’

এজাহারে অভিযোগ করা হয়, শরিয়ত বয়াতি ২০১৯ সালের ২৪ ডিসেম্বর ঢাকা জেলার ধামরাই থানার রোহারটেক এলাকায় পালাগানের একটি অনুষ্ঠানে মহানবী (সা.), মসজিদের ইমাম ও ইসলামের নানা বিষয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করেন।

এদিকে, আজ মঙ্গলবার শরিয়ত বয়াতিকে আদালতে ওঠানো হবে–এমন খবরে আদালত চত্বরে ভিড় জমান বাউল শিল্পীরা।

টাঙ্গাইল জেলা বাউল সমিতির সাধারণ সম্পাদক জসিম সরকার বলেন, ‘অত্যন্ত দুঃখের সঙ্গে জানাচ্ছি, আমাদের বাউলশিল্পী শরিয়ত সরকারের গানের মঞ্চের একটি ভিডিও ভাইরাল করে একশ্রেণির সাম্প্রদায়িক লোক মামলা করে। সেই মামলায় শরিয়ত সরকারকে গ্রেফতার করে রিমান্ডে নেওয়া হয়। তাকে কেন রিমান্ডে দিতে হবে তা আমার বোধগম্য নয়। তার কাছ থেকে কী তথ্য বের করবে? সে যা বলেছে তার ভিডিও তো ভাইরাল হয়ে গেছে। আমি ভিডিওটি সম্পূর্ণ দেখেছি। এই ভিডিও বার্তা আর মামলার বিবরণে কোনও মিল নেই।’

তিনি দাবি করেন, ‘এই মামলায় বলা হয়েছে আল্লাহ ও রাসুল (সা.)-কে নিয়ে কটূক্তি করেছে। কিন্তু, ওই ভিডিওর কোথাও আল্লাহ ও রাসুলকে নিয়ে শরিয়ত সরকার কটূক্তি করেননি।’

বাউল জসিম সরকার আরও বলেন, ‘আমরা যখন বাউল গান শুরু করি তখন আল্লাহ ও রাসুলের (সা.) প্রতি শ্রদ্ধা-সম্মান রেখে শুরু করি। বাংলাদেশে যত আহালে বাইয়াত সংগঠন ও তরিকতপন্থী লোক আছেন, সবাই আমরা একাত্ম হয়েছি। এই বাউল সংগীতকে যারা বাংলা থেকে মুছে দেওয়ার পাঁয়তারা করছে আমরা তাদের প্রতিহত করতে চাই। সেই সঙ্গে শরিয়ত সরকারের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করছি।’

আরও পড়ুন- মহানবী (সা.) ও ধর্ম নিয়ে কটূক্তির অভিযোগ: গ্রেফতার বয়াতি তিন দিনের রিমান্ডে

 

 

/এফএস/টিএন/এমওএফ/

লাইভ

টপ